Tuesday 21st of May 2019 08:32:52 AM

মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুন বিমানবন্দরে অবতরণের সময় দুর্ঘটনায় পড়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট। আজ সন্ধ্যা ৬ টা ২২ মিনিটে ঢাকা থেকে ইয়াঙ্গুনগামী ফ্লাইটটি ইয়াঙ্গুন বিমানবন্দরে অবতরণের সময় রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে।

খারাপ আবহাওয়ার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে মিয়ানমারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মঞ্জুরুল করিম খান চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পাইলটসহ প্রায় সব যাত্রীই কমবেশি আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুর্ঘটনার পর বিমানটি বিধ্বস্ত হলেও এতে আগুন ধরে নি। ফলে যাত্রীরা নিরাপদে নেমে আসতে সক্ষম হয়েছেন।

দুর্ঘটনা কবলিত বিমান

বিমানবন্দর সূত্র থেকে পাওয়া ছবিতে দেখা যায়, রানওয়ের পাশে ঘাসে আছড়ে পড়া বিমানটির সামনের অংশ ভেঙে গেছে এবং মাঝ বরাবর ফটল ধরেছে। দুর্ঘটনা কবলিত বিমানটি ড্যাশ-৮ মডেলের।পার্সটুডে

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা সীমান্ত দিয়ে বানের পানির মত ভারতীয় গরু বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব, জনসাধারনের ফসল বিনষ্ট, যেন দেখার কেউ নেই। সংশ্লিষ্ট বিজিবি ও পুলিশ প্রশাসন নিবর ভূমিকায়। চোরাকারবারীরা বলছে লাইন দিয়ে গরু আনি, পুলিশ বিজিবি ধরবে না।
সরেজমিনে জৈন্তাপুর উপজেলা বিভিন্ন সীমান্ত ঘুরে জানাযায়- বিজিবি, পুলিশ, ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্য এবং গ্রাম্য মাতব্বরদের সম্মানী দিয়ে ভারত হতে গরু সহ ভারতীয় পন্য সামগ্রী বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার শ্রীপুর, মোকামপুঞ্জি, আসামপাড়া, মিনাটিলা, কেন্দ্রি, কেন্দ্রি হাওর, ডিবিরহাওর, ফুলবাড়ী, খলারবন্দ, ঘিলাতৈল, টিপরাখলা, কমলাবাড়ী, গোয়াবাড়ী, বাইরাখেল, জালিয়াখলা, কালিঞ্জি, লালখাল বাগান, আফিফানগর চা বাগান, বাঘছড়া, গঙ্গারজুম, তুমইর ও ইয়াংরাজা দিয়ে ভারতীয় গরু, মহিষ এবং ইয়াবা সহ মাদকের চালান বাংলাদেশে বানের পানির মত প্রবেশ করছে। এলাকাবাসী আরও জানায় সম্প্রতি চোরাকারবারীদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেন গরুর ও মাদকের চালান আটকে বাঁধা সৃষ্টি করে তাৎক্ষনিক তাদের কাছে গরু সহ মালামাল বুঝে দিবে এবং বিজিবি-পুলিশ-র‌্যাব কাছে সংবাদ দিয়ে মাদক মামলায় গ্রেফতার করাবে বলে হুমকীদেয় এলাকাবাসীকে। এলাকাবাসীর দাবী লালাখাল এলাকায় বিজিবি স্পোশাল বাহিনীর হাতে ২০টি গরু ধরিয়ে দেওয়ার কারনে সংবাদদাতাকে ইয়াবা সহ আটক করে র‌্যাব-৯। তারা আরও জানায় ভারত হতে গরু আমদানী করছেন- হরিপুরের বহিস্কৃত ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ, আওয়ামীলীগ নেতা রফিক আহমদ, লোদাই হাজী, আনোয়ার হোসেন, দরবস্ত ইউনিয়নের মানিকপাড়া গ্রামের বিলাল উদ্দিন, আব্দুল মন্নান, কেন্দ্রী ঝিঙ্গাবাড়ী আহমদ আলী, আজাদ মিয়া, এখলাছ মিয়া, সুলেমান মিয়া কন্টু, ডিবিরহাওর কদমখাল গ্রামের হারুন মিয়া, জসিম উদ্দিন, আব্দুল হান্নান, ইউছুফ আলী, রুপচেং গ্রামের আব্দুল মন্নান, নাজিম উদ্দিন, মোকামপুঞ্জির আনোয়ার হোসেন, গৌরী শংকর গ্রামের লালা মিয়ার ছেলে পারভেজ আহমদ, মোঃ আব্দুল্লাহ, কাউসার আহমদ, রশিদ আহমদ, টিপরাখলা গ্রামের হারুন মিয়ার ছেলে আমিন মিয়া, খোকন মিয়ার ছেলে আল আমিন, যশপুর গ্রামের আলী আজগরের ছেলে নুর আলম, বাইরাখেল গ্রামের আব্দুল গফুর, আতিকুর রহমান, মোহাম্মদ আলী, গোয়াবাড়ী গ্রামের নজরুল ইসলাম, রুহুর আমিন, আশিক আহমদ, নয়াখেল পূর্ব বালীদাঁড়া গ্রামের আব্দুল লতিবের ছেলে খায়রুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলামের ছেলে শাহজাহান, ভিত্রিখেল চারিকাটা গ্রামের হোসাইন আহমদ, ইমরান হোসেন, মানিকপাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিন, কালিঞ্জিবাড়ী গ্রামের রহিম উদ্দিন, লালাখাল গ্রামের জালাল উদ্দিন, সেলিম আহমদ, সাহাব উদ্দিন, রুহুল আমিন।
উপজেলার সব কয়েকটি পথে চোরাকারবার নিয়ন্ত্রন করেন আব্দুর রশিদ, রফিক আহমদ, লোদাই হাজী, আনোয়ার হোসেন, বিল্লাল উদ্দিন, আহমদ আলী, সুলেমান কন্টু, পারভেজ, মোঃ আব্দুল্লাহ, হারুন মিয়া, আনোয়ার হোসেন, জসিম উদ্দিন, জালাল উদ্দিন, সেলিম আহমদ, ইমরান হোসেন অন্যতম।
এলাকার প্রবীণ মুরব্বী আবুল হোসেন, জুনেদ আলী, কালা মিয়া, এবাদুর রহমান, মোস্তফা মিয়া, শাহেদ আহমদ, গোলাম সরওয়ার বেলাল, সহ প্রায় ২শাধিক ব্যক্তির সাথে আলাপকালে তারা জানান- সরকার করিডোর বন্দ করার ফলে রাজস্ব হারাচ্ছে, গরু আমদানী বন্ধ হয়নি বরং বৃদ্ধি পেয়েছে, চেরাই পথে গরু আমদানীর করনে এলাকার রাস্তাঘাট, সাধারন মানুষের ফসলাদী বিনষ্ট হচ্ছে, সাধারন মানুষের গরু চুরি বৃদ্ধি পাচ্ছে, আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা রহস্যজনক কারনে অকার্যকর হয়ে পড়েছে। একশ্রেনীর লুটেরা চক্র বিজিবি ও পুলিশের সাথে আতাত করে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। তারা আরও বলেন ভারতীয় গরু আমদানীতে সাধারণ জনগনের সমস্যা নেই। করিডোর বন্ধ করায় সরকার রাজস্ব বি ত হচ্ছে মাত্র। এছাড়া গরুর পাশাপাশি ব্যাপক হারে উপজেলা জুড়ে ইয়াবা, হিরোইন, মদ মাদক, ভারতীয় আমদানী নিষিদ্ধ নাছির বিড়ি, বিভিন্ন ব্যান্ডের সিগারেট, গাড়ীর যন্ত্রাংশ ও মটর সাইকেল আমদানী হচ্ছে। ফলে অপরাধ জগতে ঢুকে পড়ছে য়ুব সমাজ। করিডোর চালু করলে সরকার পাবে রাজস্ব, সুনির্দিষ্ট পথে প্রবেশ করবে ভারতীয় গরু, গ্রামীন রাস্তাঘাট সহ সাধারন মানুষের ফসলের ক্ষতি সাধিত হবে না। সর্বপরি উপজেলায় মাদক ও মাদকজাত দ্রব্য সামগ্রী বাংলাদেশে প্রবেশ করবে না। তারা দ্রুত করিডোর চালু দাবী জানান।
এবিষয়ে জানতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিৎ কুমার পাল বলেন- আগামী আইন শৃংঙ্খলা পরিষদের সভায় বিষয়টি উত্তাপন করা হবে। করিডোর চালুর বিষয়ে উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে অবহিত করা হবে।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: আবুল হোসেন মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের কামুদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। সে শমশেরনগর ইউনিয়নের ঈদগাহ টিলার খোকন মিয়ার ছেলে। মঙ্গলবার (৭ মে) রাতে ছাত্র আবুল হোসেনের সচেতনতার কারণে অল্পের জন্য বড় ধরণের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে পাঁচ শতাধিক যাত্রীবাহী চট্রগ্রাম অভিমুখী আন্তনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেন। মঙ্গলবার রাত ১১টায় এ ঘটনাটি ঘটে শমশেরনগর ইউনয়িনের ঈদগাহ টিলা গ্রাম এলাকার সিলেট-আখাউড়া রেলপথের ৩০৬/২ নং রেলপথ এলাকায়।
বুধবার (৮ মে) দুপুর ১২টায় সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, শমশেরনগর আপ আউটার সিগনালের অদুরে ৩০৬/২ নং রেলপথের ঈদগাহ টিলা গ্রাম এলাকার বাঁকে একটি স্থানে রেলপথের একটি পাত ভেঙ্গে ফাঁক হয়ে গিয়েছিল। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টায় এ গ্রামের ছেলে কামুদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র আবুল হোসেন স্থানীয় সায়েদ কবিরাজের বাড়ি থেকে ফেরার পথে রেলের পাত ভেঙ্গে ফাঁক হয়ে থাকতে দেখে গ্রামবাসীদের অবহিত করে। গ্রামবাসীরা এ খবরটি দ্রুত শমশেরনগর ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড সদস্য শেখ রায়হান ফারুক এর মাধ্যমে শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার কবির আহমদ ও শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ের গণপূর্ত বিভাগকে অবহিত করেন। এ খবর পেয়ে দ্রুত রেলওয়ে কর্তপক্ষ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভাঙ্গা রেলপাত সরিয়ে সেখানে নতুন এক টুকরো রেলপাত বসিয়ে এক ঘন্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক করেন। এসময় শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশনে চট্রগ্রাম অভিমুখী আন্তনগর পাঁচ শতাধিক যাত্রীবাহী উদয়ন এক্সপ্রেস শমশেরনগর স্টেশনে আটকা পড়েছিল। আর ঢাকাগামী আন্তনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন কুলাউড়া স্টেশনে আটকা পড়েছিল।
নবম শ্রেণির ছাত্র আবুল হোসেন জানায় সে, মঙ্গলবার রাতে একটি কাজে সায়েদ কবিরাজের বাড়ি গিয়েছিল। সেখান থেকে ফেরার সময় টর্চ লাইটের আলোতে দেখতে পান রেলপথের একটি পাত দ্বিখন্ডিত হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় ট্রেন চলাচল করলে বড় ধরণের দুর্ঘটনার কথা ভেবে সে গ্রামবাসীকে বিষয়টি অবহিত করলে তারা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন।
শমশেরনগর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড সদস্য শেখ রায়হান ফারুক বলেন, ছাত্রটি সচেতন হয়ে বিষয়টি গ্রামবাসীকে না জানালে তিনিও জানতেন না। ঘটনাস্থল রেলপথের বাঁক এলাকা বলে এসময় ট্রেন চলাচল করলে বড় ধরনেল দুর্ঘটনা ঘটে যেত। তিনি শমশেরনগর স্টেশন মাস্টারকে এ বিষয়ে জানিয়ে রেলওয়ের গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তাদের অবহিত করলে তারা দ্রুত ভাঙ্গা রেলপাত সরিয়ে নতুন একটি পাত প্রতিস্থাপনের পর ট্রেন চলাচল করে।
শমশেরনগর স্টেশন মাস্টার কবির আহমদ বলেন, আসলেই ছাত্র আবুল হোসেনের সচেতনতায় সম্ভাব্য একটি রেল দুর্ঘটনা থেকে বাঁচা গেল। তিনি খবর শুনে রেলওয়ে গণপূর্ত বিভাগের শ্রীমঙ্গলস্থ উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী মনির হোসেনকে অবহিত করলে তিনি গ্যাঙম্যানদের নিয়ে এসে দ্রুত ভাঙ্গা রেলপাত সরিয়ে নতুন একটি পাত স্থাপন করলে প্রায় আধাঁ ঘন্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ে গণপূর্ত বিভাগের উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী মনির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এখন এ রেলপথ ঝুঁকিমুক্ত আছে। তিনি আরও বলেন, সময়মত স্কুল ছাত্র খবরটি না জানালে আসলেই একটি দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারতো।

যশোর:  যশোরের শার্শায় পৃথক অভিযানে একটি ওয়ান শুটার গান, এক রাউন্ড গুলি ও ১০০ পিস ইয়াবাসহ দুইজন আসামিকে আটক করেছে শার্শা থানা পুলিশ। মঙ্গলবার (৭ মে) রাতে শার্শার নাভারন কাজির বেড় ও নাভারন হাসপাতালের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো- শার্শা থানার যাদবপুর গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে নাজমুল হোসেন শামীম ( ২৮), একই গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে ইমরান হোসেন ইমু (৩০) ও শার্শা থানার দক্ষিণ বুরুজবাগান গ্রামের আব্দুল আজিদের ছেলে সোহানুর রহমান সোহান (২৬)।
পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে, দুটি পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। এসময় শামীমের কাছ থেকে একটি ওয়ান শুটার গান ও এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয় এবং অপর আসামি সোহানকে তল্লাশি করে ১০০ ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়। এবং চাঁদাবাজির অভিযোগে ইমুকে আটক করা হয়েছে। শার্শা থানার এসআই বাবুল আক্তার (সেকেন্ড অফিসার) বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে বুধবার দুপুরে তাদের যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার প্রবাসীদের উদ্যোগে গঠিত “হৃদয়ে শ্রীমঙ্গল” নামের একটি অরাজনৈতিক সংগঠন কয়েক বছর ধরে দেশে-বিদেশে সামাজিক বিভিন্ন খাতে সহযোগিতা করে আসছে এরই সুত্র ধরে এবারও উপজেলার বিভিন্ন এলাকার দুই শত ২৫ জন গরীব রোজাদারদের মধ্যে মৌলভীবাজার রোডস্থ নজরুল কমিউনিটি সেন্টারে আজ বুধবার দুপুরে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন “হৃদয়ে শ্রীমঙ্গলে”র সদস্যবৃন্দসহ আগত বিভিন্ন এলাকার নারী পুরুষ।অনুষ্টানে হৃদয়ে শ্রীমঙ্গলের এডমিন মোসাব্বির আলী মুন্নার সভাপতিত্বে এবং দেলোয়ার হোসেন মামুন ও হাফিজুর রহমান চৌধুরী তুহিন এর সঞ্চালনায় পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্টানটি সকাল সারে এগারোটায় আরম্ভ হয়।

এতে পবিত্র কোরআন শরীফ থেকে তেলাওয়াত করেন হাফেজ মোঃ রাশেদ তালুকদার।

উক্ত অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্তিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র সংগঠনের প্রবাসী নেতৃবৃন্দের প্রতিনিধি আব্দুর রকিব রাজু,হাজিমুদ্দিন ও জামাল আহমদ।

“হৃদয়ে শ্রীমঙ্গল” এর উদ্যোগে বস্তা ভর্তি খাদ্য সামগ্রির সাথে দুই লিটার তেলের একটি বোতলসহ বিতরণ করা হয়।

আরও উপস্থিত ছিলেন,কামরুল ইসলাম দোলন, বেলাল আহমেদ, ইকরামুল ইসলাম ইমন, নিজাম উদ্দিন খান, আব্দুল মজিদ, সোহাগ আহমেদ,নিয়াজ উদ্দিন  রুমন, আহমেদ চৌধুরী,নাসির আহমেদ আব্দুর রব রুবেল,মোহাম্মদ মকবুল হাসান ইমরান তোফায়েল আহমেদ পাপ্পু,রিপন আহমেদ, আরিফুল ইসলাম রাজু,প্রতাব গোয়ালাসহ প্রমুখ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন “হৃদয়ে শ্রীমঙ্গল নামটি আকর্ষনীয়,স্বেচ্ছাসেবী এই সংগঠনের কর্মতৎপরতা আরও বাড়িয়ে তুলতে হবে,প্রত্যেককে অপরের জন্য কাজ করতে হবে তবেই দেশের মানুষের উন্নয়ন সম্ভব,মনে রাখতে হবে অপরাধ তখনই তৈরি হয় যখন শুধু নিজের স্বার্থ দেখা হয়, তাই আমি বলব-আসুন আমরা একে অপরের স্বার্থের প্রতি খেয়াল রাখি  তাহলেই কেবল আমাদের শান্তি বৃদ্ধি পাবে,অভাব দূর হবে এবং অপরাধ কমে যাবে” তিনি আরও বলেন আপনাদের সামাজিক যে কোন উন্নয়ন কাজে আমাকে পাবেন।

মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানায় নতুন অফিসার ইনচার্জ হিসেবে যোগদান করেছেন সিআইডি থেকে আসা মো. আব্দুস ছালেক দুলাল। ৭ মে ২০১৯,  মঙ্গলবার দুপুরে  শ্রীমঙ্গল থানার ওসি হিসেবে তিনি দায়িত্বভার গ্রহণ করেন এবং সাবেক ভারপ্রাপ্ত ওসি কে এম নজরুল তার হাতে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন।বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে মো. আব্দুস ছালেক এক সময় মৌলভীবাজার মডেল থানাসহ বিভিন্ন থানায় দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।এ ছাড়া তিনি মৌলভীবাজার ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের (সিআইডি) ওসি হিসেবে ও দায়িত্ব পালন করেছেন বলে জানা গেছে,আব্দুস ছালেক দুলাল এর গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার সায়েস্তগঞ্জ থানার লস্করপুর এলাকায় ।

অপরদিকে সোমবার বিকেলে সুনামগঞ্জে বদলী হওয়া শ্রীমঙ্গল থানার সাবেক ওসি কে এম নজরুল  ইসলাম কাজল নবাগত  ওসিকে  দায়িত্বভার বুঝিয়ে দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানান ” শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ নতুন ওসি হিসেবে যোগদান করলেন তিনি আমার ব্যাচম্যট মো: আব্দুস ছালেক।”সাবেক ওসি কে এম নজরুল ইসলাম কাজল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শ্রীমঙ্গলের সবার কাছে দোয়া ও কামনা করেছেন ।

সদ্য যোগ দেওয়া ওসি মোঃ আব্দুস ছালেক দুলাল জানান, শ্রীমঙ্গল থানার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সার্বিক চেষ্টার পাশাপাশি শ্রীমঙ্গলকে মাদকমুক্ত ও অপরাধ মুক্ত রাখতে কাজ করে যাব এব্যাপারে তিনি শ্রীমঙ্গল থানার সকল নাগরিকের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

উল্লেখ্য,শ্রীমঙ্গল থানার সাবেক ওসি কে এম নজরুল ইসলাম কাজল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্থানীয়দের মধ্যে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন।অপরদিকে নবাগত ওসি আব্দুস ছালেকের কাছে এলাকাবাসির প্রত্যাশা তিনি যেন ওসি নজরুলের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে শ্রীমঙ্গল থানাকে ঘুষ বানিজ্য মুক্ত রাখতে সচেষ্ট থাকেন।

সাইফুর রহমান চৌধুরী:  মৌলভীবাজার নাবিলা ফাউন্ডেশন এর পক্ষ থেকে মোট ১৫০টি অসহায় দারিদ্র পরিবারের মাঝে মাহে রমাদ্বান উপলক্ষে খাদ্য সমগ্রী বিতরন করা হয়েছে।
০৭ মে ২০১৯ মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় সদর উপজেলার ৬নং একাটুনা ইউনিয়নের নবীনগর শাহী ঈদগাহ্ প্রাঙ্গনে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
নাবিলা ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা আলহাজ্ব ফিরোজ মিয়া’র সভাপতিত্বে ও যুব সংগঠক সামাজিক ব্যক্তিত্ব ও মানবাধিকার কর্মী  শামীম আহমদ এর উপস্থাপনায় অনুষ্টানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নবীনগর গ্রামের বিশিষ্ট প্রবীন মুরুব্বী আলহাজ্ব ইছমাইল মিয়া,  ইউকে প্রবাসী সামাজিক ব্যক্তিত্ব আব্দুল লতিফ ও রত্না বেগম ,সমাজ সেবক রাজনীতিক ব্যক্তিত্ব সায়েক আহমদ, সিজিল মিয়া, লেফাছ মিয়া, কয়ছর আহমদ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন নাবিলা ফাউন্ডেশন এর সম্বনয়কারী শামীম আহমদ, হুমায়ুন কবির, সোয়েব আহমদ, নানু মিয়া, রিপন আহমদ,সহীদ আহমদ,জাবেদ আহমদ, শিপন আহমদ,মিজান আহমদ,বাহার আহমদ, হেলাল, আরিফ, মইনুল, হোসাইন, ইমন. শাহারিয়া, শুভ,  ,মিছলুসহ আরও অনেকেই।
আয়োজকরা জানান, মৌলভীবাজারের বিভিন্ন উপজেলা  থেকে বাছাই করে হতদরিদ্র ১৫০ টি পরিবারের মাঝে  ২৫ কেজি চাউল,৫ লিটার সুয়াবিন,৫ কেজিপিয়াজ,৩ কেজি চানা,৩ কেজি ডাইল,২ কেজিচিনি, ১ কেজি লবন,আধা কেজি খেজুর,২০০ গ্রাম দুধ ও সেমাই সহ প্রায়  ৩৫০০০০ সমপরিমান টাকার খাদ্য সামগ্রী  বিতরন করা হয়।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় ১২বোতল ভারতীয় অফিসার্স চয়েজ মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ী রবিউল (৩৩) উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নের মাহতাবপুর গ্রামের মৃত অলি মাহমুদের ছেলে।
তাহিরপুর থানার ওসি আতিকুর রহমান জানান,মঙ্গলবার(০৭মে) রাত সাড়ে ৮টার সময় বাদাঘাট  ইউপির জয়নাল আবেদিন গানর্লস স্কুলের রাস্তা থেকে বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির  ইনচার্য আমির উদ্দিন ও এস আই মনিরুল ইসলাম গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে রবিউলকে আটক করে।
আটক রবিউলের বিরোদ্ধে  এ এস আই মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে মাদক দব্য আইনে মামলা দায়ের করবে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc