Friday 26th of April 2019 07:35:54 PM

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জে হাওর জুড়ে বোরো মওসুমে সোনালী ধানের শীষ দেখে নতুন স্বপ্ন আর মৌ মৌ গন্ধে মাতুয়ারা হাওর পাড়ের কৃষকগন। বছরে একটি মাত্র ফসলকে ঘিরেই হাওরা লের মানুষের যত স্বপ্ন আশা। ভাল ফলন হওয়ায় সোনাঝরা হাঁসি ফোটেছে তাদের মুখে। বহু প্রত্যাশীত সোনালী ফসল ঘরে তুলতে কৃষকর-কৃষকরা ধান মাড়াই ও শুকানোর কাজ অনেক জায়গায় শুরু হয়েছে। বোর ফসলের উপর নিভর্রশীল এ অ লের কৃষকরা বৈশাখ মাসে ধান গোলায় উঠাতে পারলে কৃষকদের পরিবার আনন্দময় হয়ে উঠবে। নতুবা বিষাদের ছায়া নেমে আসবে দেশের ধান ভান্ডার খ্যাত সুনামগঞ্জে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্রে জানা যায়,চলতি বছর সুনামগঞ্জ জেলায় ১১টি সুনামগঞ্জ,জামালগঞ্জ,ছাতক,জগন্নাথপুর,তাহিরপুর,ধর্মপাশা,দিরাই,শাল্লা,বিশ^ম্ভরপুরসহ ১১টি উপজেলার-মাটিয়ান হাওর,শনির হাওর,সোনামোড়ল হাওর,খরচার হাওর দেখার হাওর,পাকনা হাওর,হালির হাওর,আঙ্গারুলী হাওর,কালিকোট হাওর,ধারাম হাওর,ধানকুনিয়া হাওরসহ ছোঠ বড় ৪৬টি হাওরের বিস্তৃর্ণ ফসলী মাঠ এখন সোনালী ধানের শীষ বাতাশে দোল খাচ্ছে।

উপজেলার ছোট বড় সবক’ টি হাওরে ২লাখ ২৪হাজার ৫শত ৫২হক্টর বোরো জমিতে চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৬হাজার ৬৯হেক্টর,দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ২২হাজার ৩শত ২৯হেক্টর,জামালগঞ্জে ২৪হাজার ৬শত ৯হেক্টর,ধর্মপাশা ৩১হাজার ৭ শ ৯৬হেক্টর,তাহিরপুর ১৮হাজার ৩শত ৩৫হেক্টর,দিরাই ২৭হাজার ৯শত ৫৪হেক্টর,শাল্লা ২১হাজার ৯শত ৯৯,জগন্নাথপুর ১৫হাজার ৩৫হেক্টর,বিশ^ম্ভরপুর ১১হাজার ৩শত ৩৫হেক্টর,ছাতক ১৪হাজার ১শ ৯৯হেক্টর,দোয়ারাবাজার ১৩হাজার ৬শত ৩৯হেক্টর। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে হাওর থেকে প্রায় ৪হাজার কোটি টাকার ধান উৎপাদন হবে বলে ধারণা করছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। এসব হাওর জেলার খাদ্য চাহিদা মিটিয়ে দেশের অর্থনৈতিকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে বছরের পর বছর ধরে।

জেলার সচেতন হাওরবাসী জানান,গত ১৬-১৭সালে পানি উন্নয়ন বোর্ডের লাগামহীন দূর্নীতি আর অনিয়মের কারণে মার্চের শেষ ও এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহের বৃষ্টিতে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে একের পর এক হাওর ডুবে ফসল হারিয়ে এজেলার লাখ লাখ কৃষকরা স্বর্বশান্ত হয়েছিল। হাওর পারের মানুষ কাজের সন্ধানে ছুটে যায় দেশের বিভিন্ন স্থানে। ফসল বিপর্যয়কে সামনে রেখে কৃষকদের আন্দোলনে ২০১৮সালে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয় বাঁধ নির্মানে নতুন নীতিমালা করে ঠিকাদারী প্রথা বাতিল করে। সরাসরি সংযুক্ত করা হয় জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে। কিন্তু এতেও হাওর বাচাও সুনামগঞ্জ বাচাও আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ ও কৃষকরা বলেছেন গত বছরের চেয়েও এবার কাজের মান নিন্ম মানের হয়েছে অভিযোগ উঠেছে। ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে গাফিলতি হওয়ায় হাওর বাচাও,সুনামগঞ্জ বাচাও আন্দোলনের ব্যানারে জেলা-উপজেলায় মানব বন্ধন হয়েছে।
হাওর পাড়ের কৃষক সাকিব মিয়া,সাইদুল,আহসান জানান,এবার ফসল ভাল হয়েছে। হাওরের সোনালী ধানের দিকে তাকালে সব কষ্ট দূর হয়ে যায়। কিন্তু মেঘলা আকাশ দেখলেই উৎবেগ,উৎকণ্ঠা আর বজ্রপাত,শীলাবৃষ্টির ভয়ে কৃষকগন থাকেন সারাক্ষন আতংকের মাঝে। এবারও বাঁেধ দূর্নীতি হওয়ায় আমরা কৃষকরা সারাক্ষনেই ভয়ের মাঝে আছি বাঁধ ভাঙ্গার আতœংক নিয়ে। কোন রখমে কষ্টের ফলানো বেরো ধান গোলায় তুলতে পারলেই হল।

তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস ছালাম জানান,এবারও হাওরে সামন্য কিছু ক্ষতি হয়েছে শুধু সময় মত বৃষ্টি না হওয়ায় কারনে। আশা করি কৃষকরা তাদের কষ্টের ফলানো সোনালী ধান এবার ভাল ভাবেই তাদের গোলায় তুলতে পারবে। সবাইকে দ্রুত ধান কাটার জন্য বলা হয়েছে আবহাওয়ার অবস্থা বিবেচনা করে।

জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আবুবকর সিদ্দিক ভূঁইয়া বলেন,বাঁধের কাজ শেষ। সার্বিক দিক থেকে বলা যায় এবারো ভালো কাজ হয়েছে। বৃষ্টিতে প্রকল্পের কাজে মাটি লেভেলিং,ড্রেসিং,মজবুতকরনসহ দূর্বাঘাস লাগানো হচ্ছে। চলতি বছর পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে কাবিটা কর্মসূচির আওতায় সুনামগঞ্জের ৪২টি হাওরে ৫৭২টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে ৪৫০কিলোমিটার ফসল রক্ষাবাঁধ নির্মাণ করেছে। এতে ব্যয় হয়েছে ৯৭কোটি ৫৫লাখ টাকা।

ফেনীর সোনাগাজী ফাজিল মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির শ্লীলতাহানি ও পুড়িয়ে হত্যা মামলার আসামিদের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে দৃষ্টান্ত শাস্তি ফাঁসির দাবি জানান বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরাম (বোয়াফ)। সেই সাথে যারা রাজনৈতিক ও প্রশাসনিকভাবে ধর্ষক, খুনি সিরাজ-উদ-দৌলা ও তার সঙ্গী-সাথীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে, তাদেরও আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি তুলেন সংগঠনটি।
শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বরে ‘ফেনীর সোনাগাজীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাতের খুনিদের ৯০ দিনের মধ্যে ফাঁসির দাবি’তে এক মানববন্ধন কর্মসূচী পালনের মাধ্যমে এই দাবি জানানো হয়।
বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে নুসরাত হত্যার আসামীদের ফাঁসি নিশ্চিত করা এখন দেশবাসীর দাবি। সেই সাথে আইন বর্হিভূতভাবে নুসরাতের ভিডিও ধারণ করায় ফৌজদারী অপরাধী হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকেও আইনে আওতায় আনা হবে আইনের শাসনের দৃষ্টান্ত।
তিঁনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা একটি ভালো দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। নুসরাত হত্যার সাথে সম্পৃক্ত বা অপরাধীদের পক্ষপাততুষ্ট স্থানীয় কতিপয় আওয়ামী লীগ নেতাকে বহিঃস্কার করেছে। আমি মনেকরি, শুধু বহিঃস্কার করলেই হবে না, তাঁদের অপরাধ নির্ণয় করে সে অপরাধের বিচার করা উচিত।
বোয়াফ সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময় বলেন, নুসরাতের মৃত্যুকালীন ঘোষণা বা ডাইং ডিক্লারেশন, আর কীভাবে সিরাজ-উদ-দৌলা কর্তৃক যৌন নিপীড়নের শিকার হতেন-নুসরাতের খাতার পাতার লেখাগুলো আজ মিডিয়া ও স্যোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল যা মামলার গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট হিসেবে গণ্য। সেই সাথে আইন-বহির্ভূতভাবে শ্লীলতাহানির শিকার নুসরাতের ভিডিও ধারণ করায় ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের ২৬ ধারা অনুসারে ফৌজদারি অপরাধ করেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন। তাঁকেও আইনের আওতায় এনে জিজ্ঞাসাবাদসহ তাঁর অপরাধের বিচার করতে হবে।
তিঁনি আরও বলেন, নুসরাতের শ্লীলতাহানির ঘটনা, ঘটনার পরবর্তী পরিকল্পনায় আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা, হত্যা সংঘঠিত ব্যক্তি ও মহল, দীর্ঘদিন ধরে বিতর্কিত অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাসহ ওইসব অপরাধীদের সামাজিক, রাজনৈতিক, প্রশাসনিকসহ খোদ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান-সোনাগাজী ফাজিল মাদ্রাসার কে বা কারা আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে-এইসব ডকুমেন্টও জনগণের মুখে-মুখে। তাই নুসরাত হত্যা মামলার আসামীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে ৩০ দিনই যথেষ্ট। কালক্ষেপন না করে, আরেকটি জীবন ঝড়ারনোর আগেই দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে ধর্ষক-খুনিদের ফাঁসি নিশ্চিত করে অপরাধ প্রবনতারোধে তার কঠোর বার্তা ছড়িয়ে দিতে হবে।
মানববন্ধনে সংহতি জানিয়েছে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ বুড্ডিস্ট ফেডারেশনের নির্বাহী সভাপতি-অশোক বড়–য়া, সাংস্কৃতিক ব্যক্তি মোহাম্মদ ফয়সাল আহসানউল্লাহ, আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য-মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফী, জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগের সভাপতি-এমএ জলিল, বাকশালের মহাসচিব-কাজী মোহাম্মাদ জহিরুল কাইয়ূমসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

* ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা না হলে হত্যাকা- বন্ধ হবে না- আলমগীর ইসলাম বঈদী।
* সত্যের সৈনিকদের হত্যা করে ছাত্রসেনার অগ্রযাত্রাকে দমানো যাবে না- মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম।

সুখী, সমৃদ্ধ, সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন আজ ভুলন্ঠিত। সড়কে লাশের মিছিল, বাতাসে মানুষের পোড়া মাংসের গন্ধ। খুন, ধর্ষণ, ছিনতাই, সন্ত্রাস, রাহাজানিতে অতিষ্ট জনসমাজ। লিয়াকত, হালিম, নুসরাত, তনু, মিতু, তাসফিয়া, নঈমদের রক্তের স্রোতে ভাসছে বাংলাদেশ। বিচার নাই, বিচারের বাণী কাঁদছে নীরব-নিভৃতে। যেই স্বপ্ন নিয়ে ৭১-এ বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল, সেই স্বপ্নভঙ্গের দ্বারপ্রান্তে যেন বাংলাদেশ! এই অসুস্থ বাংলাদেশ সুস্থ করতে প্রয়োজন আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা। এজন্য প্রয়োজ সচেতন নাগরিকদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা। বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণের আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

শহীদ লিয়াকত আলী (রহ.)’র ৩৩ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আজ ১৩ এপ্রিল’১৯ শনিবার সন্ধ্যা ৬ টায় মোমিন রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্রনেতা রেজাউল করিম ইয়াসিনের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর ইসলাম বঈদী। প্রধান আলোচক ছিলেন ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম। উদ্বোধক ছিলেন ইসলামী ফ্রন্ট নেতা মুহাম্মদ বেলাল হোসেন। মুহাম্মদ আমির হোসেনের পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান। আলোচনা সভায় মহানগর সম্পাদকমন্ডলীর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মুহাম্মদ শিহাব, মুহাম্মদ হুমায়ুন কবির, মোয়াজ্জেম হোসেন মাসুম, মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন, মাহবুবুর রহমান বাহার, মাহফুজুর রহমান, মুহাম্মদ জামশেদ, মুহাম্মদ শওকতুল করিম প্রমুখ।
প্রধান অতিথি আলমগীর বঈদী বলেন, ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা না হলে হত্যাকা- বন্ধ হবে না। অন্যায় করে অপরাধীরা পার পেলে অন্যায়-অনাচার বৃদ্ধি পাওয়া স্বাভাবিক। তাই দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পর্যন্ত যৌন নিপীড়ন, ধর্ষণ ও খুনের ঘটনা ঘটছে। এমনকি ফেনীর নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার লোমহর্ষক ঘটনা অপরাধীদের পাপের ষোলকলা পূর্ণ করছে। এখন তাদের প্রতিরোধের পালা।
প্রধান আলোচক ফরিদুল ইসলাম বলেন, শহীদ লিয়াকত আলীকে ১৯৮৬ সালের ১০ এপ্রিল চট্টগ্রাম কমার্স কলেজে ছাত্রসেনার নবীন বরণ থেকে বের হওয়ার সময় জামাত-শিবিরের সন্ত্রাসীরা ছুরিকাঘাত করে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। তারা চেয়েছিল সত্যের সৈনিক লিয়াকতকে হত্যা করে ছাত্রসেনার অহিংস আন্দোলনকে রুখে দিতে। কিন্তু পারেনি, পারবেও না। সত্যের সৈনিকদের হত্যা করে ছাত্রসেনার অগ্রযাত্রাকে দমানো যাবে না। লিয়াকতের পূর্বে ছাত্রসেনা কর্মী আবদুল মোস্তফা হালিমকে ১৯৮৪ সালে রাঙ্গুনিয়ায়, নুরুল আমিন রফিককে ১৯৮৫ সালে হাটহাজারীতে হত্যা করে উগ্রবাদি জামাতি-জঙ্গি-কওমী গোষ্ঠি। এমনকি এরপরও নঈম উদ্দীন রাউজান মুন্সীরঘাটায়, জিতু মিয়াকে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে, আবু ছাদেককে চট্টগ্রামের পটিয়ায় হত্যা করে। তবুও ছাত্রসেনাকে দমানো যায় নি। বছরের পর বছর বিচারের দাবি করা হলে এসব হত্যাকা-ে সরকারের পদস্থ ব্যক্তিদের আশ্বাস ছিল, কিন্তু কোন হত্যাকা-ের বিচার হয় নি। বিচারহীনতা বা বিচারে দীর্ঘসূত্রীতার ফলে ন্যায় বিচার সম্ভব হয় নি। এভাবে দেশে জুলুমবাজদের রাজত্ব চলছে। তাই দেশে প্রতিটি প্রান্থে লাশের মিছিল বাড়ে, কয়েকদিন প্রতিবাদ হয়। প্রতিবাদ বন্ধ হলে প্রশাসনও চুপ হয়ে যায়। আবার রক্তপিপাসু অপরাধীরা অন্যকোন মা-বাবার কোল খালি করে। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না। যতক্ষণ পর্যন্ত সামাজিক-রাজনৈতিকভাবে জালেমদের প্রতিহত করা হবে না এ চক্র থেকে জাতি মুক্তি পাবে না।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার নোয়াগ্রামে প্রতিষ্ঠিত এমজাদ-হনজো আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ৫০জন মেধাবী ছাত্রীদের মাঝে উপ-বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে বিদ্যালয়ের হলরুমে এ উপবৃত্তি প্রদান করা হয়।
বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ড. সৈয়দ এমদাদুল হকের সভাপতিত্বে সভায় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে দিক-নির্দেশনামূলক বক্তব্য দেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কাজী শামসুল হক, সহকারী শিক্ষক আবুল বাশার শেখ, বিভাষ চন্দ্র বসু, মোঃ সাজ্জাদ হোসেন, কামরুন্নাহার, আঞ্জুমানয়ারা খাতুন, জাফরিন সুলতানা, সৈয়দা তানিয়া আক্তার প্রমুখ।
সভায় এয়ার ভাইস মার্শাল(অবঃ) সদরুদ্দীন মোহাম্মদ হোসেন প্রতিষ্ঠিত ‘‘সৈয়দ আবেদা আক্তার লিলি শিক্ষা ট্রাষ্ট’’ এর অধীনে ৬ষ্ঠ হতে দশম শ্রেনী পর্যন্ত ৫০ জন মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে উপবৃত্তি প্রদান করা হয়।
বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি ড. সৈয়দ এমদাদুল হক বলেন, ‘ নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার প্রত্যন্ত অ লে জাপানী বন্ধু ইয়াসুকে হন্জো’র সহযোগিতায় ২০১৫ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। স্থানীয় প্রায় ১০টি গ্রামের নারী শিক্ষায় ইতিমধ্যে বিদ্যালয়টি অগ্রণী ভুমিকা রাখছে। ২০১৮ সালে জেএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশ করেছে। ২০১৮ সালে বিদ্যালয় হতে প্রথমবারের মতো এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে।

এম ওসমান বেনাপোল : যশোরের শার্শা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডলের অফিসিয়াল মোবাইল ফোন নাম্বারটি ক্লোন করা হয়েছে।
শনিবার দুপুরে বিষয়টি জানতে পেরেছেন বলে স্থানীয় সাংবাদিকদেরকে নিশ্চিত করেছেন পুলক কুমার মন্ডল ।মোবাইল ফোনের যে নাম্বারটি ক্লোন করা হয়েছে সেটি হচ্ছে ০১৭৬৮ ৭৫ ৭৮ ৭৮।
অসদুদ্দেশ্যে ব্যবহারের জন্য কেউ এটা করতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। তাই যে কোন প্রয়োজনে বিষয়টি যাচাই করার জন্য তিনি অনুরোধ করেছেন ।
শার্শা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) শেখ তাসমিম আলম বলেন, এ ব্যাপারে শার্শা থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে ।

চুনারুঘাটে ছাত্রসেনার মানববন্দনে বক্তাগন   

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) সংবাদদাতা: সাংবাদিক এস এম সুলতান খান বলেন , মাদ্রাসা ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এ সমস্ত প্রতিষ্ঠানের প্রতি মানুষের আলাদা আবেগ অনুভূতি আছে। মানুষ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের চেয়ে অধিকতর নিরাপদ মনে করেই মাদরাসায় সন্তানদের পাঠায়। কিন্তু মাদরাসায় অধ্যক্ষ কর্তৃক কোন শিক্ষার্থী শ্লীলতাহানির শিকার হয়ে প্রতিকার চাইতে গিয়ে পুড়িয়ে হত্যার শিকার হওয়া অত্যন্ত নিন্দনীয়।

এমন বর্বর ও জাহেলীয় ধাঁচের কর্মকান্ডের নিন্দা জানানোরও কোন ভাষা নেই। তিনি সরকারের কাছে রাফি হত্যাচেষ্ঠাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান। গতকাল ১৩ এপ্রিল শনিবার সকালে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চুনারুঘাট উপজেলা শাখার  উদ্যোগে ফেনীর সোনাগাজী সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্ঠাকারী অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাসহ জড়িতদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চুনারুঘাট উপজেলা  সভাপতি ছাত্রনেতা আব্দুল্লা আল মামুনের   সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন চুনারুঘাট প্রেসক্লাবের সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক সাংবাদিক এস এম সুলতান খান ।

উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য মোঃ মামুনুর রশিদ। বক্তব্য রাখেন সাবেক জেলা সহ সম্পাদক আব্দুল আউয়াল সুমন, উপজেলা  যুবসেনা সাংগটনিক সম্পাদক হাফেজ মোঃ বিলাল মিয়া, পৌর সভাপতি মোঃ আবু তাহের, আলিফ সোবহান সরকারী কলেজ সাধারন সম্পাদক হাফেজ শামছুল ইসলাম যাকী, উপজেলা সাধারন সম্পাদক আবু তাহেব মিছবাহ্, সহ সম্পাদক  এম এ মালেক, সাংগটনিক সম্পাদক লোকমান হেকিম, অর্থ সম্পাদক জামাল আহমদ রুবেল, প্রমূখ।

বক্তাগন বলেন ধর্ষক জামায়াত  নেতা সিরাজুদ দৌলা সহ তার সহযোগিদের মৃতু দন্ড কার্যকর করে দেশবাসীকে সান্তনা দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।

এম ওসমান, বেনাপোল: শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির খুনিদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে বন্দরনগরী বেনাপোল শহরে  মানববন্ধন কর্মসুচী পালন হয়েছে।
শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকাল ৪ টায়  বন্দর প্রেসক্লাব, বেনাপোলের আয়োজনে ৩ নং গোডাউনের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে বিকাল ৩ টায় নুসরাতের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বন্দর প্রেসক্লাবে দোয়া হয়।
মানববন্ধনে বন্দর প্রেসক্লাবের সংবাদকর্মীরা, মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ও সামাজিক সংগঠন আমরা বেনাপোল বাসিন্দাসহ বিভিন্ন সংগঠন অংশ নেয়।
বন্দর প্রেসক্লাবের সভাপতি শেখ কাজিম উদ্দীনের সভাপতিত্বে  মানব বন্ধন ও দোয়া  অনুষ্ঠানে আলোচনা রাখেন, বন্দর প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক, সহ-সভাপতি আবুল বাশার, সাংগঠনিক আনিছুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক এসএম স্বপন প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, মানুষ কতো নিচে না নামলে এমন জঘন্য আচারণ করতে পারে। নুসরাত হত্যার নির্দেশকারীরা যেমন অপরাধী তেমনি নুসরাত যাদের কাছে নিরাপত্তা চেয়ে বাঁচার আকুতি জানিয়েছিলেন, কিন্তু তারা নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে তারাও সমান অপরাধী। অভিযুক্ত সবাইকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানান বক্তারা।

শাব্বির এলাহী,কমলগঞ্জ থেকেঃ ফুলের মতো ফুটফুটে শিশুটির নাম সাগরিকা । জন্মের আগেই বাবাকে হারায় । মা শাবনুর বেগমের সাথে নানা বাড়িতে আদর সোহাগ আর সকলের ভালোবাসায় বাবার অভাব ভূলে গিয়ে বড় হতে থাকে । মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জের নন্দ রাণী চা বাগানের ট্রাক চালক মখলিছ মিয়ার মাটির ঘর হাসি আনন্দের স্বর্গীয় আলোয় ভরে দিত তার নাতনি সাগরিকা । হঠাৎ মাত্র তিন বছর বয়সে সাগরিকার শরীরে ধরা পড়লো ব্লাড ক্যান্সার ।

যে মেয়েটি সারা ঘর মাথায় তুলে রাখতো হৈ হুল্লোড় আর আনন্দ উল্লাসে। সে এক বছর ধরে হাসপাতালের শক্ত বেডে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে । প্রথম তিন মাস সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাক্তারের নানা পরীক্ষা নিরীক্ষা আর শরীরে কাঁটা ছেঁড়ার যন্ত্রণা সইতে হয়েছে নিষ্পাপ অবুঝ এই শিশুকে । শাবনুরের তো আর কিছুই নেই, নানা মখলিছ মিয়ার সব উপার্জন আর নানী সেলিনা আক্তারের সমস্ত স য় উজাড় করে দিলেন চিকিৎসার্থে । কোন লাভ হয়নি । অবশেষে আত্মীয় স্বজন, পাড়া প্রতিবেশীর সহযোগিতায় টাকা পয়সা যোগাড় করে সাগরিকা কে ভর্তি করানো হলো রাজধানীর পি. জি.হাসপাতালে।

ডাক্তার আফিকুল ইসলামের তত্তাবধানে চিকিৎসাধীন আছে সে । প্রতিদিন ছয় হাজার টাকা খরচ করতে হয় । এ খরচ যোগাতে সব সহায় সম্বল বিক্রি করে আজ নিঃস্ব অভাগী শাবনুর বেগমের পরিবার । শাবনুরের মা নাতনি সাগরিকার সুস্থতা কামনায় আল্লাহ দরবারে চোখের পানি ফেলতে ফেলতে আজ শোকে পাথর । আর হাসপাতালে সাগরিকা কে ডাক্তার নার্স ইনজেকশন দিতে এলে কংকালসার সেই অসহায় শিশুটি ক্ষীণ কন্ঠে আর্ত চিৎকার করে বলে, ইয়া আল্লাহ! আর কতো কষ্ট পেলে আমি ভালো হয়ে যাবো । মখলিছ মিয়ার আরেক মেয়ে টাইফওয়েড জ্বরে আক্রান্ত হয়ে স্থানীয় মোহাজিরাবাদ হাই স্কুলে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত লেখা পড়া করে আর পারেনি । হয়তো কয়েক লাখ টাকা হলেই সাগরিকা ভালো হয়ে যাবে ।

শাবনুর বেগমের কোল ভরে উঠবে । আমরা কতো ভাবে কতো টাকাই তো খরচ করি, ফুলের মতো ফুটফুটে এই শিশুটির জীবন বাঁচাতে না হয় কিছু একটা করতেই পারি । অন্ততঃ সাগরিকার জন্য এক ফোঁটা অশ্রু তো বির্সজন দিতে পারি। আমি একজন নগন্য সংবাদ কর্মী হিসেবে এ বিষয়ে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি । নিশ্চয়ই আপনার কোন উদ্যোগে একটি ফুল অকালে ঝরে পড়বে না।

নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাইয়ে ডোবা থেকে বকুল (২৬) নামে এক মাইক্রো চালকের ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।
শুক্রবার বিকালে উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের দিঘীরপার ব্রিজের নিচে ডোবা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত বকুল উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের চাপড়া গ্রামের আকবর আলী মন্ডলের ছেলে।

মৃত বকুলের বাবা বলেন, বকুল দীর্ঘ দিন ধরে ঢাকাতে মাইক্রো চালাতো। গত দুই দিন যাবৎ তার পরিবারের লোকজন তার মোবাইল ফোন বন্ধ পায়। তার সাথে কোন যোগাযোগ করতে পারে না। শুক্রবার বিকালে থানা থেকে ফোন দিয়ে বকুলের মৃত্যুর বিষয়টি জানায় পুলিশ।

এব্যাপারে আত্রাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোবারক হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে শুক্রবার বিকাল ৩টার দিকে উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের দিঘীরপাড় ব্রিজের নিচে ডোবা থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। লাশটির মুখমন্ডল ও মাথার পেছনে ছুরির আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে ছুরি দিয়ে তাকে হত্যা করে ডোবার পানিতে ফেলে দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে এবং লাশ ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc