Monday 19th of August 2019 12:44:48 PM

জম্মু-কাশ্মীরের বিষয়ে ভারতের নেয়া পদক্ষেপ ঠেকাতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটেনের অন্তত ৪৫ জন পার্লমেন্ট সদস্য। জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের কাছে লেখা এক চিঠিতে তারা বলেছেন, কাশ্মীরের স্বায়ত্ত্বশাসনের ওপর ভারতের এই অসাংবিধানিক পদক্ষেপ ঠেকাতে জাতিসংঘ মহাসচিবকে পদক্ষেপ নিতে হবে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, “ভারত সরকার সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল এবং কাশ্মীরের স্বায়ত্ত্বশাসন কেড়ে নেয়ার খবরে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।” ভারত সরকারের একতরফা সিদ্ধান্তকে কাশ্মীরের রাজনৈতিক মর্যাদা ও সেখানকার স্বায়ত্ত্বশাসনের ওপর সরাসরি হামলা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। ৩৭০ ধারা বাতিল করায় ওই অঞ্চল বিপজ্জনক পরিণতি দেখা দেবে বলেও সতর্ক করা হয়েছে।

চিঠিতে এমপিরা আরো বলেছেন, “আমরা লক্ষ্য করেছি যে, প্রধানমন্ত্রী মোদি দীর্ঘদিন থেকে যুদ্ধংদেহী মনোভাব পোষণ করেন এবং মুসলিম-বিদ্বেষের ক্ষেত্রে  চরম উগ্র হিন্দুত্ববাদিতাকে রাজনৈতিক দর্শন হিসেবে গ্রহণ করেছেন। তার প্রশাসন ভারতের একমাত্র মুসলিম অধ্যুষিত রাজ্যের স্বায়ত্বশাসন কেড়ে নিয়ে মারাত্মক সংঘাতের পথ উন্মোচন করেছেন। জাতিসংঘের মহাসচিব হিসেবে আমরা আপনাকে বিষয়টি দ্রুত নিরাপত্তা পরিষদের দৃষ্টিতে আনার ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করছি।” চিঠিতে আরো বলা হয়েছে, কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব রয়েছে এবং দু দেশ এখন প্রায় যুদ্ধের  মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে।

চিঠিতে ব্রিটিশ ও পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত এমপিদের পাশাপাশি বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত এমপি রুশনারা আলী ও রুপা হক সই করেছেন।পার্সটুডে

নড়াইল প্রতিনিধিঃ আগামীকাল পবিত্র ঈদুল আযহা। ইতিমধ্যে পুরুষের পাশাপাশি নারীরা কেনাকাটা সম্পন্ন করেছে। ঈদে ভাল পোষাক পরিধানের পাশাপাশি সাজগোজর বিষয়টি নারীদের জন্য গুরুত্বপুর্ণ। তাই রূপচর্চার জন্য নারীরা ভিড় জমাচ্ছেন বিউটি পার্লারগুলোতে। তাই জেলার অর্ধশতাধিক বিউটি পার্লারে দুই শতাধিক কর্মী সকাল থেকে রাত পর্যন্ত রূপচর্চার কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।
নড়াইল শহরের নিধি বিউটি পার্লার, প্রবর্তনা বিউটি পার্লার, রূপকথা বিউটি পার্লার, পার্সোনা বিউটি পার্লার, যুথী বিউটি পার্লার, অপ্সরী বিউটি পার্লার, পুতুল বিউটি পার্লারসহ অন্যান্য পার্লারগুলিতে ঈদ উপলক্ষে নারীদের ভিড় পড়েছে।
১২ বছরের তরুণী থেকে শুরু করে ৪৫ বছর বয়সী নারীরাই বেশি রূপচর্চার জন্য পার্লারে ভিড় করছেন।
নিধি বিউটি পার্লারের মালিক মধুমিতা জানান, সারা বছর বিউটি পার্লারে ভিড় থাকলেও ঈদের সময় ভিড় বেড়ে যায়। ঈদে ফেসিয়াল, হেয়ারকাট, ব্রু ফ্লাগ, রিবন্ডিং, পেডিকিওর, মেনিকিওরসহ বিভিন্ন ধরনের কাজ চলছে।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাটে পূর্ব শত্র“তার জেরধরে প্রতিপক্ষের ধারালো দায়ের কুপে ক্ষতবিক্ষত করেছে আক্তার মিয়া (৩০) নামে এক ব্যক্তিকে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২৯ জুলাই সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের কুলিয়ার ছড়া নামক স্থানে। গুরুতর আহত অবস্থায় আক্তারকে প্রথমে চুনারুঘাট হাসপাতালে ও পরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেক কগ-২ আদালতে সুমন মিয়া (২৫) ও তার পিতা আব্দুল করিম (৫৫) কে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার বিবরণে জানা যায়, ২৯ জুলাই সন্ধ্যা ৭টার দিকে কালেঙ্গা ছড়া জমি দেখতে যায়। এ সময় কুলিয়ার ছড়া ব্রীজের কাছে উৎপেতে থাকা আব্দুল করিম ও সুমন মিয়া দেশীয় অস্ত্র রামদা দিয়ে আক্তার মিয়াকে কুপিয়ে ডান হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এ সময় তার শোর চিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। পরে গুরুতর রক্তাক্ত অবস্থায় আক্তার মিয়াকে চুনারুঘাট হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

বর্তমানে সে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এ ব্যাপারে গত ০৯ আগষ্ট উল্লেখিত পিতা-পুত্রকে আসামী করে আক্তারের চাচা আবু তাহের বাদী হয়ে হবিগঞ্জ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-১১/১৯ইং। এ ঘটনার পর থেকে পিতা-পুত্র পলাতক রয়েছে। থানার ওসি শেখ নাজমুল হক বলেন, তাদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ মামলার আয়ূ এস.আই মলাই মিয়া।

ক্যান্সার রোগী আমেনা খাতুন বলেন, আমি আমার রোগের পরিচয় এবং “ক্যান্সার কার্ড দেখালেও আনছার সদস্যরা আমাকে প্রবেশ করতে দেয়নি। অথচ আমার পিছনে থাকা যাত্রীদের টাকার বিনিময়ে লাইন থেকে নিয়ে আগে ভিতরে ঢুকানো হয়েছে”

এম ওসমানঃ আসন্ন ঈদ-উল-আযহার ছুটিতে ভারতে যাওয়া পর্যটকদের সংখ্যা বেড়েছে। ভিসার সহজলভ্যতা ও কম খরচের কারণে অনেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ কাটাতে এবং ঘুরতে ভারত যাচ্ছেন।
শনিবার (৯ আগষ্ট) সকালে সরোজমিনে বেনাপোল চেকপোস্টে ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। নিরাপত্তা ও বিশৃংখলা এড়াতে রয়েছে পুলিশসহ কয়েকটি নিরাপত্তা বাহিনী।

সকাল ৭ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত বেনাপোল ইমিগ্রেশনে সারাদিনই যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন লক্ষ্য করা যায়। বেনাপোল চেকপোষ্ট এলাকায় সকাল থেকে ভীড় জমায় পাসপোর্টযাত্রীরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। যারা লাইনে পিছনে আসছে তারা এখানকার কিছু অসাধু আনসার সদস্যদের টাকার বিনিময়ে চলে যাওয়ায় দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে সেখানে ধাক্কাধাক্কিতে আন্তর্জাতিক টার্মিনালের প্রবেশের পথের গ্লাস ভেঙ্গে যায়।

এ সময় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ব্যর্থ হয়। দ্রুত বেনাপোল পোর্ট থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ভারত গমনকারী পাসপোর্ট যাত্রী অমল বোস বলেন, দীর্ঘ তিন ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। এর আগে কোন দিন এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়নি।
ঢাকা থেকে আসা ক্যান্সার  রোগী আমেনা খাতুন বলেন, আমি আমার রোগের পরিচয় এবং ক্যান্সার কার্ড দেখালেও আনছার সদস্যরা আমাকে প্রবেশ করতে দেয়নি। অথচ আমার পিছনে থাকা যাত্রীদের টাকার বিনিময়ে লাইন থেকে নিয়ে আগে ভিতরে ঢুকানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, গত দুই মাস যাবৎ এরকম অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনে। এর আগে এর চেয়ে দ্বিগুন লোক ভারতে প্রবেশ করলেও এরকম লাইনের সৃষ্টি হয়নি। তারা অভিযোগ করে বলে, ঢাকা থেকে এস,বি আসছে এরকম দোহাই দিয়ে পাসপোর্ট যাত্রীদের ভোগান্তিতে ফেলছে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ। পাসপোর্ট যাত্রীরা যে ভাবে দ্রুত তাদের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে যেতে পারবে সে ব্যবস্থা করা উচিৎ। আগে যে ভাবে পাসপোর্টযাত্রীরা ভারতে যাতায়াত করতো তাতে কোন ঝামেলা হয়নি। কিন্তু বর্তমানে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের ভোগাচ্ছে ।
অপরদিকে, বেনাপোল স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীদের নিকট থেকে ৪৫ টাকা টার্মিনাল চার্জ নিলেও তাদের দিতে পারছে না বসার স্থান।
মাত্র ৫০ জনের সীট রয়েছে টার্মিনালের ভিতরে। অথচ এ পথে প্রতিদিন তিন থেকে চার হাজার যাত্রী ভারতে প্রবেশ করে। যাত্রীরা টার্মিনাল চার্জ দিয়ে বাহিরে রোদ বৃষ্টিতে ভিজছে। সব মিলিয়ে বেনাপোল চেকপোষ্টে অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনায় পাসপোর্ট যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।
বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি আবুল বাশার বলেন, ঈদের ছুটিতে যাত্রী সংখ্যা বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে বেশি লক্ষ্য করা গেছে। যাত্রীদের সেবায় আমাদের ডেস্ক একটানা কাজ করে যাচ্ছে।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ শনিবার দুপুর  ১২টায় এ উপলক্ষে উপজেলা সভাকক্ষে আলোচনা সভা ও পত্রিকার মোড়ক উন্মোচন করা হয়। সভায় জনমত নিউজ এর সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি সভাপতি বিশিষ্ট সমাজসেবক ও হেলিওস হোল্ডিং কোম্পানির ম্যানেজিং ডিরেক্টর এমএ মালেকের সভাপতিত্বে ও সম্পাদক রায়হান আহমেদের সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন-উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্কর।
বিশেষ অতিথি ছিলেন-উপজেলা নির্বাহী অফিসার মঈন উদ্দিন ইকবাল, পৌরসভার মেয়র নাজিম উদ্দিন সামছু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইন-চার্জ শেখ নাজমুল হক, জি,আ র ফাউন্ডেশনের ফাউন্ডার চেয়ারম্যান মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, চুনারুঘাট প্রেসক্লাবের সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক এস এস সুলতান খান,সাংবাদিক  ফারুক মাহমুদ, সমাজসেবক রুমন ফরাজী, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, ব্যবসায়ী নেতা সাজিদুল ইসলাম প্রমুখ।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলে ঈদ-উল-আযহার প্রধান জামায়াত নড়াইল কেন্দ্রীয় পৌর ঈদগাহ ময়দানে সকাল ৭ টায় অনুষ্ঠিত হবে। এখানে নামাজ আদায় করবেন দূর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার (তদন্ত) এ,এফ,এম আমিনুল ইসলাম। এ উপলক্ষ্যে ঈদের জাতান সুষ্ঠ ও সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করতে জেলা প্রশাসন ও নড়াইল পৌরসভার থেকে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।
এছাড়া নড়াইল জমিদারবাড়ী ঈদগাহ সকাল ৭ টা, পুলিশ লাইনস ,জেলা কারাগার বরাশুলা ঈদগাহ, কুড়িগ্রাম ঈদগাহ সাড়ে ৭ টায়, মহিলা মাদ্রাসা ,সদর থানা মসজিদে ৮ টায়, মাছিমদিয়া ঈদগাহ, আলাদাৎপুর জামে মসজিদ পুরাতন বাস টার্মিনাল জামে মসজিদ, আনসার অফিস জামে মসজিদ,ভওয়াখালি জামে মসজিদ, বিজয়পুর ঈদগাহ ৯ টায় ও জেলার বিভিন্ন মসজিদ/ঈদগাহে তাদের সুবিধামত সময়ে ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে ।

“পৃথিবীর প্রথম মানব হজরত আদম (’আলাইহিস সালাম) তার সন্তান হাবিল ও কাবিল থেকেই কুরবানীর এই মহান ত্যাগের সুচনা” 

“তাঁর কাছে কুরবানীর রক্ত ও গোশত পৌঁছে না; পৌঁছে কেবল কুরবানিদাতার তাকওয়া বা ধার্মিকতা। ইবাদত কবুলের প্রধানতম শর্ত হচ্ছে, হালাল-রুজি। তাই, হারাম মাল থেকে কুরবানী করা বিলকুল হারাম”

পবিত্র ঈদুল আযহা বা কুরবানীর (আরবি: قربانى ) ঈদ হচ্ছে, ত্যাগের বিনিময়ে আনন্দ লাভের ঈদ। সামর্থ্যবান ঈমানদারগণ (বিশ্বাসীরা) শরীয়তে নির্ধারিত গৃহপালিত সুস্থ ও সার্বিক সক্ষম পশু ক্রয় করে বা পালন করে কুরবানী করে তাদের স্রষ্টা মহামহিম আল্লাহ জাল্লা শানুহু’র দরবারে নিজেদের ত্যাগ সুনিপুণভাবে পেশ করে থাকেন।

কুরবানীর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস:  যারা বলে ইসলাম এর বয়স মাত্র ১৫০০ বছর এবং কুরবানীর ত্যাগের ইতিহাস আরও কম;তারা ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে অজ্ঞ। কুরবানীর ত্যাগ  প্রথম মানব হযরত আদম’র (’আলাইহিস সালাম) সময় থেকেই চালু হয়েছে। আল-কোরআনে রয়েছে, আদমের দু’ ছেলের (হাবিল ও কাবিলের) বৃত্তান্ত তুমি তাদের যথাযথভাবে শুনিয়ে দাও। যখন উভয়ে কুরবানী করলো – তখন একজনেরটা কবুল হলো এবং আরেকজনেরটা কবুল হলো না। তাদের একজন বললো: আমি তোমাকে হত্যা করবোই। আরেকজন বললো: আল্লাহ তো সংযমীদের কুরবানিই কবুল করে থাকেন (সূরা আল-মায়িদা)।

আরেক জায়গায় বলা হয়েছে, ইব্রাহীম যখন আমার কাছে দোয়া করলো: হে আমার প্রভু! তুমি আমাকে একটি নেককার ছেলে দান করো।” তখন আমি তাকে একটি ধৈর্যশীল ছেলের সু-সংবাদ দিলাম। অতঃপর সে যখন তার বাবার সঙ্গে চলাফিরা করার বয়সে পৌঁছলো – তখন ইব্রাহীম বললো: বাছা, আমি স্বপ্নে দেখেছি যে, আমি তোমাকে জবাই করছি! এখন বলো যে, তোমার মত কী ? সে বললো: বাবা, আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে – আপনি তা-ই করুন। আল্লাহ্ চাইলে, আপনি আমায় ধৈর্যশীলই পাবেন। দু’ জনেই যখন আনুগত্যে মাথা নুইয়ে দিলো এবং ইব্রাহীম তাকে কাত করে শুইয়ে দিলো – তখন আমি তাকে ডাক দিলাম: হে ইব্রাহীম! তুমি স্বপ্নাদেশ বাস্তবায়ন করলে।এভাবেই আমি নেককারদের প্রতিদান দিয়ে থাকি। এটি ছিলো নির্ঘাত একটি স্পষ্ট পরীক্ষা। আমি এক মহান কুরবাণীর বিনিময়ে ছেলেটিকে ছাড়িয়ে নিলাম। আর আমি তাঁকে পরবর্তীদের কাছে স্মরণীয় করে রাখলাম। ইব্রাহীমের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক! আমি এভাবেই নেককারদের প্রতিদান দিয়ে থাকি। সে আমার ঈমানদার বান্দাদের অন্তর্গত ছিলো (সূরা সাফফাত:১০০-১১১)।

কুরবানি সুন্নতে ইব্রাহীম: দুনিয়ায় প্রথম কুরবানি হাবিল ও কাবিল দিয়েছিলো। মহানবীর (আলাইহিস সলাতু ওয়াস সালাম) আগেকার নবীগণের (’আলাইহিমুস সালাম) প্রতি উম্মতে মুহাম্মদীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার নিদর্শন হচ্ছে, প্রধানতম ধর্মীয় উৎসব কুরবানির ঈদ। মুসলিম জাতির জনক হযরত ইব্রাহীম (’আলাইহিস সালাম) কর্তৃক তাঁর ছেলে হযরত ইসমাইলকে (’আলাইহিস সালাম) কুরবানি করার ঘটনা স্মরণ করে মুসলমানগণ তা পালন করে থাকেন। যিলহজের ১০ থেকে ১২ তারিখ পর্যন্ত কুরবানি করা যায়। আল্লাহ তা’য়ালা বলেন: প্রত্যেক উম্মতের জন্যে আমি কুরবানির বিধান রেখেছিলাম যেনো তারা ঐ পশু জবাই করার সময় আল্লাহর নাম এই ভেবে স্মরণ করে যে, তিনি চতুষ্পদ জন্তু থেকে তাদের জন্যে রিজিক রেখেছেন (সূরা হজ)।

এ আয়াতের ব্যাখ্যায় আল্লামা নাসাফী ও যামাখশারী তাদের তাফসীরে লিখেছেন: আদম থেকে মুহাম্মাদ (’আলাইহিমুস সলাতু ওয়াস সালাম) পর্যন্ত প্রত্যেক জাতিকে আল্লাহ তা’য়ালা তাঁর নৈকট্য পেতে কুরবানির বিধান দিয়েছেন; অর্থাৎ প্রত্যেক শরীয়তে কুরবানির বিধান ছিলো এবং এখনো ইসলামসহ অন্যান্য ধর্মে তা দেখা যায়। অবশ্য সেসব কুরবানির কোন বর্ণনা কোনো কিতাবে নির্দিষ্টভাবে পাওয়া যায় না। তাই, ওগুলোর নিয়ম-কানুন জানা যায়নি। আল্লাহ্‌ ও তাঁর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সালাম এ ব্যাপারে ভালো জানেন।

আল্লাহর কাছে কুরবানী দাতার তাকওয়াই শুধু পৌঁছে: আমরা কুরবানির গোশত খেলেও কুরবানির লক্ষ্য আল্লাহকে সন্তুষ্ট করা। তাঁর কাছে কুরবানির রক্ত ও গোশত পৌঁছে না; পৌঁছে কেবল কুরবানিদাতার তাকওয়া বা ধার্মিকতা। ইবাদত কবুলের প্রধানতম শর্ত হচ্ছে, হালাল-রুজি। তাই, হারাম মাল থেকে কুরবানি করা বিলকুল হারাম। নবীজী যেভাবে কুরবানির নিয়ম শিখিয়ে গেছেন, সেভাবে কুরবানি করলেই আল্লাহ্পাক খুশি হবেন। নবীজী ফরমান: কুরবানির দিনে (কুরবানির পশুর রক্ত) বইয়ে দেয়ার চেয়ে আদম সন্তানের আর কোনো আমল আল্লাহর কাছে প্রিয় নয়। এদিন (কুরবানির পশুর) রক্ত মাটিতে পড়ার আগেই তা আল্লাহ’র কাছে কবুল হয়ে যায়। কাজেই, তোমরা সানন্দে কুরবানি করো। কুরবানির পশুর প্রতিটি লোমের বদলে একটি করে সাওয়াব পাওয়া যায়। আর রোজ হাশরে কুরবানির পশু কুরবানিদাতাকে পিঠে করে নিয়ে পুলসিরাত পার করিয়ে জান্নাতে পৌঁছিয়ে দেবে।

যার উপর কুরবানী ওয়াজিবঃ স্বাধীন, মুকিম ও মালেকে নেসাব, অর্থাৎ যতোটুকু সম্পদের মালিক হলে, ফেতরা দেয়া ওয়াজিব হয়। মালেকে নেসাবের ব্যাখ্যা হচ্ছে, যিনি মৌলিক চাহিদা বা প্রয়োজনীয় খরচের অতিরিক্ত সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপা বা এ পরিমাণ অর্থ বা জিনিসপত্রের মালিক (ফতওয়ায়ে আলমগীরী)।

মাসয়ালা: কেউ যদি বলে যে, আমার অমুক কাজ হয়ে গেলে, কুরবানি করবো বা আল্লাহর কসম! এ পশুকে আমি অবশ্যই আল্লাহর ওয়াস্তে কুরবানি করবো – তাহলে, তারা ধনী বা গরীব হলেও তাদের উপর কুরবানি ওয়াজিব (বাদায়ে-৫৬২)।

মাসয়ালা: কোনো ধনী লোকের মানতের কুরবানি দিয়ে ওয়াজিব কুরবানি আদায় হবে না, বরং তাকে আলাদাভাবে দু’টি কুরবানি (মানত ও ওয়াজিব) করতে হবে। অবশ্য কুরবানির দিন শপথ করলে, শপথের কুরবানি দিয়ে ওয়াজিব কুরবানিও আদায় হয়ে যাবে।

মাসয়ালা: কুরবানির পশু (উট, গরু ও মহিষ) কেনার আগে অংশীদার ঠিক করে নেয়া উত্তম; কেনার পরেও অংশীদার বানাতে পারবে। কিন্তু মাকরূহ হবে।

মাসয়ালা: গরীব লোক কুরবানির নিয়তে পশু কেনার পর, তা হারিয়ে গেলে এবং পরে পাওয়া গেলে, তাতে অংশীদার নেয়া মাকরূহ।

মাসয়ালা: কুরবানির পশুতে (উট, গরু ও মহিষ) জীবিত, মৃত ও আক্বিকার অংশীদার হওয়া যাবে। তবে, শর্ত হচ্ছে, আল্লাহকে সন্তুষ্ট করাটা সবার উদ্দেশ্য হতে হবে; শুধু গোশত খাওয়ার উদ্দেশ্য হলে, হবে না।

মাসয়ালা: কুরবানিদাতা তার মৃত মা-বাবা, দাদা-দাদী নানা-নানী, ভাই-বোন প্রমুখের রূহে সাওয়াব পৌঁছাতে আরেক অংশ কুরবানি দিতে পারবে।

মাসয়ালা: কুরবানি দেয়া ওয়াজিব – এমন কারো অনুমতি ছাড়া তার তরফে কুরবানি দেয়া হলে, তার ওয়াজিব কুরবানি আদায় হবে না। তখন ঐ পশুতে অন্যান্য শরীকের কুরবানিও হবে না। কিন্তু যার প্রতি বছর এভাবে কুরবানি করার অভ্যাস আছে, তার কুরবানি জায়েয হবে। তবে, এক্ষেত্রেও অনুমতি নেয়া উচিত (কাজী খান)।

মাসয়ালা: কুরবানির পশু হারিয়ে যাওয়ার পর, আরেকটি কেনা হলে এবং তারপর হারানো পশুটি পাওয়া গেলে, ধনীর (মালেকে নেসাব) জন্যে একটি জবাই করলেই কুরবানি আদায় হবে। কিন্তু গরীবের জন্যে দু’টি পশুই কুরবানি করা ওয়াজিব। তবে, প্রথমটির চেয়ে দ্বিতীয়টির দাম যেনো কম না হয়। কম হলে, (ধনীর ক্ষেত্রে) যতো টাকা কম হবে – তা সদকা করে দিতে হবে (বাদায়ে)।

মাসয়ালা: সমস্যার কারণে কেউ নির্ধারিত সময়ে কুরবানি দিতে না পারলে, পরে একটি ভেড়া বা ছাগল বা দুম্বার দাম সদকা করে দেয়া ওয়াজিব। আর মৃত্যুযাত্রীর (ধনী) জন্যে অসিয়ত করে যাওয়া কর্তব্য।

মাসয়ালা: কুরবানির সময় চলে যাওয়ার পর, কুরবানির পশু জবাই করলে, তা সদকা করে দেয়া ওয়াজিব।

মাসয়ালা: কুরবানির সময়ের মাঝে (১০, ১১ ও ১২ই যিলহজ) কুরবানির পশুর দাম সদকা করে দিলে, কুরবানির ওয়াজিব আদায় হবে না, বরং গুনাহগার হবে। কেননা, কুরবানি নামাজ, রোজা, হজ ও যাকাতের মতোই একটি ইবাদত। যেভাবে নামাজ দিয়ে যাকাতের ফরজ আদায় হয় না – সেভাবে (কুরবানির সময়ে) সদকা দিয়েও কুরবানি আদায় হবে না।

মাসয়ালা: কুরবানির দিনগুলোতে কুরবানীর নিয়তে হাঁস-মুরগী জাতীয় প্রাণী জবাই করা মাকরূহ (আলমগীরী)।

মাসয়ালা: নবীজী (’আলাইহিস সলাতু ওয়াস সালাম) যেমনি তাঁর মৃত উম্মতের তরফ থেকে কুরবানী করেছেন – তেমনি তাঁর তরফ থেকেও কুরবানি করাটা উম্মতের জন্যে সৌভাগ্য ও সওয়াবের ব্যাপার (বাহারে)। তাই, গরু, উট ও মহিষ দিয়ে কুরবানী করলে, নফল হিসেবে একভাগ তাঁর জন্যে কুরবানি দেয়া উত্তম।

কুরবানীর পশুর বয়স: কুরবানীর ছাগল অন্তত এক, গরু দু’ ও উট পাঁচ বছর বয়সী হতে হবে। সুন্দর ও নিখুঁত পশু বাছাই করা উত্তম। অন্ধ, খোঁড়া, জবাইয়ের জায়গায় যেতে অক্ষম, লেজ, শিং কিংবা কান কাটা বা ভাঙ্গা বা দুর্বল ইত্যাদি পশু দিয়ে কুরবানি হবে না।

অংশীদারী কুরবানীর নিয়মঃ গৃহপালিত গরু, মহিষ, উট, ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা দিয়েই শুধু কুরবানি হবে। ভেড়া, দুম্বা ও ছাগল দিয়ে একজন এবং গরু, মহিষ ও উটের প্রতিটিতে সর্বোচ্চ সাত জন কুরবানী দিতে পারবে। তবে শর্ত হচ্ছে, সবার কুরবানীর নিয়ত শুধু আল্লাহর ওয়াস্তেই হতে হবে; একজনেরও গোশত খাওয়ার নিয়ত থাকলে, কারোই কুরবানী হবে না। অংশীদাররা কুরবানীর গোশত পাল্লা দিয়ে মেপে ভাগ করে নেবেন। মাপে বেশি-কম যেনো না হয়। কয়েক অংশীদার কুরবানীর পশু কেনার পর, কোনো ভাগ বা অংশ বাকি থাকলে, অন্যকেও শামিল করতে পারবে।

কুরবানীর নিয়ম: জবাই করার সময় বিসমিল্লাহ বলতে হবে এবং তাকবীর বলা মোস্তাহাব। যেমন- হযরত জাবের (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহু) বলেন: একটি দুম্বা আনা হলো। আল্লাহ’র রাসুল (সল্লাল্লাহু ’আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তা জবাই করলেন এবং বললেন ‘বিসমিল্লাহে ওয়া আল্লাহু আকবর। হে আল্লাহ, এটা আমার তরফ থেকে এবং আমার যেসব উম্মত কুরবানী করতে পারেনি – তাদের তরফ থেকে।

আরেক হাদীছে এসেছে, নবীজী দু’ শিংওয়ালা ভেড়া জবেহ করার সময়ে বিসমিল্লাহ ও আল্লাহু আকবার বললেন। তিনি আরো বললেন: “হে আল্লাহ্, এটি তোমার তরফ থেকে, তোমারই জন্য” বলা যেতে পারে। যার তরফ থেকে কুরবানি করা হচ্ছে – তার নাম উল্লেখ করে দোয়া করাও জায়েজ।

এ ভাবে বলা: হে আল্লাহ্, তুমি অমুকের তরফ থেকে কবুল করে নাও। মা আয়েশা (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহা) বর্ণনা করেন: আল্লাহ’র রাসুল দুম্বা কুরবানি করার সময় বললেন: আল্লাহ’র নামে, হে আল্লাহ, আপনি মুহাম্মাদ, তার পরিবার-পরিজন এবং তার উম্মতের তরফ থেকে কবুল করে নিন। কুরবানিদাতার নিজের পশু নিজে জবাই করা উত্তম। অবশ্য অন্যকে দিয়েও জবাই করানো যায়। নবীজী তেষট্টিটি কুরবানির পশু নিজে জবাই করে বাকিগুলো মওলা আলীকে জবাই করার দায়িত্ব দেন (মুসলিম)। আর হযরত আবু মুসা আশআরী (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহু) তাঁর মেয়েদের নিজ হাতে নিজেদের কুরবানির পশু জবাই করতে নির্দেশ দিয়েছেন (ফতহুল বারী)।

কুরবানীর পশুর সঙ্গে ভালো আচরণঃ জবাই করার সময়ে পশুটির সঙ্গে ভালো আচরণ করতে হবে এবং খেয়াল রাখতে হবে, সে যেনো কষ্ট না পায়। নবীজী ফরমান: আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সকল বিষয়ে সবার সঙ্গে সুন্দর ও কল্যাণকর আচরণ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

সুতরাং তোমরা যখন হত্যা করবে,তখন সুন্দরভাবে করবে এবং যখন জবাই করবে, তখনও তা সুন্দরভাবে করবে। তোমাদের কেউ যেনো ছুরি ধার করে নেয় এবং যাকে জবাই করা হবে,তাকে যেনো প্রশান্তি দেয় (মুসলিম)।

আর উটকে নহর করতে হবে।নহর হচ্ছে, উটটি তিন পায়ে দাঁড়িয়ে থাকবে এবং সামনের বাম পাটি বাঁধা থাকবে। ওর বুকে ছুরি চালানো হবে। আল্লাহুতা’লা ফরমান: সুতরাং সারিবদ্ধভাবে দাঁড়ানো অবস্থায় ওদের উপরে তোমরা আল্লাহর নাম উচ্চারণ কর (মুসলিম)।

ইবনে আব্বাস (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহু) বলেন: এর মানে হলো, তিন পায়ে দাঁড়িয়ে থাকবে এবং সামনের বাম পা বাঁধা থাকবে (ইবনে কাসির)। উট ছাড়া অন্যান্য জন্তু বাম কাতে শোয়ায়ে ডান হাত দিয়ে গলায় ছুরি চালাতে হবে। বাম হাতে জন্তুটির মাথা ধরে রাখতে হবে। মোস্তাহাব হচ্ছে, জবাইকারী তার পা জন্তুটির ঘাড়ে রাখবে।

কুরবানীর গোশত কারা খেতে পারবেনআল্লাহুতা’লা ফরমান: অত:পর তোমরা তা থেকে খাও এবং দু:স্থ ও অভাবীকে খাওয়াও (সূরা হজ্ব:২৮)। নবীজী ফরমান: তোমরা নিজেরা খাও, অন্যকে খাওয়াও এবং সংরক্ষণ করো (বোখারি। ‘খাওয়াও’ শব্দটি দিয়ে অভাবীদের দান করা এবং ধনীদের উপহার হিসেবে দেয়াকে বোঝায়। কতোটা নিজেরা খাবে, কতোটা দান করবে এবং কতোটা উপহার হিসেবে দেবে – এ সম্পর্কে পবিত্র কুরআন ও হাদীছে কিছু বলা হয়নি।

তবে, উলামায়ে কেরাম বলেছেন: কুরবানির গোশত তিন ভাগ করে একভাগ নিজেদের খাওয়ার জন্যে রাখা, এক ভাগ গরীবদের দান করা এবং এক ভাগ উপহার হিসেবে আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও প্রতিবেশীদের দেয়া মোস্তাহাব। এ গোশত যতোদিন ইচ্ছা সংরক্ষণ করে খাওয়া যাবে। কুরবানির পশুর গোশত, চর্বি ইত্যাদি বিক্রি করা না-জায়েজ। নিজের কাজ নিজেরা করে নিলে ভালো। অন্যের মাধ্যমেও কুরবানির কাজ সমাধা করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে কসাই বা অন্য কাউকে পারিশ্রমিক হিসেবে কুরবানির গোশত, চামড়া ইত্যাদি দেয়া জায়েজ নয়। পারিশ্রমিক হিসেবে টাকা দিতে হবে। হাদীছে এসেছে, তা প্রস্তুতকরণে তা থেকে কিছু দেয়া হবে না (মুসলিম)। তবে, দান বা উপহার হিসেবে কসাইকে কিছু দেয়া যাবে।

কুরবানীর পশুর গোশত বিক্রি করা যাবে না: হযরত আলী ইবনে আবী তালিব (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহু) বলেন, নবীজী আমায় তাঁর (কুরবানির উটের) আনুষঙ্গিক কাজ শেষ করতে বলেছিলেন। তিনি কুরবানির পশুর গোশত, চামড়া ও আচ্ছাদনের কাপড় ছদকা করতে আদেশ করেন এবং এর কোনো অংশ কসাইকে দিতে নিষেধ করেন। তিনি বললেন: আমরা তাকে (তার পারিশ্রমিক) নিজের পক্ষ থেকে দেবো (বুখারী ও মুসলিম)।

ঈদের নামাজের আগে কুরবানী না করা: কোনো কোনো সাহাবী ভুলে ঈদের নামাযের আগে কুরবানি করলে, নবীজী তাদের পুনরায় কুরবানি করতে আদেশ দেন (বুখারী ও মুসলিম)।

মৃত ব্যক্তির তরফে কুরবানী : মৃত ব্যক্তিদের তরফে কুরবানি করা সওয়াবের কাজ। কুরবানি এক রকম সদকাও বটে। তাই, মৃত ব্যক্তির নামে যেমনি সদকা করা যায় – তেমনি কুরবানিও দেয়া যায়। মা আয়েশা (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহা) বর্ণনা করেন: কেউ আল্লাহ’র রাসুলের (সল্লাল্লাহু ’আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কাছে এসে জিজ্ঞেস করল: হে আল্লাহ’র রাসূল! আমার মা হঠাৎ ইন্তেকাল করেছেন। কোনো অসিয়ত করে যেতে পারেননি। মনে হচ্ছে, তিনি কোনো কথা বলতে পারলে, অসিয়ত করে যেতেন। এখন আমি তার তরফ থেকে সদকা করলে, তিনি কি এর সওয়াব পাবেন? তিনি উত্তর দিলেন: হাঁ (মুসলিম)। তেমনি এক বা একাধিক মৃত ব্যক্তির জন্য সওয়াব পাঠানোর উদ্দেশে কুরবানি দেয়া জায়েজ। আর কোনো কারণে মৃত ব্যক্তির জন্যে কুরবানি ওয়াজিব হয়ে থাকলে, তার জন্যে পূরো একটি কুরবানি করতে হবে।

অনেক সময় দেখা যায়, অনেকে নিজেকে বাদ দিয়ে মৃত ব্যক্তির জন্যে কুরবানি করেন। এটা মোটেই ঠিক নয়। ভাল কাজ নিজেকে দিয়ে শুরু করতে হয়। এরপর অন্যান্য জীবিত ও মৃত ব্যক্তির জন্যে তা করা যেতে পারে। মা আয়েশা ও আবু হুরাইরা (রাদ্বিআল্লাহু ’আনহুমা) বর্ণনা করেন যে, আল্লাহ’র রাসুল (সল্লাল্লাহু ’আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কুরবানির নিয়তে দু’টি দুম্বা কিনলেন – যা ছিলো বড়, হৃষ্টপুষ্ট, শিংওয়ালা, সাদা-কালো বর্ণের ও খাসি। একটি তিনি তাঁর সেসব উম্মতের জন্যে কুরবানি করলেন – যারা আল্লাহর একত্ববাদ ও তাঁর রাসুলের রিসালাতের সাক্ষ্য দিয়েছে। অন্যটি তাঁর নিজের ও পরিবারবর্গের জন্যে কুরবানি করলেন (ইবনে মাজা)। মৃত ব্যক্তি তার সম্পদ থেকে কুরবানি করার অসিয়ত করে গেলে, তার জন্যে কুরবানি করা ওয়াজিব হয়ে যাবে।

অংশীদারী কুরবানী: একে ‘ভাগে কুরবানি দেয়া’ বলা হয়। এর দু’টি পদ্ধতি হতে পারে:

(এক) সওয়াবের ক্ষেত্রে অংশীদার হওয়া। যেমন-কয়েকজনে মিলে একটি বকরি কিনে একজনকে এর মালিক বানিয়ে দিল। এখন সে বকরিটি কুরবানী করলে, ক্রেতারাও সওয়াব পাবে।

(দু) মালিকানার অংশীদারীর ভিত্তিতে কুরবানি। যেমন- দু’ বা ততোধিক ব্যক্তি একটি বকরি কিনে সবাই মালিক হয়ে কুরবানি করা। এভাবে কুরবানি শুদ্ধ হবে না। তবে, উট, গরু ও মহিষের ক্ষেত্রে এ পদ্ধতি জায়েজ। কুরবানী আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিনের নৈকট্য লাভের উপায়। তাই, শরীয়তসম্মত সময়, সংখ্যা ও পদ্ধতি অনুসারেই তা আদায় করতে হবে। আল্লাহ ও তার প্রিয় রাসুল অধিক জ্ঞাত।

লেখক,কলামিষ্ট,কবি,সাহিত্যিক ও সাংবাদিক-আনিছুল ইসলাম আশরাফী,প্রধান সম্পাদক “আমার সিলেট টুয়েন্টি ফোর ডটকম”

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc