Tuesday 20th of November 2018 07:09:59 PM

বিক্রমজিৎ বর্ধনঃ দেশের সনাতন ধর্মাবলম্বিদের বিশেষ দিন তাদের ভগবান শ্রীকৃষ্ণের পবিত্র জন্মতিথি আজ। পূজা, আরাধনা, আনন্দ শোভাযাত্রার বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাজধানীতে চলছে শ্রীকৃষ্ণের আবাহন। শরণাগতদের পরিত্রাণ আর আর ঔদ্ধত্যদের সংহার করে পৃথিবীর স্থিতি রক্ষা, শান্তি আর সম্প্রীতিতে ভরিয়ে তোলার প্রার্থনা চলছে ভক্তদের।

আজকের পুণ্যতিথি মহাঅস্টমী, ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি। দুষ্টের দমন শিষ্টের পালন করলেও কখনো তিনি বংশীধারী মদনমোহন। জীবনের মর্মে যিনি শেখান মনুষ্যত্বের ধর্ম, কর্মে চেনান সত্যের প্রকাশ আবার সৃষ্টি স্থিতি প্রলয়ের যুগসন্ধিক্ষণ। যুগ যুগ ধরে তাই সত্য প্রেম আর সুন্দরের মধ্য দিয়েই সনাতন ধর্মাবলম্বীরা আবাহন করেন দ্বাপর যুগের অবতার শঙ্খ চক্র গদা পদ্মধারী ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে।

মঙ্গল আরোতির আলোকচ্ছটা, পদাবলী কীর্তনের সুর আর আনন্দ শোভাযাত্রায় কৃষ্ণ কৃষ্ণ নাম সংকীর্তনে মাতোয়ারা ভক্তরা।

পুণ্য তিথির এ আনন্দেযজ্ঞে রাজধানীশহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে দিনব্যাপী নানা আয়োজনে ভক্তদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আয়োজকরা।

দুঃখ-জরা-ব্যাধি থেকে মুক্ত হোক জীবন, শুদ্ধ হোক অন্তরাত্মা, অপার্থিব আনন্দলোকের মঙ্গলধ্বনিতে স্নাত হোক পৃথিবী এমনটাই প্রার্থনা সনাতন ধর্মাবলম্বি  শ্রীকৃষ্ণ ভক্তদের।

প্রেস বার্তাঃ প্রশাসনের সদিচ্ছার অভাবে আল্লামা ফারুকী’র মূল খুনিদের এখনো সনাক্ত করা যায়নি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ আল্লামা নুরুল ইসলাম ফারুকী (র.)‘র ৪র্থ শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও মাহফিলে নাতে মোস্তাফা (দ.) আন্জুমানে রজভীয়া নূরীয়া বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সচিব আলহাজ্ব কাজী মুহাম্মদ ফোরকান রেজার পরিবারবর্গের উদ্যোগে ০১ সেপ্টেম্বর সকালে চট্টগ্রামের একটি অভিজাত কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আন্জুমানে রজভীয়া নূরীয়া বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান পীরে তরিক্বত আল্লামা আবুল কাশেম নূরী (মু.জি.আ.)। উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন আনজুমানে রজভীয়া নূরীয়া কাতার শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ ফোরকান রেজা। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় মহাসচিব জননেতা আলহাজ্ব এম এ মতিন। প্রধান বক্তা ছিলেন ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি জননেতা মুহাম্মদ নঈম উল ইসলাম।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এম এ মতিন বলেন, সরকার যে সব মামলাকে গুরুত্ব দিয়েছে, সেসব মামলা যত কঠিনই হোক না কেন, পানির মত পরিষ্কার করে ফেলেছে। আর ফারুকী হত্যার বিষয়টি গুরুত্ব পায়নি বলেই এর খুনিদের আজ চার বছরেও শনাক্ত করা যায়নি। তারা বলেন, হলি আর্টিজেন হামলা, ব্লগার রাজিব সহ বহু জঙ্গি হামলার সাথে জড়িত খুনিরা ধরা পড়েছে, কিন্তু ফারুকী হত্যার বিষয়টি কেন জানি শুধু মাত্র আই ওয়াশেই সীমাবদ্ধ।

তিনি আরো বলেন, ফারুকী হত্যাকান্ড একটি দেশি-বিদেশী চক্রান্ত। এখন এ বহুল আলোচিত হত্যাকান্ডের বিচার না হওয়াটাও একই চক্রান্তের অংশ বলে মনে হচ্ছে। জঙ্গিদের হাতে নিহত কেউ আল্লামা ফারুকী’র মত জনপ্রিয় ছিলনা, তাঁর খুনের প্রতিক্রিয়ায় দেশে যে সর্বস্তরের গণবিক্ষোভ হয়েছিল তা অন্যদের ক্ষেত্রে হয়নি। কিন্তু, আমাদের বড় দুর্ভাগ্য হলো, সরকারের কাছে জনগনের এমন স্বতঃস্ফূর্ত দাবি মূল্যায়ন পাচ্ছে না।

অবিলম্বে আল্লামা ফারুকীর হত্যকান্ডের দৃষ্টান্তমূলক বিচার নিশ্চিত করে জনমণের স্বস্তি ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিও জানান বক্তারা। সভাপতির বক্তব্যে আল্লামা নূরী বলেন-আল্লামা ফারুকী ছিলেন স্বাধীনতার পক্ষের ও সুফীবাদী ইসলামী দর্শন প্রচারক। বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশের ধর্মীয় সম্প্রীতির ভাবমূর্তি উজ্জ্বলকারী ফারুকীর হত্যকান্ড নিয়ে সরকার রাজনীতি করছে।

রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধির জন্যই সরকার ফারুকী হত্যাকারীদের গ্রেফতারের আওতায় আনতে ব্যর্থ হয়েছে। সরকার জঙ্গিবাদ বিরোধী মুখোরাচক কথাবার্তা বললেও চিহ্নিত জঙ্গীগোষ্ঠীকে পুরস্কার প্রদান ও ফারুকী হত্যকারীদের গ্রেফতার না করে জঙ্গীবাদকে উৎসাহিত করছে।

রজভীয়া নূরীয়া ইসলামী সাংস্কৃতিক ফোরাম বাংলাদেশের সভাপতি শায়ের মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদ কাদেরীর স ালনায় অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাজনীতিবিদ আব্দুল হালিম, আলহাজ্ব নুরুল হক, আল্লামা ইদ্রীচ আনসারী, হাজ্বী সৈয়দ মুহাম্মদ সেলিম, মুহাম্মদ শফিউল আলম, মাওলানা সোবাইর, আলহাজ্ব জহির সওদাগর, আবু ছালেহ আঙ্গুর, মাওলানা আব্দুল কাদের রজভী, জাহিদুল হাসান রুবায়েত, যুবনো কেন্দ্রীয সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম, অধ্যাপক এমরানুল ইসলাম, হাফেজ আবুন নুর মুহাম্মদ হাস্সান নুরী, এস এম ইকবাল বাহার চৌধুরী, ছাত্রনেতা মিজানুর রহমান, শায়ের নাজিম, রায়হান নূরী, শায়ের ছালামত রেযা, সাফওয়ান নূরী, শায়ের ইকবাল, শায়ের ওসমান প্রমূখ।

নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইলে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৬ মাদক ব্যবসায়ীসহ আসামীসহ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ৪৯ জনকে আটক করা হয়েছে । এসময় ১২ পিস ইয়াবা, ১০০ গ্রাম গাঁজা ও ২ লিটার ৪০০ গ্রাম দেশী মদ উদ্ধার করা হয়।
জেলা পুলিশের নিয়ন্ত্রন কক্ষ সুত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত থেকে রোববার সকাল পর্যন্ত জেলার চারটি থানায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ মাদক ব্যবসায়ীসহ আসামীসহ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ৪৯ জনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর থানা পুলিশ ১৪ জন, লোহাগড়া থানা পুলিশ ১৯ জন, কালিয়া থানা পুলিশ ১০ জন এবং নড়াগাতী থানা পুলিশ ৬ জনকে আটক করেছে।
পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ জসিম উদ্দিন জানান, জেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং চলমান মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরন করা হয়েছে।#

নড়াইল প্রতিনিধিঃনড়াইল-২ আসনের আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাসী আইনজীবি সমিতির সভাপতির সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় জেলা আইনজীবি সমিতির ভবন-১ এর সভাকক্ষে জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডঃ গোলাম নবী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নড়াইল-২ আসনের বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাসী হয়ে সকলের দোয়া ও সহযোগীতা চেয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করেন।

তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমি ১৯৬৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও আওয়ামীলীগের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছি। আমি ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করি। পরবর্তিতে ১৯৭২-৭৩ সালে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের মনোনিত ভিপি ও ১৯৮৫ সালে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই। এছাড়া জেলা ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও আওয়ামীলীগ এবং জেলা আইনজীবি সমিতির গুরুত্বপূর্ন পদে দীর্ঘ সময় দায়িত্ব পালন করেছি। নড়াইল দীর্ঘদিন অবহেলিত রয়েছে।

তিনি আরও দাবী করেন,স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা নড়াইলের তেমন কোন উন্নতি করেন নাই, তাই অবহেলিত নড়াইলের উন্নতির জন্য আমি আপনাদের সকলের সহযোগী ও দোয়া নিয়ে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চাই। আশাকরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রি জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার রাজনৈতিক জীবন বিশ্লেষন করে আমাকে আগামী সংসদ নির্বাচনে নড়াইল-২ আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী নির্বাচন করবেন।

এ সময় জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারন সম্পাদক অ্যাডঃ পরিতোষ বাগচি, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি ও এপিপি অ্যাডঃ আলমগীর সিদ্দিকীসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন।

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাইয়ে পুলিশী বাধা উপেক্ষা করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে।
এ উপলক্ষে গতকাল শনিবার সকালে আত্রাই থানা বিএনপির উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আত্রাই বিএনপি’র দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও জিয়াউর রহমানের প্রতিকৃৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পনের মধ্যে দিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর সূচনা করা হয়।
সকাল ১০টায় আত্রাই থানা বিএনপি’র আহবায়ক শেখ রেজাউল ইসলাম রেজুর নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয় থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে রোডে পৌচ্ছালে পুলিশের লাঠি চার্জে তা পন্ড হয়ে যায়।
পরে ১১টায় উপজেলার রেজিষ্ট্রি অফিস সংলগ্ন মিল চত্বরে আত্রাই উপজেলা বিএনপির আহবায়ক শেখ রেজাউল ইসলাম রেজুর সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় বিএনপি’র নির্বাহী কমিটির সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আনোয়ার হোসেন বুলু।
আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আহবায়ক কমিটির সদস্য তছলিম উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান , আব্দুল হাকিম, আব্দুল জলিল চকলেট, এমদাদুল হক পিন্ট, আব্দুল মান্নান সরদার, এ কে আজাদ পারভেজ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান একরামুল বারী রঞ্জু, রফিকুল ইসলাম রফিক, থানা পারভেজ ইকবাল, আজাদ আলী, যুবনেতা নাসির উদ্দিন চঞ্চল, আশরাফুল ইসলাম লিটন, থানা ছাত্রদলের আহবায়ক রায়হান কবির রতন, থানা ছাত্র নেতা নসিব, সেন্টু, মহিলা নেত্রী মোছাঃ মেরিনা বেগমসহ বিএনপি ও এর সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।
সভায় বক্তারা অনতিবিলম্বে  বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানান এবং আজকের অনুষ্ঠানে নেতাকর্মীদের উপর পুলিশি হামলার তীব্র নিন্দা জানায়।

হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল শহরের সাগরদীঘি সড়কের সরকারি ডিসি খতিয়ানের একটি মার্কেটের জমি নিয়ে দু-পক্ষের বিরোধের জেরে উচ্ছেদ আতংকে আছেন ব্যবসায়ীরা। এই জমির দখল বেদখল নিয়ে দুটি পক্ষের লোকজনের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। ১ সেপ্টেম্বর শনিবার দুপুরে মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে মার্কেটের মালিক আব্দুল হালিম তার ব্যবসায়ীদের আতংকের কথা জানান।
সংবাদ সম্মেলনে ওই মার্কেটের  মালিক দাবীদার আব্দুল  হালিম বলেন, আমার মার্কেটের ব্যবসায়ী জিহান পোলট্রি ও আনোয়ার মেটালের অংশীদার আমার খালা শিরিন আক্তার আট দশ বছর ধরে ব্যবসা করছেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবী করেন,বিগত কয়েক মাস ধরে জেলা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান রিপন, আবু বক্কর সিদ্দিকী মোহন কতিপয় লোকদের নিয়ে এসে মার্কেটের মালিকানা দাবি করে তাদের কাছ থেকে ভাড়া আদায়ের চেষ্টা করে। তারা এতে রাজি না হওয়ায় তাদের ভয় ভীতি দেখিয়ে দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়ার হুমকি দিতে থাকে।
তারা আরও দাবী করেন,গত ১লা আগস্ট মশিউর রহমান রিপন তার ভাই লিংকন ও তার দলভুক্ত লোকজন তাদের আনোয়ার মেটাল ওয়ার্কশপে এসে  দোকানে তালা দিয়ে চাবি দাবি করে। আর চাবি না দিলে তার ভাই শাহিনকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। এ ঘটনায় তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বলে জানান।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি কে এম নজরুল ইসলাম জানান, এ বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে আদালতে বিচারাধীন আছে। বর্তমানে আমরা একটি অভিযোগ পেয়েছি। এটি তদন্তাধীন আছে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, শিরিন আক্তার, আনোয়ার ও ইছরাইল মিয়া।

হৃদয় দাশ শুভ,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজি না হওয়ায় প্রবাসী এক পরিবারকে তিনমাস ধরে একঘরে করে রাখার গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে।শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের  চাঁনমারি গ্রামের বেগম লুৎফুন্নেছা গতকাল ওই গ্রামের মো. নূর হোসেন, মো. রফিক মিয়া, মো. ফারুক মিয়া, মো. সুরাব মিয়া ও মো. নোয়েল মেম্বারকে আসামি করে থানায় একটি অভিযোগ দেন।
থানায় বাদীর লিখিত অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, গত জুন মাসে গ্রামের মো. নূর হোসেন তার এক আত্মীয়ের সঙ্গে লুৎফুন্নেছার মেয়ে ফারজানা আক্তারের বিয়ের প্রস্তাব দেন। এতে লুৎফুন্নেছা রাজি না হওয়ায় তার মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজি করানোর জন্য ভয়-ভীতিও দেখানো হয়। সেজন্য লুৎফুন্নেছা ও তার মেয়ে ফারজানাকে  তিনমাস যাবৎ একঘরে করে সমাজচ্যুত রাখা হয়েছে। দুবাই প্রবাসী হারুন মিয়ার স্ত্রী লুৎফুন্নেছা বলেন, ‘গত তিন মাস ধরে আমি একঘরে সমাজচ্যুত হয়ে আছি। গ্রামের কেউ আমার বাড়িতে আসে না। কথা বলে না। সেকারণে আমার মেয়ে আত্মহত্যা করতে চেয়েছিল। আমিও কারো বাড়িতে যেতে পারি না। এবারের ঈদে কারো সঙ্গে অংশীদার হয়ে কোরবানিও দিতে পারিনি। এখন আমাকে সমাজে তোলার জন্য নূর হোসেন আমার নিকট ২০ হাজার টাকা দাবি করছে। ’
অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা এএসআই মো. আল আমীন বলেন,‘প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। গ্রামের মানুষজন বলছেন তাদের পরিবারের সঙ্গে কেউ কথা বলেন না। এটা তো খুব খারাপ জিনিস। এখনতো সমাজচ্যুত করার বিধান নেই। গ্রামের ১০-১২ জন নাকি একটি কাগজে স্বাক্ষর করে সমাজচ্যুত করেছে। বিষয়টি নিয়ে আরো তদন্ত করছি। থানায় গিয়ে ওসি স্যারের নির্দেশে কথা বলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে’।
জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মোবাশশেরুল ইসলাম বলেন ‘এই মাত্র এ বিষয়টি আমি জানলাম। সমাজচ্যুত করার বিষয়টি আইনত গর্হিত অপরাধ। যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে দ্রুততার সঙ্গে আইনানুগ ব্যবস্থা স্থানীয় চেয়ারম্যান ও ওসিকে নির্দেশনা দিবো৷
এ ব্যাপারে মানবাধীকার কর্মী এস কে দাশ সুমনের সাথে কথা বললে তিনি জানান “বিষয়টি আমরা জেনেছি,আমরা ভিকটিমদেরকে যথাসাধ্য আইনি সাহায্য করবো”

এম ওসমান,বেনাপোল প্রতিনিধি: শার্শা পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতাজ্ঞপন ও মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনকে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে জাকজমকপূর্ণ ও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শনিবার সকালে বিদ্যালয় মাঠে অহিদুজ্জমান পুটু’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

শার্শা উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদি হাসানের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথী হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন। তিনি উপস্থিত অভিভাবক, শিক্ষার্থী, সুধীগন, সাংবাদিক ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি গভীর ভাবে শ্রদ্ধা করি জাতির জনকসহ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রয়াত শিক্ষকদের, একজন এমপি যদি সৎ থাকে তবে সে আল¬াহর দরবার থেকে পুরস্কার পেয়ে যায়, যেটা আমি পেয়েছি এই বিদ্যালয় জাতীয় করনের মাধ্যমে। বিদ্যালয়ে ভালো পড়াশুনার মাধ্যমে ভালো রেজাল্টের মাধ্যমে আমি বিভিন্ন ভাবে শিক্ষার্থীদেরকে উৎসাহ দিয়েছি, যার ফলে তারা এখন দেশের বড় বড় স্থানে চাকুরী ও ব্যবসা করছে ৷

আমি শার্শা উপজেলায় সবচেয়ে শিক্ষা ক্ষেত্রে বেশী অর্থ ব্যয় করেছি। পড়ালেখার জন্য আমার ফ্যাক্টরীতে তৈরী খাতা বিনামুল্যে বিতরন করেছি। এই সরকারের আমলে বাংলাদেশসহ শার্শা উপজেলায় বিদ্যুতের আমূল পরিবর্তন হয়েছে৷উপজেলায় কলেজ, স্কুল, মাদ্রাসা সরকারী বিভিন্ন স্থাপনায় এই সরকার ও এমপি হয়ে আমার অবদান রয়েছে। তিনি সবাইকে উদ্দেশ্য করে আরও বলেন বিএনপি-জামায়াত দেশে ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে স্বপ্ন দেখে, আমি এই উপজেলায় যে সকল স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় পরিচালনা পরিষদের সদস্য রয়েছি সে সকল বিদ্যালয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার তহবিল জমা রয়েছে। যেটা বিএনপি-জামায়াতের সময় তহবিল ছিল শুন্য ৷

অভিভাবকদের বলেন তারাই পারে সন্তানদের সু-শিক্ষায় শিক্ষিত করতে। বাবা-মায়েরা অনেক কস্ট করে সন্তানের সুমানুষ করে গড়ে তোলে যেন সন্তান জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়। আগামী নিবার্চনে তিনি উপস্থিতি সবাইকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আবারও শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আনার অনুরোধ জানান।

উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, যশোর জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল, শার্শা উপজেলার চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম মঞ্জু, ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদি হাসান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, শার্শা উপেজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত ইউএনও) জাহিদুল ইসলাম, যশোর জেলা পরিষদ সদস্য ইব্রাহিম খলিল, অহিদুজ্জামান অহিদ, শার্শা থানার অফিসার ইনর্চাজ মসিউর রহমান, বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সালেহ মাসুদ করিম, শিক্ষা অফিসার হাফিজুর রহমান, শার্শা ইউপি চেয়ারম্যান সোহারাব হোসেন, সার্বিক তত্ত্বাবধনায় ছিলেন আব্দুল মুজিদ।

এর পূর্বে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলামসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দের হাতে বিদ্যালয়ের দলিল হস্তান্তর করেন।

চুনারুঘাট প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে জমির ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের ফিকলের আঘাতে ১জন নিহত, ২জন আহত হয়েছে। হামলাকারী মহিলাসহ ৫ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা গাজীপুর ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামে।

জানা যায়, আশ্বব উল্লার ছেলে চুনু মিয়ার ধানী জমিতে একই গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে জায়েদুল হক এর গরু ক্ষেতের ধান খায় তখন জমির মালিক চুনু মিয়া এর প্রতিবাদ করলে একই গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলেদ্বয় জায়েদুল হক ও আজিজুল হকসহ তার লোকজন চুনু মিয়া (৩৫)কে পিকল দিয়ে আঘাত করে এবং দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে তার স্বজনদের উপর হামলা চালায়।

এ সময় ফিকলের আঘাতে চুনু মিয়া মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে এবং রাবিয়া খাতুন (৪৫) ও নুহু মিয়া (৩২) আহত হয়। তাদেরকে উদ্ধার করে চুনারুঘাট হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক চুনু মিয়াকে মৃত বলে ঘোষণা করেন এবং অন্যান্যদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ কে এম আজমিরুজ্জামান ও ওসি (তদন্ত) এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ আলীনগর গ্রাম থেকে ঘাতক জায়েদুল হক (৪০) ও আজিজুল হক (৩৮) সহ ৫জনকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসেন।

এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি। এ ব্যাপারে অফিসার ইনচার্জ কে এম আজমিরুজ্জামান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনাটি ঘটার সাথে সাথে আমি আমার ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে আসামীদেরকে আটক করে থানায় নিয়ে আসি এবং ঘটনার সূত্র সৌরবিদ্যুতের ব্যাটারী সংক্রান্ত বিষয়ে হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc