Tuesday 18th of September 2018 08:04:50 PM

“শেখ হাসিনার অধীনে সংবিধান অনুযায়ী আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে-উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ,কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ জাতীয় সংসদের সাবেক চিফ হুইপ ও সরকারি প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়ন সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি বলেছেন, শেখ হাসিনার অধীনেই সংক্ষধান অনুযায়ী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে। সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সাংবাদিকদের ভূমিকা অপরিসীম। তিনি সৎ ও বস্তুনিষ্টভাবে সংবাদ পরিবেশন করার জন্য সাংবাদিকদেও প্রতি আহবান জানান।

উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি শনিবার বিকেলে হীড বাংলাদেশ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক কমলগঞ্জের কাগজ পত্রিকার ৬ষ্ঠ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা, কেক কাটা ও গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। এক পর্যায়ে অনুষ্ঠানটি সাংবাদিকদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। সাংবাদিক ছাড়াও শিক্ষক, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

সাপ্তাহিক কমলগঞ্জের কাগজ পত্রিকার উপদেষ্টা ও উপজেলা বিআরডিবি চেয়ারম্যান মোঃ ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল এর সভাপতিত্বে ও প্রধান সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের প্রাণবন্ত উপাস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাহমুদুল হক, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এম মোসাদ্দেক আহমেদ মানিক, কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোকতাদির হোসেন পিপিএম, মুন্সীবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালিব তরফদার, জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন, লেখক ও গবেষক আহমদ সিরাজ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাপ্তাহিক কমলগঞ্জের কাগজ এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. জুয়েল আহমেদ। আলোচনা অনুষ্টান শেষে প্রধান অতিথিসহ আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে কেক কাটেন পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক-প্রকাশক মো. জুয়েল আহমেদ ও প্রধান সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান। কেক কাটার আগে সুধীজনরা পত্রিকাটির অগ্রগতি কামনা করে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

আলোচনায় অংশ নেন শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজিত রায়, সাধারন সম্পাদক এম ইদ্রিছ আলী, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি এম এ ওয়াহিদ রুলু, সহ সভাপতি সমকাল প্রতিনিধি প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, যুগান্তর প্রতিনিধি আব্দুর রাজ্জাক রাজা, মৌলভীবাজার জেলা পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোহাইমীন মিল্টন, কমলকুঁড়ি সম্পাদক পিন্টু দেবনাথ, চা মজদুর সম্পাদক সীতারাম বীন, আমাদের সময় প্রতিনিধি শাব্বির এলাহী, ঊষার বাণী প্রতিনিধি মো. আসহাবুর ইসলাম শাওন, ভোরের ডাক প্রতিনিধি জয়নাল আবেদীন, সিলেটের ডাক প্রতিনিধি সুব্রত দেবরায় সঞ্জয়, মৌলভীবাজার অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি মোশাহিদ আলী, কমলগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি এস, এ, চৌধুরী, পৌর কাউন্সিলর মো: আনোয়ার হোসেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সম্পাদক মো: সালাউদ্দিন, উপজেলা প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি মামুনুর রশীদ ভূঁইয়া, সম্পাদক মোশাইদ আলী, প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল মালিক বাবুল, সমাজসেবক এবিএম আরিফুজ্জামান অপু, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাহাত ইমতিয়াজ রিপুল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সাপ্তাহিক কমলগঞ্জের কাগজ পত্রিকার পক্ষ থেকে প্রধান অতিথি উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি ও লেখক-গবেষক আহমদ সিরাজকে গুণীজন হিসেবে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ,আলী হোসেন রাজন মৌলভীবাজারঃ  কুলাউড়া উপজেলার ছকাপন রেলস্টেশনে শনিবার ৩১ মার্চ দুপুর সাড়ে ১২ টায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাতনামা ৪০ বছর বয়সী এক মহিলার হয়েছে। রেলওয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে। এনিয়ে মাত্র ৩দিনের ব্যবধানে ট্রেনে কাটা পড়ে ৪ জনের মৃত্যু হলো।
কুলাউড়া রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আব্দুল মালেক জানান, দুপুরের দিকে কোন একটি ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে ছকাপন রেলস্টেশনের কাছে অজ্ঞাতনামা নারীর মৃত্যু হয়। স্থানীয় লোকজন বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করলে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, এর আগে ৩০ মার্চ কুলাউড়া উপজেলার রাউৎগাঁও ইউনিয়নের নর্তন এলাকায় প্রেমের কারণে জয়ন্ত ও সন্ধ্যা নামক ২ চা শ্রমিক শিক্ষার্থীর সহমরণ হয়। এবং ২৯ মার্চ মাত্র কুলাউড়া উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা তাসকিরা নামক এক গৃহবধু কমলগঞ্জের গোপালনগর রেলক্রসিংয়ে ট্রেনে কাটা। যদিও তার মৃত্যুকে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড হিসেবে শ^শুড়বাড়ির ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ,আলী হোসেন রাজন,মৌলভীবাজারঃমৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ৩১ মার্চ শনিবার দুপুর ২টা থেকে শহরের কোর্ট রোডস্থ প্রেসক্লাব ভবনে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন দৈনিক কালের কণ্ঠের স্টাফ রিপোর্টার আব্দুল হামিদ মাহবুব ও সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন দেশ টিভির জেলা প্রতিনিধি সালেহ এলাহী কুটি।

সকাল ১০টা থেকে প্রেসক্লাবে সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর শুরু হয় ভোট গ্রহণ। বিকেল ৪টার দিকে ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনার অ্যাড. আব্দুল মছব্বির। নির্বাচনে মোট ৩১ জন ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

নির্বাচনে সহ সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন এটিএন বাংলার সৈয়দ মহসিন পারভেজ, বাংলাভিশনের সৈয়দ হুমায়েদ আলী শাহিন, যুগ্ম সম্পাদক পদে শেখ সিরাজুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম মুহিব, কোষাধ্যক্ষ পদে ডিবিসি নিউজের পান্না দত্ত।

এর আগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন সাপ্তাহিক পূর্বদিক সম্পাদক মুজাহিদ আহমদ, দপ্তর সম্পাদক পার্থ সারথী পাল ,ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মাহবুবুর রহমান রাহেল, সদস্য পদে মো.আজাদুর রহমান, বকশী মিছবাহুর রহমান, দেওয়ান মুক্তাদির গাজী ,শ.ই সরকার জবলু, আহমদ আফরোজ।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ, হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ   হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে সমালোচিত স্কুল ছাত্রী বিউটি আক্তার হত্যা ও ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি বাবুল মিয়াকে অবশেষে সিলেট থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার (৩১ মার্চ) সকালে বাবুল মিয়াকে সিলেট থেকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে বিউটি হত্যাকাণ্ডের দুই আসামিকে আটক করে পুলিশ।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শায়েস্তাগঞ্জের ব্রাহ্মনডোরা গ্রামের সায়েদ আলীর কন্যা ও স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী বিউটি আক্তার (১৫) এর সঙ্গে একই গ্রামের মলাই মিয়ার ছেলে বাবুল মিয়ার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বাবুল গত ২১ জানুয়ারি বিউটিকে জোর করে অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে কৌশলে বিউটিকে তার বাড়িতে রেখে পালিয়ে যায়।
এ ঘটনায় ১ মার্চ বিউটি আক্তারের বাবা সায়েদ আলী বাদী হয়ে বাবুল ও তার মা ইউপি সদস্য কলম চাঁনের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। মামলাটি ৪ মার্চ শায়েস্তাগঞ্জ থানায় প্রেরণ করা হলে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে।
পরে সায়েদ আলী ১৬ মার্চ বিউটি আক্তারকে লাখাই উপজেলার গুনিপুর গ্রামে তার নানার বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। ওই রাতেই বিউটি আক্তার নানার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। অনেক স্থানে খোঁজাখুজির পর কোথাও না পেয়ে পরের দিন ১৭ মার্চ সকালে শায়েস্তাগঞ্জ হাওরে বিউটি আক্তারের লাশ পাওয়া যায়। এরপর থেকে বাবুল পলাতক রয়েছে।

বিউটিকে হত্যা ও ধর্ষণের অভিযোগে পরদিন তার বাবা বাদী হয়ে বাবুল মিয়া ও দুই জনসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে ২১ মার্চ পুলিশ বাবুলের মা ইউপি সদস্যা কলম চাঁন ও ঈসমাইল নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশ।
অন্যদিকে কিশোরী বিউটি আক্তারের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় পুলিশ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। বৃহস্পতিবার তিন সদস্যের ওই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।
হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা এ কমিটি গঠন করেন।
এ কমিটির প্রধান করা হয়েছে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আ স ম শামছুর রহমান ভূঞাকে। অপর দুই সদস্য হলেন, হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলা সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা এবং হবিগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার (হেডকোয়ার্টার) নাজিম উদ্দিন।
পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে মতামতসহ বিস্তারিত প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জে উপ-নির্বাচন চলাকালে আ’লীগ প্রার্থী,স্বতন্ত্র প্রার্থী সমর্থক ও পুলিশের মধ্যে সংর্ঘষে ঘটনায় ২শত জনের বিরোদ্ধে পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের করেছে।

গত শুক্রবার রাতে রিগেন,নাঈম ও রাজিব সহ ১২জনের নাম উল্লেখ্য করে অজ্ঞাত ২শত জনের বিরোদ্ধে দায়ের করা হয়েছে। একাধিক সূত্রে জানাযায়,এ মামলার আসামী সকলেই স্বতন্ত্র প্রার্থী গনিউল সালাদিনের সমর্থক।

মামলা দায়ের পর এপর্যন্ত কাউকে পুলিশ গ্রেফতার করে নি।সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ জানান,সরকারী কাজে বাধা ও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় এ মামলা দায়ের করা হয়েছে।

উল্লেখ্য,গত শুক্রবার সুনামগঞ্জ পৌরসভায় উপ-নির্বাচনে শহরের উত্তর আরফিন নগড় পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট গ্রহন চলাকালে সরকার দলীয় প্রার্থী নাদের বখত ও স্বতন্ত্র প্রার্থী গনিউল সালাদিনের সমর্থক এবং পুলিশের সাথে ঘন্টা ব্যাপী সংর্ঘষ হয় এতে পুলিশ সহ ১৫জনের অধিক আহত হয়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩১মার্চ,নিজস্ব প্রতিনিধিঃশ্রীমঙ্গলে নতুনবাজার দক্ষিণ রোডস্থ পুকুর পাড়ে গড়ে উঠা মার্কেটে অগ্নীকান্ডে পুড়ে গেছে প্রায় ১০টি দোকান। ক্ষতি হয়েছে কয়েক লক্ষাধিক টাকার মালামাল। স্থানিয় ফায়ার সার্ভিসসহ জেলার ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিট ঘন্টাধিক কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন বলে সুত্রে  জানা গেছে।
মৌলভীবাজার ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো: শফিকুল ইসলাম ভুইয়া, এ প্রতিনিধিকে জানান, শুক্রবার রাত ১১টার দিকে শ্রীমঙ্গল নতুনবাজারের পেছনে নির্মিত মার্কেটে লেপতোষকের দোকান থেকে অগ্নীকান্ডের সুত্রপাত হয়ে তা আশে পাশের দোকান গুলোতে ছড়িয়ে পড়ে। এতে কমপক্ষে ১০টি দোকানের আনুামানিক ১৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। তবে পুড়ে যাওয়া কয়েকটি দোকানের মালিক উপস্থিত না থাকায় ক্ষতির সঠিক হিসেব জানাতে পারেননি ওই কর্মকর্তা।
স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বলছেন ক্ষতির পরিমান আরও অনেক বেশি হবে। রেলওয়ের পুকুর ভরাট করে গড়ে উঠা মার্কেটে পুড়ে যাওয়া দোকান গুলোর মধ্যে ছিলো তুলার মিল,পানের আরৎ, চা পাতার গোডাউন,মুদির মালের দোকান,বিভিন্ন গোডাউনসহ আরও কয়েকটি দোকান।কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা সঠিক তদন্তের পর জানা যাবে বলে জানায়  শ্রীমঙ্গল পুলিশ।
স্থানিয় একটি সুত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়,অপরিকল্পিত ভাবে রেলওয়ে সম্পত্তি পুকুর ভরাটের মাধ্যমে দখল করে যে যেমনে পাড়ে মার্কেট বানানোর ফলে  আবারো আগুনে অনেক ক্ষতি হয়েছিল এবারো হয়েছে, আগামিতে আরও বড় ধরণের ঝুঁকি আসতে পারে।  স্থানিয় প্রশাসনকে জরুরী প্রদক্ষেপ নেওয়া উচিত বলে অনেকেই মনে করেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ    রেলওয়ে সিলেট রোডে উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় আদিবাসী প্রেমিক তরুণ-তরুণী ‍আত্মহত্যা করেছে।

জেলার কুলাউড়ায় উপজেলার রাতগাঁও ইউনিয়নের নর্থন এলাকায় শুক্রবার (৩০ মার্চ) ভোরে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে দুপুর দেড়টার দিকে কুলাউড়া রেলওয়ে পুলিশ মরদেহ দু’টি উদ্ধার করে।

নিহতরা হলো- উপজেলার মেরিনা চা বাগানের বাসিন্দা এভেন মারাকের মেয়ে সন্ধ্যা সাংমা (১৭) ও একই এলাকার আলেকজান্ডারের ছেলে জয়ন্ত রুরম (১৮)। নিহতদের মধ্যে সন্ধ্যা সাংমা দিলদারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ও জয়ন্ত রুরম কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

এলাকাবাসী জানায়, ভোরে ঢাকা থেকে সিলেটগামী উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন নর্থন এলাকা অতিক্রমকালে একাধিকবার হর্ন বাজাতে শোনা যায়।

ধারণা করা হচ্ছে, এসময় তারা আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। তাদের দু’জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে এলাকাবাসী জানায়।

কুলাউড়া রেলওয়ে পুলিশের এসআই মো. মনির হোসেন জানান, নিহতরা গারো সম্প্রদায়ের। ধারণা করা হচ্ছে, তারা আত্মহত্যা করেছে। তাদের সঙ্গে থাকা দু’টি মোবাইল ফোন ঘটনাস্থলে পাওয়া গেছে। মরদেহ দু’টি ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠনো হয়েছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,নিজস্ব প্রতিবেদক,সুনামগঞ্জঃ  সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় সরকারী বরাদ্ধের ১০টাকা কেজির খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চাল ১৩৫কার্ড সুবিধা ভোগীদের কাছে বিক্রি না করে কালো বাজারে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে দুই ডিলারের বিরোদ্ধে। তারা হলেন,উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির দুই ডিলারের মধ্যে এক জন বাদাঘাট ওর্য়াড আ,লীগ সাবেক সভাপতি ও ডিলার মহিবুর রহমান চৌধুরী ও উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রার অফিসের দলিল লেখক ও ডিলার জয়নাল আবেদিন। এই খবর প্রকাশ পাওয়ারপর এলাকায় আলোচনা-সমালেঅচনার ঝড় উঠেছে।

স্থানীয় একাধিক সুত্রে ও এলাকাবাসীর অভিযোগে জানাযায়,সরকার গরীব ও দুস্থ মানুষের সুবিধার্থে উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে ১হাজার ৬০জনের নামের তালিকা অনুমোদন করেন। এর মধ্যে ৯২৫টি কার্ডধারীর নিকট ঐ ডিলারগন চাল বিক্রি করেন। কিন্তু বাকী ১৩৫টি কার্ড ধারী নামে উত্তোলিত করা চাল গোপনে নিজেদের কাছে রেখে গোপনে প্রতি বারেই সরকারী ডিওর চাল বিক্রি করে কালো বাজারিদের কাছে দিগুন দামে। এর ফলে ঐ সব সুবিধা ভোগীরা সরকারের দেওয়া সুবিধা ভোগ করতে পারে নি। ফলে তাদের মাঝে চরম ক্ষোব বিরাজ করছে।

১০টাকা কেজি চাল পাওয়া থেকে বঞ্চিতরা হলেন,উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের লাউড়েরগড় গ্রামের আব্দুল কাইয়ুম (৪৩৪৮),খোকন (৪৩৫০),জাহেরা বেগম (৪৩১৪),ফারুক মিয়া (৪৩৪৯),ফয়জুর রহমান (৪৩১৫),আব্দুল মুকিত (৪৩৩৬),ছাত্তার উদ্দিন (৪৫৪৬),বিন্নাকুলি গ্রামের আব্দুল হান্নান (৪২৮০),মিনহাজ উদ্দিন (৪৪৩৯),আকলিমা (৪২১১),কুকিলা (৪২৭৭),আমজাদ আলী (৪৪৪৯),সাধনা বেগম (৪৪০৭),আরফিন (৪৪৬৮),শফিকুল (৪৪৬০),জালাল মিয়া (৪৪৪৬),নরপুর গ্রামের হিরা মিয়া (৩৯৪২),কুনাট ছড়া গ্রামের ফজলুল হক (৩৯৪৮),জুলেকা (৩৯৪৭),পাঠান পাড়া গ্রামের মোহাম্মদ জহুর (৪২২৭),শফিক (৪৩৬১০),নোয়াগাও গ্রামের আবু বক্কর (৩৭০৬),হেলেনা (৩৭০৫),নাগরপুর গ্রামের রইছ উদ্দিন (৩৭৭২),শাহাব উদ্দিন (৩৭৭৫),কামড়াবন্ধ গ্রামের মিন্টু (৪৭২৮),শফিকুল (৩৯৫১),জৈতাপুর গ্রামের রশিদ (৪৬৯৬),ঘাঘড়া গ্রামের জয়নাল অঅবেদীন (৪৭১৭),রুশনারা খাতুন (৪৫৬৫),সবুজ মিয়া (৪৭০৮),আলী হোসেন (৪৫০৩) প্রমুখ।

এলাকাবাসী ও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানায়,বাদাঘাট ইউনিয়নের খাদ্যবান্ধ কর্মসূচির এই দুই ডিলার ৩০কেজি চালের বস্তা ৩শত টাকার স্থলে সুবিধা ভোগীদের কাছে ৩শত ৫০টাকা বিক্রি করেছেন। ২০১৬সালের সেপ্টেম্ভর থেকে এ পর্যন্ত ঐ ১৩৫টি কার্ডের সুবিধা ভোগীদের চাল উত্তোলন করেছে ঠিকেই কিন্তু সুবিধা ভোগীদের না দিয়ে গোপনে কালো বাজারীদের কাছে দিগুন দামে বিক্রি করে আসছে।

সঠিক ভাবে তদন্ত করলে এর সত্যতা প্রমানিত হবে। আর যদি সরকার দলীয় লোক হওয়ার কারনে ছাড় পেয়ে যায় তাহলে ত সব কিছু শুন্য। এই বিষয়ে ডিলার বাদাঘাট ওর্য়াড আ,লীগ সাবেক সভাপতি ও ডিলার মহিবুর রহমান চৌধুরী তাদের বিরোদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,আমরা কোন অনিয়ম করে নি। সঠিক ভাবে চাল বিতরন করেছেন তিনি।

উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রার অফিসের দলিল লেখক ও ডিলার জয়নাল আবেদিন বলেন,প্রতি চালের ৫০টাকা বেশি নেওয়া কথা  অস্বীকার করেন। সাথে সাথে তাদের বিরোদ্ধে আনা  অভিযোগ অস্বীকার করেন।

তাহিরপুর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আনোয়ারুল হক বলেন,চাল বিতরনের সময় আমি এখানে ছিলাম না। খোজঁ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব ডিলারদের বিরোদ্ধে ।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,নড়াইল প্রতিনিধিঃ   নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার লাহুড়িয়ার খান ব্রিকস এর মালিক খান কামরুজ্জামান কোমরকে গুলি করে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, বৃহস্পতিবার (২৯ মার্চ) রাত সাড়ে ১১টার দিকে লাহুড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনের থেকে একই গ্রামের মিল্টন জমাদ্দার গুলি করে হত্যার চেষ্টা চালায়। খান কামরুজ্জামানের ডানপাশের পিঠে গুলিবিদ্ধ হয়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় কামরুজ্জামান তার বাড়িতে গেলে পরিবারের সদস্যরা দ্রুত নড়াইল সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। সেখানে রাত ২টার দিকে অস্ত্রোপাচার সম্পন্ন হয়। ইটভাটা নিয়ে ব্যবসায়িক দ্বন্দ্ব ও বিগত ইউপি নির্বাচনের রেশ ধরে হত্যার চেষ্টা চালাানো হয়েছে বলে আহতের পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেন।

লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, খবর শোনার পরই তিনি নড়াইল সদর হাসপাতালে ছুটে আসেন এবং নিরাপত্তা সহ চিকিৎসার ব্যাপারে খোঁজখবর নেন। ব্যবসায়িক দ্বন্দের জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে বিষয়টি নিয়ে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে এবং ঘটনার সাথে জড়িতদের যত দ্রুত সম্ভব আটকের চেষ্টা চলছে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাই উপজেলার মহাদিঘী রেলব্রিজের পার্শে খাদের উপর বাঁশের সাঁকোটি এলাকাবাসীর জন্য পরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। নড়বড়ে এ সাঁকো দিয়ে পারাপার হতে গিয়ে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন অনেক পথচারি। এমনকি অনেকে সাইকেল মটরসাইকেল নিয়ে এ সাঁকো পার হতে গিয়ে সাইকেল ও মটরসাইকেলসহ পানিতে পরে যাওয়ার নজিরও রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। এ এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি একটি ব্রিজ নির্মানের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আত্রাই উপজেলার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন একটি গ্রাম ভরমাধাইমুড়ি। আত্রাই এবং শাহাগোলার মাঝামাঝি স্থানে রেললাইন ঘেসা এ গ্রামের সাথে উপজেলা সদরের নেই কোন সংযোগ ব্যবস্থা। সহ¯্রাধিক লোকের বসবাস। এ গ্রামে রয়েছে একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি কওমী মাদ্রাসা ও দুইটি মসজিদ। এ গ্রাম এবং মহাদিঘী দিঘীরপার গ্রামের লোকজনদের উপজেলার সাথে যোগাযোগের নেই কোন ব্যবস্থা।

বর্ষাকালে নৌকার কোন বিকল্প নেই। শুস্ক মৌসুমে পায়ে হাঁটারও কোন পথ ছিল না। গত বিএনপি জোট সরকারের আমলে আত্রাই-নওগাঁ-নাটোর আ লিক মহাসড়ক নির্মাণের জন্য রেললাইনের পশ্চিম দিয়ে মাটি কাটায় ওই গ্রামের লোকজনের পায়ে হাঁটার কোন রকম ব্যবস্থা হলেও রেলব্রিজ সংলগ্ন খাদে ব্রিজ না থাকায় তাদের দুর্ভোগ থেকেই যায়। সম্প্রতি রেলব্রিজের খাদে একটি বাঁশের সাঁকো তৈরি করা হলেও তা প্রশস্ত এবং টেকসই না হওয়ায় মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। অথচ এ সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন শত শত শিক্ষার্থী, সাধারণ লোকজন ও সাইকেল মটরসাইকেল পারাপার হয়।

ভরমাধাইমুড়ি গ্রামের বিদ্যুৎ হোসেন বলেন, স্বাধীনতার ৪৭ বছর পেরিয়ে গেলেও আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থার কোন উন্নয়ন হয়নি। আমরা যুগ যুগ থেকে যোগাযোগের ক্ষেত্রে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছি। এ গ্রামে কোন যানবাহন ঢোকার পথ না থাকায় আমরা রোগীদের জরুরী চিকিৎসাসেবাও  দিতে পারিনা। আবার পরিবহন ব্যবস্থা না থাকায় আমাদের উৎপাদিত কৃষি পণ্যের নায্য মূল্যও আমরা পাইনা।

এ ব্যাপারে মহাদীঘি গ্রামের সৌরভ হোসেন জানান, আমাদের দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি মানুষের দুর্ভোগ দূর করার স্বার্থে একটি ব্রিজ নির্মাণের । এজন্য আমরা সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

আত্রাইয়ের মজিদ আর্টপ্রেসের সত্বাধিকারী খন্দকার আব্দুল মজিদ বলেন, মহাদিঘী খাদের উপর বাঁশের সাঁকোটি মরণফাঁদ। গত ২৪ মার্চ আমি ভরমাধাইমুড়ি থেকে আত্রাই আসার সময় এ বাঁশের সাঁকো থেকে মটরসাইকেলসহ পানিতে পড়ে যাই। এতে আমার অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এ ব্যপারে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান জানবক্স সরদার বলেন, এখানে বাঁশের সাঁকোর পরিবর্তে একটি স্থায়ী ব্রিজ নির্মাণ করা প্রয়োজন। এ ব্যাপারে আমি সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,মিজানুর রহমান দাম্মাম সৌদি আরব থেকেঃ যথাযোগ্য মর্যাদায় দাম্মাম বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটি দাম্মামের সভাপতি মোঃ আইয়ূব আলী খাঁনের সভাপতিত্বে সাধারন সম্পাদক মোঃ মোজাম্মেল হক ও খালেদ হাসান টিটুর মনোমুগ্ধকর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন সুদুর বাংলাদেশ থেকে আগত মাদারীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মিয়াজ উদ্দিন খাঁন।

বিশেষ অতিথি ছিলেন সৌদিআরবে নিযুক্ত লেবার কাউন্সিল দুতাবাস কর্মকর্তা মোঃ সারোয়ার আলম,প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান উপদেষ্টা মইন আহমদ, উপস্হিত থেকে বক্তব্য রাখেন আবকিক বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শাহ আলম ভুইয়া, প্রধান উপদেষ্টা আব্দুল মজিদ খান, আলী হোসেন , মোমেন আলী, সুমন আহমদ,বাবুল সর্দার,হাসান মাতব্বর,গবিন্দ সরকার,হান্নান বেগ,বোরজ শেখ সহ দাম্মামের বিভিন্ন ইউনিট কমিটি থেকে আগত নেতৃবৃন্দ।

বক্তাগন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে শেখ হাসিনা সরকারকে আবারও ক্ষমতায় বসানোর দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সভা শেষে রাতের নৈশভোজ ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

“বিশ্বে সন্ত্রাসবাদের প্রধান উৎস ওয়াহাবি মতবাদ এবং এর সমর্থক ও পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে সৌদি আরব”

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ   অবশেষে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমান মার্কিন দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টকে এক দেয়া সাক্ষাতকারে স্বীকার করেছেন, আমেরিকার আহ্বানে সাড়া দিয়ে রিয়াদ বিশ্বব্যাপী উগ্র ওয়াহাবি মতবাদ বিস্তারের কাজ করছে। তিনি বলেন, শীতল যুদ্ধকালীন সময়ের প্রাচ্য ব্লককে মোকাবেলা করা ছিল ওয়াহাবি মতবাদ বিস্তারের উদ্দেশ্য।

সৌদি যুবরাজ বিশ্বব্যাপী ওয়াহাবি মতবাদ বিস্তারে তার দেশের অর্থ সহায়তার কথা স্বীকার করে বলেছেন, সেদেশে তৎপর বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে মূলত এসব অর্থের যোগান আসে।সৌদি আরবে ক্ষমতাধর হয়ে উঠো সংস্কার কর্মসূচিসহ নানা পদক্ষেপ নিয়ে বিশ্বজুড়ে আলোচিত যুবরাজ মোহাম্মদ গত ২০ মার্চ যুক্তরাষ্ট্র সফর শুরুর পর ২২ মার্চ ওয়াশিংটন পোস্টকে ওই সাক্ষাৎকার দেন।

প্রকৃতপক্ষে, উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোর চিন্তা-চেতনার উৎসমূল হচ্ছে ধর্মের নামে সৃষ্ট বিকৃত ওয়াহাবি মতবাদ। এই মতবাদ মধ্যপ্রাচ্যসহ সারা বিশ্বে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনার প্রেরণা হয়ে উঠেছে এবং এর পেছনে রয়েছে সৌদি আরবের ভূমিকা। মুসলিম দেশগুলোতে উত্তেজনা, আতঙ্ক ও সাম্প্রদায়িক সংঘাত সৃষ্টি এবং মুসলিম দেশগুলোকে একে অপরের বিরুদ্ধে দাঁড় করানো ওয়াহাবি মতবাদের প্রধান উদ্দেশ্য। উগ্র ওয়াহাবিরা মুসলমানদের সব মাজহাবের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে এবং একমাত্র তারা ছাড়া অন্য সব মুসলমানকে বাতিলযোগ্য এমনকি কাফের বলে মনে করে।

ইবনে সউদসহ রাজপরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ইবনে আবদ আল ওয়াহাব (ডান থেকে দ্বিতীয়); তার পাশে (সবার ডানে) যুক্তরাজ্যের মেজর জেনারেল পার্সি কক্স (সংগৃহীত ছবি)

ওয়াহাবিরা যেহেতু কোনো ভৌগোলিক সীমা-রেখা মানে না তাই তারা সারা বিশ্বে বিকৃত এই মতবাদ ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। ওয়াহাবি মতবাদ ব্যবহার করে তাফকিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী সৃষ্টিতে সৌদি আরবের ভূমিকা এতটাই স্পষ্ট যে সংবাদ মাধ্যমগুলোতে এ নিয়ে প্রচুর লেখালেখি হচ্ছে। ব্রিটিশ দৈনিক টেলিগ্রাফ এক প্রতিবেদনে, উগ্র ওয়াহাবি চিন্তা-চেতনাকে সারা বিশ্বে সন্ত্রাসবাদ বিস্তারের প্রধান কারণ বলে উল্লেখ করেছে। দৈনিকটি আরো লিখেছে, মধ্যপ্রাচ্যে তৎপর উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশের আদর্শিক চিন্তা-চেতনার উৎপত্তি স্থল হচ্ছে ওয়াহাবি মতবাদ এবং সৌদি আরব এর মূল কেন্দ্র।
দায়েশ ছাড়াও জাবহাতুন নুসরা, আল কায়েদা, তালেবান প্রভৃতি গোষ্ঠীগুলোর আদর্শিক চিন্তা-চেতনার উৎসভূমি হচ্ছে সৌদি আরব। এই গোষ্ঠীগুলোর নেতাকর্মীরা সৌদি আরবের বিভিন্ন ধর্মীয় স্কুল বা মাদ্রাসা থেকে ওয়াহাবি মতবাদের প্রশিক্ষণ নিয়ে বিভিন্ন দেশে তা বাস্তবায়ন করছে। সন্ত্রাসীদের উৎসই হচ্ছে ওয়াহাবি মতবাদ এবং সৌদি আরব হচ্ছে এ মতবাদের রপ্তানিকারক দেশ। বিশ্বব্যাপী ভয়ংকর ওয়াহাবি মতবাদ বিস্তারে মার্কিন কর্মকর্তারাও যুক্ত হওয়ায় সারা বিশ্বের নিরাপত্তা আজ হুমকির মুখে রয়েছে।
আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক পল অটোয়াড মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে দায়েশ সন্ত্রাসীদের বিস্তারে আমেরিকা ও সৌদি আরবের হাত থাকার কথা উল্লেখ করে বলেছেন, সন্ত্রাসীরা মার্কিন পররাষ্ট্র নীতি বাস্তবায়নের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। মার্কিন দৈনিক হাফিংটন পোস্টও লিখেছে, বিশ্বে সন্ত্রাসবাদের প্রধান উৎস ওয়াহাবি মতবাদ এবং এর সমর্থক ও পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে সৌদি আরব। দৈনিকটি আরো লিখেছে, আমেরিকার উচিত এইসব সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ও তাদের পৃষ্ঠপোষক দেশগুলোকে সমর্থন দেয়া থেকে বিরত থাকা।
উল্লেখ্য দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রভাব বলয়ে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল পুরো বিশ্ব; ’৯০ এর দশকে সোভিয়েতের পতনের পর স্নায়ুযুদ্ধের অবসান ঘটে।

আফগানিস্তানসহ বিভিন্ন দেশে সোভিয়েতবিরোধী লড়াইয়ে উগ্র মুসলিম গোষ্ঠীগুলোতে অস্ত্র ও অর্থ দিয়ে মদদ জোগানোর অভিযোগ রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে।

স্নায়ু যুদ্ধের অবসানের পর মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন অঞ্চলে মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে ইসলামী নামধারী বিভিন্ন জঙ্গি গোষ্ঠী; যাদের অধিকাংশই ওয়াহাবি মতবাদে বিশ্বাসী ও দীক্ষিত, যাদের সালাফি,খারেজি ও বলা হয়।

মুসলিমদের প্রধান দুটি ধারার অন্যতম একটি ধারা সুন্নি মতাবলম্বিদের মধ্যে একটি বৃহৎ অংশ ওয়াহাবিবাদের কবলে তলিয়ে যায়। যার গোড়াপত্তন অষ্টাদশ শতকে আরবের নজদ থেকে মোহাম্মদ ইবনে আবদুল ওয়াহাবের মাধ্যমে প্রচারিত হতে থাকে। তিনি ছিলেন বার শতকের ইবনে তায়মিয়াহ দ্বারা প্রভাবিত,ইবনে তায়মিয়াহ ছিলেন মুক্ত মত চর্চার ঘোর বিরোধী।যাদের লেখায় ইসলামের ধারক ও বাহক নবী রাসুল (আঃ),অলি আওলিয়াদেরকে নানা ভাবে হেয় করা হয়েছে।
সৌদি সরকার বিশ্বজুড়ে উগ্র সন্ত্রাসীদের সবচেয়ে বড় সমর্থক ও পৃষ্ঠপোষক। আর রিয়াদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা বজায় রেখে ওয়াশিংটনও নিজের অশুভ লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করছে। সুত্রঃRT .com, amadershomoy.com ও পার্স টু ডে অবলম্বনে। 

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ   এবার আমেরিকার ৬০ জন কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে রাশিয়া। একই সঙ্গে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ এই বহিষ্কার ও কনস্যুলেট বন্ধ করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন।

তিনি বলেন, রাশিয়ার কূটনীতিকদের বহিষ্কারের পাল্টা জবাব হিসেবে মস্কো এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রাশিয়াও ৬০ জন মার্কিন কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে। সেন্ট পিটার্সবার্গে মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ৬০ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেন। একসঙ্গে সিয়াটলের রুশ কনস্যুলেট বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর জবাবেই রাশিয়া এই সিদ্ধান্ত নিল।

সাবেক রুশ গোয়েন্দা কর্মকর্তা সের্গেই স্ক্রিপাল ও তার মেয়েকে বিষপ্রয়োগের ঘটনায় রাশিয়ার হাত রয়েছে বলে গত সপ্তাহে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতারা একমত হন। তবে সলসবারির ওই ঘটনায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে রাশিয়া।

৪ মার্চ ব্রিটেনের সলসবারি শহরের একটি বিপণিকেন্দ্রের বাইরে বেঞ্চিতে সের্গেই ও তার মেয়েকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।পার্সটুডে

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,ডেস্ক নিউজঃ বাংলা উচ্চারণের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে দেশের পাঁচ বিভাগের ইংরেজি নামের বানানে পরিবর্তন আনছে সরকার। চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, বরিশাল, যশোর ও বগুড়া জেলার ইংরেজি নাম সংশোধনের প্রস্তাব প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি (নিকার) বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য প্রস্তুত করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। আগামী ২ এপ্রিল বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে।
প্রস্তাবনায় চট্টগ্রামের ইংরেজি বানান Chittagong সংশোধন করে Chattagram, কুমিল্লা জেলার বানান Comilla পরিবর্তে Kumilla, বরিশালের বানান Barisal থেকে Barishal, যশোরের বানান Jessore এর স্থলে Jashore এবং বগুড়া জেলার ইংরেজি বানান Bogra পরিবর্তে Bagura করার বিষয়ে বলা হয়েছে।
জেলার নামের বানান বাংলা উচ্চারণের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো বিধি বা নীতিমালা নেই। তবে নতুন বিভাগ, জেলা, উপজেলা ইত্যাদি সৃজন, নামকরণ ও নাম পরিবর্তনের বিষয়গুলো প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকা) সভায় অনুমোদন করা হয়ে থাকে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৯মার্চ,নড়াইল প্রতিনিধি:নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার আমাদা গ্রামে পুলিশের কাছ থেকে ছিনতাই হওয়া ৪ আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আটককৃতদের বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ মার্চ) দুপুরে নড়াইল পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেসব্রিফিং এ পুলিশ সুপার মোঃ জসিম উদ্দিন পিপিএম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

প্রেসব্রিফিং এ তিনি বলেন, গত সোমবার (২৬ মার্চ) ভোর রাতে পুলিশের কাছ থেকে ছিনতাই হওয়া ৪ আসামীকে জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলো লোহাগড়া থানার আমাদা গ্রামের সোহেল মল্লিক (২৩), রাঙ্গু খান (২৭), নাইস খানকে (২৫) ও কামালপ্রতাপ গ্রামের সোহেল মল্লিক (২০)। এ ঘটনায় কর্তব্যে অবহেলার কারনে লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ শফিকুল ইসলামকে কারণ দর্শাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
গত সোমবার (২৬ মার্চ) ভোর রাতে লোহাগড়া উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের আমাদা গ্রামে দাঙ্গা-হাঙ্গামার আসামীদের গ্রেফতারে লোহাগড়া থানা পুলিশ অভিযান চালায়। এসময় আসামীদের গ্রেফতারের পর আমাদা পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের মাইক থেকে গ্রামে ডাকাত পড়েছে বলে ঘোষণা করে আসামীপক্ষের লোকজন দেশিয় অস্ত্র নিয়ে পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে আসামীদের ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

গ্রামবাসীর হামলায় লোহাগড়া থানার এসআই গোবিন্দ আকর্ষন, এএসআই আনিসুজ্জামান, কাজী বাবুল ও বাবুল হাসান আহত হয়।
এ ঘটনায় সোমবার বিকালে লোহাগড়া থানার এসআই গোবিন্দ আকর্ষন বাদী হয়ে ২১ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৩০/৪০ জনকে আাসামী করে লোহাগড়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
উল্লেখ্য যে, জেলার লোহাগড়া উপজেলার আমাদা গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রায় আট মাস ধরে আবুল কাশেম খান সমর্থিত লোকজনদের সাথে একই গ্রামের আলী আহম্মেদ খান সমর্থিত লোকজনদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-সংঘাত ও সংহিসতা চলে আসছে।

  

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc