Friday 14th of December 2018 02:09:52 AM

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চঃ  বিশিষ্ট লেখক এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এর উপর ন্যাক্কারজনক হামলার প্রতিবাদে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেট প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছে আজ ৫ মার্চ সোমবার।

সিলেট কেন্দ্রীয় শহিদমিনারে বিকেল ৪টায় এ সমাবেশ অনুষ্টিত হবে।
এতে সকল সাংস্কৃতিককর্মীসহ সর্বস্তরের প্রগতিশীল মানুষকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন জোটের সভাপতি আমিনুল ইসলাম চৌধুরী লিটন ও সাধারণ সম্পাদক গৌতম চক্রবর্ত্তী।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোরের বেনাপোল দূর্গাপূর রোডে গত রাত ২টার দিকে দুই বাড়িতে ফ্যামিলির সকলকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত পা বেঁধে স্বর্ণ ও নগদ অর্থ সহ ২৫ লক্ষ টাকা ডাকাতি করে নিয়ে গেছে দূর্বত্তরা।

৩ রা মার্চ /১৮ইং শনিবার রাতে আনুমা‌নিক ২টার দিকে সাংবাদিক বকুল মাহবুব ও পার্শ্ববর্তী আমদানি কারক হাজী নজরুল ইসলাম বাড়িতে এই ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে।

বিশিষ্ট সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী ও বাংলাদেশ প্রতিদিন বেনাপোল প্রতিনিধি হাজী বকুল মাহবুব বলেন, প্রতিদিনের ন্যায় খাওয়া দাওয়া করে ঘুমায়ে পড়লে । রাতে আনুমা‌নিক ২টার দিকে ভবনের পিছনে দরজা ভেঙে ভিতরে ৭/৮ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল সকলের মুখে ডাব বাঁধা আমাদের কে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত পা বেঁধে স্বর্ণ-অলংকারসহ প্রায় ২০ লক্ষ টাকা ডাকাতি করে নিয়ে গেছে।

অপরদিকে একই রাতে পার্শ্ববর্তী বাড়ি সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী ও আমদানি কারক হাজী নজরুল ইসলাম এর বাড়িতে ২য় তালার জানালার গ্রীল কেটে ভিতরে প্রবেশ করে বাড়ীর লোকজনের হাত পা বেঁধে স্বর্ন ও নগদ অর্থ সহ প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকা ডাকাতি হয়েছে। দুই বারিতে মোট ২৫ লক্ষ টাকা ডাকাতি করে নিয়ে গেছে দূর্বত্তরা ।

এব্যাপারে ভুক্তভোগীরা বলেন কে বা কারা এ ডাকাতি করেছে আমরা কাহাকেও চিনতে পারেনি। তবে থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,চান মিয়া,ছাতক,সুনামগঞ্জ:   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারও সিলেটের বিশ্বনাথে একব্যক্তি দু’টি অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্টানে দায়িত্ব পালন করছেন। এনিয়ে দু’জেলার সর্বত্র ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। জানা যায়, বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজি ইউনিয়নের উদয়পুর গ্রামের সমশর আলীর পুত্র আব্দুল মুকিত লামাকাজি ইউপির রেজিস্ট্রার্ড নিকাহ রেজিষ্ট্রার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

একই ব্যক্তি দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের চামতলা ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার সহ-সূপার পদে কর্মরত রয়েছেন। অথচ চামতলা এলাকা থেকে লামাকাজির দূরত্ব হচ্ছে প্রায় একশ’ কিলোমিটারের অধিক।

একই সময়ে একই ব্যক্তি দু’কর্মস্থলে তিনি কিভাবে উপস্থিত থেকে দায়িত্ব পালন করেন তা- রহস্যজনক। যাহা মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন) বিধিমালা ২০০৯ (২০) এর পরিপন্থি। বিধিমালা ২০-এ বলা হয়, চাকুরি গ্রহণের ক্ষেত্রে বাঁধা-নিষেধ। কোন নিকাহ রেজিস্ট্রার তাকে যে এলাকার জন্য লাইসেন্স প্রদান করা হয়েছে সে- এলাকায় বা উক্ত এলাকা সংলগ্ন কোন ওয়ার্ড, পৌরসভা বা ইউনিয়নের কোন মসজিদ অথবা বেসরকারি স্কুল, কলেজ অথবা বেসরকারি মাদরাসা ব্যতিত অন্য কোথায়ও চাকুরি করতে পারবেনা।

কিন্তু এসব আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে তিনি দু’কর্মস্থলে চাকুরি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এব্যাপারে চামতলা মাদরাসার ছাত্রছাত্রীও অভিবাবকবৃন্দ গত ১৫ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এব্যাপারে আব্দুল মুকিত দু’কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন করছেন বলে স্বীকারোক্তি দিয়ে আপাতত ব্যস্ত থাকার অজুহাতে তিনি মোবাইলটি কেটে দেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,কমলগঞ্জ প্রতিনিধিঃকমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর সংরক্ষিত বনবিট এলাকার আগর বাগান থেকে কেটে সিএনজি অটোরিক্সায় পাচারকালে উপকার ভোগীদের সহায়তায় লক্ষাধিক টাকা মূল্যের আগর কাঠ জব্দ করে বন বিভাগ। এসময় অটোসহ আগর কাঠ পাচারকারীকে আটক করা হয়। শনিবার (২ মার্চ) রাত সাড়ে ১২টায় আদমপুর-কোনাগাঁও পাকা রাস্তায় এ ঘটনা ঘটে।

রোববার মৌলভীবাজার আদালতে বন আইনে আটক পাচারকারীর বিরুদ্ধে মামলা হয়। জানা যায়, একদল কাঠপাচারকারী শনিবার সন্ধ্যার পর আদমপুর বনবিটের আগর বাগানে প্রবেশ করে একটি আগর গাছ কেটে ৯ টুকরো করে একটি সিএনজি অটোরিক্সা(মৌলভীবাজার-থ ১১-৮১২২)-তে করে পাচার করছিল। এ সময় আগর বাগানের উপকারভোগী ও পাহারাদারসহ স্থানীয়রা সিএনজি অটোরিক্সাসহ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের ২৫ ঘনফুট চোরাই আগর কাঠ জব্দ করে পাচারকারীকে আটকে রাখে।

খবর পেয়ে আদমপুর বনবিট কর্মকর্তা মো: জহিরুল ইসলামের নেতৃত্বে বনকর্মীরা আদমপুর-কোনাগাঁও পাকা রাস্তা এলাকা থেকে সিএনজি অটোসহ জব্দকৃত আগর কাঠ উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা সদরের নছরতপুর গ্রামের ইউসুফ মিয়ার ছেলে জসিম উদ্দীন(৩৮) নামের এক পাচারকারীকে আটক করে। রাজকান্দি বনরেঞ্জ কর্মকর্তা মো: আবু তাহের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন পাচারকারী জসীম উদ্দিনকে রোববার মৌলভীবাজার আদালতে প্রেরণ করে তার বিরুদ্ধে বন আইনে রোববার(৪ মার্চ) মৌলভীবাজার আদালতে একটি মামলা করা হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চঃ   চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের বাল্লা আসামপাড়া গ্রামের ফারুক মিয়ার স্ত্রী মমিনা আক্তার (২৮) নামে গৃহবধু স্বামীর বসতঘরের তীরের সাথে গলায় ওড়না পেছিয়ে ফাঁস লাগিয়ে রহস্যজনক আত্মহত্যা করেছে।

জানা যায়,আজ রবিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের বাল্লা আসামপাড়া গ্রামের ফারুক মিয়ার স্ত্রী মমিনা আক্তার (২৮) স্বামীর বসতঘরের তীরের সাথে গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা চুনারুঘাট পুলিশকে খবর দিলে চুনারুঘাট থানার এস.আই কাশী চন্দ্র শর্মার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মমিনা আক্তারের লাশ উদ্ধার করে চুনারুঘাট থানায় নিয়ে আসে।

পরে দুপুরের দিকে মমিনা আক্তারের লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এখন পর্যন্ত এ ঘটনার সঠিক কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। এটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে নানান রহস্যজনক প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। ঘটনার পর থেকে মমিনা আক্তারের স্বামী ফারুক মিয়াসহ পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছে। মমিনা আক্তারের পিতার বাড়ি উপজেলার ২নং আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের দক্ষিণ গোছাপাড়া গ্রামে। তার পিতার নাম গোলাম হোসেন।

গত ১২ বৎসর পূর্বে উপজেলার বাল্লা আসামপাড়া গ্রামের ফারুক মিয়ার সাথে বিয়ে হয় মমিনা আক্তারের। মমিনা আক্তারের একটি ১০ বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে।

উল্লেখ্য যে, দীর্ঘদিন যাবত ধরে তাহার স্বামী ফারুক মিয়া যৌতুকের জন্য মমিনা আক্তারকে মারপিট করে আসছিল বলে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়।এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) : বিস্ময়কর হলেও সত্য নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের ছোট্ট একটি ফ্লাট বাড়ির চারিপাশ জুড়ে রয়েছে মৌমাছির অর্ধশত মৌচাক। এ বাড়িটিকে ঘিরে প্রতি মুহুর্ত হাজার হাজার মাছির আনাগোনা। মৌমাছি গুলো আবার আপন মনে মধু সংগ্রহ করে ফিরছে চাকে। বাড়ির মালিক বা প্রতিবেশিদের কাউকেই ক্ষতি করে না। গোটা বাড়ি জুড়েই মৌমাছির সমারাহো। এ যেন মৌমাছিদের এক মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। ইতোমধ্যে বাড়িটি এলাকার মানুষের কাছে মৌমাছির বাড়ি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।

নওগাঁর আত্রাই উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের আহমাদ আলীর বাড়ির ছাদ ও দেয়ালে প্রায় অর্ধ শতাধিক মৌমাছির চাক বসেছে। এসব মৌমাছি চাষ করা নয়, প্রাকৃতিকভাবেই চাক বসিয়ে বাড়িটিতে বাসা করে নিয়েছে মৌমাছিরা। এসব চাক থেকে বাড়ির মালিক দীর্ঘদিন ধরে মধু সংগ্রহ করে আসছেন। একতলা বিশিষ্ট বাড়ির নিচের ছাদের কার্ণিশ জুড়ে সারিবদ্ধ ভাবে মৌচাকগুলো সাজানো। প্রথমে দেখলে মনে হবে কোন নিপুন হাতের কারুকার্য্য।

এ বিষয়ে বাড়ির মালিক মো: আহমাদ আলী জানান, প্রায় তিন চার বছর ধরে তার বাড়িতে এরকম মৌমাছির চাক রয়েছে। তবে সরিষা মৌসুমে চাকের সংখ্যা বেড়ে যায় কয়েক গুণ। এসব মৌচাক থেকে শুধু সরিষা মৌসুমেই মধু সংগ্রহ করা হয় দুইবার। প্রতিবার প্রায় ৪০ থেকে ৫০ কেজি করে মধু সংগ্রহ করা হয়।। বৈশাখ ও জৌষ্ঠের খরতাপে ফুল ও পানি সল্পতার কারণে ৮ থেকে ১০টি মৌচাক থাকে। আষাড় ও শ্রাবন মাস আসলে আবারো ২০ এর অধিক মৌচাকের সংখ্যা বেড়ে যায় বলে জানালেন আম্মাদ আলী। তিনি আরো জানান, মধু সংগ্রহ ও সংরক্ষণের বিষয়ে কোনো প্রশিক্ষণ না থাকায় ভালোভাবে মধু সংরক্ষণ করতে ব্যর্থ হচ্ছেন তিনি। তবে মৌমাছি পরিচর্যা, মধু সংগ্রহ ও সংরক্ষণ বিষয়ে জানতে পারলে আরও বেশি পরিমাণে মধু সংগ্রহ করা সম্ভব হবে বলেও তিনি মনেকরেন। বিষয়টি সম্পর্কে এখনও কৃষি বিভাগের কেউ জানে কি না তাও জানা নেই তার।

এ ব্যাপারে আহমাদ আলীর স্ত্রী ছেলিনা খাতুনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, প্রতিদিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ঝাঁকে ঝাঁকে মৌমাছি মধু আহরণের জন্য ছুটে যায় আবার মধু নিয়ে চাকে ফিরে আসে। এ সময় সারা বাড়ি মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত হয়ে ওঠে। শুধু ঘরের বাহিরে না ঘরের ভিতরেও মৌমাছিরা বাসা বসতে চায়। কিন্তু বাচ্চাদের হুল ফোটাতে পারে এমন আশংকায় আমরা বসতে দিই না। তা নাহলে হয়তো গোটাবাড়িই মৌচাকে ভরে যেতো। তিনি আরো বলেন, মৌমাছির এ মনোমুগ্ধকর এ দৃশ্য দেখতে তাদের বাড়ির প্রতিদিন শত শত মানুষ ভিড় করছে। এতে তারা বেশ আনন্দিতও হন। মধুর চাক কাটতে অনেক মধু ব্যবসায়ীরা আসেন কিন্তু তারা দাম না দিয়ে চাক কেটে মধুর অর্ধেক ভাগ দিয়ে যান।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কে এম কাউছার হোসেন জানান, এ বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনা ও মৌমাছিদের জায়গা দিতে পারলে ব্যবসায়ীক ভাবে সফল হবেন আহমাদ আলী এমনটিই মনেকরেন এই কর্মকর্তা।

“মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের স্মৃতি নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে এ আয়োজন”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,নড়াইল প্রতিনিধিঃ মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নড়াইলের বিভিন্ন স্থানে সংগঠিত যুদ্ধের ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে ব্যতিক্রমী এক স্মরনানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। স্মৃতির মনিকোঠায় স্মরণীয় সেদিন ‘যুদ্ধযাত্রা-৭১ উদযাপন’ নামে দুদিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধারা ৭১ সালে যুদ্ধে অংশগ্রহণের সেই স্মৃতিগুলি তুলে ধরবেন।
রবিবার (৪ মার্চ) সকাল সাড়ে ১০টায় ‘‘যুদ্ধযাত্রা-৭১’’ ভবানিপুর,নড়াইলের এর আয়োজনে সদর উপজেলার ভবানীপুর আরবিএফ এম ভবানীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন বিপিএম। এসময় মুক্তিযুদ্ধের পতাকা উত্তোলণ করেন শহীদ মিজানুর রহমানের মাতা শহীদ জননী লোহাগড়া উপজেলার জয়পুর গ্রামের আকলিমা খাতুন।
এ উপলক্ষে বিদ্যালয় চত্বর থেকে একটি র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি স্থানীয় সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে এসে শেষ হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুদ্ধযাত্রা’৭১ এর সভাপতি ৭১’ বিএলএফ কমান্ডার (মুজিব বাহিনী) শরীফ হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন প্রধান অতিথি নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন বিপিএম, শহীদ মিজানুর রহমানের মাতা শহীদ জননী লোহাগড়া উপজেলার জয়পুর গ্রামের আকলিমা খাতুন, শহীদ মিজানুর রহমানের ভাই শেখ আমিনুর রহমান প্রমুখ।স্বাগত বক্তব্য দেন যুদ্ধযাত্রা ৭১’ এর সাধারণ সম্পাদক শরীফ আরিফ নাছির।
দুদিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে প্রথমদিন ভলিবল প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, জারীগানের আসর। দ্বিতীয় দিন ৫ মার্চের লাঠিখেলা, স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান, নৃত্যানুষ্ঠান, লালনগীতি এবং রাতে কবি গান।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ   দেশ বরেণ্য সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি  বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলদেশ পরিবার গভীরভাবে মর্মাহত ও ক্ষুদ্ধ ।

এই ঘটনার প্রতিবাদে নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর শিক্ষক-শিক্ষার্থী-কর্মকর্তা-কর্মচারী সমন্বয়ে এক ক্ষোভ ও প্রতিবাদ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডীন প্রফেসর ড.তোফায়েল আহমদের নেতৃত্বে প্রতিবাদ মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে তেলিহাওরস্থ ক্যাম্পাসে এসে শেষ হয়।

প্রতিবাদ মিছিলে আরো অংশ নেন প্রফেসর ডাঃ রঞ্জিত কুমার দে, সহযোগী অধ্যাপক মোঃ তানভীর আহমেদ চৌধুরী, সহকারী অধ্যাপক মোঃ শামসুল কবীর, সহকারী অধ্যাপক রথিন্দ্র চন্দ্র গোপ, ডেপুটি রেজিস্ট্রার শাহজাদা আল সাদিকসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।

“প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সযোগে ঢাকায়-পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন-জাফর ইকবাল ইসলামের শত্রু,তাই হামলা করেছি র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে হামলাকারী”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চ, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ    সুস্থ ও স্বাভাবিক আছেন জনপ্রিয় লেখক ও শিক্ষাবিদ, সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

বাংলাদেশ আর্মড ফোর্সেস-এর চিফ কার্ডিয়াক সার্জন অ্যান্ড কনসালটেন্ট সার্জন জেনারেল মেজর জেনারেল মুন্সি মো. মজিবুর রহমান সিএমএইচের অ্যাডমিশন ব্লকের তৃতীয় তলায় আজ রোববার সকাল ১১টায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

মজিবুর রহমান বলেন, জাফর ইকবাল সজ্ঞান, সচেতন ও আশঙ্কামুক্ত রয়েছেন। এছাড়া সংক্রমণ এড়াতে সিএমএইচে দর্শনার্থীদের প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। রোববার সকাল ৯টায় চিকিৎসকেরা তাকে দেখতে গিয়েছিলেন। তিনি সুস্থ আছেন, তার মানসিক অবস্থা ভালো এবং স্বাভাবিক কথাবার্তা বলছেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ড. জাফর ইকবালের চিকিৎসার জন্য পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রিপল-ই বিভাগের একটি অনুষ্ঠানে জাফর ইকবালকে  এক ব্যক্তি ছুরিকাঘাত করে। তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে ট্রিপল-ই বিভাগের একটি অনুষ্ঠান চলছিল। অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল ওই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে এসেছিলেন।

মঞ্চে বসা অবস্থায় ভিড়ের মধ্যে একজন তাকে ছুরিকাঘাত করে। ঘটনার পর আহত অবস্থায় জাফর ইকবালকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

সেখানে অস্ত্রোপচার করা হয় তার। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে জাফর ইকবালের অস্ত্রোপচার শেষ করা হলে তাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সযোগে ঢাকায় পাঠানো হয়।

অপরদিকে ধৃত হামলাকারী  প্রাথমিক ভাবে স্বীকার করে বলেছে যে  “জাফর ইকবাল ইসলামের শত্রু, তাই হামলা করেছি।” র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে হামলাকারী ফয়জুর রহমান এই কথা বলেছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাবকে বিভ্রান্তিকর তথ্য দিলেও, সে কোনো জঙ্গি সংগঠনের সদস্য কি না এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য জানা যায়নি।

নগরীর রাগীব রাবেয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে র‍্যাব-৯ এর সিইও লেফট্যানেন্ট কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমদ শনিবার দিবাগত রাতে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়ে বলেন, ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারী যুবককে চিকিৎসার জন্য সিলেট জালালাবাদ সেনানিবাসস্থ সামরিক হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। তার জ্ঞান ফিরেছে। তবে সে তার পরিচয় ঠিকভাবে বলছে না। তার নাম সে একবার বলে শফিকুর রহমান, আরেকবার ফয়জুর রহমান বলে জানিয়েছে।

তিনি আরো জানান, রাগীব রাবেয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে জ্ঞান ফেরার পর ওই যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে হামলাকারী বলেছে, ‘জাফর ইকবাল ইসলামের শত্রু, তাই তার ওপর হামলা করেছি।’

হামলাকারীর ফয়জুর রহমান (২৪) এর প্রাথমিক পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর রাতে বিশ্ববিদ্যালয় পাশ্ববর্তী কুমারগাঁওয়ের শেখপাড়ার বাড়িতে র‌্যাব ও পুলিশ তল্লাশি চালায়। এসময় বাড়িটি তালাবদ্ধ থাকায় কাউকে না পেলেও পার্শ্ববর্তী মামার বাড়ি থেকে তার মামা ফজলুর রহমানকে আটক করে পুলিশ।

এ বিষয়ে মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুর রহমান বলেন, ফয়জুর রহমানের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। পাশের বাড়ি থেকে মামাকে আটক করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ফয়জুর সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কালিয়াপন গ্রামের হাফিজ আতিকুর রহমানের ছেলে। পরিবারের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের পার্শ্ববর্তী কুমারগাঁওয়ের শেখপাড়ার থাকতেন তিনি।

স্থানীয়রা জানান, ফয়জুর মাদ্রাসায় পড়ালেখা করেছেন। তিনি মঈন কম্পিউটার নামে একটি দোকানে কাজ করতো। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের একটি দল সিলেট গেছে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য জাফর ইকবালকে ঢাকায় নেওয়া হয়েছে। শনিবার রাত ১০টা ২৩ মিনিটে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সযোগে তাকে ঢাকায় নেওয়া হয়। ঢাকা সিএমএইচে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রিপল-ই বিভাগের একটি অনুষ্ঠানে জাফর ইকবালের ওপর হামলা করা হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৪মার্চঃদৈনিক  ভোরের  কাগজ  এর  স্টাফ  রিপোর্টার  এবং  একুশে  টিভির  মৌলভীবাজার  জেলা   প্রতিনিধি  বিকুল  চক্রবর্তীর  সঞ্চালনায়  বিশ্ব  বন্যপ্রাণী  সংরক্ষণ  দিবস  উপলক্ষে  গতকাল  সন্ধ্যা  ৭   ঘটিকায়  হবিগঞ্জ  রোডস্থ  শ্রীমঙ্গল  উপজেলা  প্রেসক্লাবে  এক  সেমিনার  অনুষ্ঠিত  হয় । উপজেলা  প্রেসক্লাবের  সভাপতি  অ্যাডভোকেট  এ এস  এম  আজাদুর  রহমান’র  সভাপতিত্বে  উক্ত  সেমিনারে  প্রধান  অতিথি  হিসেবে  উপস্থিত  ছিলেন  সহকারী  পুলিশ  সুপার  মো:  আশফাকুজ্জামান।

বিশেষ  অতিথি  হিসেবে  উপস্থিত  ছিলেন  সহকারী  বন  সংরক্ষন  কর্মকর্তা  মো: তবিবুর  রহমান, বাংলাদেশ  আওয়ামীলীগের  কেন্দ্রিয়  নেতা  মো:  আরিফুল  হাই  রাজীব,  সাবেক  পৌর  চেয়ারম্যান  সাপ্তাহিক  শ্রীভুমি  পত্রিকা’র  প্রকাশক  বীর  মুক্তিযোদ্ধা  এম. এ. রহিম , বালাগঞ্জ  ডিগ্রি  কলেজের  সহকারী  অধ্যাপক  অবিনাশ  আচার্য্য।

উক্ত  সেমিনারে  বিশ্ব  বন্যপ্রাণী  সংরক্ষন  দিবসের  তাৎপর্য  তুলে  ধরে  বিষয়  ভিত্তিক  বক্তব্য  রাখেন  ডেইলি  ইন্ডাস্ট্রি’র  উপজেলা  প্রতিনিধি  দ্বারিকা  পাল  মহিলা  ডিগ্রি  কলেজ  এর  সহকারী  অধ্যাপক  রজত  শুভ্র  চক্রবর্তী,  লাউয়া  ছড়া  বন  ও  জীববৈচিত্র  রক্ষা  আন্দোলন  কমিটির  আহ্বায়ক   দ্বারিকা  পাল  মহিলা  ডিগ্রি  কলেজ  এর  প্রভাষক  জলি  পাল,  নি: স্বর্গ  ইকো  কটেজের  সত্বাধিকারী  মো:  শামসুল  ইসলাম,  গ্রীণলীফ  ইকো  ট্যুরিজম  এন্ড গেষ্ট  হাউজের  ব্যাবস্থাপক  এস. কে. দাশ  সুমন।
এছাড়া  উক্ত  আলোচনা  অনুষ্ঠানে  শ্রীমঙ্গল  উপজেলা  ছাত্রলীগের  নেতৃবৃন্দ  সহ  আমন্ত্রিত  অতিথিবৃন্দের  অংশগ্রহণে  সেমিনার  টি  মুক্ত  আলোচনায়  রুপ  নেয়।  বক্তারা  দেশের  বনজ  সম্পদ  রক্ষা   এবং  বন্যপ্রাণীর  অভয়ারণ্য  সংরক্ষণের  উপর  গুরুত্ব  আরোপ করেন।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc