Wednesday 21st of November 2018 02:13:58 AM

মেয়েটি এখন ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ! তার বাবা বলেন ‘আমি গরীব মানুষ আমার মেয়েকে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা করেছে মাদ্রাসার হুজুর। আমি কার কাছে বিচার দিমু। আমার বিচার কেড়া করবো।’?

অপরাধ ডেস্কঃ কুড়িগ্রাম জেলাধীন রৌমারী উপজেলার মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষকের হাতে ধর্ষণের শিকার হয়ে চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক সমালোচনা চলছে।যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি হলেন,বাইটকামারী কওমি মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক কথিত মৌ-লোভী আব্দুল বাছেদ।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে সরেজমিনে থেকে রংপুর টুয়েন্টি ফোর ডটকমের সুত্র থেকে জানা যায়,এলাকাবাসী জানান, ওই স্কুলছাত্রী চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। পবিত্র কোরআন শরীফ শিক্ষা নেয়ার জন্য সাড়ে ৫ মাস আগে বাইটকামারী কওমি মাদ্রাসায় যায় সে। এ সুযোগে আব্দুল বাছেদ ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন। ছাত্রীটির শারীরিক পরিবর্তন দেখে পরিবারের লোকজন ২৯ আগস্ট রৌমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান সে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।
মেয়েটির বাবা বলেন, ‘আমি গরীব মানুষ আমার মেয়েকে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা করেছে মাদ্রাসার হুজুর। আমি কার কাছে বিচার দিমু। আমার বিচার কেড়া করবো।’
এ বিষয়ে আব্দুল বাছেদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। তার বাড়িতে গিয়েও পরিবারের কাউকে পাওয়া যায়নি।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. কাবেল উদ্দিন জানান, চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বার ঘটনা সম্পূর্ণ সত্য। এলাকাবাসী বসে আপোষ মীমাংসা করার কথা শুনছি। এ বিষয়ে আমার কাছে কোন পক্ষ আসে নাই।
মাদ্রাসার সভাপতি মো. আব্দুল কাদের বলেন, ‘আমি কুড়িগ্রাম ছিলাম, ঘটনা জানার পর বাড়ি আসছি। মেয়ের বাবা এখন পর্যন্ত আমার কাছে আসে নাই। মাওলানা সাব আজ মাদ্রাসায় উপস্থিত হন নাই। বাড়িতেও নাই।’
রৌমারী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, এ বিষয়ে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাই উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের লালপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি ঝুুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বিপাকে পড়েছে শিক্ষক ও কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। বাধ্য হয়েই বিদ্যালয়ের পাঠদান চলছে খোলা আকাশের নিচে।

গতকাল সরেজমিনে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নির্মানের সতের বছরের মাথায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছেন নওগাঁর আত্রাই উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের লালপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি। বিশেষ করে বিল্ডিংয়ের ছাদ, বিম, ওয়ালগুলোর ফাটল, প্লাস্টার খসে পড়ায় স্কুলের শিক্ষকরা বাধ্য হয়ে স্কুল মাঠে ক্লাস নিচ্ছেন। ফলে খোলা আকাশের নিচে চলছে শিশুদের পাঠদান কার্যক্রম।

এতে দীর্ঘদিন মীত, বর্ষা আর গ্রীষ্মকালে খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করায় অসুস্থ হয়ে পড়ছে শিশুরা। এছাড়া বৃষ্টি হলে শিক্ষার্থীরা স্কুলে আর আসে না।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সেন্টু জানান, ১৭ বছর আগে সরকারিভাবে একজন ঠিকাদার স্কুলের ভবনটি নির্মাণ করেছিল। তার অভিযোগ বিশেষ করে বিল্ডিংয়ের ছাদ, প্লাষ্টার, বিম, ওয়ালগুলোতে ফাটল ধরায় ও বালুর সাথে সিমেন্টের পরিমাণ কম দেয়ায় ছাদের প্লাষ্টার খসে পড়ায় শিক্ষাার্থী ও শিক্ষকদের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। বাধ্য হয়ে খোলা আকাশের নিচে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান (ক্লাস) করাতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহম্মাদ আলীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও সে হারে শ্রেণী কক্ষ বাড়েনি, বাইরে ক্লাস করায় অভিভাবকরা তাদের শিশুদের বিদ্যালয়ে যেতে নিষেধ করেন। তিনি আরো বলেন, দিনে দিনে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি কমে যাচ্ছে। বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার লিখিতভাবে জানিয়েও কোনো ফল হয়নি। তিনি দ্রুত স্কুল ঘরটি মেরামতের দাবি জানান।
আত্রাই উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রোখছানা আনিছা বিদ্যালয়টির নাজুক অবস্থার কথা স্বীকার করে বলেন, আসলে বিল্ডিংটি ঝুঁকিপূর্ণ। ভালোভাবে কাজ করার কারণে বিল্ডিংয়ের বিভিন্ন অংশে ফাটল ও ধস শুরু হয়েছে। আমরা বিদ্যালয়টিকে ঝুঁকিপূর্ণের তালিকায় নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়েছি। বরাদ্দ আসলে কাজ শুরু হবে।
এদিকে এলাকার সচেতন মহলের দাবি বর্তমান শিক্ষা বান্ধব সরকারের মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বিবেচনা করে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন এমনটিই প্রত্যাশা।

নিশাত আনজুমান, আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তত্বাবধায়নে ধান ক্ষেতের পোকা নিধনের অংশ হিসেবে বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার রুকিন্দিপুর ইউনিয়নের কানুপুর নওদুয়ারি ব্লকে রোপা আমন ধানে ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি ও সনাক্ত করার উদ্দেশ্যে আলোক ফাঁদ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আক্কেলপুর উপজেলা অতিরিক্ত কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ লুৎফর রহমান, সাংবাদিক নিশাত আনজুমান, উপ সহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা ইদ্রিস আলী, উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আক্তার হোসেন, মো: রুবেল, মো: মিজান , তালহাসহ স্থানীয় কৃষকরা।
এ সময় আক্কেলপুর উপজেলা অতিরিক্ত কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ লুৎফর রহমান বলেন, কৃষকদের বাড়তি খরচ বাঁচানো এবং ভালো ফসল পাওয়ার উদ্দেশ্যে আমরা এ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছি। এটি আমাদের চলমান কার্যক্রম। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে কৃষকরা খুব সহজেই ধানের ক্ষেতে পোকামাকড়রে বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারেন। সবচেয়ে বড় কথা কৃষকরা যদি এই পদ্ধতিটি আমন মৌসুমে অব্যাহত রাখেন তাহলে একদিকে তাদের ধান উৎপাদনে খরচ কম হবে এবং অপরদিকে ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে।

“আল্লামা ফারুকীসহ সকল হত্যাকান্ডের বিচার নিশ্চিত করে জনমনে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে হবে-আল্লামা আবুল কাশেম নূরী”

নিউজ ডেস্কঃ বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা জননেতা আল্লামা আবুল কাশেম নূরী বলেন, চার বছরেও ফারুকী হত্যা মামলার কোন সুরাহা হয়নি। বিচারহীনতার এই সংস্কৃতির কারণে দেশের মানুষ চরম নিরাপত্তাহীনতা ও ভীতির মধ্যে জীবনযাপন করছে। জনগণের মধ্যে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে হলে ফারুকীসহ সব হত্যাকান্ডের দৃষ্টান্তমূলক বিচার নিশ্চিত করতে হবে। তিনি আরো বলেন, আল্লামা ফারুকী হত্যাকান্ডের সুরাহার ব্যাপারে সরকার ও প্রশাসনের সদিচ্ছার অভাব আছে। তুমুল জনপ্রিয় একজন ব্যক্তির চা ল্যকর হত্যাকান্ডের চার বছর পেরিয়ে গেলেও আদালতে চার্জশীট দিতে না পারা সরকারের ব্যর্থতা।

ফারুকী হত্যা নিয়ে প্রশাসনের সাম্প্রতিক কর্মকান্ডে আমরা বিচার পাব বলে আশাবাদী হলেও সংশয়মুক্ত নই। অতীতে অনেক মামলার ক্ষেত্রেও দুচারজন চুঁনোপুটিকে গ্রেফতার দেখিয়ে মূল আসামীদের বাদ দেওয়ার নাটক হয়েছে। তাই আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাব অতি দ্রুত তদন্তে বেরিয়ে আসা হত্যাকান্ডে অংশ নেওয়া কিলারদের গ্রেফতারের পাশাপাশি ইন্ধনদাতা রাঘববোয়ালদেরও খুঁজে বের করতে হবে।

আল্লামা নূরী অতি দ্রুত মামলার বিচারকার্য সম্পন্ন করে প্রকৃত খুনি ও ইন্ধনদাতাদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান। বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রেসিডিয়াম মেম্বার জনপ্রিয় মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আল্লামা নুরুল ইসলাম ফারুকীর হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে আজ ৩০ আগস্ট বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বরে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের মানববন্ধন ও মুখে কালো কাপড় বেধেঁ মৌন মিছিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নগর উত্তর ছাত্রসেনার সভাপতি ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মিজানুর রহমানের স ালনায় মানববন্ধনে উদ্বোধক ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি জননেতা মুহাম্মদ নঈম উল ইসলাম। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মাননীয় চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা জননেতা পীরে তরিক্বত আল্লামা আবুল কাশেম নূরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী যুবসেনা কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক যুবনেতা সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম, ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম, যুবসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সাধারণ সম্পাদক যুবনেতা হাবিবুল মোস্তফা সিদ্দিকী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রসেনার সাবেক সভাপতি অধ্যাপক এমরানুল ইসলাম, ইসলামী ফ্রন্ট নেতা মাওলানা সোহাইল উদ্দিন আনসারী, হাফেজ মাওলানা গোলাম কিবরিয়া, ছাত্রসেনা মহানগর উত্তর সাবেক সভাপতি ছাত্রনেতা ফরিদুল ইসলাম, মাওলানা আবদুল কাদের রজভী। প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার অর্থ সম্পাদক ছাত্রনেতা আবদুল্লাহ আল মামুন।

উদ্বোধকের বক্তব্যে নঈম উল ইসলাম বলেন, ২০১৪ সালে ছাত্রসেনার পক্ষ থেকে ফারুকী হত্যায় নাম-ঠিকানা দিয়ে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে উগ্রবাদী দর্শন প্রচারকারী ছয় উপস্থাপকের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হয়েছিল। তাঁরাই ফারুকীকে হত্যা করিয়েছেন। কিন্তু তাঁদের গ্রেফতার তো দূরের কথা জিজ্ঞাসাবাদ পর্যন্ত করেনি পুলিশ।

তিনি বলেন, মামলায় বর্ণিত ছয় টিভি উপস্থাপককে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে শুধু ফারুকী হত্যা নয় দেশজুড়ে জঙ্গীবাদ বিস্তারের অনেক তথ্যও উঠে আসতে পারে। মানববন্ধন ও মৌন মিছিলে উপস্থিত ছিলেন যুবনেতা সৈয়দ মুহাম্মদ মোফাচ্ছেল মোস্তফা টিপু, এস এম ইকবাল বাহার চৌধুরী, মুহাম্মদ আবু বক্কর, মুহাম্মদ নাছির উদ্দিন রুবেল, মো: মিনহাজ উদ্দিন ছিদ্দিকী, শায়ের মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, শায়ের মুহাম্মদ ছালামত রেজা, শায়ের মুহাম্মদ ইকবাল, মাওলানা জয়নাল আবেদীন, মুহাম্মদ শাহজালাল, মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফা, মুহাম্মদ সিহাব উদ্দিন, মুহাম্মদ কাউসার খান, মুহাম্মদ ফোরকান রেজা, মুহাম্মদ এরশাদুল করিম, মুহাম্মদ তৌহিদুল হক, মুহাম্মদ মঈনুদ্দিন কাদেরী, মুহাম্মদ হাবিবুল্লাহ আরাফাত, মুহাম্মদ আদনান তাহসিন আলমদার, মুহাম্মদ বাবর আলী, মুহাম্মদ সরওয়ার আলম, মুহাম্মদ সাব্বির হোসেন, মুহাম্মদ মাহমুদুল ইসলাম, আবু সায়েম মুহাম্মদ কাইয়ুম, মুহাম্মদ নাঈম উদ্দিন, কাজী মুহাম্মদ আরাফাত, এম এইচ আরমান, মুহাম্মদ বেলাল রেজা, মুহাম্মদ খোরশেদ, মুহাম্মদ নাছের, হাফেজ আতিকুল্লাহ, মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন প্রমুখ।

উত্তরের মানববন্ধন শেষে মৌন মিছিলে পীরে তরিক্বত আল্লামা আবুল কাশেম নূরীসহ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা ও ছাত্রসেনার নেতৃবৃন্দ।

জৈন্তাপুর প্রতিনিধিঃ সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার চিকনাগুল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের পশ্চিম ঠাকুরের মাটি গ্রামের পুকুর হতে ১বধুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রিনা বেগম (১৮) নামের এই তরুণী কানাইঘাট উপজেলার সোনাতনপুঞ্জী সুরইঘাট গ্রামের রফিক উদ্দিনের মেয়ে।
বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার দিকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। রিনা বেগম তার স্বামী বিলাল উদ্দিনের সাথে পশ্চিম ঠাকুরের মাটি গ্রামের নুরুল ইসলামের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল। নুরুল ইসলাম সম্পর্কে বিলালের বোন জামাই। বিলাল উদ্দিন সোনাতনপুঞ্জী সুরইঘাট গ্রামের শামসুল হকের ছেলে।
স্থানীয় ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার হাফিজ আব্দুল মছব্বির ফরিদ বলেন ৪-৫ দিন আগে স্বামী বিলালের সাথে নুরুল ইসলামের বাড়িতে বেড়াতে আসে রিনা। রিনার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না, বিষয়টি আমরা বৃহস্পতিবার সকালে জানতে পারি।
এসময় বিলাল জানায়, গভীর রাতে ৪-৫জন ব্যক্তি তার (বিলাল) চোখ-মুখ বেঁধে রিনাকে তুলে নিয়ে যায়। তারপর হতে খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, খোঁজাখুঁজি করে বেলা দেড়টার দিকে বাড়ির পুকুরে রিনার লাশ পাওয়া যায়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এসময় রিনার স্বামী বিলালকেও আটক করেছে পুলিশ।
জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ খান মোঃ  মাইনুল জাকির বলেন লাশ দেখে এটা হত্যা বলে মনে হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিলাল উদ্দিনকে আটক করা হয়েছে।

বেনাপোল প্রতিনিধি: পাবনা থেকে প্রচারিত অনলাইন পোর্টাল ‘দৈনিক জাগ্রত বাংলা’র সম্পাদক ও প্রকাশক এবং আনন্দ টিভির পাবনা প্রতিনিধি সুবর্ণা আক্তার নদী হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে যশোরের শার্শায় মানববন্ধন করেছেন সাংবাদিকরা। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে আনন্দ টিভির বেনাপোল প্রতিনিধির ব্যবস্থাপনায় এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয় ।
মানববন্ধনে স্থানীয় বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন । এসময় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন শার্শা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বিডিনিউজের আসাদুজ্জামান আসাদ, ইনডিপেনডেন্ট টিভির আব্দুর রহিম, শার্শা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক ইয়ানুর রহমান, বেনাপোল প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক এম আর রহমান রাশু, বন্দর প্রেসক্লাবের সভাপতি শেখ কাজিম উদ্দিন, দৈনিক সংবাদের দেবুল কুমার দাস, ডিবিসি টিভির সেলিম রেজা, আরটিভির বেনাপোল প্রতিনিধি নাজির আহম্মেদ, বৈশাখী টিভির মোহাম্মাদ নাসির উদ্দিন, এসএটিভির শেখ নাসির উদ্দিন, আনন্দ টিভির শার্শা প্রতিনিধি নাসির উদ্দিন প্রমুখ। পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল উপজেলা সদরের সামনে যশোর-বেনাপোল মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে ।
উল্লেখ্য, বেসরকারি টেলিভিশন আনন্দ টিভির পাবনা জেলা প্রতিনিধি সুবর্ণা আক্তার নদী (৩২)কে মঙ্গলবার রাতে শহরের মজুমদারপাড়ায় তার বাড়িতে গিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে একদল দুর্বৃত্ত । এ ঘটনায় তার সাবেক স্বামী ও সাবেক শ্বশুরকে আসামি করে মামলা করেছেন সুবর্ণার মা।পুলিশ তার সাবেক শ্বশুরকে গ্রেপ্তার করেছে। পারিবারিক বিরোধে সুবর্ণাকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করছে পুলিশ।

বেনাপোল প্রতিনিধি: বেনাপোল বন্দর থানার পুটখালী সীমান্ত থেকে দেড় লাখ টাকাসহ সেলিম হোসেন (২৪) নামে এক হুন্ডি ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বিজিবি সদস্যরা। বুধবার দুপুরে পুটখালী সীমান্তের মসজিদ পোস্ট নামক স্থান থেকে তাকে আটক করেন। আটক সেলিম বেনাপোল থানার পুটখালী গ্রামের হাসেম আলীর ছেলে।
বিজিবি জানায়, গোপন সূত্রে জানতে পারি সেলিম নামে এক হুন্ডি ব্যবসায়ী ভারত থেকে হুন্ডির টাকা নিয়ে পুটখালী থেকে বেনাপোলের দিকে যাবে। এ ধরনের সংবাদের ভিত্তিতে বিজিবি একটি টহল দল মসজিদ বাড়ি নামক স্থানে অভিযান চালিয়ে দেড় লক্ষ টাকাসহ সেলিম নামে এক হুন্ডি ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র খুলনা-২১ ব্যাটালিয়নের পুটখালী ক্যাম্প কমান্ডার নায়েব সুবেদার আওলাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আটক সেলিমকেক হুন্ডির টাকাসহ বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের নাভারন হাইওয়ে পুলিশ যশোর-বেনাপোল ও নাভারণ-সাতক্ষীরা হাইওয়ে সড়কে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৩ দিনে প্রায় শতাধিক যানবাহন আটক করে নাভারন হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সামনে গভীর খাদের ময়লাযুক্ত পানিতে ফেলেছে। আটক করা গাড়ীগুলোর বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে বলে আটককৃত গাড়ির মলিকেরা জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে আটককৃত গাড়ির মলিকেরা তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছেন। তারা বলেছেন নছিমন, করিমন, ইজিবাইক, আলম সাধু এমনকি পাওয়ার টিলার ও সিএনজি আটক করে গভীর খাদের ময়লাযুক্ত পানিতে ফেলে দেয়া হয়েছে যা সম্পুর্ন আইনের পরিপন্থী, এগুলো সভ্য মানুষের কাজ না।
শার্শা উপজেলার লাউতাড়া গ্রামের লিটন হোসেন ও গোগা দক্ষিণ পাড়ার মোহাম্মদ আলী জানান, আমাদের গাড়ী গুলো মহাসড়ক থেকে আটকায়ে গভীর খাদের ময়লাযুক্ত পানিতে ফেলে দেয়া হয়েছে।এটা অন্যায় ও জুলুম, রাষ্টীয় আইনে এটা বলা হয়নি, এটা রিতিমত গরীবের পেটে লাথি মারা হয়েছে। তারা আরো বলেন, নছিমন, করিমন, আলম সাধু, ভটভডি চালায় যারা, তারা নিঃস্ব গরীব ও অসহায় । আর অনেকের সংসার এর উপরেই নির্ভরশীল।

আলম সাধু চালক আব্দুল কাদের জানান, এনজিও থেকে লোন নিয়ে আমি গাড়ি কিনেছি।আমার গাড়ি আটকায়ে রাখলে লোন পরিশোধ করা সম্ভব নয়। এনজিওর লোনের টাকার জন্য আত্মহত্যা করতে হবে। বেনাপোলের রাসেদ তরফদার বলেছেন, আমার নছিমন চালিয়ে সংসার চলে। আমার গাড়ীটাও গভীর খাদের ময়লাযুক্ত পানিতে ফেলা হয়েছে, এখন আমার বাল-বাচ্চার মুখের আহার বন্ধ। তিনি আরো বলেন, পরিবহন মালিক সমিতিকে খুশী করতে যেয়ে গরীবের পেটে লাথি মারা হচ্ছে। এটা মানতে তারা নারাজ।
এ বিষয়ে নাভারন হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পলিটন মিয়া বলেন, উপর মহলের নির্দেশে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। তিনি আরও জানান, ডিআইজি’র নির্দেশে নসিমন, করিমন, ইজিবাইক, আলম সাধু, পাওয়ার টিলার, ভডভডি ও সিএনজির ওপর এ অভিযান পরিচালানা করা হয়। এ গুলো আটকের পর তা পুকুরে বা বিলে অথবা জলাশয়ে ফেলে দিয়ে তার ছবি উঠিয়ে এ ছবি আবার ডিআইজিকে দেখাতে হবে বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন এ পর্যন্ত প্রায় শতাধিক যানবাহনের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে। তবে এ অভিযান আরও কতদিন চলবে তা তিনি সঠিক ভাবে জানাতে পারেননি।

প্রিতম পাল,শ্রীমঙ্গল থেকে: বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আনন্দ টিভির পাবনা প্রতিনিধি সুবর্ণা আক্তার নদী হত্যার প্রতিবাদে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (৩০ আগস্ট) দুপুরে শহরতলির হবিগঞ্জ রোডস্থ শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবে এই প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বিকুল চক্রবর্তীর সঞ্চালণায় উক্ত প্রতিবাদ সভায় সভাপতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সিনিয়ির সহ-সভাপতি শামীম আক্তার হোসেন। এসময় বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি চৌধুরী ভাস্কর হোম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় কুমার দে, অর্থ সম্পাদক সুমন বৈদ্য, বাংলা টিভির শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ প্রতিনিধি বিক্রমজিৎ বর্ধন, দপ্তর সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, প্রেসক্লাব সদস্য রুম্মন আহমেদ, রাসেল আহমেদ প্রমুখ।

এছাড়া এসময় বিভিন্ন সাহিত্যিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বক্তারা সাংবাদিক সুবর্ণা আক্তার নদীর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন এবং এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনার দাবী জানান।

মিজানুর রহমান সৌদি আরব থেকেঃ এবার বিমান চালাবেন সৌদি নারীরা! কিছুদিন আগে গাড়ি চালানোর অনুমতি পেয়েছেন সৌদি নারীরা। এবার বিমান চালানোর অনুমতি পেলেন তারা।
সৌদি আরবের পাঁচজন নারীকে পাইলট হিসেবে কাজ করার অনুমতি দিয়েছে দেশটির জাতীয় বিমান সংস্থা (জিএসিএ)।
মঙ্গলবার সৌদি এয়ারলাইন্সের জেনারেল অথরিটি (জিএসিএ) ওই পাঁচ নারীকে লাইসেন্স প্রদান করেছে। বিমান পরিবহন খাতে সৌদি নারীদের ক্ষমতায়নের অংশ হিসেবে সৌদি বিমান সংস্থা (জিএসিএ) এ উদ্যোগ নিয়েছে। সম্প্রতি সৌদি বিমান সংস্থায় বিপুল সংখ্যক নারী কর্মকর্তা যোগ দিয়েছেন যারা কারিগরি সেবা প্রদান করবেন।
প্রসঙ্গত, সৌদি আরবে ২০১৪ সালে হানাদি আল-হিনদি নামে এক নারীকে বিমান চালানোর লাইসেন্স দেয়া হয়েছিল। তিনি সৌদি প্রিন্স আলওয়ালিদ বিন তালালের মালিকানাধীন হোল্ডিং কোম্পানির নিজস্ব বিমান চালাতেন।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের দুই উপজেলার নবগঠিত কমিটি স্থগিত করায় আবারও আলোচনার এসেছেন নজির হোসেন। বিএনপির বহুল সমালোচিত সষ্কারপন্থি নেতা,সুনামগঞ্জ ১আসনের সাবেক এমপি নজির হোসেনের কারনে স্থগিতাদেশ দেশ হওয়ার অভিযোগ তুলেছে নেতাকর্মীরা। পাশা পাশি দলে বিভক্তির সাথে সুনামগঞ্জ-১আসনে নজির হোসেনের দাপট নাকি তৃনমূল নেতাকর্মীদের জয়-পরাজয় এই হিসাব করছেন বিএনপির ভোটার ও সমর্থকগন।

সাবেক এই নেতার অতিথ কার্যক্রম যেমন ছিল দল ও এই আসনের জন্য আলোচিত তেমনি সম্প্রতি তিনি জেলা থেকে ঘোষিত তাহিরপুর ও জামালগঞ্জ উপজেলার নবগঠিত কমিটি কেন্দ্র থেকে স্থগিতাদেশ করিয়ে এনে দলে ও সুনামগঞ্জের ১আসনে নিজের অবস্থান কতটুকু তাই তুলে ধরেছেন এটাই মনে করছেন বিএনপির সমর্থিত নেতাকর্মীরা। কমিটি স্থগিতাদেশের পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ও দুই উপজেলায় তুমুল উত্তাপ আর উত্তেজনা বিরাজ করছে নজির হোসেনের সমর্থক ও স্থগিত কমিটির নেতৃবৃন্ধের মধ্যে।

জানাযায়,২০১৬সালে তাহিরপুর উপজেলায় সভাপতি নুরুল ইসলাম ও সাধরন সম্পাদক রুহুল আমিন ও জামালগঞ্জ উপজেলা সভাপতি নুরুল হক আফিন্দি ও সাধারন সম্পাক আব্দুল মালেককে নির্বাচিত করে জেলা বিএনপির আহবায়ক নাসির উদ্দিন চৌধুরী ও প্রথম সদস্য কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন এই কমিটি অনুমোদন করে। এই চার জনই ছিল নজির হোসেনের সমর্থক। সম্প্রতি ১২আগষ্ট জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন ও সাধারন সম্পাদক নুরুল ইসলাম নুরুলের স্বাক্ষরিত দলীয় পেডে তাহিরপুর উপজেলা সভাপতি নুরুল ইসলাম ও সাধরন সম্পাদক জুনাব আলী ও জামালগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সভাপতি নুরুল হক আফিন্দী ও সাধারন সম্পাক শাহ মোঃ শাহজাহানকে নির্বাচিত করে নব গঠিত কমিটি অনুমোদন করেন। এই কমিটি অনুমোদনের পর নেতাকর্মীরা উজ্জিবিত হয়েছিল। শুধু মাত্র নজির হোসেন সমর্থিতরা ছিল নাখোশ।

আরো জানা যায়,জুনাব আলী ও শাহজাহান জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনিসুল হকের সমর্থক বিধায় এই কমিটির বিরোদ্ধে বিএনপির বহুল সমালোচিত সষ্কারপন্থি নেতা নজির হোসেনের চক্রান্তে তার সমর্থিত নেতাকর্মীদের মাধ্যমে অভিযোগ তুলে ৭দিন পর গত ১৯আগষ্ট কেন্দ্র থেকে একটি স্থগিতাদেশ হয়েছে অভিযোগ তুলেছে তাহিরপুর ও জামালঞ্জ উপজেলার (নব গঠিত কমিটি),বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। তারই প্রতিবাদে সংষ্কারপন্থি নেতা সাবেক এমপি নজির হোসেনের বিরোদ্ধে ও দুই উপজেলাই বিএনপির কমিটির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের জন্য গত রবিবার ১০দিনের আল্টিমেটাম দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করে। এসময় নজির হোসেনকে তাহিরপুর ও জামালগঞ্জ উপজেলা অবাঞ্চিত ঘোষনা করেন নেতৃবৃন্ধ।

এই বিষয়ে দুটি উপজেলা তৃনমূল নেতাকর্মীগন বলেন,কমিটি গঠন করা হয় নিয়ম মাফিক। কমিটি গঠনে প্রশ্ন না তুলে দলের স্বার্থেই কাজ করার দায়িত্ব ছিল সবার। কমিটি গঠন নিয়ে নজির হোসেনসহ তার সমর্থকরা সহ অন্যান্যরা বেগম জিয়াকে কিভাবে মুক্ত করা যায়,দলের স্বার্থে আগামী সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে বিজয় নিশ্চিত করার জন্য কাজ না করে কমিটি নিয়ে বাকতিন্ডতায় জড়িয়েছে এখন। আর নবগঠিত কমিটির সবাই মনে ক্ষোব নিয়ে সময়ের অপেক্ষায় আছে পরবর্তি সিদ্ধান্তের। যে কোন সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা বিরাজ করছে দুই উপজেলায়। কমিটি স্থগিত করায় শুধুই তাহিরপুরে ৪টি গ্রুপেই(নজির হোসেন,কামরুজ্জামান কামরুল,আনিসুল হক,ডাঃ রফিকুল চৌধুরী)নয় সুনামগঞ্জ ১আসনের তাহিরপুর,জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা (মধ্যনগড় থানা) উপজেলার বিভক্ত তৃনমূল নেতা কর্মীরাও প্রশ্ন তুলেছে। এখন পৃথক পৃথক ভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি হচ্ছে।

এবিষয়ে এমপি নজির হোসেন বলেন,কমিটি অনুমোদন দিয়েছে জেলা কমিটি আবার স্থগিত করেছে আমার এখানে কি করার আছে। স্থগিতের বিষয়ে আমার কোন ইশারা বা ঈগিত ও কোন সহযোগীতা নেই। নির্বাচনের আগে কমিটি ভেঙ্গে নতুন কমিটি না দেওয়ার জন্য আমি জেলা কমিটিকে বলেছিলাম। সবাইকে নিয়ে বসে কমিটি গঠন করা হলে এমন হত না। কমিটি যুক্তি সংগত ভাবে করা হয় নি। পূর্বের কমিটি ছিল কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচিত। হঠাৎ করে কমিটি দেওয়ায় এই পরিবেশ তৈরী করা হয়েছে।

আনিসুল হক বলেন,সুসংগঠিত দল বিএনপিকে ধংশ করার জন্যই জেলা নেতৃবৃন্ধের ঘোষিত কমিটি স্থগিতাদেশ করিয়েছেন নজির হোসেন সাহেব। উনার অতিথ কর্মকান্ডও ছিল বির্তকিত তা সবাই জানে। বেগম জিয়ার মুক্তির ও নিরেপেক্ষ নির্বাচনের দাবীর আন্দোলন কঠোর ভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়া যায় দলের স্বার্থে কমিটি গঠন করার জন্য একাধিক বার দলীয় কার্য্যালয়ে বসা হয়েছিল। আলাদা ভাবেও বসা হয়েছিল। তখন ত তিনি (নজির হোসেন)সহ সবাই জেলা কমিটির উপর দায়িত্ব দিয়েছিলেন যে সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে তাই মানবে। এখন কেন এই জামেলা করে দলে বিশৃংখলা তৈরী করছেন। সবার উচিত ছিল ঐক্যবদ্ধ ভাবে এখন দলীয় কাজ গুলো করা ।

হৃদয় দাশ শুভ: বিয়ের কেনাকাটা শেষ। সামনে বিয়ের অনুষ্ঠান।বাবার চিকিৎসা করাতে গিয়ে আর ঘরে ফিরলেন না মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানার সদর ইউনিয়নের  উত্তর ভাড়াউড়া এলাকার বাসিন্দা সামিনা নুর নীলা।একই দুর্ঘটনায় তার মাতা ও নিহত হয়েছেন।
বুধবার দুপুরে ঘাতক বাস নীলার জীবন কেড়ে নিয়েছে। বুধবার দুপুরে বাবার চিকিৎসার কাজ সেরে ঢাকা থেকে নিজ বাড়ীতে ফিরার কথা ছিল নীলার পুরো পরিবারের।কিন্তু ঢাকা থেকে ফেরার পথে ব্রাহ্মনবাড়িয়ার সরাইলে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায় নীলা৷একই ঘটনায় বাসে থাকা তার মা রুবিনা নুর ও ঘটনাস্থলেই মারা যান,আহত হন নীলার বাবা আলফু মিয়া (৬৫) ও ভাই আসিফ (২০)  সহ ২০ জনের অধিক যাত্রী ৷
এদিকে দুর্ঘটনার খবরে নীলার স্বজনদের মাঝে চলছে শোকের মাতম।এলাকায় স্তব্দতা নেমে এসেছে মানুষের মাঝে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুরে বি-বাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলার রামপুরা নামক স্থানে দ্রুত গতিতে চলা এনা পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পার্শ্ববর্তী একটি খাদে পড়ে পানিতে ঢুবে যায় বাসের অধিকাংশ।এতে ঘটনাস্থলেই নীলা ও তার মা’সহ আরেক যাত্রী মারা যান ৷
পরে স্থানীয়রা নীলা ও তার মা’য়ের লাশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে মৃত ঘোষনা করেন৷
স্থানীয় এক প্রতিবেশী মোনায়েম আহমদ শাদী আমার সিলেট প্রতিনিধিকে জানান,আগামী মাসের ১২ তারিখে নীলার বিয়ের দিন তারিখ ঠিক ছিল রাজধানী ঢাকার উত্তরার এক পরিবারের ছেলের সাথে।তিনি আরও জানান নিহতদের জানাজার সময় এখনো নির্ধারন করা সম্ভব হয়নি কারণ নিহতদের পরিবারের বড় মেয়ে  ভারতে চিকিৎসার জন্যে গিয়েছিলেন তিনি ফিরে এলেই জানাজা ও দাফনের কাজ সম্পন্ন হবে।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বৈশামুড়ায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এনা পরিবহনের একটি বাস খাদে পড়ে ৩ জন নিহত হয়েছেন। স্থানীয়দের সুত্রে জানা গেছে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার উত্তর ভাড়াউরা নিবাসী আসিফ ডেইরি ফার্মের মালিক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলফু মিয়ার স্ত্রী ও কন্যাসহ ৩ জন নিহত হয়েছেন।তবে তাদের বাড়িতে কথা বলার মত কাউকে পাওয়া যায়নি বলে আমার সিলেট প্রতিনিধি জানান,তিনি বলেন এখনো বিস্তারিত জানা সম্ভব হয়নি।এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২০ জন।

আজ দুপুরে ঢাকা থেকে সিলেটগামী যাত্রীবাহি এ বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশ্ববর্তী খাদে পড়ে গেলে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সরাইল থানা পুলিশ,দমকল বাহিনী ও হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ শুরু করে। এর আগেই স্থানীয় লোকজন উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে।

এদিকে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফিজ উদ্দিন ভূইয়া জানান, নিহতদের মধ্যে একজন নারী ও শিশু রয়েছে। তবে তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। আহতদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।বিস্তারিত আসছে…

২৭ আগস্ট রোজ সোমবার বাংলাদেশ ইসলামী ছত্রসেনা মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলা শাখার কাউন্সিল ও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ আল্লামা নুরুল ইসলাম ফারুকীর ৪র্থ শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা রাজনগর টেংরা বাজার সংলগ্ন হল রুমে বিকাল ২ টায়  আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে দেলোয়ার হোসাইন এর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট মৌলভীবাজার জেলা শাখার সহ সভাপতি জননেতা মাও: আব্দুল মুহিত হাসানী।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী যুবসেনা কেন্দ্রীয়সহ সাংগঠনিক ও জেলা যুবসেনার সভাপতি এম মুহিবুর রহমান মুহিব, জেলা অফিস সম্পাদক আব্দুল মুকিত হাসানী, প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রসেনার সভাপতি এম এ এম রাসেল মোস্তফা, বক্তব্য রাখেন জেলা ছাত্রসেনার সহ সভাপতি জুনেদুল ইসলাম চৌধুরী আদনান, প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান চৌধুরী, জেলা যুবসেনার সদস্য সাইফুদ্দীন সংগ্রামীসহ প্রমুখ।

৫সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন কমিশন ২০১৮-২০১৯সে নের জন্য মো:দেলোয়ার হোসাইন সভাপতি, সি:সহ সভাপতি আব্দুল জলিল, সহ সভাপতি, রুবেল আহমদ সহ সভাপতি মঈনুদ্দিন সিদ্দীক, সাধারন সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আরিফ, সহ-সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসাইন, অর্থ সম্পাদক, আকিব আলী রনি, প্রচার সম্পাদক সিপার আহমেদ,গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক, মাছুম আহমেদ, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক, ফারদুল ইসলাম তোফায়েল, ছাত্র কল্যাণ সম্পাদক রাসেল আহমেদ,স্কুল বিষয়ক সম্পাদক, শাকিবুল ইসলাম, সদস্য,তারেক,সুবেল,জামিল,ছাতির,মুহিব,সুহেল আহমেদ,আলামিল সহ ১৯ বিশিষ্ট একটি শক্তিশালী কমিটি ঘোসনা করা হয় পরে ফারুকী হত্যার বিচারের দাবিতে মিছিল টেংরা বাজার পদক্ষিণ করে শাহ সর্দার শাহ মাজার প্রাঙ্গণে পথ সভার মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।প্রেস বার্তা।

২৯ অাগস্ট ২০১৮: পাবনা থেকে প্রচারিত অনলাইন পোর্টাল ‘দৈনিক জাগ্রত বাংলা’র সম্পাদক ও প্রকাশক এবং আনন্দ টিভির পাবনা প্রতিনিধি সুবর্ণা আক্তার নদীকে (৩২) কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহরের রাধানগর মজুমদারপাড়া এলাকায় সুবর্ণার ঘরে তাকে খুন করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে। পৌর সদরের রাধানগর মহল্লায় আলীয়া মাদরাসার পশ্চিম পাশের একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতেন সুবর্ণা।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইবনে মিজান বলেন, “বাসার কলিং বেল টিপে কয়েকজন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি তাকে ডেকে বের করে। সুবর্ণা নদী গেইট খোলার সাথে সাথে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।”

স্থানীয়রা গুরুতর আহত সুবর্ণাকে পাবনা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তিনি মারা যান। সুবর্ণাকে কারা খুন করেছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি তবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) শামিমা আকতারসহ পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তারা। গৌতম কুমার বিশ্বাস বলেন, “তাৎক্ষণিকভাবে সুবর্ণা নদী হত্যার কারণ জানা যায়নি। তবে আমাদের পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট কাজ করছেন প্রকৃত ঘটনা উদ্ধারের জন্য।”

জানা গেছে,সুবর্ণা নদীর ৫-৬ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। পাবনার এক ব্যবসায়ীর ছেলে রাজিব ছিলেন সুবর্ণার স্বামী। সম্প্রতি তাদের বিচ্ছেদ হয়। এনিয়ে আদালতে একটি মামলাও চলছে বলে স্থানীয়রা জানান। সুবর্ণা হত্যার ঘটনায় পাবনায় কর্মরত সাংবাদিকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। পাবনা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী বাবলা বলেন, “প্রত্যক্ষদর্শীরা আমাদের জানিয়েছেন, ১০/১২ জন সন্ত্রাসী কয়েকটি মোটর সাইকেলে এসে তাকে কুপিয়ে দ্রুতবেগে চলে যায়। যারা এই ঘটনার সাথে জড়িত, তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।”

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি আওয়াল কবির জয় সাংবাদিক সুবর্ণা খুনের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন তিনি।

শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি আনিসুল ইসলাম আশরাফী ও সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ মনসুর আহমদ সাংবাদিক ও সম্পাদক সুবর্ণা আক্তার নদীকে খুনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। খুনি সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবিও করেছেন তারা।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc