Monday 17th of June 2019 12:39:44 AM

নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার সরুশুনা গ্রামে মোটর সাইকেলের ধাক্কায় ফরিদ বিশ^াস (৬০) নামে এক পথচারী নিহত হয়েছে। শুক্রবার (৭ জুন) সকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতের আত্মীয় স্কুল শিক্ষিকা রুবিনা খানম জানান, শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে ফরিদ বিশ^াস বাড়ি থেকে পায়ে হেটে মামাবাড়ি মাধবহাটি গ্রামে যাচ্ছিলেন। মামাবাড়ির কাছাকাছি পৌছালে দ্রুতগামী একটি পৌছালে একটি মোটর সাইকেল পিছন থেকে হর্ণ বাজান। কিন্তু তিনি কানে কম শোনার কারনে সাইড না দেওয়ায় মোটর সাইকেলটি ফরিদ বিশ^াসকে জোরে ধাক্কা মারে। এসময় ফরিদ বিশ^াস গুরুতর জখম হলে প্রথমে তাকে অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় মানিগঞ্জ বাজারে নেয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান শেষে মুমুর্ষ অবস্থায় নড়াইল সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
লাহুড়িয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের (সরুশুনা গ্রাম) ইউপি সদস্য নাছির শেখ জানান, ফরিদ বিশ^াসের মৃত্যুর ঘটনাটি পরিবারসহ এলাকাবাসীর মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। নিহতের পরিবারে স্ত্রী, দুই ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে।

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাইয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে মনোমুগ্ধকর লাঠি খেলা। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আয়োজন করা হয় এই খেলার। গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলার আয়োজনকে ঘিরে স্থানীয়দের মাঝে ছিল উৎসবের আমেজ।

গ্রামীণ ঐতিহ্যের অন্যতম অনুষঙ্গ লাঠি খেলা। তবে শুধু খেলাই নয়, বরং বিনোদনেরও অন্যতম মাধ্যম এই লাঠিখেলা। এই ঈদের বাড়তি মাত্রা যোগ করে এই খেলা।

শুক্রবার বিকালে উপজেলার ভবানীপুর বাজার চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় প্রাণবন্ত লাঠি খেলা।

এতে দু’গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয় নানাবয়সী লাঠিয়াল। বাদ্যের তালে তালে দর্শকদের মাতিয়ে রাখেন তারা। লাঠি খেলা উপভোগ করতে স্থানীয় দর্শনার্থীদের ঢল নামে।

এদিকে, মাদকমুক্ত সমাজ গঠন ও গ্রামীণ ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে নিয়মিত এমন আয়োজনের প্রত্যাশা করলেন ভবানীপুর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি আব্দুল গফুর খাঁন। ভবানীপুর বাজার বণিক সমিতির আয়োজিত লাঠিখেলা প্রদর্শনীতে অংশ নেয় ২৮জন লাটিয়াল।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে গরু চুরির প্রতিবাদ করায় চুরেরা সংখ্যালঘু মণিপুরী বাড়িতে হামলা ও লুটপাট করে। এ সময় চোরদের হামলায় মণিপুরী পরিবারের ৪জন আহত হয়েছেন। ঈদের পরদিন গত বৃহস্পতিবার (৬ জুন) দুপুরে উপজেলার মাধবপুর পাঞ্জীবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মণিপুরী পল্লীতে আতংক বিরাজ করছে। খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছে। এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় একটি লিখিত এজাহার দায়ের করা হয়েছে।
আহত গরুর মালিক অরুণ সিংহ তার পরিবারের লোকজন অভিযোগ করে বলেন, গত ২৩ মে সকালে গরুকে ঘাস খাওয়ানোর জন্য বাড়ীর পাশে শ্মশান মাঠে খুটি মেরে রেখে কিছু দূরে ধানি জমিতে কাজ করছিলাম, দুপুর দিকে দেখি দুটি লোক খুটি থেকে আমাদের গরু খুলে নিয়ে যাচ্ছে এসময় আমি এগিয়ে গেলে আমাদের পার্শ্ববর্তী ছয়ছিড়ি গ্রামের কুদ্দুস মিয়ার ছেলে সাবাজ মিয়া (২৩) ও চাচা ফারুক মিয়ার ছেলে সাজ্জাদ মিয়া (২৪) গরু নিয়ে লুকিয়ে পড়ে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে তাদের কে শ্মশানের একটি জংগলের মধ্যে গরুসহ ধরে ফেলি, কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তাদের সহযোগী মধু মিয়া (৩০) ধারালো একটি রাম দা নিয়ে আমার দিকে তেরে আসলে আমি প্রাণ বাঁচাতে দৌড়ে চলে এসে বাড়িতে জানালে চোররা গরু ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্যকে জানালে তিনি বিষয়টি দেখে দিবেন জানালে আমরা অপেক্ষায় থাকি।
ঘটনার ১৩ দিন পর বৃহস্পতিবার দুপুরে গরু চোর সাবাজ ও সাজ্জাদের নেতৃত্বে একদল দুষ্কৃতকারী রাস্তায় একা পেয়ে গরুর মালিক অরুন সিংহ (৫২) ও তার ভাই রাজকুমার সিংহ (৫৬)’র উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে তাদেরকে পিটিয়ে আহত করে। হামলায় মহিলাসহ আরও দুইজন আহত হয়েছেন। অনিল কুমার সিংহ(৪৮) ও ফাজা দেবি সিংহ (৪৮)। আহত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে অরুন কুমার বাদী হয়ে মাধবপুর ইউনিয়নের ছয়চিরী গ্রামের সাবাজ মিয়া, মধু মিয়া, সাজ্জাদ মিয়া, আফজাল মিয়া, কুদ্দুস মিয়া, আছলম মিয়া, বুদুর মিয়া, হান্নান মিয়া, জাহাঙ্গীর মিয়ার নাম উল্লেখ করে আরো ৩৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।
আহত অরুণের স্ত্রী ফাজা দেবী বলেন, চুরচক্র ঘরবাড়ি ভাংচুর করে নতুন ঘরের রড ও সিমেন্ট ক্রয় করার জন্য সকেচে রাখা নগদ ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ও ১ ভরি ওজনের একটি স্বর্ণের বালা ও মালা লুটপাঠ করে নিয়ে যায়। লুটপাঠ করে নিয়ে যাওয়ার সময় প্রাণে মারার হুমকি দেয়ায় ধর্মীয় এই সংখ্যালঘু পরিবারটি চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।
স্থানীয় বাসিন্দা প্রিয়া সিনহা জানান, গরু চুরির ঘটনাটি ১২/১৩ দিন আগের। তখনও ভ্ক্তূভোগী অরুন সিংহকে দা দিয়ে কোপানোর চেষ্টা করে চুরদল। তিনি আত্বরক্ষার চেষ্টা করলে ও চিৎকারে লোকজন জানাজানি হলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। এ সম্পর্কে মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ওয়ার্ড মেম্বারকে জানানো হয়েছে। এই ঘটনার জের ধরে ১৩ দিন পর আবার হামলার ঘটনা ঘটল।
কমলগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক বেলায়েত হোসেন বলেন, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে অরুন সিংহ বাদী হয়ে কমলগঞ্জ থানায় একটি লিখিত এজাহার দিয়েছে। পুলিশ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আরিফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সরেজমিন গিয়েছিল। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের ভানুগাছ রেলওয়ে স্টেশনের অদূরে ১৮২ নং রেল সেতুর নিচের ডুবায় উপোত হয়ে পড়ে থাকা অবস্থায় অজ্ঞাত পরিচয়ের এক বৃদ্ধার লাশ পাওয়া যায়। শুক্রবার সকালে এলাকাবাসী লাশটি দেখতে পেয়ে ভানুগাছ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টারকে খবর দেন।
আখাউড়া-সিলেট রেলপথের ভানুগাছ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মো. সেলিম হোসেন জানান, সকালে খার পেয়ে ভানুগাছ থেকে শ্রীমঙ্গল অভিমুখী আপ ১৮২ নং রেল সেতুর নিচে এ বৃদ্ধার লাশটি দেখতে পান। পরে তিনি প্রথমে কমলগঞ্জ থানা ও পরে শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ে থাকাকে অবহিত করেছেন। কখন ও কিভাবে ঘটনাটি ঘটেছে এ বিষয়ে তিনি কিছু বলতে পারেননি।
ঘটনাস্থলে আসা কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আরিফুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে এসেছেন। স্থানটি রেলওয়ে থানার অধীন বলে লাশ উদ্ধার ও পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে রেলওয়ে থানাকে। তিনিও রেলওয়ে থানাকে অবহিত করেন বলে জানান।
শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ে থানার দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা উপ পরিদর্শক মো. ইসমাইল মাহমুদ বলেন, তিনি ঘটনাস্থলে পুলিশ সদস্যদের পাঠিয়েছেন। লাশটি উদ্ধাওে পর তার পচিয় বের করার চেষ্টা করবে পুলিশ বলে রেলওয়ে থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান।
প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ৭টার দিকে আখাউড়া থেকে সিলেটগামী জালালাবাদ এক্সপ্রেস ট্রেনে রেল সেতু অতিক্রমকালে ট্রেনের ধাক্কায় বৃদ্ধ মহিলাটি সেতুর নিচের ডুবায় পড়ে মারা যায়।

শংকরশীল  হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশি ইউনিয়নে খোয়াই নদীর পাড়ে দক্ষিণ পাকুড়িয়া গ্রামে আজ শুক্রবার সকাল ১১ টায় এক জাম ব্যবসায়ী জুয়েল মিয়া জাম গাছে জাম  সংগ্রহ করতে গিয়ে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুবরণ করেন । নিহত জুয়েল  আব্দাছালিয়া গ্রামের জাম ব্যবসায়ী আঃ হাই এর পুত্র।বিস্তারিত আসছে…

কক্সবাজার জেলার টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে তিন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন।আজ শুক্রবার ভোরে টেকনাফের সাগর উপকুলবর্তী মেরিন ড্রাইভ সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উখিয়ার থ্যাংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি-ব্লকের বাসিন্দা নুর মোহাম্মদের ছেলে শামসুল আলম (৩৫), একই ব্লকের মোক্তার আহমদের ছেলে নুরে আলম (২১) ও লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা আজিজুর রহমানের ছেলে মো. হাবিব (২০)।

এ ঘটনায় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। আহতরা হচ্ছেন- কনস্টেবল সেকান্দর, এরশাদ ও সৈকত বড়ুয়া।

পুলিশের দাবি- তারা রোহিঙ্গা নাগরিক ও মাদক বিক্রেতা। এসময় ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলিসহ বিপুল পরিমাণ ইয়াবা জব্দ করা হয়েছে।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ সাংবাদিকদের জানান, টেকনাফের নাফনদী দিয়ে মিয়ানমার থেকে একটি ইয়াবার চালান আসবে এমন খবরে অভিযানে যায় পুলিশ। এসময় পুলিশের অবস্থান টের পেয়ে গুলি চালায় মাদক বিক্রেতারা। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায় ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে তাদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি আরও জানান, ঘটনাস্থল থেকে তিনটি দেশীয় এলজি বন্দুক, ৮ রাউন্ড গুলি ও ১১ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। বন্দুকযুদ্ধে পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছেন। মরদেহ তিনটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

কাতারে আটক বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জ্যেষ্ঠ পাইলট ক্যাপ্টেন ফজলে মাহমুদকে ফিরিয়ে আনতে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে তার পাসপোর্ট পাঠানো হয়েছে।

গতকাল (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় রিজেন্ট এয়ারওয়েজের আরএফ ৭৫৩ ফ্লাইটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কাতারের উদ্দেশ্য ছেড়ে যায়।

বিমানের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী তিন দেশে সরকারি সফরের অংশ হিসেবে বর্তমানে ফিনল্যান্ডে অবস্থান করছেন। ফিনল্যান্ড থেকে ফেরার পথে কাতারে ট্রানজিট নেবেন তিনি। আগামীকাল (শনিবার) তাঁর দেশে ফেরার কথা রয়েছে। এই লক্ষ্যে বুধবার রাতে বিমানের বোয়িং ৭৮৭ মডেলের একটি ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে উড়াল দেয়। বিশেষ এই ফ্লাইটে ছিলেন ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ। রাতেই ওই ফ্লাইট দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর তার পাসপোর্ট না থাকার বিষয়টি ধরা পড়ে। পাসপোর্ট সঙ্গে না থাকায় ওই পাইলটকে বুধবার দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন আটকে দেয়।

এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মুহিবুল হক বলেন, “কাতারে ওই পাইলটকে আটক করা হয়নি। তাকে একটি হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। পরে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে তার পাসপোর্ট পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে ওই পাইলটই দেশে ফিরিয়ে আনবেন।”

পরে রাত ১১টার দিকে সচিব মহীবুল হক জানান, প্রধানমন্ত্রীকে আনতে শুক্রবার আরেকজন পাইলটকে কাতারে পাঠানো হচ্ছে। তিনি অথবা ফজল মাহমুদের সাথে কাতারে যাওয়া পাইলট সাজ্জাদ প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী উড়োজাহাজ নিয়ে আসবেন।

সচিব আরও বলেন, পাইলট ভুল করে পাসপোর্ট সঙ্গে নেননি। পাসপোর্ট ছাড়া তিনি কিভাবে ইমিগ্রেশন ক্রস করলেন, তা তদন্ত করে দেখা হবে।পার্সটুডে

সারা বিশ্বে ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিনই বাড়ছে। এটি এমন একটি রোগ যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের অসুস্থতা বাড়িয়ে তোলে।নিয়ম মেনে চলার পরও অনেক সময় সামান্য কারণেই বাড়তে পারে রক্তে সুগারের মাত্রা।একবার ডায়াবেটিস ধরা পড়লে পছন্দের অনেক খাবারই বাদ পড়ে খাদ্য তালিকা থেকে। বিশেষ করে মিষ্টি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়া প্রায় বন্ধ হয়ে যায়।

তবে শুধু মিষ্টি নয়, রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে আরও বেশ কিছু খাবার-দাবার এড়িয়ে চলা জরুরি। যেমন-

১. দৈনন্দিন কর্মব্যস্ততার কারণে অনেকে রান্নার সময় বাঁচাতে ফাস্ট ফুডেই বেশি ভরসা রাখেন।পুষ্টিবিদদের মতে, এ ধরনের খাবার খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ দ্রুত বাড়ে।

২. বাজারে এখন অনেক রকমের ‘রিফাইনড’ তেল পাওয়া যায়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এইসব তেলে ভাজা চিপস বা স্ন্যাকস জাতীয় খাবার রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। একই সঙ্গে ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও বাড়িয়ে দেয় বহুগুণ।

৩. রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে যে কোনও ধরনের প্যাকেটজাত পানীয়, যেমন –

ফলের জুস বা কোমল পানীয় এড়িয়ে চলা জরুরি। এই পানীয়গুলির মধ্যে, বিশেষ করে ফ্রুট জুসে থাকা ‘ফ্রুকটোজ’ রক্তে শর্করার পরিমাণ বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

৪. পেস্ট্রি, আইসক্রিম ,কাপকেক, কুকিজ আপনাকে তৃপ্তি দিচ্ছে ঠিকই, কিন্তু এগুলোও রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

৫. রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে ভাত, হোয়াইট ব্রেড, পাস্তা বা এই জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন। কারণ এগুলি রক্তে শর্করার মাত্রা বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। এর পরিবর্তে ব্রাউন ব্রেড, ওটমিল বা এই জাতীয় খাবার খান যেগুলিতে গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের মাত্রা কম আছে।

৬. অতিরিক্ত তেল বা মশলাদার খাবার এড়িয়ে চলুন। এই সব খাবারে থাকা ট্রান্স ফ্যাট ইনসুলিনের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে। ফলে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। জি নিউজ থেকে

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc