Friday 26th of April 2019 03:56:11 PM

চুনারুঘাট প্রতিনিধি: চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের বড়াব্দা গ্রামের প্রায় ২শ’ বছরের পুরাতন একটি পানি নিষ্কাশনের খালে মাটি ভরাট করে জোর পূর্বক বন্ধ করে দিয়েছে এলাকার একটি প্রভাবশালী মহল। এলাকার নিরীহ অসহায় দরিদ্র ফারুক মিয়া পানি নিষ্কাশনের খালটি প্রভাবশালীদের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য গত ২১ জানুয়ারী চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করার ২০ দিন পেরিয়ে গেলেও প্রভাবশালীদের হাত থেকে উদ্ধার হয়নি খালটি।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের বড়াব্দা গ্রামের ছায়েদ মিয়ার বসতবাড়ির উত্তর দিক হতে পশ্চিম দিক হয়ে দক্ষিণ দিকে মাঠ পর্যন্ত এস.এ রেকর্ডীয় একটি পানি নিষ্কাশনের খাল রয়েছে। উক্ত খাল দিয়ে উক্ত এলাকার বৃষ্টির পানি ও কয়েকটি বাড়ি-ঘরের পানি নিষ্কাশন হয়ে থাকে। চলতি অর্থ বছরে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বড়াব্দা হক শাহ মৌলার মাজার পর্যন্ত পাকা রাস্তার উপর একটি কালভার্ট নির্মাণ করা হলে উক্ত কালভার্টের নিচ দিয়ে উত্তর দিকের বৃষ্টির পানি উক্ত খালে এসে নিষ্কাশন হয়ে থাকে।

গত ২৫ ডিসেম্বর ১৮ ইং রোজ মঙ্গলবার সকাল ৬টার দিকে বড়াব্দা গ্রামের মৃত মারফত উল্লার পুত্র ছায়েদ মিয়া, মৃত মুনছব উল্লার স্ত্রী মোছা: আবু চাঁন সহ তাদের সহযোগি ৬/৭ জন লোকজনদের নিয়া অন্যায় ও অবৈধভাবে উক্ত রেকর্ডীয় পানি নিষ্কাশনের খালে মাটি ভরাট করতে থাকলে উক্ত এলাকার লোকজন সহ ফারুক মিয়া তাদেরকে এহেন অন্যায় কাজে বাধা নিষেধ দিলে তারা বাধা নিষেধ উপেক্ষা করে তাদেরকে বিভিন্ন রকমের হুমকি-ধামকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। ফারুক মিয়া সহ এলাকার লোকজনরা বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যান রমিজ উদ্দিন, মেম্বার মানিক মিয়া সহ মুরুব্বিয়ানদেরকে জানালে মুরুব্বিয়ানরা উক্ত ছায়েদ মিয়াকে খালে মাটি ভরাট করতে নিষেধ দিলেও সে মুরুব্বিয়ানের বাধা নিষেধ অমান্য করায় মুরুব্বিরা ব্যর্থ হন।

ফলে ছায়েদ মিয়া উক্ত খালে জোর পূর্বক মাটি ভরাট করে খালটিতে পানি চলাচল সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে দেয়। খালটি মাটি দিয়ে ভরাট করার ফলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে এবং এলাকার বিভিন্ন কৃষিজাত পণ্যের ব্যাপক ক্ষতি হবে ও কাঁচা ঘরবাড়ি নষ্ট হবে এবং বিভিন্ন পানিবাহিত রোগ ছড়াবে। এ ব্যাপারে পানি নিষ্কাশনের খালটি প্রভাবশালীদের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এলাকার সচেতন মহল। এ নিয়ে এলাকায় টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এম ওসমান,বেনাপোল : এই শোক সইবার নয়। একই সাথে ঝরে গেল দুই তাজা প্রাণ। পরিবারের সুখের আশায় আগামী ৩০শে জানুয়ারী পাড়ি দিয়েছিলো সাইপ্রাস প্রদেশে। একটি ভালো কম্পানিতে কাজও জুটেছিলো। কিন্তু হাই ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস একটি সড়ক দূর্ঘটনা কেড়ে নিলো পরিবারের সমস্ত আশা ভরসার একমাত্র অবলম্বন টুকুও। সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলো ভাগ্যের কাছে হার মানা রিপন হোসেনের (২৮) স্বপ্ন। রিপন হোসেন যশোরে ঝিকরগাছা উপজেলার বড়পোদাউলিয়া গ্রামের শাহজান মোড়লের ছেলে।
মাত্র ৯দিনের ব্যবধানে লাশ হলো রিপন। শনিবার সকালে পরিবারের ঘুম ভাংলো তার মৃত্যু সংবাদে। সাইপ্রাসে গত রাতে খাওয়ার পরে সে ও তার সংগী সাইফুলকে নিয়ে দুইজন বাইরে বের হয়, রাস্তা দিয়ে হাটার সমায় পিছোন দিক থেকে এক ঘাতক গাড়ি তাদের স্বজরে ধাক্কা দিলে ঘটনা স্থলে সাইফুল মারা যায়। সে সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার ফজলীপুর গ্রামে।
রিপন তখনও মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট করতে থাকে। স্থানীয় পুলিশ তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে রিপন হোসেনও শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে। এমন হৃদয় বিদারক মৃত্যুর খবর দেশে পরিবারের কাছে পৌছালে পরিবারের  আর্তনাদ আর আহাজারীতে এলাকা ভারী হয়ে ওঠে। এলাকা জুড়ে চলছে শোকের মাতম। মৃত্যুকালে রিপন হোসেন এক ছেলে, স্ত্রী ও পরিবারে মা বাবাসহ রেখে গেছেন অসংখ্য স্মৃতি।

তিন দিবসকে সামনে রেখে ব্যস্তসময় পার করছেন ফুল চাষীরা


বেনাপোল থেকে এম ওসমান : দরজায় কড়া নাড়ছে বসন্ত। আর ক’দিন পর বিশ্ব ভালোবাসা দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। আর এ দিবসগুলোর বাজার ধরতে ব্যাস্ত সময় পার করছে যশোরের গদখালি এলাকার ফুলচাষীরা। ২১ ফেব্রুয়ারী মাতৃভাষা দিবসে আমরা ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানাতে ফুল ব্যবহার করি। এদিন শহীদ মিনারের প্রতিটি কানা ভরে ওঠে বিভিন্ন রঙের ফুলে। ফুল ব্যবসায়ীদের কছে পুরো ফেব্রুয়ারী মাসটি ব্যবসায়ের উৎসব হিসেবে বিবেচিত। তবে ১৩ ও ১৪ ফেব্রুয়ারী এই দু’দিনে ফুল বিক্রি অন্যতম উচ্চতায় পৌঁছায় ফুলচাষীদের। এ সময়কে কেন্দ্র করে এখানকার ফুল ব্যবসায়ীদেরও থাকে বিশেষ প্রস্তুতি।
বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির তথ্যমতে, এবার যশোরে পাইকারি পর্যায়ে ৭০ কোটি টাকার ফুল বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। যশোরে প্রায় ৬ হাজার ফুল চাষী ১৫ শত হেক্টর জমিতে বিভিন্ন প্রকার ফুল চাষের সাথে সম্পৃক্ত। তার ভিতর সবচেয়ে বেশি চাষ হয় গ্যালোরিয়াস শতকরা ৪০% চাষ করে এখানকার ফুল চাষীরা। তার পরই ২০% চাষ হয় রজনিগন্ধা। গোলাপ ১৫% চাষ হয়। তাদের উৎপাদিত জারবেরা, গাঁদা, জিপসি, রডস্টিক, কেলেনডোলা, চন্দ্র মল্লিকাসহ ১১ ধরনের ফুল সারাদেশের মানুষের মন রাঙাচ্ছে এখানকার চাষীরা।
শনিবার সকালে সরেজমিনে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালি, পানিসারা, নাভারণ, নিরবাসখোলা এলাকার মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, জমিতে সেচ প্রদান, গোলাপের কুঁড়িতে ক্যাপ পরানো, সার-কীটনাশক, আগাছা পরিস্কার করাসহ ফুলের আনুসাঙ্গিক পরিচর্যা করছেন চাষীরা। তাদের লক্ষ এ মাসের প্রতিটা ফুলের বাজার ধরা।
পানিসারা মাঠপাড়া এলাকার ফুল চাষী তবিবর জানান, ফুল চাষে আসা বংশপরমপরায়। আমার বাবা ফুল চাষ করতো। এখন আমিও ফুল চাষের সাথে সংপৃক্ত। আমি ৪ বিঘা জমিতে ফুল চাষ করেছি। তার মধ্য রজনিগন্ধা ২ বিঘা ও ১ বিঘা গোলাপ ও ১ বিঘা জারবেরা। সামনে ফুলের বড় বাজার তাইতো বাজার ধরতে সকাল-বিকাল ফুলের পরিচর্যা করছি।
গদখালিতে কথা হয় তরুণ ফুল ফুলচাষী আশরাফুল ইসলাম চান্দু তিনি বলেন, ৪ বিঘা গোলাপ, ২ বিঘা জারবেরা ও ১ বিঘা গ্যালোরিয়াস ও রডস্টিক চাষ করেছেন। আমরা গোলাপের কুঁড়িতে ক্যাপ পরিয়ে রাখি, যাতে ফুল একটু দেরি করে ফোটে। বসন্ত দিবস, ভালবাসা দিবস আর ২১ ফেব্রুয়ারীতে যাতে ফুল বাজারে দেওয়া যায়। প্রতিটি গোলাপে ক্যাপ পরানোসহ খরচ প্রায় ৪ টাকার মতো। যদি ৭-৮ টাকা বিক্রি করা যায় তাহলে মুনাফা বেশি পাবো বলে আশাবাদ। ফুল চাষের উপর প্রশিক্ষণ নিয়ে তিনি সফল ভাবে ফুল চাষ করে যাচ্ছেন।
নাভারণ ফুল চাষি ও ব্যবসায়ী নজরুল আলম জানান, তিনি ফুল ব্যবসায়ের সাথে ফুল চাষ করছেন। তার চাষের মধ্য জারবেরা, গাঁদা, জিপসি, রজনিগন্ধাসহ বেশ কয়েকটি ফুল চাষ করছে লাভজনক ভাবে। কিন্তু তার জারবেরা ফুলে মাকড় পোকা বিস্তার করেছে । সেই সাথে সাদা মাছি। কৃষি কর্মকতাদের পরামর্শ মতো কীটনাশক দিয়ে এই পোকামাকড় বিস্তার নষ্ট করার টেষ্টা করছি। গত দু-তিনমাস ব্যবসাটা কিছুটা খারাপ গেছে। সময়মতো সামনের দিবস গুলোতে যদি বাজার ধরতে পারি তা হলে ৩-৪ লক্ষ টাকার মতো ফুল বিক্রয় করতে পারবো।
বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রহিম বলেন, যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলারসহ এ জেলায় বাণিজ্যিক ভাবে ফুলের চাষ হচ্ছে। ১৯৮৩ সালে গদখালীতে মাত্র ৩০ শতক জমিতে ফুল চাষ শুরু হয়। এখন চাষ হচ্ছে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে। দেশে ফুলের মোট চাহিদার ৭০ ভাগই যশোরের গদখালী থেকে সরবরাহ করা হয়। দেশের গন্ডি পেরিয়ে এই ফুল এখন যাচ্ছে দুবাই, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়াতেও।
বাংলাদেশে বর্তমান সময়ে ৩০ লক্ষ মানুষের জীবিকা এই চাষ বা ফুলকে কেন্দ্র করে। প্রায় ২০ হাজার কৃষক ফুলচাষের সঙ্গে সম্পৃক্ত। এর মধ্যে কেবল যশোরেই প্রায় ৬ হাজার ফুলচাষী রয়েছেন। সামনের দিবসগুলোকে কেন্দ্র করে প্রায় ৭০ কোটি ফুল বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। সারাবছর টুকটাক ফুল বিক্রি হলেও মূলত ফেব্রুয়ারী মাসের তিনটি উৎসবকে সামনে রেখেই জোরেশোরে এখানকার চাষীরা ফুল চাষ করে থাকেন।
কিন্তু কিছু অসাধু ব্যাক্তিরা প্লাস্টিক ফুলকে আমদানি বা তৈরির জন্য ব্যবসাটি কমে যায়। এ প্লাস্টিক বাজারজাত করণ যদি সরবারহ বন্ধ করতো তা হলে ফুল চাষে আরো বৃদ্ধি ও লাভবান হবে বেশি। তাছাড়া ঢাকায় স্থায়ী ফুলের বাজার স্থাপন করতে পারলে ফুলের চাষ ও ব্যবসা প্রসার ঘটবে।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ  বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব সুন্নী ঐক্ষের প্রতিক জননেতা আল্লামা এম এ মতিন চুনারুঘাট আসছেন । তিনি আজ  ৯ ফেব্রুয়ারী ১৯ ইং শনিবার , দুপুর ১ ঘটিকার সময় চুনারুঘাট  বীর মুক্তিযোদ্ধা এনামুল হক মোস্তফা শহীদ অডিটোরিয়ামে জননেতা আলহাজ্ব মাওলানা ছোলাইমান খান রাব্বানী এর (হবিগনজ -৪)   চুনারুঘাট – মাধবপুর নির্বাচনী আসনে জাতীয়  নির্বাচন পরবর্তী পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন।
এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে শুভ আগমন করিবেন সাবেক ছাত্রনেতা, যুবসেনা কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মাহমুদ মোস্তফা জিলানী, এডভোকেট ইসলাম উদ্দিন দুলাল সহ কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দ । এতে দলীয় নেতাকর্মীদেরকে যথা সময়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছে উপজেলা বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা ও ছাত্রসেনা।

সাইফুর রহমান চৌধুরী: আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত সংরক্ষিত নারী আসনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে দলটির স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা শেষে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের কাছে নামের তালিকা তুলে ধরেন।

ওবায়দুল কাদেরের সুত্রে জানা যায়, মৌলভীবাজারের সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন,সুনামগঞ্জের শামীমা আক্তার খানম (শামীমা শাহরিয়ার) এর নাম ।

এ ছাড়া আরও জানা যায়,কুমিল্লা থেকে আনজুম সুলতানা, বরগুনা থেকে সুলতানা নাদিরা, জামালপুর থেকে মিসেস হোসনে আরা, গাজীপুর থেকে রুমানা আলি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, নেত্রকোণার হাবিবা রহমান খান শেফালী, পিরোজপুরের শেখ এ্যানি রহমান, টাঙ্গাইলের অপরাজিতা হক,গাজীপুরের শামসুন্নাহার ভূঁইয়া, মুন্সিগঞ্জের ফজিলাতুন নেসা, নীলফামারী রাবেয়া আলীম, নরসিংদীর তামান্না নুসরাত বুবলী, গোপালগঞ্জের নার্গিস রহমান, ময়মনসিংহের মনিরা সুলতানা, ঢাকার নাহিদ ইজহার খান, ঝিনাইদহের খালেদা খানম, বরিশালের সৈয়দা রুবিনা মিরা, চট্টগ্রামের ওয়াসিকা আয়শা খান, পটুয়াখালীর  কাজী কানিজ সুলতানা, খুলনার ঝর্না সরকার, ঢাকার সুবর্ণা মোস্তাফা, দিনাজপুর থেকে জাকিয়া তাবাসসুম, নোয়াখালীর ফরিদা খানম সাকী, খাগড়াছড়ির বাসন্তী চাকমা, কক্সবাজারের কানিজ ফাতেমা আহমেদ, ফরিদপুরের রুশেনা বেগম, কুষ্টিয়ার সৈয়দা রাশিদা বেগম,রাজশাহীর আনজুম মিতা, কুমিল্লার আরমা দত্ত, খুলনার শিরিনা নাহার, চাঁদপুরের ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, শরীয়তপুরের পারভীন হক সিকদার, রাজবাড়ির নুসরাত, ঢাকার শবনম জাহান শিলা, চট্টগ্রামের খাদিজাতুল আনোয়ার, নেত্রকোণার জাকিয়ার পারভীন খানম, মাদারীপুরের তাহমিনা বেগম, ঢাকার শিরীন আহমেদ ও জিন্নাতুল সংরক্ষিত আসনে মনোনীত হয়েছেন।

বিকেল সাড়ে ৪ টা থেকে আওয়ামী লীগ সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে  দলটির সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা এই প্রতিবেদন লেখার পরও চলে। সভায় দলটির সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এবার সংরক্ষিত নারী আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমা দিয়েছিলেন ১৫১০ জন। গত ১৫ থেকে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত এই ফরম বিক্রি করে দলটি। বিদ্যমান আইন অনুযায়ী, সরাসরি ভোটে জয়ী দলগুলোর আসন সংখ্যার অনুপাতে মহিলা আসন বণ্টন করা হয়। প্রতি ৬টি আসনের বিপরীতে যে কোনো দল বা জোট ১টি সংরক্ষিত আসন পেয়ে থাকে। আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিতে এবার ৫০টি সংরক্ষিত আসন বণ্টন করা হবে। ইসি সচিব এ বিষয়ে জানিয়েছেন, আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিতে এবার আওয়ামী লীগ ৪৩টি। কিন্তু আজ আওয়ামী লীগ ৪১ জনের নাম ঘোষণা করেন। জাতীয় পার্টি ৪টি, বিএনপি ১টি, অন্যান্য দল ১টি (ওয়ার্কার্স পার্টি) ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জোটভুক্ত হয়ে ১টি সংরক্ষিত আসন পাবেন।

উল্লেখ্য  সিলেট বিভাগের দুইটি আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন মৌলভীবাজারের জোহরা আলাউদ্দিন ও সুনামগঞ্জ জেলার শামীমা আক্তার খানম (শামীমা শাহরিয়ার)।

জোহরা আলাউদ্দিন মৌলভীবাজার জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর করা জোহরা ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন।অপর দিকে শামীমা শাহরিয়ার কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক।

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে পিছিয়ে পড়া দরিদ্র জনগোষ্ঠীদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য প্রবাসী মো: রুহুল আমীন, বাহরাইন প্রবাসী আকাশ নাথ ও ওমান প্রবাসী মো: ছালিকুর রহমানের সহায়তায় বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৪টায় উপজেলা পতনঊষার ইউনিয়নের লক্ষীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হলরুমে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ কমলগঞ্জ, কমলকুঁড়ি পত্রিকা ও কমল

গঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটি এর আয়োজনে শতাধিক মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র ( কম্বল) বিতরণ করা হয়। কমলগঞ্জ সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি কমলকুঁড়ি সম্পাদক পিন্টু দেবনাথের সভাপতিত্বে ও মোনায়েম খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আব্দুল হান্নান চিনু, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি সমকাল প্রতিনিধি প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি শাব্বির এলাহী, কমলগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির যুগ্ম সম্পাদক নির্মল এস পলাশ, সদস্য আহমেদুজ্জামান আলম, সুহৃদ জুয়েল মাহমুদ, শিক্ষক মঞ্জুর আহমেদ জুয়েল, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো শিক্ষক পরিমল দেবনাথ, সুপ্তি চক্রবর্তী প্রমুখ।

সাদিক আহমেদ,স্টাফ রিপোর্টারঃ শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেসক্লাব ও আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম পরিবারের যৌথ আয়োজনে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরুপ লীলাভূমি ও চায়ের রাজধানী খ্যাত শ্রীমঙ্গলের হাইল হাওরে অনুষ্ঠিত হয়েছে মনোমুগ্ধকর পরিবেশে এক বারবিকিউ পার্টি।

এতে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি ও আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক মোহাম্মদ আনিসুল ইসলাম আশরাফি,অনলাইন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মনসুর আহমেদ,সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মজিদ,কোষাধ্যক্ষ মকবুল হাসান ইমরান,আইটি সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ,এনিমেটরস বাংলা মিডিয়া গ্রুপের পরিচালক ধন মিয়া,সদস্য রুকনুজ্জামান,আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম এর স্টাফ রিপোর্টার সাদিক আহমেদ ইমন,চা শ্রমিক ডটকমের সম্পাদক ফারুক আহমেদ, সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের সদস্য আরিফুর রহমান রাজু,মিনহাজ তানভীর ও শাহেদ আহমদ প্রমুখ।

তারপর শুরু হয় আলোচনা।আলোচনায় নেতৃবৃন্দ ভ্রমণ ও বিনোদনের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে নানামুখী আলোচনা করেন।শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেসক্লাবের এমন প্রোগ্রাম ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে এবং আজকে যারা উপস্থিত থাকতে পারেনি আগামীতে যেন সবাই উপস্থিত থাকতে পারে এমন আশাবাদ করেন নেতৃবৃন্দ।

আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি মোহাম্মদ আনিসুল ইসলাম আশরাফি ও সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মনসুর আহমেদ।

উল্লেখ্য বারবিকিউ “খাবার” না হলেও এটা খাবার তৈরির একটা আদিম পদ্ধতি। অল্প আঁচে দীর্ঘ সময় ধরে কাঠ/কয়লার আগুনে খাবার (মুলত মাংস) ঝলসানোকেই BBQ বলে। এটি সভ্যতার শুরু থেকে আগুন আবিষ্কারের পর থেকেই চলে আসছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc