Saturday 22nd of September 2018 04:03:50 PM

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০জুনঃ  খেলা প্রেমিকদের ফুটবল উন্মাদনায় এক দিন বিরতির পর আজ শনিবার শুরু হচ্ছে শ্বাসরুদ্ধকর নকআউট পর্বের লড়াই। যে দল হারবে তারাই দেশে ফেরার বিমান ধরবে। আর বিজয়ী দল খেলবে কোয়ার্টার ফাইনালে। নিজেদের স্বপ্নকে বাঁচিয়ে রাখার মিশন নিয়ে আজ রাতে ফ্রান্সের মুখোমুখি হবেন মেসিরা। কাজানে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় মাঠে নামবেন তারা।

অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে গ্রুপ পর্বের বাধা পার হয় আর্জেন্টিনা। নবাগত আইসল্যান্ডের সঙ্গে ড্র। ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে উড়ে যাওয়া। দলের মধ্যে কোন্দল। কোচের প্রতি অনাস্থা। সব মিলিয়ে ছন্নছাড়া অবস্থা। অবশেষে নাইজেরিয়ার বিপক্ষে মেসির জ্বলে ওঠা ও মার্কোস রোহোর অবিশ্বাস্য গোলে শেষ ষোলোর টিকেট মেলে তাদের।

এবার বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার গত ইউরোর ফাইনালিস্ট ফ্রান্স। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দলটি শেষ ষোলোতে এলেও প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলা দেখাতে পারেনি। তিন ম্যাচে মাত্র তিন গোল করে। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে গ্রিজম্যান মাঠে থাকার পরও ডেনমার্কের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে। তবু শেষ ষোলোতে এটি হাইভোল্টেজ ম্যাচ। যেখানে সাবেক তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা মুখোমুখি। ১৯৭৮ ও ১৯৮৬ বিশ্বকাপ জয়ী আর্জেন্টিনা চার বছর আগেও ফাইনাল খেলে।

অন্যদিকে ১৯৯৮ বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্স ২০০৬ সালে রানার্সআপ হয়। গ্রুপ পর্বে আর্জেন্টিনার সেরা তারকা লিওনেল মেসি মাত্র এক গোল করেন। প্রথম ম্যাচে একটি পেনাল্টি পেয়েও সেটি কাজে লাগাতে পারেননি। তবু বার্সা সুপারস্টার যে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারেন, তা নাইজেরিয়ার বিপক্ষে দেখা যায়।

এদিকে ফ্রান্সের তারকা অ্যান্টনিও গ্রিজম্যানও পান মাত্র একটি গোল। সেটিও আসে পেনাল্টি থেকে। পিএসজির তরুণ তারকা এমবাপেও পান এক গোল। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে ফরাসি ডিফেন্ডার স্যামুয়েল উমতিতি বার্সা সতীর্থ মেসিকে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় করে দিতে চান। আর্জেন্টিনার মতো দলকে হারাতে পারাটা তার জন্য গর্বের বলেও মনে করেন।

তিনি বলেন, ‘পরের রাউন্ডে যাওয়াটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ব্রাজিল, পেরু নাকি মেক্সিকোকে বিদায় করে দিলাম, সেটা আমার কাছে বিষয় না। তবে এটা ঠিক যে আর্জেন্টিনার মতো দলকে বিদায় করে দেওয়াটা আমার কাছে গর্বের বিষয়।’

এদিকে আর্জেন্টিনার পরের রাউন্ডে আসাকে অলৌকিক ভাবছেন না দলটির মিডফিল্ডার লো সেলসো। কঠিন লড়াই করার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘আমি বলব না যে এটি অলৌকিক কিছু ছিল। তবে কঠিন লড়াই করতে হয়েছে। এখন ফ্রান্সের বিপক্ষে আমরা আরো অনেক বেশি শক্তিশালী।’

মুখোমুখি লড়াইয়ে অবশ্য আর্জেন্টিনা এগিয়ে আছে। দুই দলের ১১ বারের লড়াইয়ে ছয়বার জয় পায় ল্যাটিন আমেরিকার দলটি। সেখানে হারে মাত্র তিনবার। বাকি দুই ম্যাচ ড্র হয়। এই ম্যাচের আগে আর্জেন্টিনা দলে চোট সমস্যা নেই।

নাইজেরিয়ার বিপক্ষে যে একাদশ নিয়ে খেলে, সেটিতেও কোনো পরিবর্তন না আনার সম্ভাবনা রয়েছে। ফ্রান্সের ডিফেন্ডার উমতিতির চোট থাকায় তাকে নিয়ে কিছুটা সন্দেহ আছে। তবে ডেনমার্কের বিপক্ষে খেলা একাদশে এবার বড় পরিবর্তন আসবে। গোলরক্ষক হুগো লোরিস, আক্রমণভাগের পল পগবা ও কাইলেন এমবাপে একাদশে ফিরবেন।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০জুন,ডেস্ক নিউজঃ আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেওয়ার সময় স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে কেঁদেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (৩০ জুন) গণভবনে ওই সভায় তিনি কিছু সময়ের জন্য আবেগাপ্লুত হয়ে থমকে যান। এসময় আওয়ামী লীগ নেতারা জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু বলে স্লোগান দিতে থাকেন।

প্রধানমন্ত্রী যখন স্বাধীনতা পরবর্তী ইতিহাসের কথা তুলে ধরছিলেন তখন তিনি ৭৫-এর নৃশংস খুনের কথা বলতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। ওই হত্যাকাণ্ডের পর তিনি ৩২ নম্বরের নিজ বাড়িতেও যেতে পারেননি বলে উল্লেখ করতে গিয়েই কেঁদে ফেলেন। এসময় কিছু সময়ের জন্য সভায় নীরবতার সৃষ্টি হয়। তখন আওয়ামী লীগ নেতাদের স্লোগানের পর আবারও বক্তব্য শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমার পরিবার বিশাল পরিবার। আমার পরিবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের পরিবার।

তার এমন বক্তব্যের পর সভাস্থলে উপস্থিত আওয়ামী লীগ নেতারা হাততালি দিয়ে তাকে সমর্থন জানান।

এর আগে, প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে স্বাধীনতাপূর্ব ইতিহাস তুলে ধরেন। দেশ বিভাগের পরের ইতিহাস বর্ণনা করতে গিয়ে পাকিস্তানিদের নির্যাতন ও বৈষম্যের বিষয়টি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চাকরি থেকে শুরু করে সকল ক্ষেত্রেই বৈষম্যের শিকার হতেন বাংলাদেশিরা। এসব বৈষম্য বন্ধ করতে বাংলাদেশিরা আন্দোলন করেছে। এর ফলশ্রুতিতে তারা যা অর্জন করেছে তার সবই রক্ত দিয়েই অর্জন করতে হয়েছে।

তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবনের ইতিহাস তুলে ধরতে গিয়ে, ছয় দফা দাবি, পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর হাতে তার গ্রেফতার হওয়া, মিথ্যা মামলার শিকার হওয়া এবং স্বাধীনতার ঘোষণার কথা তুলে ধরেন।

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাইয়ের আহসান উল্লাহ মেমোরিয়াল মডেল উচ্চ বিদ্যালয়কে গত ৭মে সরকারিকরণ করায় এক আনন্দ শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বেলুন ও শান্তির প্রতিক পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মো: ইসরাফিল আলম। পরে বিদ্যালয়ের শত শত শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের অংশগ্রহনে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।

শোভাযাত্রাটি উপজেলার প্রধান প্রধান স্থান প্রদক্ষিণ শেষে স্কুল মাঠে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রা শেষে আত্রাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবাদুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আহসান উল্লাহ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সনৎ কুমার প্রামাণিক. উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক চৌধুরী গোলাম মোস্তফা বাদল, মোল্লা আজাদ মেমোরিয়াল ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মাহমুদুল হক দুলু, আত্রাই মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ইমতিয়াজ উদ্দিন, বাংলাদেশ কারিগরি কলেজ শিক্ষক সমিতির নওগাঁ শাখার সাধারণ সম্পাদক ও সাপ্তাহিক প্রজন্মের আলো পত্রিকার সম্পাদক অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান রিজভী, রাণীনগর শের-এ বাংলা মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মোফাখ্খার হোসেন খাঁন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানটি স ালনায় ছিলেন মাষ্টারমাইন্ড বিএম কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) ডিএস জাহিদুল ইসলাম। আলোচনা সভা শেষে জাতীয় ও স্থানীয় শিল্পীদের অংশগ্রহণে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাই উপজেলা সদর থেকে ১২ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে উপজেলার শেষ প্রান্তে আন্ধারকোটা নামক স্থানে ছোট যমুনা নদী পারাপারের নৌকায় এক মাত্র ভরসা । এই নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হন ১০ গ্রামের প্রায় ৭ হাজার মানুষ।
স্বাধীনতার ৪৭ বছর অতিবাহিত হলেও ১১ গ্রামের প্রায় সাত হাজার মানুষের ছোট যমুনা নদী পারাপারের জন্য আজও কোনো সেতু নির্মাণ হয়নি। প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে কৃষক, ব্যবসায়ী, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ।

ভৌগলিক কারনে আত্রাই উপজেলার বিলবেষ্টিত কালিকাপুর ইউনিয়নের অবহেলিত জনপদের মধ্যে আটগ্রাম, হরপুর, তারানগর, বাউল¬াপাড়া, ঝিয়ারীগ্রাম, শলিয়া গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী রাণীনগর উপজেলার কৃষ্ণপুর, মালি , ঘোষগ্রাম, নান্দাইবাড়ি ও বেতগাড়ী গ্রামের প্রায় ৭ হাজার মানুষের বসবাস হলেও যোগাযোগ ব্যবস্থার তেমন কোন উন্নয়ন না হওয়ায় রাষ্ট্রের অনেক জরুরী সুযোগ-সুবিধা ও সেবা থেকে বি ত রয়েছে গ্রামগুলোর মানুষ। যোগাযোগ ব্যবস্থার এই আধুনিকতার যুগে এসে স্বাধীনতার ৪৭ বছর পার হলেও নওগাঁর ছোট যমুনা নদীর ওপর দিয়ে পারাপারের জন্য আত্রাই উপজেলার আন্ধারকোটা ও রাণীনগর উপজেলার ঘোষগ্রাম নামক স্থানে নদীর ওপর আজও কোন ব্রিজ নির্মান হয়নি।

একটি ব্রিজের অভাবে দীর্ঘদিন ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কখনো নৌকা আবার কখনো বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার হয় প্রায় ১১টি গ্রামের কৃষক-শ্রমিক, স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীসহ প্রায় ৭ হাজার মানুষ। বর্ষাকালে নৌকায় নদী পারাপার হলেও শুকনো মৌসুমে নব্যতা সঙ্কটের কারণে এলাকাবাসীর উদ্যোগে তৈরি বাঁশের সাঁকোই একমাত্র ভরসা হয়ে দাঁড়ায়।

বন্যা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগে বছরের বেশির ভাগ সময় ধরে বন্যার পানি চার দিকে থই থই করে। তখন পারিবারিক প্রয়োজনে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা হয়ে দাঁড়ায় ভাড়ায়চালিত নৌকা। শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই বিলের পানি কমতে থাকায় পানি-কাদায় একাকার হলেও হেঁটেই উপজেলার আটগ্রাম, হরপুর, তারানগর, বাইলাপাড়া, ঝিয়াড়িগ্রাম, শলিয়া গ্রামসহ বিভিন্ন গ্রামের মানুষ তাদের প্রয়োজনের তাগিদে জেলা ও উপজেলা সদরে যাতায়াত করে।

ছোট যমুনা নদীর নাব্যতা সঙ্কটের কারণে নৌকা চলাচল বন্ধ থাকায় ঘোষগ্রাম-আন্ধারকোটা নামক স্থানে নদী পারাপারের জন্য একটি নৌকার উপরই ভরসা করতে হয়। আত্রাই উপজেলার ওই গ্রামগুলোতে সবচেয়ে বেশি ইরি ধান উৎপাদন হলেও যানবাহন চলাচলের উপযোগী সরাসরি কোনো পথ না থাকায় স্থানীয় কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত ধানসহ কৃষি পণ্যসামগ্রী সহজভাবে বাজারজাত করতে না পারায় নায্যমূল্য থেকে বি ত হয়। অনেকটা বাধ্য হয়েই ফড়িয়া ও মহাজনদের কাছে চলমান বাজার মূল্যের চেয়ে কম দামে কৃষি পণ্য বিক্রি করতে হয়। এখানে একটি সেতু নির্মাণ এলাকাবাসীর দাবি থাকলেও কারো যেন মাথা ব্যথা নেই। আত্রাই কালিকাপুর ইউনিয়নের বেশির ভাগ এলাকা বন্যাকবলিত হওয়ায় মাঝে মধ্যে শুষ্ক মওসুমে যমুনা নদীর পশ্চিম তীর দিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণ করা হলেও বন্যা আর নদী ভাঙনের কবলে পড়ে প্রতি বছরই তারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এ ব্যাপারে আন্ধারকোটা গ্রামের আজমেল প্রামানিক জানান, আমরা যুগ যুগ ধরে জীবনের ঝুকিঁ নিয়ে নদী হয়ে আসছি। বছরের পর বছর ধরে কৃষি পণ্যের নায্য মূল্য থেকে বি ত হচ্ছি।

এ বিষয়ে আটগ্রাম তারানগর গ্রামের কলেজ পড়–য়া ছাত্রী নিশাত আনজুমান বলেন, আমাদের এ গ্রামে হাসপাতাল ক্লিনিক এমনকি ভালো মানের কোন ডাক্তারও নেই। গ্রামে মধ্য রাতে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে বা গর্ভবতীদের নিয়ে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়, এমনকি দুর্ঘটনাও ঘটে। এখানে একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি আমাদের দীর্ঘ দিনের। এ দাবি কেউ বাস্তবায়িত করেনি। যার জন্য এলাকাবাসীকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই জরুরি ভিত্তিতে একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হলে সকল শ্রেণী পেশার মানুষ এ দুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাবে।

আত্রাই উপজেলার ৭ নম্বর কালিকাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমুল হক নাদিম জানান, ছোট যমুনা নদীর ওপরে একটি সেতু নির্মাণের জন্য এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবি হলেও সেতু নির্মাণ না হওয়ায় জনগণ অনেক কষ্টে আছে। জনসাধারণের স্বার্থে সেতু নির্মাণের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম ও সংশিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুনজর কামনা করছি।

এ ব্যাপারে আত্রাই উপজেলা প্রকৌশলী মোবারক হোসেন জানান, উপজেলার কালিকাপুর ইাউনিয়নের আন্ধারকোটা নামক স্থানে নদী পারাপারের জন্য একটি ব্রিজ জনগুরুত্বপূর্ণ। ব্রিজটি নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন পাঠানো হয়েছে। আশাকরছি দ্রুত এখানে একটি ব্রিজ নির্মাণ করা সম্ভব হবে।

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১ মাদক ব্যবসায়ী সহ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ২৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। অভিযানকালে, ৪০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়।
জেলা পুলিশের কন্ট্রোলরুম সূত্রে জানাগেছে, শুক্রবার থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় জেলার ৪ থানা নড়াইল সদর, লোহাগড়া , কালিয়া ও নড়াগতির বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানকালে সদর থানা পুলিশ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ০৩ জন, লোহাগড়া থানা পুলিশ ১ মাদক ব্যবসায়ি কাছ থেকে ৪০ গ্রাম গাঁজাসহ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ১১ জন, কালিয়া থানা পুলিশ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ০৬ জন এবং নড়াগাতী থানা পুলিশ বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগে ০৫ জনকে গ্রেফতার করে।
নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন জানান, জেলার ৪ থানায় অভিযানকালে মাদক মামলায় ১ জন, জি আর মামলায় ১৬ জন, সিআর মামলায় ৬ জন ও নিয়মিত মামলায় ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জেলার আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং মাদক নিয়ন্ত্রণে পুলিশের এ অভিযান চলমান থাকবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০জুন,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ    অষ্টগ্রামের এক মাদ্রাসা ছাত্র মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গতমধ্য রাতে চলে গেলেন না ফেরার দেশে ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে লাইফসাপোর্ট অবস্থায় ঢাকা পি.জি. হসপিটালে ইন্তেকাল করেছেন তিনি।পরে রাজধানীর মুহাম্মদপুর ক্বাদেরিয়া তৈয়্যেবিয়া আলিয়া মাদ্রাসায় আজ বাদফজর প্রথম জানাজা শেষে ভৈরব শম্ভুপুর ফাজিল মাদ্রাসায় সকাল ৮ টায় দ্বিতীয় জানাজা  অনুষ্ঠিত হয়।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়,হাফেজ রফিকের নিজ বাড়ী কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার ভাতশালা গ্রামে আজ দুপুর ২ টায় তৃতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্টিত হবে তার নিজ গ্রামে।পরে স্থানীয় কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে। তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

উল্লেখ্য তিনি কাদরিয়া তৈয়্যাবিয়া কামিল মাদ্রাসার অনার্সে অাল কুরঅান এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের তৃতীয় বর্ষের মেধাবী শিক্ষার্থী ছিলেন হাফেজ রফিক।

 

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০জুন,নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল শহরের প্রাণ কেন্দ্রে গড়ে ওঠা অর্ধশত বছর পুরোনো ঐতিহ্যবাহী শিব শংকর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রবেশ পথ এবং নিজস্ব প্রাঙ্গণে জলাবদ্ধতার কারনে কোমলমতি শিশুদেও পাঠদান ভীষণভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বিদ্যালয়  চত্বরে বছরের প্রায় ৮ মাস পানি জমে থাকার  কারণে বিদ্যালয়ের মাঠে কমলমতি শিশুরা খেলাধুলা করতে পারে না।

অন্যদিকে জলাবদ্ধতার কারণে পানি পচে সাপ ও জোকের প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ এবং শিক্ষকরা এসব সমস্যা সমাধান করতে না পারায় বিদ্যালয়ের পাঠদান ভীষণভাবে ব্যাহত হচ্ছে।  এসব সমস্যার জন্য শিক্ষার্থীরা শহরের স্বনামধন্য এ বিদ্যালয়ে আসা প্রায় বন্ধ করে দিয়েছে। জানা গেছে, রোজা ও ঈদের এক মাস ছুটির পর থেকে জলাবদ্ধতার কারনে এ বিদ্যালয়ে নিয়োমিত পাঠদান হচ্ছে না।

৪র্থ শ্রেণির ছাত্র রায়হান কাওসার, ১ম শ্রেণির ছাত্রী হাসনা হেনা জানান, বিদ্যালয়ে আসতে গেলে  পচাঁ ও নোংরা পানির ভেতর দিয়ে আসতে হয়। পানিতে সাপ, জোকসহ বিভিন্ন পোকামাকড় দেখা যাওয়ার কারনে ভয় লাগায়  বিদ্যালয়ে আসতে মন চায়না।

বিদ্যালয়ের  অভিভাবক আসমা খাতুন বলেন, আমার বাচ্চাটি শিশু শ্রেণীতে পড়ে। বাচ্চাদেরকে খেয়াল করবে কে ? যদি পানিতে ডুবে গিয়ে কোন বিপদ ঘটে। শিক্ষকদের বলা হয়েছে কিন্তু কোন কজ হয়নি।

স্কুলের অভিভাবক সাজ্জাদ হোসেন টিপু বলেন, অর্ধশত বছর পুরোনো ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যালয়ের মাঠে প্রায় সারা বছর মাঠে পানি জমে থাকে। বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে ড্রেনেজ ব্যবস্থা থাকলেও কয়েক প্রভাবশালী ব্যক্তির কারনে পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। স্থায়ী জলাবদ্ধতার কারনে পানি পচে নষ্ট হচ্ছে। মশা, মাছি, জোক ও সাপের উপদ্রব বাড়ছে। ফলে পানি বাহিতসহ বিভিন্ন রোগ ব্যধির সৃষ্টি হচ্ছে। এ অবস্থায় বাচ্চাদেরকে স্কুলে পাঠান অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তিনি , এ সমস্যার সমাধানের জন্য জেলা প্রশাসক এবং নড়াইল পৌর মেয়রের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ট্রেনিং-এ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। এ ব্যাপারে সহকারী শিক্ষিকা রেশমী সুলতানা বলেন,  আমরা এসব সমস্যার কথা স্কুল কমিটির সভাপতি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে একটি দরখাস্ত দিয়েছে। আমাদের এ বিদ্যালয়ে ৪শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। বিদ্যালয়ের পড়াশুনার মান ভাল হওয়ার কারণে  রেজাল্টও যথেষ্ট ভালো। ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠিত পুরোনো এ স্কুলের জলাবদ্ধতার জন্য পাঠদানসহ সহ শিক্ষাক্রমিক বিভিন্ন কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শাহ আলম জানান, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ একটি দরখাস্ত দিয়েছে। বিষয়টি নড়াইল পৌর মেয়রও অবগত রয়েছেন। শুনেছি স্থানীয় কয়েক প্রভাবশালী ব্যক্তির কারনে জলাবদ্ধতার বিষয়টির সমাধান হচ্ছে না। আমরা জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথে বিষয়টি নিয়ে দু’এক দিনের মধ্যে কথা বলে সমাধানের চেষ্টা করব।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,ছাতক প্রতিনিধিঃ   ছাতকে বিদ্যুতের ভেল্কিবাজিতে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে জনজীবন। লোড শেডিংয়ের নামে প্রতিদিন অন্তত ১৫ থেকে ২০ বার বিদ্যুৎ আসা-যাওয়া করে। এখানে যেনো এখন আর বিদ্যুৎ যায়না, মাঝে মধ্যে আসে। দিন-রাতের বেশিরভাগ সময় বিদ্যুৎ না থাকার পরও কর্তৃপক্ষের যেনো কোনো মাথা ব্যথা নেই।

ভুক্তভোগী মানুষের অভিযোগ, বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের ইচ্ছে-অনিচ্ছেয় চলেছে এখানের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। কয়েক লক্ষ গ্রাহকের দুর্ভোগের বিষয়টি বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ মোটেই আমলে নিচ্ছেন না। ঘন-ঘন বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার ঘটনায় শহরসহ গ্রাম-গঞ্জের বিদ্যুৎ গ্রাহকদের মধ্যে বিরাজ করছে চরম অসন্তোষ ও উত্তেজনা। এখানে বিগত দিনগুলোতে বিদ্যুতের এমন ভেল্কিবাজি চলে আসলেও বিশ্বকাপ ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে এর ভয়াবহতা মারাত্মক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রচন্ড গরমে ঘন-ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে এখন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে উপজেলাবাসী।

সচেতন মহলের অভিযোগ, এখানে অধিকাংশ সময় বিদ্যুৎ না থাকায় কোমলমতী শিক্ষার্থীদের পড়া-লেখায় মারাত্মক ব্যঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। বিদ্যুৎ না থাকায় ব্যবসা-বানিজ্য পরিচালনায় নানাবিধ সমস্যার সম্মূখীনসহ মিল-কারখানার মতো জনগুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে রাখতে হচ্ছে। তারা আরো জানান, ঘন-ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের বিষয়টি কিংবা বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার কত সময়ের মধ্যে আবার বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে এ বিষয়টি জানারও কোন উপায় থাকে না গ্রাহকদের। প্রায় সময়ই বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকে।

বিদ্যুতের এ ভেল্কিবাজি থেকে কবে মুক্তি মিলবে এখানকার ভুক্তভোগী গ্রাহকদের? এমন প্রশ্নই এখন স্থানীয় সচেতন মহলে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোরের শার্শা  উপজেলায় থাই পেয়ারার চাষ ব্যাপক ভাবে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। থাই পেয়ারার চাষে চাষীরা স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে। শার্শা  উপজেলার কৃষি বিভাগের পরামর্শে ও অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চাষীরা  থাই পেয়ারার চাষে ঝুঁকে পড়েছে।

শার্শা  উপজেলায় বর্তমানে যে  সমস্ত  চাষীরা থাই পেয়ারার চাষ করে লাভবান বা স্বাবলম্বী হয়েছেন তাদের অনুসরণ করে থাই পেয়ারার চাষে ঝুঁকে পড়ার আশা ব্যক্ত করেছেন আরও কয়েকশ” চাষী। শার্শা  উপজেলার ডিহি ইউনিয়ন, নিজামপুর ইউনিয়ন, শার্শা ইউনিয়ন, উলাশী ইউনিয়ন, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন ও কায়বা ইউনিয়নের শতাধিক চাষী থাই পেয়ারার চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছেন।

উলাশী ইউনিয়নের সম্বন্ধকাঠি গ্রামের নজরুল ইসলাম জানান, তিনি দীর্ঘ দিন যাবৎ কৃষি কাজের সাথে জড়িত আছেন। অন্যান্য কৃষি কাজ করে তেমন কোন আর্থিক উন্নতি করতে পারেনি। উপজেলার কৃষি বিভাগের পরামর্শে থাই পেয়ারার চাষ শুরু করেছেন। অন্যের কাছ থেকে সাড়ে ৭’বিঘা জমি লিজ নিয়ে থাই পেয়ারার চাষ করে বিগত দিনের ধার-দেনা পরিশোধ করে তিনি এখন স্বাবলম্বী। সংসারের সমস্ত খরচ চালিয়ে তিনি এখন নগদ টাকা জমাতে শুরু করেছেন। নজরুলের ভাই ডালিম জানান, থাই পেয়ারার চাষ করে নগদ টাকা জমিয়ে একতলা বিল্ডিং সম্পন্ন করে দ্বিতল-বিল্ডিং-এর কাজে হাত দিয়েছেন।

শার্শা  উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার সরকার জানান, শার্শা  উপজেলায় ১৯০’হেক্টর জমিতে থাই পেয়ারার চাষ করেছেনে শতাধিক চাষী। থাই পেয়ারার চাষে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের শতাধিক চাষীরা স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে। থাই পেয়ারার চাষে প্রতি বিঘা জমিতে খরচ বাদ দিয়ে প্রতি বছর ৮০-৯০’হাজার টাকা লাভ হয়। বাংলাদেশে থাই পেয়ারার চাষ বৃদ্ধি পেলে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানী করা সম্ভব। থাই পেয়ারার স¦াদ ও গুণগত মান খুবই ভাল, তাই ভোক্তাদের কাছে এর চাহিদাও অনেক বেশী।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,বেনাপোল প্রতিনিধি:   বেনাপোল বন্দরে ৩৮টি ভারতীয় পণ্য খালাসের আগে বাধ্যতামূলক মোবাইল স্ক্যানিং চালুর ঘোষণা দিয়েছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার বিকেলে বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ ঘোষণা দেয়া হয়। চিঠিটি বন্দর, কাস্টমস, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টসহ বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরে পাঠানো হয়েছে।

কাস্টমস ও বন্দর সূত্রে জানা যায়, চিঠিতে উল্লেখিত পণ্যগুলোর চালানে বেশি অনিয়ম হয়। এ ছাড়াও এসব পণ্যের মিথ্যা ঘোষণায় শুল্ককর ফাঁকির ঘটনাও ঘটে। এসব পণ্যে মোবাইল স্ক্যানিং চালুর ফলে পণ্য পাচার বন্ধ হবে।

বেনাপোল বন্দরের আমদানি-রফতানিকারক সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল হক জানান, বেশির ভাগ শিল্প কারখানার জরুরী কাঁচামাল এ বন্দর দিয়ে আমদানি হয়। ব্যবসায়ীরাও চান এসব পণ্য আমদানিতে স্ক্যানিং চালু হোক। তবে তাদের আশঙ্কা এ নিয়মের ফলে বাণিজ্যে ধীরগতি দেখা দিতে পারে।

বেনাপোল বন্দর পরিচালক (ট্রাফিক) আমিনুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, স্ক্যানিংয়ের জন্য আমদানিকারকদের নির্দিষ্ট হারে অর্থও পরিশোধ করতে হবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃ কমলগঞ্জে যৌতুকের কারণে এক গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক নির্যাতন করে ঘরে তালা দিয়ে আটকে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে। নির্যাতিতা গৃহবধূকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।অভিযোগ ও পরিবারসূত্রে জানা গেছে, কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের উত্তরভাগ গ্রামের মৃত আজিদ মিয়ার মেয়ে সালমা বেগমের সাথে একই উপজেলার ভানুবিল গ্রামের মোঃ ফজর মিয়ার ছেলে এখলাছ মিয়ার সাথে বিয়ে দেয়া হয়।

বিয়ের সময় তাদের সাধ্যমত পাত্রকে যৌতুক দেয়া হয়। মেয়ে ভালো থাকার জন্য বিয়ের পরও বিভিন্ন সময় স্বামীর চাহিদামত টাকা দেয়া হতো সালমার পরিবার থেকে। এরপরেও বিভিন্ন সময় যৌতুকের দাবিতে সালমাকে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহষ্পতিবার(২৮জুন) স্ত্রী সালমা বেগমকে পিতার বাড়ি থেকে একলক্ষ টাকা যৌতুক আনার জন্য বললে সে অপারগতা প্রকাশ করে। এরপরই শ্বশুরবাড়ির লোকজনের নির্দেশে তার উপর নেমে আসে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক শারীরিক নির্যাতন। নির্যাতন করে ঘরে অজ্ঞান অবস্থায় রেখে তালা দিয়ে রাখা হয় নির্যাতিতা সালমাকে।

শুক্রবার সকালে  প্রতিবেশীদের মাধ্যমে খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য কে,মনীন্দ্র কুমার সিংহ ও বশির বক্সকে নিয়ে সালমার বাপের বাড়ীর লোকজন তাকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। স্ত্রীকে নির্যাতনের পর থেকেই স্বামী এলখাছ মিয়া পলাতক রয়েছে। ইউপি সদস্য কে,মনীন্দ্র কুমার সিংহ ও বশির বক্স ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও এলখাছ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ ঘটনায় সালমা বেগমের বড় ভাই কামাল মিয়া শুক্রবার দুপুর দুইটায় কমলগঞ্জ থানায় স্বামীসহ ৪জনের বিরুদ্ধে কমলগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোকতাদির হোসেন পিপিএম জানান, অভিযোগ পাওয়া সাপেক্ষ তদন্দক্রমে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,হাবিবুর রহমান খান:   মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলার সেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রত‌্যয় ফাউন্ডেশনের সার্বিক ব‌্যবস্থাপনায় ও ঝিনাইদহের গনমানুষের নেতা সাইদুল করিম মিন্টু পাঠানো ত্রান সহায়তা পৌছে দেয়া হয়।

আজ( ২৯ জুন)শুক্রবার কুলাউড়া উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়ন পরিষদের অন্তর্গত কাউকাপন গ্রামের প্রায় শতাধিক পরিবারের হাতে।পরে একই উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের বন‌্যায় বিধ্বস্ত এবং ভেঙ্গে পড়া ১০টি পরিবারের হাতে প্রত‌্যয় ফাউন্ডেশন যুক্তরাজ‌্য ও সৌদি শাখার উদ‌্যোগে নগদ অর্থ ও খাদ‌্য সহায়তা তুলে দেয়া হয়।
কাউকাপন এলাকার বন‌্যা দূর্গত মানুষের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন ঝিনাইদহের মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু,এসময় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস‌্যগন উপস্থিত ছিলেন।তিনি আগামী বন‌্যার্ত মানুষের পাশে দাড়ানোর দৃঢ় প্রত‌্যয় ব‌্যক্ত করেন।এবারের ত্রান বিতরনসহ প্রত‌্যয় ফাউন্ডেশন টানা তিনবার বন‌্যার্ত মানুষের নিকট ত্রান সহায়তা পৌছে দিলো।

যুক্তরাজ‌্য ও সৌদি শাখার তথা ত্রান বিতরনের সময় উপস্থিত ছিলেন,প্রত‌্যয় ফাউন্ডেশনের নিবার্হী পরিচালক মো:মিফতাহ আহমেদ লিটন,সৈকত তরুন সংঘের প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারন সম্পাদক মো:কয়ছর আহমেদ,প্রত‌্যয় ফাউন্ডেশনের কো-অর্ডিনেটর মো: তারেকুল ইসলাম,সাইফুর রহমান,আকরাম খান সুমন,শিপন চাষা,মুরসালিন আকিব রিফাত,নাসিম আহমেদ,রোহেল আহমেদ,সোহেল আহমেদ,মাসুম আহমেদ,মুজিবুর রহমান,মইন উদ্দিন,আব্দুস সালাম,ফখরুল ইসলাম,আব্দুল মালিক,জমসেদ মিয়া,যুক্তরাজ‌্য শাখার সভাপতি আশফাকুর রহমান ওয়েছ ও সৌদি আরব শাখার সভপতি আব্দুল আলীম সেলুর প্রতি প্রত‌্যয় ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে ধন‌্যবাদ জানানো হয়।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের লোহাগড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আশরাফ শেখ (৩৫) নামে এক রাজমিস্ত্রির মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২৯ জুন) সকাল ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

প্রতিবেশিরা জানান, লোহাগড়া পৌরসভার মাইটকুমড়া গ্রামের ওমর শেখের ছেলে আশরাফ শেখ সকালে তার ঘরের একটি ফ্যান মেরামত করছিলেন। ওই সময়ে বিদ্যুৎ না থাকায় স্লুইচ বন্ধ করতে ভুলে যান। মেরামত কালে বিদ্যুৎ আসলেই তিনি বিদ্যুতায়িত হন, পরিবারের সদস্যরা টের পেয়ে প্রতিবেশিদের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক মোঃ দেলোয়ার হোসেন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট আশরাফ শেখকে দেখার পর মৃত ঘোষনা করেন।
আশরাফ আলী পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। পরিবারে তার স্ত্রী ও তিনটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুন,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার মুহাজেরাবাদ এলাকার মোঃ জাহের আলীর ছেলে এক সন্তানের জনক মোঃ জুয়েল রানার (২৫) লাশ একই এলাকার লেবু বাগানের ঝোপ ঝাড়ের পাশ থেকে উদ্ধার করেছে স্থানীয় থানার পুলিশ।

জানা গেছে গ্রামের পার্শবর্তী এলাকা বিষামনির শচীন্দ্র বৈদ্যের মার্কেটের “জুয়েল টেলিকম” এর মালিক জুয়েল প্রতিদিনের ন্যায় দোকানের কাজ শেষে বিশ্বকাপ খেলা দেখে রাতে মহাজেরাবাদ পশ্চিম পাড়া বেগুনবাড়িতে তার নিজ বাড়িতে চলে যান।

গত রাতে ঘটনার আগে খেলা দেখে দোকান বন্ধ করে গভীর রাতে বাড়িতে ফেরার কথা থাকলেও  ফিরেনি।আজ শুক্রবার সকাল ৮ টার দিকে তার মৃত দেহ তাদের বসত বাড়ির অদূরে সড়কের পাশে লেবু বাগানের ঝোপ হতে হাত-পা বাধা অবস্থায় মৃতদেহটি উদ্ধার করে। মৃতদেহের হাত-পা, মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে লাঠির আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেন।

শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে এম নজরুল বলেন, নিহত জুয়েলের মাথায় ও কপালে আঘাত করে গলায় শ্বাস রোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে তাৎক্ষনিক একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আমরা হত্যাকারীকে সনাক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্তা নিচ্ছি।

আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯জুনঃ   জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) এ বিষয়ে ডিপিই মহাপরিচালক আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, সম্প্রতি শেষ হওয়া ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৪’ লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে এ ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

তিনি বলেন, লিখিত পরীক্ষার খাতা সম্পূর্ণ কম্পিউটারাইজডভাবে মূল্যায়ন করা হয়েছে। নির্ভুলভাবে খাতা মূল্যায়ন হওয়ায় কাউকে নম্বর কম-বেশি করে দেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, পরীক্ষায় পাস করে দেয়ার লোভ দেখিয়ে প্রার্থীরা কারো সঙ্গে কোনো লেনদেন করবেন না।

মহাপরিচালক আরো বলেন, লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করার দুই সপ্তাহের মধ্যে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা শুরু করা হবে। মৌখিক পরীক্ষা কয়েকটি ভাগে এক সপ্তাহের মধ্যে মৌখিক পরীক্ষা শেষ করা হবে এবং দুই মাসের মধ্যেই চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে।

তিনি বলেন, দ্রুত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংকট দূরীকরণ করা হবে। এ লক্ষ্যে চলমান নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পরেই নতুন করে আরো ১০ থেকে ১২ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। স্থগিত হওয়া সহকারী শিক্ষক ২০১০ সালের এই নিয়োগ কার্যক্রম শেষ হলেও পরবর্তী নিয়োগের কার্যক্রম শুরু করা হবে বলেও জানান তিনি।

নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ও যাবতীয় তথ্য www.dpe.gov.bd এই ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

গত ২০ এপ্রিল প্রথম ধাপের শিক্ষক নিয়োগ লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। সেখানে প্রায় দুই লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা গত ১১ মে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রায় তিন লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। তৃতীয় ধাপের ২৬ মে প্রায় দুই লাখ এবং শেষ ধাপে ১ জুন প্রায় দুই লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc