Tuesday 23rd of July 2019 05:49:39 PM

মিনহাজ তানভীরঃ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় সম্প্রতি ঘটিত নিন্দনীয় এক ঘটনায় সামান্য সম্পত্তির লোভের বশে নিজের গর্ভজাত সন্তানের দ্বারা শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত হয় সিন্দুরখান এলাকার গুলগাও গ্রামের মৃত আজগর আলির স্ত্রী। ছুকেরা নাম তার এক অসহায় সত্তরোর্ধ মা’, যার পাশে সন্তানের পরশ নিয়ে দাঁড়ালেন এক সরকারী কর্মকর্তা,তিনি হলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, শনিবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল নিজেই তার বাড়িতে চলে যান। ওই সময় নজরুল ইসলাম আহত বৃদ্ধা মা’কে বলেন “ইউএনও হিসেবে নয় আমি আপনার এক ছেলে হিসেবে এখানে এসেছি যখনই কোন দরকার হবে আমাকে খবর দিবেন আমি আপনার কাছে চলে আসবো এবং যতটুকু সম্ভব আপনার জন্য চেষ্টা করবো”

মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় বৃদ্ধা মাকে আহত করার অপরাধে পুলিশের খাঁচায় আটক জহুর আলী (৪৫) কারাগারে, ছবি সংগৃহীত।

স্থানীয় সুত্রে আরও জানা গেছে নজরুল ইসলাম অসহায় বৃদ্ধার হাতে ৫ হাজার টাকা তুলে দেন এবং তিনি বৃদ্ধার ঘরসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানোর ব্যবস্থা করবেন বলে তাকে আশ্বস্ত করেন । এ সময় তার সাথে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

অসুস্থ বৃদ্ধা মায়ের শরিরে বিভিন্ন স্থানে আঘাতের ফলে তার লম্পট লোভী পাষণ্ড ছেলে জহুর আলির (৪৫) বিরুদ্ধে পুর্বেই মামলা হয়েছে।

উল্লেখ্য,গত বৃহস্পতিবার সকালে বৃদ্ধা মাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম  করলে থানায় এসে ছেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেন ছুকেরা খাতুন।অভিযোগ পেয়ে ওসি কেএম নজরুল ফোর্স নিয়ে রাতেই সিন্দুর খান এলাকা থেকে পাষন্ড ছেলে জহুর আলীকে আটক করে এবং শ্রীমঙ্গল থানায়  মামলা দায়ের করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেন। ছবি মামুন আহমদ।

বিয়ানীবাজার থানা জনকল্যাণ সমিতি ইউকে’র নব-নির্বাচিত কমিটির প্রথম পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পূর্ব লন্ডনের তসলা রেষ্টুরেন্টে গত বৃহস্পতিবার বিকালে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় সভাপতিত্ব করেন সমিতির সহ-সভাপতি মোং নাজিমুদ্দিন এবং পরিচালনা করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ। পবিত্র রমজান মাসে সমিতির ইফতার মাহফিলসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারে আলোচনা হয়। সভায় মুরব্বিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রউফুল ইসলাম, মুহিবুর রহমান মুহিব, শাহাব উদ্দিন চঞ্চল, বাজিদুর রহমান, সওয়াফ উদ্দিন, মো: রফিক উদ্দিন, সমিতির সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম মাসুদ আহমদ, কোষাধ্যক্ষ জইন উদ্দিন পাপলু,আফসার খান সাদেক, শামছুল হক এহিয়া, দিলাল আহমদ, এমরান আহমদ, বদরুল আলম, মিছবা উদ্দিন সানি, সেতু আহমদ, আহমদ মুস্তাক, ফারুক উদ্দিন, আব্দুল হাকিম হাদি, দেলোয়ার হোসেন দিলু, মোজাহিদুল ইসলাম, কামাল হোসেইন, রুহেল আলম, সৈয়দ সামি, আব্দুস সালাম, মুন্না আহমদ রাজু, জসিম উদ্দিন, সহিদ উদ্দিন অপু, ইফতেখার আহমদ সিপন, শাহজাহান খান, জুবের আহমদ, মাহমুদ আশরাফ দিলু, বেলাল উদ্দিন, আব্দুস সহিদ, মোহাম্মদ বাতিন, খুরশেদ আলম, আলম হোসেন, আব্দুল হান্নান, আতাউর রহমান আবু, সাদেক আহমদ, শামিম উদ্দিন, ময়নুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর সিদ্দিক, আবুল কাশেম প্রমুখ। সভায় পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন জসিম উদ্দিন।

অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র বিপদ কেটে যাওয়া এবং জানমালের তেমন কোনো ক্ষয়ক্ষতি না হওয়ায় মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে শুকরিয়া আদায় করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। লন্ডন সফররত প্রধানমন্ত্রী কর্মব্যস্ত সময়ের মধ্যেও ঘূর্ণিঝড়ের সার্বিক পরিস্থিতি এবং তা মোকাবেলায় করণীয় বিষয়ে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখেন।

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে ঘূর্ণিঝড়ের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান। এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর শুকরিয়া জানানোর বিষয়টি উল্লেখ করেন। সভায় সরকারি-বেসরকারি সংস্থাগুলোর দুর্যোগ মোকাবেলায় গৃহীত প্রস্তুতির বিষয়েও সন্তোষ প্রকাশ করা হয়।

গভীর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ দুর্বল হয়ে শনিবার সকালে ভারত হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এটি স্থলপথে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তের যশোর-সাতক্ষীরা জেলা অতিক্রমের সময় গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়।

দুর্বল হয়ে পড়ায় ফণীর প্রভাবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। এজন্য লন্ডন সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে শুকরিয়া আদায় করেছেন বলে জানান নজিবুর রহমান।

এর আগে ফণীর আঘাতে সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে সরকার ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে। শুক্রবার বাদ জুমা সারাদেশে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাতেরও আয়োজন করা হসভায় দ্রুত সময়ের মধ্যে দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকার প্রায় সাড়ে ১২ লাখ মানুষকে সাইক্লোন শেল্টারে নিয়ে আসার জন্য জেলা-উপজেলা প্রশাসনসহ এসব এলাকার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সরকারি ও বেসরকারি সংস্থাগুলো, বিশেষ করে সিপিপি’র স্বেচ্ছাসেবকদের তৎপরতার প্রশংসা করা হয়। এছাড়া, সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী, কোস্টগার্ড, পুলিশ, আনসার-ভিডিপিসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গৃহীত কার্যক্রমেরও সন্তোষ প্রকাশ করা হয়।সভায় বিশ্বপরিমণ্ডলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় ‘রোল মডেল’ হিসেবে খ্যাত যেকোনো দুর্যোগকালে বাংলাদেশ সরকারের সব সংস্থার সমন্বিতভাবে কাজ করার যে কৃষ্টি তৈরি হয়েছে, তা ভবিষ্যতে আরও সুদৃঢ় করতে গুরুত্বারোপ করা হয়।সভায় মুখ্য সচিব প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং ভবিষ্যতে জাতির যেকোনো দুর্যোগ মোকাবেলায় সমন্বিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

মাহবুব-উল আলম হানিফ

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের কল্যাণে ‘ফণী’র ক্ষয়ক্ষতি কম হয়েছে : হানিফ

এগিয়ে, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের কারণে আগাম তথ্য পেয়েছিলাম বিধায় আমাদের সরকার ও দলীয়ভাবে ঘূর্ণিঝড় ফণী মোকাবিলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলাম। যার ফলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।

শনিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ঘূর্ণিঝড় ফণী নিয়ে দলীয় মনিটরিং সেলের কর্মকাণ্ড ও পর্যবেক্ষণ সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

রুহুল কবির রিজভী আহমেদ

সরকারি ব্যর্থতায় ১৫ জনের মৃত্যু: রিজভী

ঘূর্ণিঝড় ফণী থেকে মানুষকে নিরাপদে রাখতে সরকার ব্যর্থ হওয়ায় ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। এ ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সরকারের কোনো ব্যবস্থাপনা নেই বলেও তিনি দাবি করেন।

শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে তাঁতী দল আয়োজিত এক প্রতীকী অনশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বেলা সোয়া ১১টায় শুরু হয়ে দুপুর সোয়া ২টায় অনশন শেষ হয়। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল পানি পান করিয়ে নেতাকর্মীদের অনশন ভাঙান।ইরনা

মসলাসহ ফসলের উৎপাদন কলাকৌশল শীর্ষক কৃষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্টিত

 

জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ মসলা গবেষনা কেন্দ্র, শিবগঞ্জ, বগুড়া আয়োজনে জৈন্তাপুর সাইট্রাস গবেষনা কেন্দ্রের মিলনায়তনে গোলমরিচ, কালিজিরা এবং জিরাসহ অন্যান্য অপ্রচলিত মসলাসহ ফসলের উৎপাদন কলাকৌশল শীর্ষক কৃষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
গতকাল ৪ মে শনিবার সকাল ১০টায় সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্রের মিলনায়তনে প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.শাহ্ মোঃ লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং গবেষনা কেন্দ্রর কর্মকর্তা এবাদ উল্লাহর স ালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে কৃষক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বি.আর.আই.এস শিবগঞ্জ বগুড়া’র মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ শফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বি.আর.আই.এস শিবগঞ্জ বগুড়া’র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আশিকুল ইসলাম নিরু, সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ঝুটন চন্দ্র সরকার, জৈন্তাপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা সুব্রত দেবনাথ প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্য বলেন- গোলমরিচ, কালিজিরা এবং জিরাসহ অন্যান্য অপ্রচলিত মসলাসহ ফসলের উৎপাদন কৃষকদের সটিক জ্ঞান বা বৈজ্ঞানিক উপায়ে বেশি উৎপাদনের ধারনা নেই। আমরা কৃষকদের উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার এবং সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে স্বল্প বিনিয়োগে অধিকত্বর মুনাফ লাভের জন্য প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করে থাকি। এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কৃষক উপকার পাবে এবং তাদের দেখাদেখি অন্যান্য কৃষকরাও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতীতে মসলা উৎপাদনে আগ্রহ বাড়াবে। আজ যেসব কৃষক কৃষানীরা প্রশিক্ষণ গ্রহন করছেন তাদের সুফল পাওয়ার পর আমরা আরও কৃষকদের এই কর্মসূচীর আওতায় নিয়ে আসার কথা বলেন। তিনি প্রতিটি কৃষককে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মসলা চাষাবাদের আহবান জানান।

অনুজকান্তি দাশঃ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে গরু চড়ানোকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী হামলায় একই পরিবারের তিনজন আহত হয়েছেন। গত ৩ মে শুক্রবার সকাল ১১ টায় উপজেলার ভূনবীর ইউনিয়নের ইসলামপাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ করা হলেও এখন পর্যন্ত মামলা রুজু করেনি পুলিশ।
জানা যায়, ইসলামপাড়া গ্রামের ষাটোর্ধ বৃদ্ধ বজলু মিয়ার বাড়ির পাশে মো. রশিদ মিয়া (৫৫) এর একটি ফিসারী আছে। বজলু মিয়ার কয়েকটি গরু ফিসারীর পাশে ঘাস খেতে যাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে রশিদ মিয়া সহ আরো ১০/১২ জন একত্রে বেআইনী জনতা মিলিত হয়ে দেশীয় অস্রসস্ত্র নিয়ে শুক্রবার সকালে বজলু মিয়ার বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ করে হামলা করে। এসময় হামলাকারীরা বজলু মিয়ার কপালে দা দিয়ে আঘাত করলে তিনি রক্তাক্ত জখম হয় এবং বজলু মিয়ার স্ত্রী কনকচাঁন বিবি ও তিন মাসের অন্তঃসত্বা পুত্রবধু নার্গিস বেগমকে এলোপাতারি ভাবে আঘাত করে মারাক্তক জখম করে।

এছাড়াও হামলাকারীরা বজলু মিয়ার বাড়িঘর ভাংচুর করে এবং নগদ টাকাসহ গরু ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ পাওয়া উঠেছে।
আহতদের প্রথমে শ্রীমঙ্গল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক অন্তঃসত্বা নার্গিস বেগমকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হলেও গুরুতর আহত বজলু মিয়া ও তার স্ত্রী কনকচাঁন বিবিকে আশঙ্কাজনকভাবে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
এ ঘটনায় বজলু মিয়ার ছেলে মাসুক মিয়া (৩৫) বাদী হয়ে রশিদ মিয়াসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো ৩/৪ জনকে আসামী করে শ্রীমঙ্গল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীমঙ্গল থানার এসআই রুকনুজ্জামান বলেন, বাদীর অভিযোগের ভিত্তিতে আমি সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছি। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে এবং এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়নি।

প্রবল ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে খুলনায় ৪ হাজার ৬৪০টি ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া বেড়িবাঁধের ভাঙ্গা অংশ দিয়ে কয়রা ও দাকোপ উপজেলার ২টি স্থান থেকে লোকালয়ে পানি ঢুকেছে।

খুলনা জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে খুলনায় ৯৯০টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ এবং ৩ হাজার ৬৫০টি ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এর আগে শনিবার ভোরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ হয়ে খুলনার ওপর দিয়ে অতিক্রম করে ফণী। এরপর শনিবার দুপুরের পর থেকে খুলনার ৩২৫টি আশ্রয়কেন্দ্র ও প্রায় ৫শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নেওয়া প্রায় ২ লাখ ৫২ হাজার মানুষ নিজ নিজ ঘরবাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন।

খুলনা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ আমিরুল আজাদ জানান, শনিবার সকাল ৯টায় ঘূর্ণিঝড়টি খুলনা অতিক্রম করে। এর প্রভাবে প্রায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যায়।

খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন জানান, ঝড়ে খুলনার ২টি গ্রাম প্লাবিত এবং এক কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। টিনের চাল ভেঙ্গে পড়ে একজন আহত হন। তবে কোথাও প্রাণহানি ঘটেনি।

খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষক আমির  হোসাইন চৌধুরী জানান, ঝড়ে সুন্দরবনের গাছপালা, বন্যপ্রাণী কিংবা বন বিভাগের অবকাঠামো ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

হুজুরে পুরনূর (সল্লাল্লাহুতা’য়ালা ’আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ফরমান: হে জনতা, আলীশান মাস তোমাদের পানে উঁকিঝুঁকি দিচ্ছে। মাসটি বরকতময়ও। এ মাসে হাজার মাসের চেয়েও উত্তম একটি রাত রয়েছে। এ মাসে আল্লাহ রোজা ফরজ করেছেন এবং রাতগুলোতে জেগে ইবাদত-বন্দেগী করা ঐচ্ছিক করেছেন। এ মাসে কেউ কোনো ভালো কাজ করে (আল্লাহ ও রাসূলের) নৈকট্য পেতে চাইলে, সে যেনো অন্য মাসের একটি ফরজ আদায় করলো এবং কেউ একটি ফরজ আদায় করলে, সে যেনো অন্য মাসের সত্তরটি ফরজ আদায় করলো! এটি সবুরের মাস। আর সবুরের প্রতিদান হচ্ছে, বেহেশত। এটি দান-খয়রাতের মাস। এটি ঈমানদারদের রিজিক বাড়ার মাস। কেউ এ মাসে কোনো রোজাদারকে ইফতার করালে, তার জন্যে গুণাহ-মাফ, দোযখ থেকে তার গর্দানের সুরক্ষা এবং তার (ঐ রোজাদারের) সমান সওয়াব রয়েছে। আর এতে তার (ঐ রোজাদারের) সওয়াবও কমবে না। হালাল খাবার ও পানীয় দিয়ে কেউ কোনো রোজাদারকে ইফতার করালে, ফেরেশতারা সারা রমজান মাস ধরে তার জন্যে দোয়া করতে থাকবে এবং কদরের রাতে জিবরাঈলও তার জন্যে দোয়া এবং তার সাথে মুসাফাহা করবে।

ফলে, তার হৃদয় নরম হয়ে যাবে এবং তার চোখের পানিও বেড়ে যাবে। আমরা আরয করলাম: ওগো আল্লাহর রাসূল, রোজাদারকে ইফতার করানোর মতো কিছু তো পাচ্ছি না? তিনি ফরমালেন: কেউ কোনো রোজাদারকে একটু মাঠা বা একটি খেজুর কিংবা একটু পানি দিয়ে ইফতার করালেও আল্লাহ তাকে এ সওয়াব দেবেন। আর কেউ কোনো রোজাদারকে তৃপ্তির সাথে ইফতার করালে বা পানি খাওয়ালে, আল্লাহ তাকে আমার হাউয থেকে এমন শরবত খাওয়াবেন যে, বেহেশতে যাওয়ার আগে সে আর তৃষ্ণার্ত হবে না।

এ মাসের প্রথমে রহমত, মাঝে মাগফিরাত ও শেষে দোযখ থেকে মুক্তি (-র ব্যবস্থা) রয়েছে। এ মাসে কেউ তার অধীনদের বোঝা হালকা করলে, আল্লাহ তাকে মাফ করে দেবেন এবং দোযখ থেকে রক্ষা করবেন। তোমরা এ মাসে চারটি নেক-কাজ বেশি বেশি করে করবে। দু’টি দিয়ে তোমাদের প্রভুকে খুশি করতে পারবে। আর দু’টি ছাড়া তোমাদের উপায় নেই। যে দু’টি দিয়ে তোমাদের প্রভুকে খুশি করতে পারবে – ওগুলো হচ্ছে, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’র সাক্ষ্য দেয়া এবং তাঁর কাছে তোমাদের গুণাহের জন্যে মাফ চাওয়া। আর যে দু’টি ছাড়া তোমাদের উপায় নেই – সেগুলো হলো, আল্লাহর কাছে বেহেশত চাবে এবং দোযখ থেকে পানাহ চাবে। (ইবনে খুঝাইমা, তাবারানী, ইবনে হিব্বান ও বায়হাকী) । লেখকঃ সাইফুল ইসলাম রোবায়েত  

জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ জৈন্তাপুরের লালাখালের সারি নদীতে আকস্মিক পাহাড়ি ঢলে পিতা-পুত্র নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের ৩দিনের মাথায় গতকাল (৩রা মে) শুক্রবার দুপুর ২টায় সারীনদীর শাখা (লাইম নদী) নদীর মুখে নিখোঁজ শাকিল অাহমদ (১২) লাশ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায় এলাকাবাসী৷ স্থানীয় জনতা শাকিল অাহমদের স্বজনদের খবর দিলে ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং পুলিশের সহায়তায় নদী হতে লাশ উদ্ধার হলে শাকিল অাহমদের পিতা কালিঞ্জীবাড়ী গ্রামের অালাউদ্দিন (৩৫) এখনও নিখৌঁজ রয়েছে৷
এদিকে প্রশাসনের উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে বাদ অাছর কালিঞ্জিবাড়ী গ্রামে দাফন সম্পন্ন করা হয়৷ প্রসঙ্গ গত বুধবার ভোর ৪টায় সারি নদীতে কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়ে অাকস্মিক পাহাড়ী ঢলে নৌকা ডুবির ঘটনায় পিতা-পুত্র নিখোঁজ হন৷
এ বিষয়ে  জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ খান মো. মাঈনুল জাকির বলেন, স্থানীয় সূত্রে পুত্রের লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রির্পোট তৈরী করে উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি স্বাপেক্ষে পরিবারের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে এবং নিখোঁজ হওয়া পিতার সন্ধানে অামাদের লোক নিয়োজিত রয়েছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc