Sunday 23rd of September 2018 08:40:53 PM

নড়াইল প্রতিনিধি: বাংলাদেশ টেলিভিশন ও আমাদের সময়ের নড়াইল প্রতিনিধি, নড়াইল প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এনামুল কবির টুকুর মা রিজিয়া বেগম (৮০) ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১২টার দিকে বার্ধক্যজনিত কারণে নড়াইল শহরের কুড়িগ্রামের বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়েসহ আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন।

মঙ্গলবার জোহর নামাজ বাদ রূপগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ি মসজিদ চত্বরে রিজিয়া বেগমের জানাজা শেষে দক্ষিণ নড়াইল কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে। রিজিয়া বেগমের মৃত্যুতে নড়াইলের গণমাধ্যমকর্মীরা শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন।

হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ শ্রীমঙ্গলে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণ চেষ্টার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে, এ মেরুকরণে অংশগ্রহন করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী,তিনি আসন্ন  একাদশ সাংসদ নির্বাচনে শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ আসন থেকে প্রার্থী হতে চান এমন ইঙ্গিতই পাওয়া গেছে বিভিন্ন বক্তাদের বক্তব্য থেকে।
গতকাল সোমবার বিকালে শহরের মহসিন অডিটোরিয়ামের অনুষ্ঠানটি ছিলো “বঙ্গবন্ধুর কথা বলার ও মুক্তিযুদ্ধের কথা শোনার” কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়ে দাড়ালো শ্রীমঙ্গল আওয়ামী লীগের রাজনীতির এক নতুন মেরুকরনের সভায় ৷গতকাল (১০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে শ্রীমঙ্গলের মহসীন অডিটোরিয়ামে আয়োজন করা হয় “এসো বঙ্গবন্ধুর কথা বলি,মুক্তিযুদ্ধের কথা শুনি” যাতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী ৷মুক্তিযুদ্ধের গল্প শোনার অনুষ্ঠান হলেও সেখানে বক্তাদের কথায় স্পষ্ট হয়ে যায় শ্রীমঙ্গলে আওয়ামীলীগের রাজনীতির এক নতুন মেরুকরনের ৷

আলোচনা সভায় বক্তারা অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরীকে শ্রীমঙ্গল কমলগঞ্জ আসন থেকে প্রার্থী হিসেবে দেখতে চেয়ে বক্তব্য দিতে থাকেন তখন মঞ্চে আলোচনা সভার সভাপতি দ্বারিকাপাল মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ও আওয়ামীলীগের আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী সৈয়দ মনসুর উল হক তা ছাড়া ওই সময় আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী ডা হরিপদ রায় ও সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ছিলেন৷আলোচনা সভায় বক্তারা এই নির্বাচনী আসনের অভিভাবকত্ব শেখ হাসিনা যাতে অধ্যক্ষ আহাদের হাতে তুলে দেন সেই দাবীও জানান ৷

তবে অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন “প্রধানমন্ত্রী যাকে মনোনয়ন দেবেন আমরা তার পক্ষেই কাজ করবো” ৷তিনি আরও বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিরা যাতে আর ক্ষমতায় আসতে না পারে সেই দিকে সকলের দৃষ্টি রাখতে হবে ৷ আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এই আসনে আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করছেন,সেখানে অধ্যক্ষ আহাদ যেন অনাহূত অতিথির মত হানা দিলেন তাদের ডেরায় ৷

এরই মাঝে অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধারা স্বল্প সময়ে নিজেদের বীরগাঁথা কাহিনী বলতে গিয়ে আবেগাপ্লুত কণ্ঠে বলেন।আমরা যখন দেখি আমাদের ছেলেরা জামাত শিবির করে তখন গলায় ফাঁস দিয়ে মরে যেতে ইচ্ছে করে,এ সময় আরেক নারী মুক্তিযোদ্ধার সহ ধর্মিনি বলেন আপনারা বাচ্চাদের রুপকথার কাহিনী না বলে মুক্তিযোদ্ধাদের কাহিনী বলে বাচ্ছাদের ঘুম পারান তবেই আমাদের আগত প্রজন্ম মুক্তিযোদ্ধা কি তা জানবে।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল আওয়ামীলীগের একাধিক সিনিয়র নেতার সাথে কথা হয় “তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন ” শ্রীমঙ্গল কমলগঞ্জের উন্নয়নে আমাদের বর্তমান এমপি উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ এমপির কোন জুড়ি নেই৷তিনি দুঃসময়ে আওয়ামীলীগকে এই জেলায় নেতৃত্ব দিয়েছেন এখনও হাল ছাড়েননি৷বর্তমানে কিছু সুবিধাবঞ্চিত লোক এমপির কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা আদায় করতে ব্যর্থ হয়ে প্রার্থী বদলাতে নানা ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন৷তবে তারা সফল হবেন না কারণ এ অঞ্চলের জনগণ জানেন যে আব্দুস শহিদের বিকল্প তিনি নিজেই।তবে তারা এও বলেন জননেত্রী শেখ হাসিনা যার হাতে নৌকা তুলে দিবেন আমরা তার পক্ষেই কাজ করবো।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ ৩য় ধাপে জাতীয়করণ থেকে বঞ্চিত  বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহ জাতীয়করণের দাবিতে নড়াইলে শিক্ষকরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালিন করেছে।

সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় নড়াইল প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ বেসরকারী প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে আধা ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ বেসরকারী প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি সৈয়দ মাহবুব আলী, সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার গোস্বামী, শিক্ষিকা ফেরদৌসী খানম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন যে,  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর সকল শর্ত পুরণ করা হলেও সারাদেশে ৪ হাজার ১শত ৫৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের আওতায় নেয়া হয়নি। যার ফলে এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। মানবিক দিক বিবেচনা করে বিদ্যালয়গুলি জাতীয়করনের দাবি জানান শিক্ষক নের্তৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে নড়াইল জেলার জাতীয়করণ থেকে বি ত ১১টি বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্ঠা ও জননেতা এম ইলিয়াস আলীর সহ ধর্মিনী তাহসিনা রুশদীর লুনা এক বিবৃতিতে বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চি ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক সৈদুর রহমানকে গ্রেফতার করে সাজানো মিথ্যা, ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্য প্রনোদিত মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।রবিবার এক লিখিত প্রেস বিবৃতিতে তিনি বলেন, যুবদল নেতা সৈদুর রহমান কে অনতিবিলম্বে মুক্তি দিয়ে সাজানো মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও পুলিশি দমন-পীড়ন, হয়রানী বন্ধ করতে হবে।

অপর এক বিবৃতিতে  সিলেট জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল আহমদ চৌধুরী, সিলেট জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও বিশ্বনাথ উপজেলা বিএনপির সভাপতি জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, সিলেট জেলা বিএনপির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও বিশ্বনাথ উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মোঃ লিলু মিয়া চেয়ারম্যান বলেন, যুবদল নেতা সৈদুর রহমান কে শত শত জনতার সম্মুখে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে সাদা পোশাকদারীরা গ্রেফতার করে একটি সাজানো মিথ্যা অস্ত্র মামলায় কারাগারে প্রেরন করেছ্।ে  যা বিশ্বনাথবাসীকে হতবাক ও মর্মাহত করেছে।

এ রকম অনৈতিক কর্মকান্ড ও অপকর্ম একমাত্র আওয়ামীলীগের মাধ্যমেই সম্ভব। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, বিএনপি পরমতসহিষ্ঞতায় বিশ্বাসী, উদার গণতান্ত্রিক একটি গণমানুষের সংগঠন বিধায় আওয়ামীলীগের সকল অত্যাচার নির্যাতন, অন্যায়-অবিচার, হামলা-মামলা, গুম-খুন অত্যন্ত ধৈর্যের সাথে মোকাবেলা করে আসছে। আওয়ামীলীগ ও প্রশাসনকে হুসিয়ারি করে নেতৃবৃন্দ বলেন,  আমাদের পিঠ দেয়ালে লেগে গেছে, পেছনে যাবার রাস্তা নেই। হামলা-মামলা, অত্যাচার-নির্যাতন, গুম-খুন সরকার যত বাড়াবে তাদের পতন আরো ত্বরান্বিত হবে এবং বিএনপি আরো শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ হবে। শান্তির জনপদ বিশ্বনাথকে যারা অশান্ত করছে, জণমনে আতংক ছড়াচ্ছে, বিরোধীমতের নেতা কর্মীদের গ্রেফতার, মিথ্যা মামলা, বাসা-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তল্লাশি, পরিবারের লোকজনের সাথে অসদাচরণ করছে এরা কখনো জণগনের বন্ধু কিংবা সেবক হতে পারে না। ক্ষমতা লোভী কাপুরুষেরা জনগনকে ভয় পায় বিধায় এসব অন্যায় অপকর্ম, বেআইনি কর্মকান্ড চালিয়ে ক্ষমতায় যাবার যে স্বপ্ন দেখছে এই অ লের জণগন সময়মত তাদের সমুচিত জবাব দিবে।

বিগত উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সুচনীয় পরাজয় মেনে নিতে পারেনি বিধায় এখন জবর দখল, নেতা কর্মীদের গ্রেফতার, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে ইতিহাসের কলঙ্কময় বিগত ৫ ই জানুয়ারীর মত আরও একটি নির্লজ্জ ভোটারবিহীন প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ ক্ষমতাসীন হবার যে স্বপ্ন দেখছে এ অ লের শান্তি প্রিয় জণগন তাদের সে স্বপ্ন কে দুঃস্বপ্নে পরিনত করবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, যাদের যোগসাজেশনে যুবদল নেতা সৈদুর রহমান কে ডিবি পুলিশ দিয়ে গ্রেফতার করে সাজানো মিথ্যা অস্ত্র মামলা দিয়ে ধ্বংস করার হিংস্র খেলায় মেতে  উঠেছে, তাদেরকে ও একদিন কঠোর পরিনতি বরণ করতে হবে।

নেতৃব্ন্দৃ প্রশাসনকে রাষ্ট্রের কর্মচারী-কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করার আহবান জানিয়ে বলেন, যারা আওয়ামীলীগের ক্যাডার বাহীনি হিসাবে ব্যবহৃত হবে তাদেরকে জনগন কখনো ক্ষমা করবে না । নেতৃবৃন্দ আওয়ামীলীগকে এসব অন্যায় অপকর্ম ও অরাজনৈতিক হিংসাত্বক কর্মকান্ড পরিহার করে গঠনমুলক রাজনীতিতে ফিরে আসার আহবান জানিয়ে বলেন, অন্যতায় সকল দায়ভার আওয়ামীলীগের সকল নেতা কর্মীকে বহন করতে হবে।

নেতৃবৃন্দ সরকারকে অনতিবিলম্বে বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খারেদা জিয়া ও জননেতা এম ইলিয়াস আলী কে জনতার মাঝে ফিরিয়ে দেওয়ার জোর দাবি জানান । ওপর এক বিবৃতিতে বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাি  ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি এটিএম নুর উদ্দিন, সাধারন সম্পাদক আলতাব মিয়া আওয়ামীলীগকে হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, নিরীহ, নিরপরাদ উদীয়মান তরুন রাজনীতিবিদ খাজা ী ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক সৈয়দুর রহমান কে যারা সাদা পোশাকদারী দিয়ে গ্রেফতার করে সাজানো অস্ত্র মামলা দিয়ে তার জীবন বিপন্ন ও ধ্বংসের মুখোমুখি দাড় করিয়েছে তাদের কে জনগন কখনো ক্ষমা করবে না এবং ইতিমধ্যে  এদের কে চিহ্নিত করা হয়েছে ।

নেতৃবৃন্দ যুবদল নেতা সৈয়দুর রহমানের নিঃশর্ত মুক্তি, সাজানো মামলা প্রত্যাহার, দমন-পীড়ন ও পুলিশি হয়রানী বন্ধের জোর দাবী জানান ।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল পেশাজীবি গাড়ী চালকদের দক্ষতা,সচেনতা বৃদ্ধি মূলক ২ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষন কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ ) যশোর ও নড়াইল সার্কেলের আয়োজনে  জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় এ প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ এমদাদুল হক চৌধুরী।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ ইয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে  বিশেষ অতিথি ও প্রধান প্রশিক্ষক ছিলেন বিআরটিএ এর খুলনা বিভাগীয় পরিচালক মোঃ জিয়াউর রহমান।

সহকারি পরিচালক বিআরটিএ যশোর ও নড়াইল মোঃ মোরশালিন, মোটর যান পরিদর্শক রামকৃষ্ণ সাহা, সরকারি কর্মকর্তা,বিআরটিএ এর কর্মকর্তা-কর্মচারি, প্রশিক্ষনার্থীগন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 এ প্রশিক্ষনে জেলার ১০০ জন পেশাজীবি গাড়ী চালককে দক্ষতা,সচেনতা বৃদ্ধি মূলক বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষন প্রদান করা হবে।

ডেস্ক নিউজঃ  বহুল প্রতীক্ষিত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করেছে সরকার। এ পদে নিয়োগের জন্য ৯ হাজার ৭৬৭ জনকে মনোনীত করা হয়েছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা রবীন্দ্রনাথ রায় স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার রা‌তে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্বখাতভুক্ত “সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৪” এর চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হয়েছে। চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীর সংখ্যা ৯ হাজার ৭৬৭ জন। ইতোমধ্যে নির্বাচিত প্রার্থীদের রোল নম্বরের তালিকা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে প্রেরণ করা হয়েছে।

এছাড়া প্রাথ‌মিক ও গণ‌শিক্ষা মন্ত্রণাল‌য়ের ও‌য়েবসাইট www.mopme.gov.bd এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে www.dpe.gov.bd ফল প্রকাশিত হয়েছে।

রাজস্ব খাতভুক্ত “সহকারী শিক্ষক নিয়োগ ২০১৪” দীর্ঘদিন স্থগিত থাকার পর চলতি বছর ২০ এপ্রিল লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। চারটি ধাপে সারা দেশের ৬১টি জেলায় শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। লিখিত পরীক্ষায় ছয় লাখ ১৬ হাজার ৬৪ জন চাকরিপ্রার্থী অংশ নেন। মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ২৯ হাজার ৫৫৫ জন।

নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী আসন প্রতি তিনজন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। তার মধ্যে দুইজন নারী ও একজন পুরুষ প্রার্থীকে নির্বাচন করা হয়। গত ৮ জুলাই সারা দেশের সব জেলার লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়। পরবর্তীতে আগামী ২৯ জুলাই থেকে ১৫ আগস্ট পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

নিউজ ডেস্কঃ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বহুল কাঙ্খিত কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন সেকশন পুনর্বাসন প্রকল্প কাজের উদ্বোধন হলো। সোমবার বিকাল ৫টার দিকে উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই কাজের উদ্বোধন করেন।
এসময় আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েল গেজ রেল সংযোগ (বাংলাদেশ অংশ) নির্মাণ প্রকল্প এবং বাহারামপুর-ভেড়ামারা বিদ্যুৎ সংযোগ এইচভিডিসি ইন্টার কানেকশন প্রকল্প উদ্বোধন করা হয়।
ভিডিও কনফারেন্সে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও বক্তব্য রাখেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা ব্যানার্জি, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।
এর আগে ওই মুহূর্তটি বরণ করতে প্রস্তুত ছিলো কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন সংলগ্ন বিশাল মঞ্চ। তৈরি ছিলো বিশাল মঞ্চ ও দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর নামে ‘ফলক নির্মাণ’। শহরজুড়ে শোভা পায় বাংলাদেশ এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রীর যৌথ ছবি সংবলিত বড়-বড় ফেস্টুন।
রেললাইন পুনর্বাসনের কাজ ও কুলাউড়া জংশন স্টেশন প্রাঙ্গণে উদ্বোধনী মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ শাহাব উদ্দিন, সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস সহিদ এমপি, মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া) আসনের এমপি মো. আব্দুল মতিন, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম, কেন্দ্রিয় আওয়ামীলীগের সদস্য অধ্যাপক রফিকুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ, পুলিশ সুপার মো:শাহজালাল,কুলাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম, বড়লেখা উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর, জুড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান গুলশান আরা মিলি, রেলওয়ে বিভিন্ন উচ্চ পদস্ত কর্মকর্তাগণ। মঞ্চের সার্বিক তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে ছিলেন কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো. সাদী উর রহিম জাদীদ।
কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথটি ২০০২ সালের ৭ জুলাই বন্ধ করে দেয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ১৯১০ সালে চালু হওয়া ঐতিহাসিক রেলপথটি আবার চালু করতে প্রকল্প হাতে নেয় বাংলাদেশ রেলওয়ে। ৫৩ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেলপথটি নির্মাণে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৬ শত ৭৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এটি বাস্তবায়িত করছে ভারতীয় নমনীয় ঋণে (এলওসি)। ২০১৫ সালের ২৬ মে প্রথম সংশোধিত প্রকল্পটি অনুমোদন দেয় একনেক। মিটার গেজ সংস্কারের জন্য ২০১১ সালে কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশনটি প্রকল্প ছক অনুমোদিত হয়। পরে ২০১৫ সালের ২৬ মে মিটারগেজের পরিবর্তে ডুয়েলগেজে রূপান্তরের জন্য প্রস্তাবটি অনুমোদন দেয় একনেক। এ রেলপথ রেলের নিজস্ব জমিতে নির্মিত হবে। তাই ভূমি অধিগ্রহণের প্রয়োজন হচ্ছে না। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে ভারতের কালিন্দি রেল। প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ করা হবে ৫৯টি ছোট-বড় সেতু ও ছয়টি স্টেশন (জুড়ী, দক্ষিণভাগ, কাঁঠালতলী, বড়লেখা, মুড়াউল ও শাহবাজপুর)। ২০১৫ সালে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ অংশের পুনর্বাসনে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান বালাজি রেলরোড সিস্টেমস লিমিটেডকে পরামর্শক নিয়োগ দেয় রেলপথ মন্ত্রণালয়।
রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর ভারতের ত্রিপুরা এবং বাংলাদেশের সিলেট,কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার একই কৃষ্টি ও সংস্কৃতির জনসাধারণের মধ্যে আন্তঃদেশীয় সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থার দরকার অনুভূত হয়। ২০১০ সালের ১২ জানুয়ারি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরকালে দ্বিপক্ষীয় যোগাযোগে যৌথ ইশতেহার ঘোষিত হয়। এর পরই ২০১৩ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি আখাউড়া ও আগরতলার মধ্যে ডুয়েলগেজ রেলপথ নির্মাণে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়। ২০১৫ সালে কুলাউড়া-শাহবাজপুর ও ২০১৬ সালের ১৬ আগস্ট প্রকল্পটি অনুমোদন দেয় একনেক।
বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ সহজ হবে। রেলপথের মাধ্যমে সেভেন সিস্টার্সের যাতায়াত সহজ করতে সরকারের এ উদ্যোগের সফলতা ভোগ করবে দেশের জনগণ। রফতানি পণ্যের আমদানি-রফতানি বেড়ে যাবে অনেক বেশি।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ বিশ্ব বরেন্য চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের ৯৪ তম জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে নড়াইলে সাঁতার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার চিত্রা নদীতে জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এস,এম সুলতানের বাড়ীর ঘাট থেকে শুরু হয়ে রুপগঞ্জ বাধাঁঘাট পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার দীর্ঘ এ প্রতিযোগিতায় বড় গ্রপে ১৯ এবং ছোট গ্রুপে ১৮ জন মোট ২টি গ্রুপে ৩৭জন সাতারু অংশগ্রহন করেন।
বড় গ্রুপে প্রথম হয়েছে মোঃ রানা , দ্বিতীয় মোঃ আজিজুল ইসলাম ও তৃতীয় হয়েছে মোঃ ইমন এবং ছোট গ্রুপে প্রথম হয়েছে মোঃ নূর ইসলাম ,দ্বিতীয় হয়েছে পিন্টু এবং তৃতীয় স্থান পেয়েছে মোঃ আজমীর হোসেন ।
প্রতিযোগীতা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মোঃ এমদাদুল হক চৌধুরী।
এ সময় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, জেলা ক্রিড়া সংস্থার সহ-সভপতি মোঃ হাসানুর জ্জামান, আইয়ুব খান বুলু, রওশন আরা লিলি,সাঁতার পরিষদের সাধারন সম্পাদক শেখ শাহারিয়ার পারভেজ উজ্জল, মহিলা ক্রিড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক বেগম রাবেয়া ইউসুফ,শিক্ষাবিদ ইউসুফ আলীসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ স্কুল ছাত্রীদের উত্যেক্তের প্রতিবাদ করায় নড়াইল সদর উপজেলার চারিখাদা গ্রামের আমিনুর মোল্যা নামে এক ব্যক্তিকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে। আহত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
সোমবার সকাল ১০টার দিকে আমিনুর রহমান মাইজপাড়া বাজারে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যান। এ সময় পাশ্ববর্তী রামেশ্বরপুর গ্রামের কয়েকজন যুবক আমিনুর মোল্যাকে ঘিরে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে।
জানাগেছে. এক সপ্তাহ আগে চারিখাদা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় মাঠে স্কুল পর্যায়ের ফুটবল খেলা চলাকালে রামেশ্বরপুর গ্রামের কয়েকজন যুবক ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উত্যক্ত করে। এসময় স্থানীয় লোকজন এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে দুটি গ্রামের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে আসছে।
নড়াইল সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন জানান, ঘটনার পর এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

হৃদয় দাশ শুভঃ শ্রীমঙ্গলের ভাড়াউড়া চা বাগান এর বাংলো সংলগ্ন ঝোপ থেকে বিরল প্রজাতির একটি সবুজ বোড়া সাপ উদ্ধার করা হয়েছে ৷
সাপটি  সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকালে বাংলোর বাসিন্দা সুকন্যা দে এর নজরে প্রথমে পরে ৷ তিনি তাৎক্ষনিকভাবে সাপের ছবিটি তুলে ফেইসবুকে পোস্ট করলে অনেক বন্যপ্রাণী প্রেমীর নজরে  আসে ৷ পরবর্তীতে শ্রীমঙ্গল বন্যপ্রাণী ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব এসে সাপটি উদ্ধার করে  শ্রীমঙ্গল বন্যপ্রাণী সেবাশ্রমে নিয়ে যান ৷
এ ব্যাপারে সুকন্যা দে এর সাথে কথা বললে তিনি আমার সিলেটকে জানান “সোমবার সকাল ১১ টার দিকে আমি প্রথমে আমাদের বাংলোর পাশের লেবুগাছের নীচে সাপটিকে দেখি ৷ পরে আমরা বন্যপ্রাণী সেবাশ্রমের সজল দেবকে ফোন দিলে উনি এসে সাপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যান” ।
এ সাপের গোত্রে আরও  রয়েছে vipreinae ও crotalinae নামে দুইটি উপ-গোত্র। crotalinae উপ-গোত্রে রয়েছে পিট ভাইপার। বাংলায় এ সাপকে বলা হয় সবুজ বোড়া।
বিশেষজ্ঞরা জানান, বাংলাদেশে  সিলেট বিভাগ এবং পার্বত্য চট্রগ্রাম অঞ্চলের বনাঞ্চলে সবুজ বোড়া সাপের দেখা পাওয়া যায় । সুন্দরবনেও এ সাপটির দেখা পাওয়া যায়। সবুজ বোড়া সাপের রয়েছে দুই তিনটি প্রজাতি। তবে সব প্রজাতিই দেখতে সবুজ এবং প্রায় একই রকম। এরা দুই ফুটের মতো লম্বা হয়। এই সাপের মাথা চ্যাপ্টা, আকারে বড় এবং দেখতে ত্রিকোণের মতো।
চলাফেরা করে খুব আস্তে আস্তে। সবুজ বোড়া সাপ, ব্যাঙ, পাখি, ইঁদুর খেয়ে জীবন ধারণ করে থাকে। সাধারণত এরা লুকিয়ে বসে থাকে আর শিকার এলেই ছোবল দিয়ে খায়।
এই সাপের উপরের চোয়ালে এক জোড়া লম্বা বিষ দাঁত থাকে। ওই দাঁত দুটি তারা মুখের তালুর সঙ্গে ভাঁজ করে রাখে। প্রয়োজন মতো পেশির সংকোচনে মুখ খুলে গেলে বিষদাঁত দুটি মুখের তালু থেকে বেরিয়ে আসে। শিকারকে ছোবল দিয়ে তার শরীরে বিষ ঢুকিয়ে দিয়ে আবার আগের মতো ভাঁজ হয়ে যায়। বন্যপ্রাণী গবেষক তানিয়া খান বলেন, সবুজ বোড়া বিষধর সাপ।
এ সাপের বিষ আছে কিন্তু দংশনে মানুষ মারা যায় না। খুবই কম রেকর্ড আছে মানুষ মারা যাবার। সাধারণত চা বাগানেই এই সাপটা বেশি দেখা যায়। এরা চা বাগানের গাছের সঙ্গে ঝুলে থাকে।ছবি সৌজন্যে “খোকন থৌনাউজাম”

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের ছনগাঁও গ্রামের বাসিন্দা মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী হাজী মোঃ মতলিব মিয়ার পরিবার এলাকার একটি চিহ্নিত মামলাবাজ ও ভূমি খেকো চক্রের অত্যাচারে অতীষ্ঠ ।সোমবার দুপুরে কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবে এক

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তবে ছনগাঁও গ্রামের বাসিন্দা মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী হাজী মোঃ মতলিব মিয়া বলেন, এলাকায় ভূমি দখল, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, লুটপাট, মিথ্যামামলা দায়ের করে নিরীহ লোকজনদের হয়রানী সহ বিভিন্ন অপরাধ তৎপরতার সাথে জড়িত এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মন্নান গং চক্রটি। এই সংঘবদ্ধ চক্রটি এলাকায় একের পর এক ঘটনা ঘটিয়ে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করলেও প্রাণভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে সাসহ পায়না। তাদের এহেন অপঃতৎপরতায় গোটা এলাকাবাসী এখন আতংকগ্রস্থ।

তিনি বলেন, প্রায় ১০ বছর পূর্বে একই এলাকার প্রমোদ শর্ম্মা ও প্রণয় শর্ম্মার নিকট থেকে দূঘর মৌজাস্থিত ৫২৪৬ নং এস,এ দাগের ৩২ শতক ভূমি খরিদ করিয়া যথারীতি ভোগ দখলদার বিদ্যমান থাকিয়া বর্গাদারের মাধ্যমে হালসন পর্যন্ত চাষাবাদ করিয়া আসছেন।

প্রবাসে থাকায় যথাসময়ে দলিল রেজিষ্ট্রি করিতে পারেন নাই। দেশে এসো চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি তার খরিদকৃত ভূমির রেজিষ্ট্রিকার্য সম্পাদন করি (দলিলনং ১৮৮)। এবং যথারীতি নিজ নামে ২৩৩৮ নং নামজারী খতিয়ান সৃজন করাইয়া ১৪২৫ বাংলা সন পর্যন্ত খাজনাদি পরিশোধ করেন।

মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী হাজী মোঃ মতলিব মিয়া বলেন, এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মন্নান আমার বসত বাড়ীতে এসে ১ লক্ষ টাকা আমার নিকট হাওলাত চায়। এতে অপারগতা প্রকাশ করলে সে আমার খরিদকৃত ৩২ শতক জমি দখল করার হুমকি প্রদান করে।

এ বিষয়টি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবগর্গের কাছে বিচার চাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে সন্ত্রাসী মন্নান ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা । আমাকে নানা প্রকার ভয়ভীতি ও হুমকী প্রদর্শন করতে থাকে এবং এলাকায় প্রচার করিতে থাকে যে, আমার খরিদকৃত সম্পত্তি তাহারা খরিদ করিয়াছে।

মধ্যপ্রচ্য প্রবাসী নিরুপায় হয়ে খরিদকৃত সম্পত্তিতে ন্যায্য অধিকার রক্ষার্থে মন্নান গং এর বিরুদ্ধে গত গত ১০ মার্চ মৌলভীবাজার সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে ৬০/২০১৮ নং স্বত্ব মামমলা দায়ের করেন।

মামলা চলমান থাকা অবস্থায় গত ১২ আগস্ট রাতে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত বিশাল বাহিনী নিয়ে প্রবাসীর খরিদকৃত জমি জোরপূর্বক দখলের উদ্দেশ্যে জমিতে অনধিকার প্রবেশ করিয়া ট্রাক্টর দ্বারা হালচাষ শুরু করে। এতে বাঁধা প্রদান করলে মন্নান ও তার দলবলসহ আমার ভাই ও তার স্ত্রীর উপর হামলা চালিয়ে আহত করে।

মামলাবাজ ও ভূমি খেকো সন্ত্রাসী মন্নান ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে কমলগঞ্জ থানায় আমিসহ ৩৩ জনকে আসামী করে একটি হয়রানীমূলক মামলা দায়ের। পরদিন আমরা থানায় এসে মন্নানগংদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। কিন্তু আমাদের দায়েরকৃত অভিযোগের কোন ব্যবস্থা না নিয়ে পুলিশ উল্টো প্রতিপক্ষের দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় আমাদেরকে গ্রেফতারের প্রচেষ্টা চালায়।

গত ৩০ শে আগষ্ট আদালতের মাধ্যমে জামিন প্রাপ্ত হয়ে আমরা বসত বাড়ীতে ফিরে আসার পর থেকে সন্ত্রাসীরা আমাদেরকে নানা প্রকার হুমকী ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানার জন্য আং মন্নানের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। কমলগঞ্জ থানার নবাগত ওসি মোহাম্মদ আরিফুর রহমান বলেন, আমি কমলগঞ্জ থানায় সদ্য যোগদান করেছি। বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের তেতইগাঁও গ্রামে মণিপুরী কালচারাল কমপ্লেক্স্র প্রাঙ্গণে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতির বিকাশ ও মাতৃভাষায় প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালুসহ শিশুশিক্ষার মান উন্নয়নের ক্ষেত্রে করণীয় বিষয়ক সচেতনতামূলক সম্মেলনী-২০১৮ আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং গণস্বাক্ষরতা অভিযান এর সহযোগিতায় বৃহত্তর সিলেট আদিবাসী ফোরাম ও বাংলাদেশ মণিপুরী আদিবাসী ফোরাম-এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। সম্মেলনকে সফল করার লক্ষ্যে ইতিমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ মণিপুরী আদিবাসী ফোরাম-এর সাধারন সম্পাদক সমরজিত সিংহ জানান, বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের মণিপুরী, খাসি, ত্রিপুরী, গারো, রাজবংশী, সাঁওতাল, ওঁরাও এবং চা-শ্রমিকদের মধ্যে বিদ্যমান ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জনজনগোষ্ঠীর ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতির বিকাশ ও মাতৃভাষায় প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালুসহ শিশু শিক্ষার মান উন্নয়নের ক্ষেত্রে করণীয় বিষয়ক এই সম্মিলনীর আয়োজন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠান সফল করার লক্ষ্যে সম্প্রতি ইতিমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে বাংলাদেশ সরকার ইউনিসেফ বাস্তবায়নধীন কর্মসূচির সহযোগীতায় জন্ম নিবন্ধন, শিশু শ্রম, শিশু বিবাহ রোধ ও হাত ধোয়া বিষয়ক অবহিতকরণ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত হয়।

সোমবার ইউনিয়নের শুকদেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বনগাঁও হাজ্বী আঃ সত্তার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গেড়ারুক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গাদীশাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছয়শ্রী হাাজ্বী আবুল হাশিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঘনশ্যামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উত্তর ঘনশ্যামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ অবহিতকরণ সভা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আহম্মদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু, হবিগঞ্জ জেলা ঈ৪উ কর্মসূচির কো-অর্ডিনেটর মোঃ রফিকুল ইসলাম, চুনারুঘাট উপজেলা ঈ৪উ কর্মসূচির কো-অর্ডিনেটর মোঃ মাসুদুল ইসলাম চৌধুরী, আহম্মদাবাদ ইউনিয়ন ঈ৪উ কর্মসূচির কো-অর্ডিনেটর মনিরানি দেব, ইউপি সচিব মাসুদ আহম্মদ ও সাংবাদিক নুরুল আমিন প্রমূখ।

সভায় শিশুদের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন বিষয়ের উপর উদ্বুদ্ধকরণ মূলক বক্তব্য দেয়া হয়। পরে আহম্মদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে প্রত্যেক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে চকলেট বিতরণ করা হয়।

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ চুনারুঘাটের মুড়ারবন্দ দরবার শরীফের মহান সুফি সাধক সৈয়দ শরাফত শাহ (রঃ) এর প্রধান খলিফা মুর্শিদে বহক শাহ সুফি হযরাতুল আল্লামা আলহাজ্ব শেখ মোহাম্মদ আব্দুল কাদের ফারুকী (রাঃ) এর স্মরণে এক বিরাট স্মরণ সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

গত কাল রোববার বাদ মাগরিব মুড়ারবন্দে দরবার শরীফের খাদেম সৈয়দ মোহাম্মদ নজরুল হক (মানিক শাহ) এর সভাপতিত্বে ও শরীফপুর ক্বাদেরিয়া মাদানিয়া দরবার শরীফের প্রধান খাদিম ও ঐতিহ্যবাহী দ্বিমুড়া রহমানিয়া ফাজিল মাদরাসার সম্মানিত সহকারী অধ্যাপক মাওলানা আ. ম. মুহাম্মদ ওবায়দুল হক কুতুবীর সঞ্চালনায় ও দরবারের প্রধান খলিফা মাওলানা আলহাজ্ব মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম আল ক্বাদরির ভক্তবৃন্দের ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে বক্তব্য রাখেন মোহাম্মদ এনামুল হক, প্রভাষক বাংলা বিভাগ, মিরপুর আলিফ সোবহান সরকারি কলেজ, বাহুবল, হবিগঞ্জ। মাওলানা মোহাম্মদ বেলায়েত উল্লাহ, (সাবেক) প্রভাষক আরবি বিভাগ, শাহ সুফি আজমত উল্লাহ সিনিয়র মাদরাসা, ইব্রাহিমপুর, নবীনগর। মাওলানা হাফেজ নিয়ামত আলী, পেশ ইমাম, দরগাহ জামে মসজিদ, মুড়ারবন্দ।

মওলানা হাফেজ সাদেকুল ইসলাম, মওলানা আব্দুল হক ফারুকী, মুফতী সামছুল হক ফারুকী, মাওলানা আব্দুল আউয়াল, ইব্রাহিম ফারুকী, নুরুল্লাহ ফারুকী, মাওলানা আল-আমিন নূরী, আরিফ ডাক্তার।

এতে উপস্থিত ছিলেন মুড়ারবন্দ দরবার শরীফের শ্রদ্ধাবাজন মুতাওয়াল্লি সৈয়দ শফিক আহমদ (শফি), মোহাম্মদ ইউনুছ মিয়া খাদিম, মওলানা আব্দুল মন্নান, ছফি উল্লাহ, আলী হোসেন, তাজুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুল হক, ডা. নুরুল হুদা ফারুকী, মেহেদি হাসান ফারুকী, মোহাম্মদ তৌফিকুল ইসলাম, মোহাম্মদ নাজমুল হোসেন, খাদিমবৃন্দ ও সর্বস্তরের নবী-ওলী প্রেমিকগণ।

সর্বশেষে মিলাদ, দোয়া ও তাবারুক বিতরণের মাধ্যমে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc