Wednesday 16th of October 2019 06:57:21 PM

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, বিজেপিকে আমি ঘৃণা করি, ঘৃণা করি, ঘৃণা করি। তিনি আজ (বৃহস্পতিবার) বিকেলে পশ্চিমবঙ্গের নৈহাটিতে ঘরছাড়া দলীয় কর্মীদের ঘরে ফেরানোর উদ্দেশ্যে এক সমাবেশে ভাষণ দেয়ার সময় ওই মন্তব্য করেন।

লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পরে রাজ্যে বিজেপির উত্থানের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার নৈহাটি, হালিশহর, ভাটপাড়া কাঁকিনাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় বহু তৃণমূল কর্মী ঘরছাড়া হয়ে পড়েছেন।

মমতা আজ সেখানে গিয়ে যেকোনো মূল্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কথা বলে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রকাশ্যে হুঁশিয়ারি দেন এবং ওই এলাকায় কোনো গোলযোগ হলে পুলিশের ডিজির কাছ থেকে তা বুঝে নেবেন বলে জানান। গোলযোগ ও দাঙ্গা-হাঙ্গামায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও মমতা মন্তব্য করেন।

তিনি এদিন বিজেপির তীব্র সমালোচনায় সোচ্চার হন। মমতা বলেন, ‘নির্বাচনের সময় আইনশৃঙ্খলা আমাদের হাতে ছিল না। নির্বাচন কমিশনের হাতে ছিল সেই সুযোগে দুটো গাদ্দারের নেতৃত্বে কয়েকজন গাদ্দার এখানে অনেক অত্যাচার করেছে। যদি মনে ভাবে এটা মুক্তাঞ্চল, এখানে বিজেপির সন্ত্রাসের উড়ন্তপুরী বানাবেন সেই বিজেপির মত দলকে আমি ঘৃণা করি, ঘৃণা করি, ঘৃণা করি। আমি বাংলার সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করি। কিন্তু এত তেল কোথা থেকে হল? এত তেল কোথা থেকে এল? এত তেলের টাকা কে দিল?’ বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি রাজ্যে একটা আসনও পাবে না বলে এদিন মমতা দৃঢ়ভাবে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি বিজেপির উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমরা বাংলায় লোকসভার যে আসন পেয়েছি তাতেই পার্লামেন্ট বুঝিয়ে দেবো আমরা কী। আর বাংলায় ৪০ কেন ১০০ বিধায়ক টাকা দিয়ে কিনে নিলেও আমাদের কিচ্ছু হবে না।’ মমতা এদিন ক্ষতিগ্রস্তদের পূর্ণ তালিকা তার কাছে তুলে দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দেন।পার্সটুডে

নজরুল ইসলাম তোফা: মিডিয়া জগতের জনপ্রিয় এবং দক্ষ নাট্যকার ও পরিচালক শিমুল সরকারের তিনটি গান বিশ্বকাপ ক্রিকেট নিয়ে শুরু হয়েছে। এ তিনটি গান ক্রিকেটের মজা উপভোগ করার মতো বলা যায়। বাংলাদেশের পুরো জাতি অধীর আগ্রহে বসে রয়েছে সেরাটা দেখার জন্য। তাই “টেলিভিশন চ্যানেল অনলাইন” গুলোও বসে নেই। যে যার মতই বিশ্বকাপের আয়োজন সাজাচ্ছে। আবার ‘স্পোর্টস’ এর দোকানে দোকানেও বাংলাদেশের “লাল সবুজ” জার্সি কেনার ভিড় । আর এই আয়োজনকে মাথায় রেখে জনপ্রিয় তরুণ নির্মাতা শিমুল সরকার নির্মাণ করেছেন তিনটি জনপ্রিয় গান । ‘রাজশাহী’, ‘নাটোর’ আর ‘ঢাকার’ বিভিন্ন লোকেশানে করেছেন এমন এ গানের দৃশ্য ধারন। এ গান তিনটির শিল্পী- উন্নয়ন ও থিয়েটার কর্মী ‘আরিফ সিদ্দিকী পিন্টু’, উথসব খান, নিজাম উদ্দিন জাহিন ও অনন্যা ইয়াসমিন অংকন।
দুটি গানের কথা লিখেছেন ‘শিমুল সরকার’ নিজেই। অন্যটির কথা ‘তালহা জুবায়ের’। দুটি গানের সুর ও কপোজিশান ‘অভিজিত জিতু’। একটির সুর শিমুল সরকারের। গান তিনটির শিরোণাম- “জিতবে এবার জিতবে টাইগার, এবারের এই বিশ্বকাপে ও দেখবে বিশ্ববাসী দেখাবে বাংলাদেশ।” মডেল হিসেবে কাজ করেছেন ‘সাহিত্য’, ‘সিয়াম আহমেদ খা’ ও থিয়েটার দল নাট্যদুয়ারের সদস্যরা। এই গান তিনটি জনপ্রিয় “অনলাইন টেলিভিশন চ্যানেল লাভ টিভির” জন্যেই নির্মিত হয়েছে। এই লাভ টিভির পাশাপাশিও পুরো বিশ্বকাপ জুড়ে দুটি গান- “মাছরাঙা টেলিভিশন” ও বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত হচ্ছে।

এই গানগুলো দেখতে চাইলে নিম্নে দেয়া অনলাইনে ক্লিক করুন www.youtube.com/lovetv24। দক্ষ নির্মাতা শিমুল সরকার বলেছেন, “আমি আশা করি গান গুলো দর্শকদের ভালো লাগবে। তিনটি গানের একটি “হাট্টিমাটিম টিম” একেবারেই ফানি হিসেবেই তৈরি হয়েছে। যেখানে বলাও হয়েছে এবারের এমন এই বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়নের দাবিদার শুধুমাত্রই যেন বাংলাদেশ, অন্য কেউ নন। আবার অন্য দুইটি দেশ প্রেমের আবেগ নিয়ে তৈরি করা হয়েছে। বিশ্ব কাপে টাইগারদের পাশে থাকার আহবান জানান জনপ্রিয় নির্মাতা শিমুল সরকার।লেখক: নজরুল ইসলাম তোফা, টিভি ও মঞ্চ অভিনেতা, চিত্রশিল্পী, সাংবাদিক, কলামিষ্ট এবং প্রভাষক।

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল পৌর শহরের জালালিয়া সড়কে অবস্থিত শ্রীমঙ্গল আইডিয়াল স্কুলের দোয়া ও ইফতার মাহফিল ২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার আইডিয়াল স্কুল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিল পূর্ব আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নজরুল ইসলাম। সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ সার্কেল)  মো.আশরাফুজ্জামান আশিক।
বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সাংবাদিক ইসমাইল মাহমুদের সভাপতিত্বে ও শ্রীমঙ্গল আইডিয়াল স্কুলের শিক্ষক এহসান বিন মুজাহির ও স্কুলের সহকারি শিক্ষক মোঃ শামীম মিয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন শ্রীমঙ্গলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শাহিদুল আলম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার দীলিপ কুমার বর্ধন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. সাইফুল ইসলাম তালুকদার, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সেক্রেটারি এম ইদ্রিস আলী, ট্যুরিস্ট পুলিশ মৌলভীবাজার জোনের সহকারী সাব ইন্সপেক্টর মো. নওয়াব আলী, ৬ নং আশিদ্রোন ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড সদস্য মোঃ আরজু মিয়াসহ বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক বৃন্দ।
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন কাকিয়া বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নোমান আহমদ সিদ্দিকী, মোহাজেরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুল হাছান, চন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহর তরফদার, কুঞ্জবন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ডা. একরামুল কবির, শ্রীমঙ্গল পৌরসভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আইয়ুব আলী, শাহ মোস্তফা জে আই উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদিা প্রমুখ। প্রেসবার্তা থেকে।

বেনাপোল প্রতিনিধি : পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশের সর্ববৃহত্তম বেনাপোল স্থলবন্দরে দীর্ঘ ৯ দিন আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকবে। এ কারণে বন্দর থেকে আগাম পণ্য খালাসের ব্যস্ততা বেড়েছে।
ঈদের আগে ও পরে সাপ্তাহিক ও সরকারি ছুটির তালিকায় এ তথ্য জানা গেছে। তবে বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছেন এখন পর্যন্ত তারা ছুটির কোনো নির্দেশনা পাননি। বর্তমানে বন্দরের কার্যক্রম সপ্তাহে ৬ দিনে ২৪ ঘন্টা চলমান রয়েছে।
এদিকে লম্বা ছুটির কারণে প্রয়োজনীয় পণ্য খালাস নিতে বন্দর থেকে পণ্য খালাসের ব্যস্ততাও বেড়েছে। এতে সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পেয়েছে।
জানা গেছে, যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় স্থলপথে আমদানির ৭০ শতাংশ হয় বেনাপোল বন্দর দিয়ে। এ বন্দর দিয়ে শিল্পকারখানায় ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ ও কাঁচামাল আমদানি বেশি হয়। পণ্য খালাসের কাজে বন্দর, কাস্টমস, সিঅ্যান্ডএফ, ট্রান্সপোর্ট ও বিভিন্ন ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির প্রায় পাঁচ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী বন্দরে কর্মরত। এছাড়া মোট ২৫ হাজার মানুষ এই বন্দর কেন্দ্রিক কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। প্রতিবছর সরকার এ বন্দর থেকে প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব পায়।
ঈদে টানা ৯ দিন বন্ধ ও ঈদের আগে তিনদিন মহাসড়কে ভারী যানবাহন চলাচল না করায় পণ্য সরবরাহ বন্ধ থাকবে। ফলে শিল্পকারখানায় উৎপাদন বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় ব্যবসায়ীরা আগাম পণ্য খালাস করে রাখছেন।
বেনাপোল আমদানি-রফতানি সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল হক জানান, ঈদে ছুটির আগে ও পরে বন্দরে পণ্য পরিবহনে বিভিন্ন সংকট দেখা যায়। শিল্পকারখানায় উৎপাদন কাজে প্রচুর কাঁচামালের প্রয়োজন হয়। তাই ঈদের ছুটির প্রভাবে যেন উৎপাদন ব্যাহত না হয়, এজন্য ব্যবসায়ীরা আগাম পণ্য খালাস করে রাখছেন।
সোনালী ব্যাংকের বেনাপোল শাখার ম্যানেজার এআরএম রকিবুল হাসান বলেন, ‘২৯ মে বেনাপোল বন্দরে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ২৭ কোটি ২৫ লাখ টাকা। যা অন্যান্য সময়ের চেয়ে অনেক বেশি।’
বেনাপোল বন্দরের ট্রাফিক পরিদর্শক মনির হোসেন মজুমদার বলেন, ‘ঈদের আগে পণ্য খালাসের চাপ বেশি। আমদানি পণ্যের মধ্যে রয়েছে শিল্পকারখানায় ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ, কাঁচামাল ও খাদ্য সামগ্রী। রফতানি পণ্যের মধ্যে রয়েছে- পাট ও পাটজাত দ্রব্য, মাছ, গার্মেন্টস সামগ্রী ও কেমিক্যালসহ বিভিন্ন পণ্য।
বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক (প্রশাসন) আব্দুল জলিল বলেন, বর্তমানে বেনাপোল বন্দরে সপ্তাহে ছয় দিনে ২৪ ঘণ্টা আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য হয়ে থাকে। ঈদ উপলক্ষে এখন পর্যন্ত আমাদের ছুটির কোনো নির্দেশনা আসেনি। তবে ঈদের আগে ব্যবসায়ীরা যাতে দ্রুত প্রয়োজনীয় পণ্য খালাস নিতে পারেন তার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া আছে।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জে কৃষকদের দাবির পক্ষে জেলা মানবাধিকার কমিশনের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জ জেলা মানবাধিকার কশিনের উদ্যোগে চালের বদলে ধান ক্রয়ের দাবীতে আলফাতউদ্দিন স্কয়ারে এলাকার কৃষকদের নিয়ে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয় ।

মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন ডঃ এডভোকেট মফছির মিয়া, জেলা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি ফৌজি আরা সাম্মী সহ সভাপত এ কে এম আবু নাছার আহমদ, কলি তালুকদার আরতি, সাধারণ সম্পাদক শাকিল আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুল আলম ছদরুল,প্রভাষক দোলাল মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুর রহমান, জনি রায়, আশরাফ হোসেন লিটন, প্রভাষক ফজলুল করিম সাইদ, প্রচার সম্পাদক শাহারিয়ার সুমন, সদর উপজেলা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি আব্দুল কাদির শান্তি মিয়া,
সহ সভাপতি গোলাম রাব্বানি, সম্পাদক লিমন আহমদ, শুভল সরকার, সাংবাদিক জসিম
উদ্দিন ,সাংবাদিক আমিনুল হক প্রমূখ।

মানব বন্ধন শেষে মিলার –মজুতদারের হাত থেকে কৃষকদের রক্ষা,প্রতিটি ইউনিয়নে সরকারীভাবে ধান ক্রয় কেন্দ্র চালু সর্বপরি “উৎপাদন কৃষকের-ধান
সরকারের” এমন নীতিমালা তৈরি করে সকল কৃষকের ধান ক্রয়ের দীর্ঘমেয়াদী ব্যবস্থা গ্রহনসহ দশ দফা দাবীতে জেলাপ্রশাসকের মাধ্যমে খাদ্য মন্ত্রী
বরাবর স্বারক লিপি প্রধান করা হয়।

চুনারুঘাট(হবিগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে বেপরোয়া মোটরসাইকেল প্রতিযোগিতায় অনুকূল দেব (৫৪) নামে এক পথচারী গুরুতর আহত হয়েছে। ২৯ মে বুধবার পৌরশহরের উত্তর বাজারের একচেঞ্জ অফিসের পাশে এঘটনাটি ঘটেছে।
আহত অনুকূল দেব চুনারুঘাট পৌরসভার (২নং ওয়ার্ড )বড়াইল গ্রামের স্বর্গীয় অতুল দেব এর পুত্র। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অনুকূল দেব উত্তর বাজারের পানের আড়তদার।

প্রতিদিনের মত পানের আড়তের কাজ শেষ করে বাড়ি ফেরার উদ্যেশ্য রহনা হন। হঠাৎ দুটি বেপরোয়া মোটরসাইকেল দ্রুতগতিতে এসে অনুকূল কে ধাক্কা মারেন। এসময় তিনি গুরুতর আহত হয়।

স্হানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় অনুকূল কে চুনারুঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কত্যর্বরত চিকিৎসক অনুকূল কে সিলেট এম এ জি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

সাদিক আহমদ,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ অবশেষে বড়লেখায় খুন হওয়া নারী আইনজীবী আবিদা সুলতানার ব্যক্তিগত সাধারণ ফোনটি গত দিনে উদ্ধার হলেও তার ব্যবহৃত আরও একটি স্মার্ট মোবাইল ফোন যে ছিল তা অনেকের জানা ছিল না এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুস  ছালেক বলেন, “আজ  ২৯মে বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে  উপজেলার বরুণা  মাদ্রাসা থেকে আটক বড়লেখার  নারী আইনজীবী আবিদা সুলতানার  হত্যাকারী আসামী তানভীর আহমদ কর্তৃক বরুনা  মাদ্রাসার হুজুরের ছেলের গাড়ী চালকের কাছে মাত্র ১০০০টাকায়  স্যাম্পনি স্মার্ট মোবাইল ফোনটি  বিক্রি করে। পরে ওই চালক অনলাইনে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সংবাদ দেখে এক পর্যায়ে থানায় খবর দিলে আমি  থানার উপ-পরিদর্শক ফজলে রাব্বিকে পাঠিয়ে ফোনটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি।”

তিনি ধারনা করেন,”তথ্য গোপন ও আলামত না পাওয়ার জন্য হত্যার পর আবিদা সুলতানার মোবাইল ফোনটি লোকানোর চেষ্টা করেন, উদ্ধারকৃত মোবাইল ফোনের কললিষ্ট থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলে তিনি আশাবাদী।”

ঘটনার পুর্ন বিবরণ থেকে জানা যায়, মৌলভীবাজার জেলা বারের আবিদা সুলতানা (৩৫) নামের এক নারী আইনজীবী খুনের ঘটনায় আসামী, বাড়ির ভাড়াটিয়া মাওলানা তানভীর আহমদ নামের এক মসজিদের ইমামকে গ্রেফতার করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের বরুণা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতারকৃত তানভীর সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার আমনদী গ্রামের মায়নুল ইসলামের ছেলে। তিনি বড়লেখা উপজেলার মাধবগুল জামে মসজিদের ইমাম।

অপরদিকে খুন হওয়া চাঞ্চল্যকর এই নারী আইনজীবী আবিদা সুলতানার ব্যাক্তিগত মুঠোফোনটি এবং তার ব্যবহৃত স্মার্ট ফোনটি  ও ঘটনাস্থলের প্রায় ৮০ কিলোমিটার দূর অর্থাৎ একই জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা মাদ্রাসা থেকে আসামিসহ একদিনের ব্যবধানে  দুটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে স্থানীয় থানা পুলিশ।

http://www.amarsylhet24.com/%E0%A6%AC%E0%A7%9C%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%80-%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%A8%E0%A6%9C%E0%A7%80%E0%A6%AC%E0%A7%80-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%A8/
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুছ সালেক জানান, উপজেলার বরুনা মাদ্রাসা এলাকায় অবস্থিত মসজিদ থেকে  তানভীর আহমদের ব্যাগ থেকে আবিদার মুঠোফোন উদ্ধার করা হয়। পুলিশ ধারণা করছে তথ্য গোপন ও আলামত না পাওয়ার জন্য হত্যার পর আবিদার মুঠোফোন তানভীর নিয়ে আসে।হত্যাকাণ্ডের তীর তানভির আহমদের দিকেই ছুঁড়ছে পুলিশ। তার মুঠোফোনের কললিষ্ট থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলেও পুলিশ দাবি করছে।
গত ২৭ মে সোমবার দুপুরে ছদ্মবেশী পুলিশ সদস্যরা শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা মাদ্রাসার এলাকা থেকে মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের সহযোগীতায় আসামী তানভীরকে আটক করা হয়। এ সময় তানভীর তার ব্যাগ অন্যত্র রেখে আসে।
মঙ্গলবার ২৮ মে দুপুরে মামলার প্রধান আসামী মসজিদের ইমাম তানভীর আলমের ১০ দিন ও তানভীরের স্ত্রী হালিমা সাদিয়া, ভাই আফসার আলম ও মা নেহার বেগমের ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বড়লেখার জ্যৈষ্ঠ বিচারিক হাকিম হরিদাশ কুমার।
মঙ্গলবার দুপুরে বড়লেখা থানায় নিহতের স্বামী শরীফুল ইসলাম বাদী হয়ে এই হত্যার ঘটনায় ৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামি করা হয় আবিদা সুলতানাদের বাড়িতে ভাড়া থাকা স্থানীয় মসজিদের ইমাম তানভীর আলম, তার স্ত্রী হালিমা সাদিয়া, ভাই আফসার আলম ও মা নেহার বেগমকে। এছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে এ মামলায় আসামি করা হয় বলে মুঠোফোনে জানিয়েছেন বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মোঃ জসিম উদ্দিন।
মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার কাঠালতলী এলাকায় আবিদা সুলতানা নামের ওই আইনজীবী দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত হন। কিন্তু কি কারনে তাকে হত্যা করা হয়েছে সে নেপথ্যের ঘটনা এখন স্পষ্ট হয়নি। ওই ঘটনার পর ওই আইনজীবীর বাবার বাড়িতে ভাড়াটিয়া থাকা স্থানীয় মসজিদের ইমাম তানভীর আলম পলাতক ছিলেন। গোপনসুত্রে খবর পেয়ে পুলিশ শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা এলাকা থেকে তাকে আটক করে। নিহত আবিদা সুলতানা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের মৃত হাজী আব্দুল কাইয়ুমের মেয়ে। আব্দুল কাইয়ুমের তিন মেয়ের মধ্যে আবিদা সুলতানা ছোট। প্রায় ৮ বছর আগে লালমনিরহাটের আদিতমারি থানার শরীফুল ইসলামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। আবিদা মৌলভীবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী। তার স্বামী শরীফুল ইসলাম একটি ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করেন। তিনি স্বামীর সঙ্গে মৌলভীবাজার শহরের একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।
২৬ মে রোববার সকাল আনুমানিক ৯টায় আবিদা বিয়ানীবাজারে বোনের বাড়িতে থেকে জরুরী প্রয়োজনে বাবার বাড়িতে যান। বিকেল আনুমানিক চারটার দিকে আবিদার বোন তার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাচ্ছিলেন না। পরে আবিদার বোনেরা তাকে খুঁঁজতে বাবার বাড়ি দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুলে আসেন। এ সময় ঘরের একটি কক্ষ বন্ধ দেখতে পেয়ে তাদের সন্দেহ হয়। পরে তারা পুলিশ খবর দেন। ঘরের মেঝেতে আবিদার লাশ পড়ে থাকতে দেখেন।
রোববার বেলা বারোটা থেকে সন্ধ্যার যেকোনো সময় তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কে বা কারা কী কারণে তাকে খুন করেছে তা এখনো জানা যায়নি। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), বড়লেখা থানা পুলিশ ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা ওই খুনের নেপথ্যের কারন ও খুনী সনাক্ত করতে তৎপর রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এদিকে আইনজীবী আবিদা সুলতানা খুনের ঘটনায় জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যসহ জেলার সর্বস্থরের মানুষ তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। এবিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তারা সরব রয়েছেন। এই খুনের রহস্য উদঘাটনসহ প্রকৃত আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছেন সচেতন মহল।

আসন্ন ২০১৯-২০ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে শিক্ষাখাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দের দাবিতে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর শাখা ২৮ মে সকালে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন এর মাধ্যমে অর্থমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন। ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি ছাত্রনেতা মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফার নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন সাধারণ সম্পাদক ছাত্রনেতা মুহাম্মদ এরশাদুল করিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ শাহাদাত হোসেন, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মুহাম্মদ জিয়া উদ্দীন রায়হানসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, বাজেট আমাদের জাতীয় জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

সারা বছর আমাদের জাতীয় জীবনের আয়-ব্যয় কেমন হবে তার প্রতিফলন হয় বাজেটে। আমাদের দেশের নাগরিকরা আগের চেয়ে অনেকবেশি সচেতন তাই রাজনীতির পাশাপাশি অর্থনীতির বিষয় গুলো নিয়েও তাদের আগ্রহ বাড়ছে। বাজেট বিষয়ে তাদের আগ্রহ ও প্রচুর। বাজেট উপস্থাপনের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়- বিট্রিশ শাসনের শুরুর দিকে এই উপমহাদেশে সর্বপ্রথম বাজেট উপস্থাপনার সূচনা করেছিলেন জেমস উইলসন। দেশ ভাগ হওয়ার পর ১৯৪৮ সালে বাজেট উপস্থাপন করেন তৎকালীন অর্থমন্ত্রী মালিক মুহাম্মদ। ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে সংসদে সর্ব প্রথম বাজেট পেশ করেন অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ। স্বাধীনতার পর থেকে বর্তমান পর্যন্ত (১৯৭২-২০১৭) সর্বমোট ৪৭ বার বাজেট উপস্থাপিত হয়েছে।

প্রথম বাজেট ছিল ৭৮৬ কোটি টাকার এবং শেষেরটি প্রায় ৪ লক্ষ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার। তবে প্রতিবছরই মানুষের দৃষ্টি থাকে শিক্ষাখাতে প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর। কারণ এর ওপরই অনেকাংশে নির্ভর করে আগামীতে দেশের শিক্ষা খাতের অবকাঠামো উন্নয়ন-অনুন্নয়নের রূপরেখা। আমাদের পাশেই দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো গত ২/৩ দশকে তাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় এনেছে আমূল পরিবর্তন, যা পরবর্তীতে তাদের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করেছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শিক্ষাখাতে জাতীয় বাজেটের বরাদ্দের অনুপাতে বাংলাদেশের শিক্ষাখাতে জাতীয় বাজেটের বরাদ্দের আনুপাতিক বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, আফ্রিকার অনগ্রসর অধিকাংশ দেশ যেমন- কেনিয়া, তানজানিয়া শিক্ষাখাতে বরাদ্দদেয় জাতীয় বাজটের ২০ ভাগের বেশি। দক্ষিণ এশিয়ার অধিকাংশ দেশ যেমন- ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান তাদের কেন্দ্রীয় এবং প্রাদেশিক বরাদ্দসহ শিক্ষাখাতে বরাদ্দ দেয় ২০ ভাগেরও বেশি।

আশ্চর্যজনক হলেও সত্য বাংলাদেশ শিক্ষাখাতে বরাদ্দ দেয় জাতীয় বাজেটের মাত্র ১৪ ভাগ। বর্তমান সরকার ২০১৯-২০ অর্থ বছরে দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় আকারের বাজেট ঘোষণা করতে যাচ্ছে। এই বাজেটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যয়খাত হলো শিক্ষাখাত। কিন্তু পত্রিকায় প্রকাশিত বিবরণে দেখা যায় এবারে শিক্ষা খাতের চেয়ে সরকার জনপ্রশাসন, প্রতিরক্ষা ও যোগাযোগ খাতকে বেশী প্রাধান্য দিচ্ছে।

গতবারও বরাদ্দ পাওয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই খাতই ছিল সবচেয়ে অবহেলিত। এদেশের সচেতন ছাত্রজনতার প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন হিসেবে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা শুধুমাত্র শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের ২৫ শতাংশ বরাদ্দের দাবি জানাচ্ছে। পাশাপাশি তা বাস্তবায়নে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা, মাদরাসা শিক্ষা, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও কারিগরি শিক্ষা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে যৌক্তিক দাবি পেশ করছে।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ পৌরসভায় পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হতে অসহায় গরীব ও দুস্থ ৩ হাজার পরিবারের মাঝে ১৫ কেজি করে ভিজিএফের চাল বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার (২৯ মে) দুপুর সাড়ে ১১টায় কমলগঞ্জ পৌরসভা প্রাঙ্গণে কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম মোসাদ্দেক আহমেদ মানিক এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

পৌরসভার মেয়র মোঃ জুয়েল আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, কমলগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান, উপজেলা বিআরডিভি চেয়ারম্যান ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল প্রমুখ। বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলর আফজাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন, দেওয়ান আব্দুর রহিম মুহিন ও আনসার শোকরানা মান্না, কমলগঞ্জ প্রেসকাব সম্পাদক মো: মোস্তাফিজুর রহমান।

কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ জুয়েল আহমেদ জানান, সকলে যেন ভালোভাবে ঈদ উদযাপন করতে পারে সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ৪৪ টন ভিজিএফ চাল বরাদ্ধ করা হয়। পৌরসভাধীন ৯টি ওয়ার্ডের অসহায়, গরিব ও দুস্থ ৩ হাজার পরিবারের মাঝে প্রত্যেক পরিবারকে ১৫ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে।

অতি দারিদ্র্যের জন্য সরকারের নেওয়া সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কার্যক্রম ভালনারেবল গ্রুপ ফিডিং (ভিজিএফ) কর্মসূচির আওতায় এই চাল বিতরণ করা হয়েছে।

এম ওসমান, বেনাপোল:  মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করে অবশেষে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চিরবিদায় নিলো অগ্নিদগ্ধ শিশু মারিয়া। পরাজয় বরণ করে মা বাবা আত্মীয় স্বজন এবং তার চিকিৎসার জন্য এগিয়ে আসা দেশ বিদেশের হাজার হাজার মানুষকে কাঁদিয়ে  চলে গেল না ফেরার দেশে। বুধবার সকালে ঢাকাস্থ বার্ণ ইউনিটের ২য় তলায় এইচডিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
আমার খুব কষ্ট হচ্ছে, আমি আর সহ্য করতে পারছিনা, আমার চিকিৎসা হতে অনেক টাকা পয়সা লাগবে, এত টাকা আবার বাবা কনে পাবে, আমার বাবা গরীব লোক, আমি বাঁচতে চাই..! আপনারা আমাকে বাঁচান! কথা গুলো এখনো কানে বাজে..! অগ্নীদগ্ধ হওয়ার দীর্ঘ ৬ মাস পরে সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে এই আকুতি গুলো করেছিলো ঝিকরগাছা উপজেলার নায়ড়া গ্রামের অগ্নিদগ্ধ শিশু মারিয়া.! ঝিকরগাছার শংকরপুর ইউনিয়নের নায়ড়া গ্রামের ভাটার ট্রলি চালক হত দরিদ্র রুবেল হোসেনের শিশু কন্যা মারিয়া (৭) এবং স্থানীয় নায়ড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্রী ছিলো সে।
গত বছরের ডিসেম্বরে আগুন পোহাতে গিয়ে আগুনে পুড়ে পুরো শরীর ঝলসে যায় মারিয়ার। অসহায় পিতা ট্রলি চালক মেয়ের চিকিৎসার্থে আত্মীয় স্বজন ও গ্রামবাসীর সাহায্য সহযোগীতা নিয়ে সে সময় চিকিৎসা সেবা দিয়েছিলেন। সেসময় মেয়ের চিকিৎসার জন্য যশোরের একটি ক্লিনিকে ভর্তি করান। কিন্তু অবস্থার তেমন পরিবর্তন না হওয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে ১৫দিনে খরচ হয় প্রায় দু’লক্ষ টাকা। অসহায় পরিবারের জন্য এই ব্যায় বহুল খরচ যোগাতে না পেরে সেখান থেকে বাড়ীতে ফেরত নিয়ে আসেন মারিয়ার দরিদ্র পিতা রুবেল।
অবশেষে শার্শার সাংবাদিক সমাজ ও বেনাপোল সীমান্ত প্রেসক্লাবের কাছে মারিয়ার ঘটনাটি সামনে আসলে মারিয়াকে সাংবাদিকদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কারনে পুনরাই ঢাকার বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। ফেসবুক প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেকট্রিক মিডিয়ায় মারিয়ার খবর প্রকাশ হলেই মুহুর্ত্বের মধ্যে ভাইরাল হয় মারিয়ার খবর। চিকিৎসার জন্য হাত বাড়ায় দেশ ও বিদেশের বিত্তবান সহ সব শ্রেণি পেশার মানুষ। মারিয়ার চিকিৎসার জন্য উঠে আসে  ৬ লক্ষ টাকারও বেশি। পুরোদমে  চিকিৎসা চলতে থাকে মারিয়ার। প্রাথমিক পর্যায়ে শিশু মারিয়া কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলেও অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানতেই হলো তার।
বুধবার সকাল ৭টা বাজে। হঠাৎ মারিয়ার বাবার ফোনে রিং আসে ঢাকা থেকে। ফোনটি রিসিভ করতেই ফোনের ও পাশ থেকে ভেসে আসে আধো আধো কাাঁদো কাঁদো কন্ঠে মারিয়া আর নেই। কথাটা বিশ^াস যোগ্য না হলেও চরম সত্যটাকে মানিয়ে নিয়েই অঝরে কেঁদে উঠে মা বাবা। সাথে সাথে এই হৃদয় বিদারক কান্নার রোল পড়ে যায় মারিয়ার বাড়িতে। মুহুর্ত্বের মধ্যে আকাশ বাতাশ ভারি হয়ে যায় শোকে ছায়া নেমে আসে পুরো নায়ড়া গ্রাম। মারিয়ার মৃত্যুর খবর সাংবাদিক মহল সহ গোটা এলাকায় ছড়িয়ে যেতে সময় লাগলো না। মা বাবা আত্মীয় স্বজনের পাশাপাশি শোকে কাতর হয়ে পড়ে মারিয়ার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম দেওয়া সাংবাদিক মহল।
আজ তুমি নেই..! ভাবতেই অনেক কষ্ট হচ্ছে..!চলে গেলে না ফেরার দেশে..! তোর জন্য অনেক কষ্ট হচ্ছে! কিছুই করতে পারলাম না তোর জন্য! ওপারে ভাল থাকিস! আমাদেরকে ক্ষমা করে দিস। এমন শত শত স্টাটাসে ফেসবুকের পাতায় নিজেদের কষ্টের কথা প্রকাশ করে সাংবাদিক সমাজসহ কাছের মানুষেরা। সর্বশেষ খবরে জানা যায়, বুধবার বিকাল সাড়ে পাঁচটার সময় ঢাকা থেকে মারিয়ার গ্রামের বাড়ি ঝিকরগাছার নায়ড়া গ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয় মারিয়ার নিথর দেহ বহনকারী এ্যাম্বোলেন্সটি।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ’র পুলিশ পরিদর্শক পদমর্যাদার চারজন কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে।ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ’র লাইনওআরে কর্মরত শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শক মোস্তফা কামরুল হাসানকে ট্রাফিক-উত্তর বিভাগ, শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আলী আকবর হাওলাদারকে প্রটেকশন বিভাগ, শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ জহির উদ্দিন মজুমদারকে ট্রাফিক-পশ্চিম বিভাগ এবং শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শক তুষার সরকারকে প্রটেকশন বিভাগ হিসেবে বদলি করা হয়েছে।

২৮ মে, ২০১৯ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর এক অফিস আদেশে এ বদলি করা হয়।ডিএমপি নিউজ

ভারতের উত্তর প্রদেশে ভেজাল মদ পানে এক পরিবারের চার জনসহ ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আরো কয়েকজনকে আশংকাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতরাতে রাজ্যের বারাবংকি জেলার রামনগরে এ ঘটনা ঘটে।

২০১৮ সালেও ভেজাল মদ পানে এ জেলায় নয় জনের মৃত্যু হয়। ভারতে ভেজাল ও বিষাক্ত মদ খেয়ে মৃত্যুর ঘটনা এই প্রথম নয়। প্রতি বছরই মদ খেয়ে বহু মানুষের মৃত্যু ঘটে। উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আতিদ্যনাথ ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, সোমবার রাতে রামনগর এলাকায় শুল্ক বিভাগ অনুমোদিত একটি দোকান থেকে কেনা দেশি মদ পান করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন বেশ কয়েকজন। দ্রুত তাদের রামনগর কমিউনিটি হেলথ সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ১০ জন মারা যান।

পুলিশ আরও জানায়, বাকীদের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের বারাবংকি জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা সবাই রাণীগঞ্জ ও এর আশপাশের গ্রামের বাসিন্দা।পার্সটুডে

আটক তানভীর’র ব্যাগ থেকে আবিদার ফোন উদ্ধার 

 

হাবিবুর রহমান খান,জুরি থেকেঃ মৌলভীবাজার জেলা বারের আবিদা সুলতানা (৩৫) নামের এক নারী আইনজীবী খুনের ঘটনায় আসামী, বাড়ির ভাড়াটিয়া মাওলানা তানভীর আহমদ নামের এক মসজিদের ইমামকে গ্রেফতার করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের বরুণা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতারকৃত তানভীর সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার আমনদী গ্রামের মায়নুল ইসলামের ছেলে। তিনি বড়লেখা উপজেলার মাধবগুল জামে মসজিদের ইমাম। অপরদিকে খুন হওয়া চাঞ্চল্যকর এই নারী আইনজীবী আবিদা সুলতানার ব্যাক্তিগত মুঠোফোনটি ঘটনাস্থলের প্রায় ৮০ কিলোমিটার দূর অর্থাৎ একই জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা মাদ্রাসা থেকে আসামিসহ মোবাইল ফোনটি সোমবার দুপুরে উদ্ধার করেছে স্থানীয় থানা পুলিশ।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুছ সালেক জানান, উপজেলার বরুনা মাদ্রাসা এলাকায় অবস্থিত মসজিদ থেকে  তানভীর আহমদের ব্যাগ থেকে আবিদার মুঠোফোন উদ্ধার করা হয়। পুলিশ ধারণা করছে তথ্য গোপন ও আলামত না পাওয়ার জন্য হত্যার পর আবিদার মুঠোফোন তানভীর নিয়ে আসে।হত্যাকাণ্ডের তীর তানভির আহমদের দিকেই ছুঁড়ছে পুলিশ। তার মুঠোফোনের কললিষ্ট থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলেও পুলিশ দাবি করছে।
গত ২৭ মে সোমবার দুপুরে ছদ্মবেশী পুলিশ সদস্যরা শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা মাদ্রাসার এলাকা থেকে মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের সহযোগীতায় আসামী তানভীরকে আটক করা হয়। এ সময় তানভীর তার ব্যাগ অন্যত্র রেখে আসে।
মঙ্গলবার ২৮ মে দুপুরে মামলার প্রধান আসামী মসজিদের ইমাম তানভীর আলমের ১০ দিন ও তানভীরের স্ত্রী হালিমা সাদিয়া, ভাই আফসার আলম ও মা নেহার বেগমের ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বড়লেখার জ্যৈষ্ঠ বিচারিক হাকিম হরিদাশ কুমার।
মঙ্গলবার দুপুরে বড়লেখা থানায় নিহতের স্বামী শরীফুল ইসলাম বাদী হয়ে এই হত্যার ঘটনায় ৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামি করা হয় আবিদা সুলতানাদের বাড়িতে ভাড়া থাকা স্থানীয় মসজিদের ইমাম তানভীর আলম, তার স্ত্রী হালিমা সাদিয়া, ভাই আফসার আলম ও মা নেহার বেগমকে। এছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে এ মামলায় আসামি করা হয় বলে মুঠোফোনে জানিয়েছেন বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মোঃ জসিম উদ্দিন।
মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার কাঠালতলী এলাকায় আবিদা সুলতানা নামের ওই আইনজীবী দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত হন। কিন্তু কি কারনে তাকে হত্যা করা হয়েছে সে নেপথ্যের ঘটনা এখন স্পষ্ট হয়নি। ওই ঘটনার পর ওই আইনজীবীর বাবার বাড়িতে ভাড়াটিয়া থাকা স্থানীয় মসজিদের ইমাম তানভীর আলম পলাতক ছিলেন। গোপনসুত্রে খবর পেয়ে পুলিশ শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা এলাকা থেকে তাকে আটক করে। নিহত আবিদা সুলতানা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের মৃত হাজী আব্দুল কাইয়ুমের মেয়ে। আব্দুল কাইয়ুমের তিন মেয়ের মধ্যে আবিদা সুলতানা ছোট। প্রায় ৮ বছর আগে লালমনিরহাটের আদিতমারি থানার শরীফুল ইসলামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। আবিদা মৌলভীবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী। তার স্বামী শরীফুল ইসলাম একটি ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করেন। তিনি স্বামীর সঙ্গে মৌলভীবাজার শহরের একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।
২৬ মে রোববার সকাল আনুমানিক ৯টায় আবিদা বিয়ানীবাজারে বোনের বাড়িতে থেকে জরুরী প্রয়োজনে বাবার বাড়িতে যান। বিকেল আনুমানিক চারটার দিকে আবিদার বোন তার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাচ্ছিলেন না। পরে আবিদার বোনেরা তাকে খুঁঁজতে বাবার বাড়ি দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুলে আসেন। এ সময় ঘরের একটি কক্ষ বন্ধ দেখতে পেয়ে তাদের সন্দেহ হয়। পরে তারা পুলিশ খবর দেন। ঘরের মেঝেতে আবিদার লাশ পড়ে থাকতে দেখেন।
রোববার বেলা বারোটা থেকে সন্ধ্যার যেকোনো সময় তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কে বা কারা কী কারণে তাকে খুন করেছে তা এখনো জানা যায়নি। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), বড়লেখা থানা পুলিশ ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা ওই খুনের নেপথ্যের কারন ও খুনী সনাক্ত করতে তৎপর রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এদিকে আইনজীবী আবিদা সুলতানা খুনের ঘটনায় জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যসহ জেলার সর্বস্থরের মানুষ তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। এবিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তারা সরব রয়েছেন। এই খুনের রহস্য উদঘাটনসহ প্রকৃত আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছেন সচেতন মহল।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারে  চুরির অভিযোগে ঘটনার ০৯ দিনের মাথায় ৩ জনকে আটক করা হয়েছে এবং বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে, মৌলভীবাজার জেলা পুলিশের সুত্রে জানা গেছে, গত ১৮/৫/১৯ তারিখ মৌলভীবাজার পৌরসভাধীন দরগা মহল্লার জনৈক শামীম আহমদ, পিতা-মৃত আব্দুল বারী এর বসত ঘরের আলমীরা খুলে  সিয়াম আহমদ উরুপে পলাশ (২৩), পিতা-নুরুল ইসলাম, সাং-সুলতানপুর। নাহিদ আহমদ (২৪) পিতা-মনছুর আহমদ, সাং-গোমড়া। খালেদ মিয়া (২৪), পিতা-আব্দুল হাই, সাং-দরগামহল্লা। সাকিল আহমদ (২৫), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-সুলতানপুর,সর্ব থানা ও জেলা-মৌলভীবাজারসহ অজ্ঞাতনামা  আরও ২/৩জন আসামী স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা,ট্যাবসহ মোট ৮,৩২,০০০/-টাকার মালামাল চুরি করিয়া নিয়া পালিয়ে যায়।

পরবর্তীতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে আসামীদের অবস্থান সনাক্তপূর্বক মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলমগীর এর নির্দেশনায় মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই মোঃ তোফাজ্জল হোসেন একদল পুলিশসহ গত ২৬/০৫/২০১৯ ইং তারিখ কক্সবাজার থানার রাজিউন কর্টেজ হইতে গ্রেফতার পূর্বক চোরাই যাওয়া মালামালের মধ্যে স্বর্ণের চেইন, একটি আংটি, একটি সামাসং ট্যাব এবং নগদ ৫,০০০/-টাকা আসামীদের হেফাজত হইতে উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের সুত্রে আরও জানা গেছে,পরবর্তীতে আসামীর দেওয়া তথ্যমতে একটি চুরি যাওয়া ব্রেসলেট ঢাকার যাত্রাবাড়ি রিয়া জুয়েলার্সে বন্ধক রহিয়াছে মর্মে জানাইলে বন্ধকের কাগজসহ ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানাধীন দয়াগঞ্জ সড়কের রিয়া জুয়েলার্স হইতে উদ্ধার করা হয়। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরন করা হয়েছে। 

উল্লেখ্য,মৌলভীবাজার মডেল থানার বর্তমান অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আলমঙ্গীর গত ১৫ এপ্রিল ২০১৯ রোজ সোমবার সন্ধ্যায় মৌলভীবাজার মডেল থানার যোগদান করেন এর আগে তিনি পুলিশের অ্যান্টি  টেরিরিজম ইউনিটের দায়িত্ব পালন করেছেন।

নাজমুল সুমন: ওয়েলস বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন ইউকে ও বৃটেনের কার্ডিফের  ইন্টারন্যাশনাল মাদার ল্যাংগুয়েজ মনুমেন্ট তথা শহীদ মিনার কমিটির নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আলহাজ্জ আব্দুল হামিদ মহোদয় এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় সভায় মিলিত  হয়েছেন।

বৃটেনের বাংলাদেশের হাইকমিশনার হ্যার এক্সেলেন্সি মিসেস সাইদা মুনা তাসনিম এর ব্যাস্থাপনায় ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর  সার্বিক সহযোগিতায় গত ২৫ মে  লন্ডনের হোটেলে অবস্থানকালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রতির সাথে মতবিনিময় সভার শুরুতেই  বৃটেনের কার্ডিফের ইন্টারন্যাশনাল মাদার ল্যাংগুয়েজ মনুমেন্ট তথা শহীদ মিনার কমিটির জেনারেল সেক্রেটারী ওয়েলসের কমিউনিটি সংগঠক সাংবাদিক মোহাম্মদ মকিস মনসুর কার্ডিফের ইন্টারন্যাশনাল মাদার ল্যাংগুয়েজ মনুমেন্ট কমিটির ওয়েলস থেকে আগত প্রতিনিধিদলকে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।

পরে ওয়েলস থেকে আগত  প্রতিনিধিরা মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও শহীদ মিনার ছবি সম্মলিত স্মারক এবং ওয়েলস যুবলীগের প্রকাশনা ওয়েলসের ইতিহাসের প্রথম স্মারক গ্রন্থ  হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু ম্যাগাজিন প্রদান করেন।

উক্ত মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বৃটেনের বাংলাদেশের হাইকমিশনার হ্যার এক্সেলেন্সি মিসেস সাইদা মুনা তাসনিম, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সভাপতি মনুমেন্টের লাইফ মেম্বার মুক্তিযোদ্ধা সুলতান মাহমুদ শরীফ, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি নইম উদ্দিন রিয়াজ, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও মনুমেন্ট  ফাউন্ডার ট্রাষ্টি আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী,  কার্ডিফ কাউন্টি কাউন্সিলার দিলওয়ার আলী, মনুমেন্ট তথা শহীদ মিনার কমিটির ডেপুটি চেয়ার সাবেক কাউন্সিলার মোহাম্মদ সেরুল ইসলাম, শহীদ মিনার কমিটির ট্রেজারার আনহার মিয়া, নিউপোট আওয়ামী লীগের সভাপতি  মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি শেখ মোহাম্মদ তাহির উল্লাহ, ওয়েলস বিসিএর প্রেসিডেন্ট ও মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি আব্দুল লতিফ কয়সর উল্লাহ, ওয়েলস বিসিএর সাবেক ট্রেজারার মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি মোহাম্মদ মুজিব, মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি আলহাজ্ব আসাদ মিয়া, মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি আব্দুস সালাম বুলবুল. মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি শফিক মিয়া ও মনুমেন্টের ফাউন্ডার ট্রাষ্টি শামীম আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিনিধিদলের পক্ষ থেকে মনুমেন্ট ফাউন্ডার ট্রাস্ট কমিটির সেক্রেটারি  মোহাম্মদ  মকিস মনসুর শহীদ মিনার প্রতিষ্টার বিভিন্ন পটভূমি তুলে ধরেন এবং মানণীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারকে এই মহতি প্রজেক্ট বাস্তবায়নে প্রায় ৬৬ হাজার পাউন্ড অনুদান দিয়ে সহযোগীতা করার জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা ও জাতির জনকের কন্যা শেখ রেহেনার প্রতি  কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানান।

মতবিনিময়কালে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আব্দুল হামিদ মহোদয় বৃটেনের কার্ডিফে বাঙালীরা এরকম একটি চমৎকার প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করায় আনন্দ ও সন্তোষ প্রকাশ সহ প্রজেক্টের সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

এখানে উল্লেখ্য যে দীর্ঘ ১৩ বছরের অক্লান্ত পরিস্রমে ও কমিউনিটির প্রচেষ্টায় বৃটেনের ওয়েলসের  ইতিহাসে কার্ডিফ শহরের এই প্রথম শহীদ মিনারটি আজ দৃশ্যমান. গত ২১ শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠান যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে ওয়েলসবাসী নব ইতিহাসের সূচনা করেছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc