Tuesday 19th of June 2018 08:07:49 PM

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫ মার্চ,মশহুদ বকস নাজমুলঃ   রোববার এই প্রথমবারের মত পুর্ব লন্ডনের ব্রাডি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল মহাসমারোহে “সিলেট উৎসব”। বৃটেনের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দুপুর দুইটা থেকে আগত অতিথিরা ব্রাডি সেন্টারে জড়ো হতে থাকেন। উপছে পড়া ভিড় সামাল দিতে আয়োজকদের রীতিমত হিমশিম খেতে হয়।

বাংলাদেশের হাইকমিশনার টাওয়ার হামলেটের মেয়রসহ গুনী ব্যক্তবর্গ উপস্হিত হয়ে “সিলেট উৎসব”কে প্রানবন্ত করে তুলেন। পুর্ব লন্ডনের ব্রাডি সেন্টার সিলেটিদের মিলন মেলায় পরিনত হয়। মুনিরা পারভিন এর পরিচালনায় পুরো অনুস্টানটি প্রানবন্ত ছিল এবং গান ফ্যাশন শো স্টলও  ছিল।

স্হানীয় শিল্পীরা গান গেয়ে দর্শকদের মাতিয়ে তুলেন। আগত অতিথিরা সিলেট উৎসবে যোগ দিতে পারায় আনন্দিত এবং আয়োজকদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫ মার্চঃস্বাধীনতার মাস উপলক্ষে সুরমা পাড়ের সামাজিক যুব সংঘ সিলেটের উদ্যোগে নগরীর দক্ষিণ সুরমার ২৫নং ওয়ার্ডের মোমিনখলা এলাকায় শুক্রবার সন্ধ্যায় এক আলোচনা সভা ও হত দরিদ্রদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সুরমা পাড়ের সামাজিক যুব সংঘ ২৫নং ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি মোছাঃ কাজল বেগমের সভাপতিত্বে ও জেলা সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফখরুল ইসলাম শান্ত’র পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ১ম প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান লোদী (কয়েছ লোদী)।

সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী, বিশিষ্ট সমাজসেবী, শিক্ষানুরাগী ও কমিউনিটি নেতা আব্দুল মুবিন তাপাদার। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন ১৪নং ওয়ার্ডের সম্ভাব্য কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হাজী হাবিবুর রহমান মজলাই। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট ব্যাংকার ও সমাজসেবী গজনফর আলী, ২৫নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আশিক আহমদ।

আরও বক্তব্য রাখেন সুরমা পাড়ের সামাজিক যুব সংঘ সিলেট জেলা সভাপতি আব্দুল জলিল আহমদ, সহ সভাপতি মোঃ শাহজাহান আহমদ লিটন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিন, সমাজসেবী জহুরুল ইসলাম মখর, সংঘের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরইকান্দি ইউপির ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার সৈয়দ মুমিনুর রহমান সুমিত, প্রচার সম্পাদক মোছাঃ জোসনা আক্তার, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আতিকুর রহমান রাজন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বাউল হাবিব দেওয়ান, সমাজকর্মী ফারজানা আক্তার নাম্মী, রতœা বেগম, পারভীন খান, আবুল বশর, ২৫নং ওয়ার্ড শাখার সম্পাদক মনি আক্তার।

সভা শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন গাজী সিরাজুল ইসলাম সুরকী।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রেজাউল হাসান লোদী বলেন, সুরমা পাড়ের সামাজিক যুব সংঘ সিলেটের হত দরিদ্র মানুষের জীবন মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। এই সংঘ ইতিমধ্যে নগরীর বিভিন্ন স্থানে শীতবস্ত্র বিতরণ করে দুঃস্থ মানুষের পাশে দাড়িয়েছে। তাদের এই মহতী উদ্যোগে সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে। তিনি সুরমা পাড়ের সামাজিক যুব সংঘের মানব সেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখার আহবান জানান এবং সংঘকে সার্বিক সহযোগিতার ও পাশে থাকার আশ্বাস প্রদান করেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫ মার্চ,শংকর শীল,চুনারুঘাট থেকেঃহবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সভাপতি ও চুনারুঘাট বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হোসেন আকল মিয়ার স্মারণে শোক সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ উপলক্ষ্যে সোমবার সকাল ১০টায় চুনারুঘাট এনামুল হক মোস্তফা শহীদ অডিটোরিয়াম প্রাঙ্গণে চুনারুঘাট উপজেলা আহলে সুন্নাতওয়াল জামাত, ইসলামী ফ্রন্ট, ছাত্রসেনা, যুবসেনার উদ্যোগে আয়োজিত শোকসভায় চুনারুঘাট আহলে সুন্নাতওয়াল জামাতের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওঃ মুসলিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক এস.এম সুলতান খান এবং দুলাল মিয়ার যৌথ পরিচালনায় শোকসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুনারুঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু তাহের।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক পিপি ও চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. আকবর হোসাইন জিতু, চুনারুঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব লুৎফুর রহমান মহালদার, চুনারুঘাট পৌরসভার মেয়র নাজিম উদ্দিন শামছু, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ কে.এম আজমিরুজ্জামান, হবিগঞ্জ আহলে সুন্নাতওয়াল জামাতের সভাপতি মাওঃ শাহজালাল আহমদ আখঞ্জি, ইসলামী ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতা মাওঃ সোলাইমান খান রাব্বানী, চুনারুঘাট হাজী আলিম উল্লা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওঃ এ.কে আফছার আহমদ তালুকদার, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল জাহির, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব আব্দুস ছামাদ, চুনারুঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম রুবেল, চুনারুঘাট অনলাইন প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাসুক মিয়া মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক ফারুক মিয়া, চুনারুঘাট সিএনজি মালিক সমিতির সভাপতি কাদির সরকার, চুনারুঘাট বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আলহাজ্ব ছিদ্দিকুর রহমান মাসুদ, আদমপুর গাউছিয়া সুন্নীয়া মাদ্রাসার সুপার মাওঃ আঃ কাইয়ুম তরফদার, গোগাউড়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওঃ মোহাম্মদ আলী, মাওঃ রফিকুল ইসলাম জাফরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল সালাম তালুকদার।

সভায় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, আলহাজ্ব আবুল হোসেন আকল মিয়ার পুত্র নাজমুল ইসলাম বকুল, মাওঃ মোশাহিদ আলী, মাওঃ মতিউর রহমান হেলালী, মাওঃ মামুনুর রশিদ প্রমুখ। শোকসভায় বক্তারা- আলহাজ্ব আবুল হোসেন আকল মিয়ার খুনিদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

সভায় চুনারুঘাট থানার ওসি কে.এম আজমিরুজ্জামান বলেন, আগামী ২ দিনের মধ্যে খুনিদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন। পরে নিহতের মাগফিরাত কামনা করে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মিলাদ ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন, চুনারুঘাট হাজী আলিম উল্লা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওঃ এ.কে আফছার আহমদ তালুকদার এবং মিলাদ শেষে তাবারুক বিতরণের মধ্য দিয়ে শোকসভা সমাপ্ত হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫ মার্চ,বেনাপোল প্রতিনিধি: দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন, নিউজ ২৪ এর বেনাপোল প্রতিনিধি ও বিশিষ্ঠ সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী আলহাজ্ব বকুল মাহবুব এর বাড়ীতে ডাকাতির ঘটনার নিন্দা ও ডাকাতদের আটকের দাবীতে সোমবার দুপুরে বেনাপোল কাষ্টম হাউসের সামনে মানববন্ধন কর্মসুচি ও আলোচনা সভা করেছেন শার্শা উপজেলা সাংবাদিক সমাজ। প্রেসক্লাব বেনাপোলের সভাপতি আলহাজ্ব মহাসিন মলিনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ প্রতিদিনের আলহাজ্ব বকুল মাহবুব, একুশে টিভির আলহাজ্ব জামাল হোসেন, সমকালের সাজেদুর রহমান, যমুনা টিভির রাশেদুর রহমান রাশু, বাংলাদেশ সময়ের এনামুল হক, এটিএন বাংলার আহম্মদ আলী শাহিন, স্পন্দনের শেখ কাজিম উদ্দিন, সময় টিভির আজিজুল হক প্রমুখ।
বেনাপোলে মানববন্ধনে উপজেলার সকল সাংবাদিকরা অংশ গ্রহন করেন। সাংবাদিক নেতারা এসময় বলেন আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ডাকাতদের আটক করে আইনের আওতায় আনতে না পারলে আগামী ১২ মার্চ হতে সাংবাদিকরা কলম বিরতী পালনসহ কঠোর কর্মসুচির ডাক দিবেন।
উল্লেখ্য ১০/১৫ জনের একটি ডাকাত দল শনিবার গভীর রাতে বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ ২৪ এর বেনাপোল প্রতিনিধি বকুল মাহবুব এর বাড়ীর দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে। এসময় বকুল মাহবুব, তার স্ত্রী ও ছেলেকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আলমারী থেকে ৪০ ভরি সোনা ও নগদ ২ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,,০৫ মার্চ,শংকর শীল,চুনারুঘাট থেকেঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি ও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের সভাপতি প্রবীন মুরব্বী আলহাজ্ব আবুল হোসেন আকল মিয়া (৬৮) হত্যা মামলার সকল আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে চুনারুঘাট মধ্যবাজারে চুনারুঘাট বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে বিশাল মানব বন্ধন পালন করেছেন।

৫ মার্চ সোমবার  বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত পৌর এলাকার সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে দোকান মালিক ও কর্মচারীসহ সকল স্তরের মানুষ মানববন্ধনে অংশ নেন। পরে মানববন্ধন এক জনসভায় পরিণত হয়।

ব্যবসায়ী আলহাজ্ব সালাম তালুকদারের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন চুনারুঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, পৌর মেয়র নাজিম উদ্দিন, সাবেক পিপি আকবর হোসেন জিতু, হবিগঞ্জ ব্যকস এর সভাপতি মোঃ শামছুল হুদা, চুনারুঘাট ব্যকস এর সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান মাসুদ, চুনারুঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জামাল হোসেন লিটন, যুগ্ম সম্পাদক ও ইকরা টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ ইসমাইল হোসেন বাচ্চু, হাজী আলীম উল্লার মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আফছার আহমেদ তালুকদার, শাছুল উলুম কওমী মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা জহুর আলী, সিসিটিএন এর পরিচালক মোঃ নাছির উদ্দিন, মাওলানা আতাহার আলী, আজগর আলী, মোঃ শফিউল আলম জুয়েল, সাজিদুল ইসলাম সাজিদ, বিলাল আহমদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, একজন আকল মিয়াকেই খুন করা হয়নি চুনারুঘাটের সকল মানুষকে খুন করা হয়েছে। অবিলম্বে খুনিদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না দেয়া হলে আরও কঠিন কর্মসূচী দেয়া হবে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ  অগ্নিঝরা উত্তাল মার্চের পঞ্চম দিন আজ। ঢাকায় চতুর্থ দিনের মতো টানা হরতাল পালিত হয়। বাঙালির আন্দোলন ক্রমেই সশস্ত্র প্রতিরোধে রূপ নিতে শুরু করে। এদিন পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের গুলিতে টঙ্গী শিল্প এলাকায় চার শ্রমিক শহীদ হন।

আহত হন ২৫ শ্রমিক। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ঢাকাসহ সারা দেশের জনগণের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। জনরোষের মুখে সন্ধ্যায় সেনাবাহিনী সদস্যদের ব্যারাকে ফিরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়।

এদিন চলমান আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে কবি-সাহিত্যিক, লেখক-সাংবাদিকরা পৃথক ব্যানারে ঢাকায় বিক্ষোভ মিছিল করেন। ঢাকা থেকে প্রকাশিত প্রতিটি দৈনিক সরকারি নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে পাকিস্তানি বাহিনীর নিষ্ঠুরতার চিত্র ও খবর প্রকাশ করে।

সরকারি শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে পরিচালিত সংগ্রামের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে নির্বাচিত নেতৃত্বের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানানো হয়।

বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ অনুযায়ী এদিনও দেশের সব সরকারি-বেসরকারি অফিস, আদালত বন্ধ ছিল।

তবে সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য ব্যাংক এবং অন্যান্য অফিস ২ ঘণ্টার জন্য খোলা রাখা হয়। রাজপথে বিক্ষুব্ধ জনতার ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের মুখে অনেকটাই অসহায় ছিল সরকারি বাহিনী। পূর্ব পাকিস্তানের গণবিস্ফোরণের অভিঘাতে আন্দোলিত হয় পশ্চিম পাকিস্তানের রাজনৈতিক পরিবেশও।

রাওয়ালপিন্ডিতে পিপিপি নেতা জুলফিকার আলী ভুট্টো ও তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের মধ্যে ৫ ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে তারা বঙ্গবন্ধু ও তার নেতৃত্বে পরিচালিত আন্দোলন সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্য করেন। গণ আন্দোলন ও নেতৃত্ব সম্পর্কে ভুট্টো-ইয়াহিয়ার কটূক্তিতে বিপুল তেজে জ্বলে ওঠে ঢাকা অঞ্চল।

গণবিস্ফোরণ প্রশমন করতে না পারার প্রেক্ষাপটে পূর্ব পাকিস্তানের সামরিক আইন প্রশাসক জেনারেল সাহেবজাদা ইয়াকুব খান চাকরিতে ইস্তফা দেন। তার পদে নতুন নিয়োগ পান জেনারেল টিক্কা খান। এদিকে, এদিন বিকালে করাচি থেকে ঢাকায় আসেন অবসরপ্রাপ্ত এয়ার ভাইস মার্শাল আসগর খান।

ঢাকায় নেমেই তিনি চলে যান বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির বাসভবনে। সেখানে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বৈঠকে বসেন তিনি। বৈঠক শেষে আসগর খান বলেন, সংখ্যাগুরু দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে দেশের সংহতি রক্ষা করা অপরিহার্য। তবে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী আসগর খানের এ বক্তব্য উপেক্ষা করেন।

পাকিস্তান সরকারের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত রাখার পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের প্রতিক্রিয়া যেভাবেই বিচার করা হোক না কেন, তা অত্যন্ত অবাঞ্ছিত এবং আদৌ যুক্তিযুক্ত নয়।

এদিন ১১ দফা আন্দোলনের অন্যতম নেতা তোফায়েল আহমদ ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দান থেকে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সরাসরি সম্প্রচার করার জন্য ঢাকা বেতার কেন্দ্রের প্রতি আহ্বান জানান।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ    লেখক ও অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে বিভিন্ন বিভাগের প্রায় তিন হাজার শিক্ষার্থী। রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় ক্যাম্পাসে মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করে।

‘স্যারের উপর হামলা কেন প্রশাসন জবাব চাই’, ‘সাস্টিয়ান সাস্টিয়ান এক হও এক হও’, ‘আমার ক্যাম্পাসে হামলা কেন প্রশাসন জবাব চাই’ প্রভৃতি স্লোগান নিয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ করতে দেখা যায়।

হামলাকারী ও ‘হোতাদের’ দ্রুত বিচারের আওতায় আনতে শিক্ষার্থীরা গণস্বাক্ষর সংগ্রহের পাশাপাশি গতকাল  সন্ধ্যায় মৌন মিছিল করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট দুপুরে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন করেন।

এছাড়ও ঢাকার শাহবাগে বিক্ষোভ করেছে গণজাগরণ মঞ্চসহ কয়েকটি সংগঠন। হামলার খবর ছড়িয়ে পড়লে শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে সমবেত হন গণজাগরণ মঞ্চ ও প্রগতিশীল জোটের নেতাকর্মীরা।

‘সচেতন নাগরিক সমাজ’ ব্যানারে সাংবাদিক-সাহিত্যিকদের একটি দলও প্রতিবাদ জানাতে উপস্থিত হন সেখানে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সংগঠন ‘শ্লোগান একাত্তর’র সদস্যরাও সেখানে জড়ো হন।

রাত ৮টার দিকে মশাল নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন তারা। শাহবাগ থেকে মিছিলকারীরা টিএসসির দিকে যান, রাজু ভাস্কর্য ঘুরে আবার শাহবাগে এসে মিছিল শেষ করেন তারা।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ “আমাদের অনেক কিছু করার বাকি আছে। অনেক কিছু প্রমাণ করার বাকি আছে। আমরা কতটুকু ভালো করতে পারি এ সংস্করণে একটা প্রশ্নবোধক চিহ্ন আছে, এ সংস্করণের আমাদের শক্তিমত্তা নিয়ে। এটা আমাদের জন্য খুব ভালো একটা প্লাটফর্ম নিজেদের প্রমাণ করার জন্য”

সাম্প্রতিক সময়ে হারের বৃত্তেই ঘুরপাক খাচ্ছে বাংলাদেশ দল। তারপরও নিদাহাস ট্রফি নিয়ে আশায় বুক বাঁধছেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। টুর্নামেন্টে শুরুটা জয়ে হলে মোমেন্টাম নিজেদের পক্ষে ঘুরে দাঁড়াবে। আর সেই মোমেন্টামই পুরো টুর্নামেন্টে দলকে দারুণ কিছু করার জ্বালানি জোগাবে বলে বিশ্বাস করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

সাকিব আল হাসান চোটের কারণে দলের বাইরে থাকায় দলের পারফরম্যান্সে দারুণ প্রভাব পড়েছে। তবে দেশসেরা ক্রিকেটারকে ছাড়াই আসন্ন টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রমাণ করতে চান মাহমুদউল্লাহ। জানালেন, নিজেদের কাজটুকু ঠিকমতো করতে পারলে বাংলাদেশ পৌঁছাতে পারবে কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে।

পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলতে গেল দুই সপ্তাহ দুবাই ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। সেখান থেকে কলম্বোয় দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও শনিবার মধ্যরাতে হুট করেই ঢাকায় ফেরেন টাইগার দলের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক। এরপর গতকাল দুপুর ১টার ফ্লাইটে দলের সঙ্গে কলম্বোর উদ্দেশে দেশ ছেড়ে যান। বিমানবন্দরে সংবাদ মাধ্যমকে নিজেদের লক্ষ্যের কথা জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ, ‘লক্ষ্য অবশ্যই টুর্নামেন্ট জেতা। সবার ব্যক্তিগত সেরাটা যদি আমরা আদায় করে নিতে পারি, আমার মনে আমাদের খুব ভালো কিছু অর্জন করা সম্ভব।’

ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার কাছে বাংলাদেশ বাজেভাবে হেরে যাওয়ার পর চারদিক দিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের শক্তি ও সামর্থ্য নিয়েও রয়েছে প্রশ্ন। নিদাহাস ট্রফিতে নিজেদের নামের পাশ থেকে সেই প্রশ্নবোধক চিহ্ন মুছে দেওয়ার চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন টাইগার দলপতি, ‘আমাদের অনেক কিছু করার বাকি আছে। অনেক কিছু প্রমাণ করার বাকি আছে। আমরা কতটুকু ভালো করতে পারি এ সংস্করণে, একটা প্রশ্নবোধক চিহ্ন আছে, এ সংস্করণে আমাদের শক্তিমত্তা নিয়ে।

এটা আমাদের জন্য খুব ভালো একটা প্লাটফর্ম নিজেদের প্রমাণ করার জন্য।’ নিজেদের প্রমাণ করতে অবশ্যই সবাইকে সেরা ক্রিকেট খেলতে হবে বলে জানান মাহমুদউল্লাহ- ‘সবার ব্যক্তিগত সেরাটা দিতে পারলে আমাদের খুব ভালো কিছু অর্জন করা সম্ভব।’ আগের দিন মিরপুর শেরেবাংলায় টাইগার দলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান কোচ কোর্টনি ওয়ালশ সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, ফাইনাল খেলার লক্ষ্য নিয়েই শ্রীলঙ্কা যাচ্ছেন তারা। গতকাল মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠেও ছিল একই সুর। যদিও এর জন্য শুরুটা ভালো করতে হবে বলে মনে করেন তিনি, ‘আমাদের জন্য শুরুটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সবসময়ই বিশ্বাস করি শুরুটা ভালো হলে আমরা মোমেন্টামটা পাব। সেটা কাজে লাগিয়ে পরের ম্যাচগুলোয় ভালো খেলা সম্ভব।’

নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত ও শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশ অবশ্য আলাদা করে কাউকে নিয়ে ভাবছে না, ‘প্রতিপক্ষ মানেই তার সঙ্গে লড়াই করতে হবে। যেখানেই খেলা হোক, দল হিসেবে ভালো খেলতে হয়। শেষ সিরিজে আশানুরূপ পারফর্ম করতে পারিনি। তবে যেহেতু উপমহাদেশের পরিবেশ, বেশ অনেকবার শ্রীলঙ্কায় খেলার অভিজ্ঞতাও আছে, ইনশাল্লাহ সব মিলিয়ে আমরা ভালো কিছু করতে পারব।’

ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের পর টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে ছিলেন না সাকিব। ইনজুরির অবস্থা ভালো না হওয়াতে সাকিব শেষ পর্যন্ত নিদাহাস ট্রফি থেকেও ছিটকে গেছেন। সব মিলিয়ে এবারও সাকিবের অভাব স্পষ্ট হয়ে ধরা দেবে।

সাকিবের অনুপস্থিতি নিয়ে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘সাকিবকে মিস করা অবশ্যই দলের জন্য ক্ষতিকর। ও চ্যাম্পিয়ন খেলোয়াড়, অপরিহার্য খেলোয়াড়। ওকে মিস করা মানে আমাদের কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পড়া। তারপরও আমাদের সবার জন্য ভালো কিছু করে দেখানোর সুযোগ থাকবে।’

“পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক ও পরিবার কল্যান সহকারী পদের শিক্ষাগত যোগ্যতা উন্নীতকরণসহ নিয়োগবিধি দ্রত বাস্তবায়নের দাবী”
আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মার্চ,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ    সারাদেশের ন্যায় শ্রীমঙ্গল পরিবার পরিকল্পনা মাঠ কর্মকারী সমিতির আয়োজনে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরাধীন চলমান নিয়োগবিধিসহ অন্যান্য জরুরী চাকুরীগত সমস্যার সমাধানের লক্ষে শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের সামনে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ পরিবার পরিকল্পনা মাঠ কর্মচারী সমিতি। সোমবার সকাল ১১টায় সংগঠনের শ্রীমঙ্গল শাখার সভাপতি ধীমান চন্দ্র বসাক এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল মিয়ার স ালনায় বক্তব্য রাখেন পরিবার পরিকল্পনা মাঠ কর্মকারী সমিতির মৌলভীবাজার জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদ, শ্রীমঙ্গল শাখার সহ সভাপতি খোকন মিয়া, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক জিয়াউল হোসেন, বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী, পরিবার কল্যান সহকারী নিয়তি রানী রায়, মঞ্জু রানী দে প্রমুখ।
মানববন্ধনে পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক ও পরিবার কল্যান সহকারী পদের শিক্ষাগত যোগ্যতা উন্নীতকরণসহ নিয়োগবিধি দ্রত বাস্তবায়নের দাবী জানানো হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ    কওমি সনদের সরকারি স্বীকৃতির পর এবার একযোগে এক হাজার ১০ জন ‘কওমি আলেম’ সরকারি চাকরিতে যোগ দেবেন সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সোমবার সকাল ১০টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বাস্তবায়নাধীন মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম (ষষ্ঠ পর্যায়) প্রকল্পের দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদরাসায় কওমি নেসাবের শিক্ষক হিসেবে তারা যোগদান করবেন।

বাংলাদেশের ইতিহাসে একসঙ্গে এত কওমি আলেমের সরকারি চাকরিতে যোগদানের ঘটনা এটাই প্রথম।

রোববার (৫ মার্চ) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর গত বছরের ১৩ এপ্রিল কওমি মাদরাসার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য বজায় রেখে ও দারুল উলুম দেওবন্দের মূলনীতিগুলোকে ভিত্তি ধরে কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে মাস্টার্সের (ইসলামিক স্টাডিজ এবং আরবি) সমমান দিয়ে আদেশ জারি করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যোগদান শেষে সব আলেমদের জন্য তিনদিনব্যাপী ওরিয়েন্টেশন প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। সোমবার বেলা আড়াইটায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব সাহানে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান কর্মশালার উদ্বোধন করবেন। এতে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বজলুল হক হারুন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, ধর্মসচিব মো. আনিছুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরসের গভর্নর মিছবাহুর রহমান চৌধুরী। এতে সভাপতিত্ব করবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল।