Tuesday 12th of December 2017 12:23:10 PM

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবরঃ  গতকাল বিকাল ৩ ঘটিকার সময় সিলেট নগরীর আম্বরখানাস্থ বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সমিতি (বাপসা)র অস্থায়ী কার্যালয়ে সিলেট জেলা শাখার এক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিষ্ণুপদ চৌধুরী সভাপতি মুস্তাফিজুর রব কে সাধারণ সম্পাদক এবং নারায়ন দেব নাথকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সমিতি (বাপসা) সিলেট জেলা শাখার ২০১৮-২০২০ সনের ত্রি-বার্ষিক কমিটি ঘোষনা করা হয়।

উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন ২নং গোলাপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সভাপতি কামরান উদ্দিন। সভায় (বাপসা) কেন্দ্রীয় কমিটি ও সিলেট জেলার নেতৃবৃন্দ এবং জেলার সচিববৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। প্রেসবিজ্ঞপ্তি

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার ফতেপুর গ্রামে প্রতিপক্ষের টর্চ লাইটের আঘাতে নিহত নুরুল ইসলাম (৫৫) এর ময়নাতদন্ত শেষে তার লাশ পরিবারের জিম্মায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ দিকে ঘটনার পর থেকে প্রতিপক্ষের লোকজন আত্মগোপন করেছে। ৬ অক্টোবর শুক্রবার বিকেলে ময়নাতদন্তের পর লাশ তার পুত্র জিয়াউর রহমানের নিকট হস্তান্তর করা হয়। সদর হাসপাতাল মর্গে লাশের সাথে আসা তার পুত্র জিয়াউর রহমান জানায়, দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের আওয়াল মিয়া, তার পুত্র নাসির মিয়া ও জমির মিয়ার সাথে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এর জের ধরে ভূমিদস্যুরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে।

গত বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে কেউ বাড়ি না থাকার সুযোগে উল্লেখিতরা তার পিতাকে উঠান থেকে ধরে নিয়ে যায়। পরে তাদের বাড়িতে নিয়ে মারধোর করে। এক পর্যায়ে লাইট দিয়ে মাথায় ও নাকে আঘাত করলে তার পিতা মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ওই বাড়িতে গিয়ে নুরুল ইসলামকে উদ্ধার করে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে আজমিরীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) কামরুল হাসানের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

এদিকে লাশের নাক দিয়ে রক্ত বের হতে দেখা যায়। ঘটনার পর থেকে উল্লেখিতরা আত্মগোপন করেছে। রাত সাড়ে ১০টায় এ রিপোর্ট লেখাকালে আজমিরীগঞ্জ থানার ওসি জানান, ময়নাতদন্ত শেষে থানা থেকে রাত ৯টার দিকে লাশ তার পরিবারের জিম্মায় হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে এখনো কোন মামলা হয়নি। তবে অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান চলছে। মৃত্যুর কারণ জিজ্ঞাস করলে তিনি জানান, তার পরিবারের দাবি হত্যা করা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ছাড়া মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে না।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের কালিশিরী হাজীবাড়ির প্রবাসী নজির মিয়ার স্ত্রী ফারজাহান আক্তার রুনার সাথে গত ৭ জুলাই গভীর রাতে একই বাড়ির আছমত আলীর পূত্র ইসমাইল নামের যুকককে আপত্তিকর অবস্থায় আটকের ঘটনায় এলাকায়  তোলপাড় চলছে।

পাওয়া তথ্য মতে,ঘটনার দিন রুনা তার বাবার বাড়ি  উপজেলার ১০নং মিরাশী ইউনিয়নের কমলপুরে পরকীয়া প্রেমিক ইসমাইল কে ঢেকে নেন এবং গভীর  রাতে  আপত্তিকর  অবস্থায়   জনতা দুজনকে আটক করে স্থানীয় মুরব্বিদের কাছে সোর্পদ করেন। পরে ইসমাইলের আত্বীয় স্বজন ঘটনা স্থলে গিয়ে ইসমাইলকে তাদের জিম্মায় নিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে প্রবাসী নজির মিয়া জানান, তার ৫ লক্ষ টাকা ও ৫ ভরিস্বর্ণ আছে রুনার কাছে। তিনি তার কষ্টার্জিত টাকাও স্বর্ণ ফেরত চান এবং সমাজের কাছে উপযুক্ত বিচারদাবী  করেন।

এলাকাবাসী জানান,এ পর্যন্ত  দুই বার রুনা ইসমাইলের সাথে অনৈতিক অবস্থায়  ধরা হয়েছে। উলেখ্য যে,২০০৯সালে মিরাশী ইউনিয়েনের রূপসপুর-কমলপুরের আঃ হাসিমের কন্যা ফারজাহান আক্তার রুনার বিয়ে হয় আহম্মদাবাদ ইউনিয়েনের কালিশিরী হাজীবাড়ির   আকবর   মিয়ার   পূত্র প্রবাসী  নজির মিয়ার সাথে।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,নাজমুল হক নাহিদ,আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাইয়ে এবারের বন্যায় বিধ্বস্ত রাস্তাঘাট এখন পর্যন্ত সংস্কার না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে। অনেক ক্ষেত্রে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত লক্ষ লক্ষ জনগণ এসব রাস্তা দিয়ে চলাচল করছে। যান চলাচল ও পায়ে হেঁটে চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় এসব রাস্তাঘাট এখন এলাকাবসীর জন্য মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার বন্যায় বিধ্বস্ত বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা যায়, এবার আত্রাই উপজেলায় স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যা হয়েছিল এবং ভয়াবহ বন্যায় উপজেলার ৮ ইউনিয়নে ফসল ও রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অধিকাংশ রাস্তাগুলো বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়ে যাওয়ায় বন্যার পানি নামার সাথে সাথে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন উপজেলার সকল স্তরের মানুষ। এসব রাস্তাঘাট দিয়ে প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। ঘটছে একের পর এক দুর্ঘটনা। জনগণের অভিযোগ এগুলো রাস্তা ঘাট সংস্কারে কর্তৃপক্ষের নেই কোন উদ্যোগ।

এদিকে বন্যায় বিধ্বস্ত সড়ক যোগাযোগের কারণে কৃষক তাদের ফসলের ন্যায্য মূল্য থেকে বি ত হচ্ছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা গুলোর মধ্যে রয়েছে উপজেলার সাহেবগঞ্জ হতে মধুগুড়নই হয়ে পাঁচুপুরের পাকা রাস্তা দুই জায়গা, পাঁচুপুর কালিবাড়ির রাস্তা, জাতআমরুল রাস্তা, আত্রাই টু কালিগঞ্জ রাস্তার কাশিয়াবাড়ি সুইচগেট সংলগ্ন স্থান, হাটকালুপাড়া গ্রামের রাস্তা, চকশিমুলিয়া, আত্রাই হতে কাশিয়াবাড়ি রাস্তার ভরতেঁতুলিয়া পোষ্ট অফিস সংলগ্ন রাস্তা, তারানগর, বাউল্লাপাড়া, বড় কালিকাপুর ও ক্ষিদ্রকালিকাপুর, বিষা ও ক্ষুদ্র বিষা।

এ সড়কগুলো সংস্কার না করায় আত্রাই উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলার লক্ষ লক্ষ মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। সড়কগুলোর সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলার সকল স্তরের জনগন। ফলে দিনের পর দিন জনসাধারণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এদিকে পাঁচুপুরের পাকা বিধ্বস্ত রাস্তাটি সংস্কার না হওয়ায় আধা কিলোমিটারের রাস্তা প্রায় তিন কিলোমিটার ঘুরে যেতে হচ্ছে।
উপজেলার শিকারপুর গ্রামের আব্দুল মান্নান বলেন, আত্রাই সিংড়া সড়ক দীর্ঘ দিন থেকে বেহাল দশা হয়ে রয়েছে। বন্যার ফলে সড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। মালিপুকুর, গুরনই, চকবিষ্টপুর, জগদাস, শিকারপুর, ডুবাই, বৈঠাখালীসহ প্রায় অর্ধশতাধিক গ্রামের লোকজন এই একটি মাত্র রাস্তার উপর নির্ভশীল।
মধুগুড়নই গ্রামের আলহাজ শেখ আব্দুল জলিল বলেন, পাঁচুপুর কালিবাড়ি রাস্তাটি ভেঙে যাওয়ায় ওই এলাকার লোকজনদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। উপজেলা সদরের সাথে আমাদের গ্রামের রাস্তাটি বন্যায় বিধ্বস্ত হয়ে থাকলেও এখনও পর্যন্ত সংস্কার করা হয়নি। রাস্তাটি বিধ্বস্ত হওয়ায় কোন অসুস্থ বেক্তিকে উপজেলা সদর হাসপাতালে নিতে এখন চরম বিপাকে পড়তে হয়। বিশেষ করে জরুরী চিকিৎসাসেবা থেকে তারা বি ত হচ্ছে। অথচ এটি একটি জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা হওয়ার পরও কর্তৃপক্ষের নেই কোন মাথা ব্যাথা।
কালিবাড়ি বাজারের ব্যবসায়ী গোবিন্দ বলেন, আমাদের ব্যবসার মালামাল পরিবহনে আমরা চরম সমস্যায় রয়েছি। সেই পাকা রাস্তা থেকে মাথায় করে মালামাল দোকান পর্যন্ত বহন করতে হয়ে।

এ ব্যাপারে আত্রাই উপজেলা প্রকৌশলী মোবারক হোসেন বলেন, এবারে আত্রাইয়ে স্মরণকালের বন্যায় উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। আমরা এগুলোর তালিকা প্রস্তুত করে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট পাঠিয়েছি। সেই সাথে সংস্কারের বরাদ্দ চাহিদাও দেয়া হয়েছে। বরাদ্দ পেলেই সংস্কার কাজ শুরু করা হবে। আশাকরি খুব দ্রুত আমরা বরাদ্দ পাবো এবং এসব রাস্তা সংস্কার কাজ শুরু করতে পারবো।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,ডেস্ক নিউজঃ  রাষ্ট্রপতি আলহাজ্জ মোঃ আবদুল হামিদ চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে আগামি কাল রোববার (৮ অক্টোবর) কিশোরগঞ্জ যাচ্ছেন। রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের জন বিভাগ থেকে এক বার্তায় জেলা প্রশাসক বরাবরে রাষ্ট্রপতির সফর নিশ্চিত করা হয়েছে।

সফরসূচিতে কিশোরগঞ্জ জেলার সদর, মিঠামইন, কটিয়াদি ও বাজিতপুর উপজেলায় রাষ্ট্রপতির কর্মসূচী দেওয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের সফরসূচী মতে, রোববার (৮ অক্টোবর) দুপুর ৩ টায় হেলিকপ্টারযোগে মিঠামইন উপজেলা হেলিপ্যাডে উপস্থিত হবেন তিনি। পরে জেলা পরিষদের নতুন ডাকবাংলোয় গার্ড অব অনার শেষে বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে জেলা পরিষদের আবদুল হামিদ মিলনায়তনে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। এরপর বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে মিঠামইন বাজার, বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ এবং সন্ধ্যার পর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক ডিগ্রি কলেজ পরিদর্শন করবেন।

রাষ্ট্রপতি মিঠামইন নিজ বাসভবনে রাত্রিযাপন শেষে সোমবার (৯ অক্টোবর) দুপুর ১২ টা ৩০ মিনিটে হেলিকপ্টারযোগে বাজিতপুর উপজেলায় পৌঁছাবেন। বাজিতপুর কলেজ মাঠে গার্ড অব অনার শেষে দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধ, মুক্তিযোদ্ধা চত্বর ও চারটি ব্রিজ উদ্বোধন করবেন। বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে বাজিতপুর কলেজের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হবেন।

পরে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে হেলিকপ্টারযোগে কিশোরগঞ্জ সদরে পৌঁছাবেন। কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজে গার্ড অব অনার শেষে সন্ধ্যা ৭টায় বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, পেশাজীবী সংগঠনের নের্তৃবৃন্দ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে মত বিনিময় করবেন।

এরপর রাষ্ট্রপতি জেলা সদরের নিজ বাসভবনে রাত্রিযাপন শেষে পরদিন মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) দুপুর ১টায় সড়ক পথে কটিয়াদি উপজেলায় পৌঁছাবেন। কটিয়াদি কলেজ মাঠে গার্ড অব অনার শেষে দুপুর ২টা ৪৫ মিনিটে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নাম ফলক উদ্বোধন এবং বিকেল ৩টায় কটিয়াদি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭৫ বৎসর পূর্তিতে হীরক জয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হবেন।

রাষ্ট্রপতি বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে সড়ক পথে কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজে পৌঁছাবেন। সন্ধ্যা ৭টায় বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন, আইনজীবি সমিতির সদস্যবৃন্দ, প্রেসক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ ও উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে মত বিনিময় করবেন।

এরপর রাষ্ট্রপতি জেলা সদরের নিজ বাসভবনে রাত্রিযাপন শেষে পরদিন বুধবার (১১ অক্টোবর) বিকেল ৫টায় কিশোরগঞ্জ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়াম হেলিপ্যাড থেকে হেলিকপ্টারযোগে বঙ্গভবনের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,ডেস্ক নিউজঃ  আমেরিকায় বসে পদ্মা সেতুর স্প্যান বসানোর খবর জানতে পেরে, ঢাকা থেকে পাঠানো ছবি দেখে বোন শেখ রেহানাসহ আমরা দুই বোন কেঁদেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ অধিবেশনে অংশগ্রহণ এবং যুক্তরাজ্য সফর শেষে ফিরে ঢাকায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দেওয়া গণসংবর্ধনায় বক্তব্যদানকালে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হওয়া অনেক অপমানেরও জবাব। রোহিঙ্গাদের আশ্রয়ের ব্যাপারে তিনি বলেন, বাংলাদেশের ভূমিতার কারণেই রোহিঙ্গা ইস্যু আন্তর্জাতিক ইস্যুতে পরিণত হয়েছে।

৫ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে মানবিকতার নির্দশন প্রদর্শন করার পাশাপাশি জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বক্তৃতায় এই সঙ্কটের প্রতি বিশ্ববাসীর মনোযোগ আকর্ষণ করায় শেখ হাসিনাকে এই সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের পদক্ষেপের কারণেই মিয়ানমারে রোহিঙ্গা সংকট এখন বিশ্বাবাসীর মনোযোগের কেন্দ্র।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বিমান ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শনিবার (৭ অক্টোবর) সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে অবতরণ করে। প্রধানমন্ত্রী এরপর আওয়ামী লীগের গণসংবর্ধনা মঞ্চে যান। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। সেখানে বক্তব্যে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের প্রধানমন্ত্রীকে ‘বিপন্ন মানবতার বাতিঘর’ অভিহিত করেন।

প্রসঙ্গত, জাতিসংঘের ৭২তম সাধারণ অধিবেশনে যোগদানের পর তিন সপ্তাহের সফর শেষে দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার সকাল ৯.২৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান তিনি। বিমানবন্দরে এসময় উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রিসভার সদস্য এবং ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা।

পদ্মা সেতু প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শত বাধার মুখে আমি বলেছিলাম, নিজেরাই করবো। তাতে দেশে-বিদেশে বাঙালিরা সবাই বলেছেন, আপা আপনি করেন যা যা লাগে তাই দিয়ে পাশে আছি আমরা। এই যে মানুষের ভালোবাসা, মানুষের আস্থা অর্জন এটাই একজন রাজনীতিবিদের জন্য অর্জন। ক্ষমতার লোভে রাজনীতি করি না, অপবাদ মাথায় নেবো কেন! কাজ করে দেখাচ্ছি।

গত শনিবার (সকালে শরিয়তপুর জাজিরা নাউডোবা অংশে ৩১ ও ৩২ নম্বর পিলারে স্প্যান বসানো হয়। স্প্যানের কাজ শেষ করেই ওবায়দুল কাদের ম্যাসেজ দেন এ কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তখন আমরা যুক্তরাষ্ট্রে ছিলাম। স্থানীয় সময় রাত ৩টায় ম্যাসেজ এলো। জানলাম স্প্যান বসানো হয়েছে। জেগেই রয়েছি; বললাম ছবি পাঠাও। ওবায়দুল কাদের ছবি ও ভিডিও দুটিই পাঠালেন। সেগুলো দেখে দুই বোন সেখানে কেঁদেছি। অনেক অপমানের জবাব আমরা দিতে পারলাম, এটাই সব থেকে বড় অর্জন।

এছাড়া অনেক উন্নত দেশ যা পারেনি, বাংলাদেশ তা করে দেখিয়েছে বলেও মত দেন তিনি। বলেন, পদ্মার বুকে সেতু নির্মাণ সহজ কথা নয়। অনেক স্রোত নিয়ন্ত্রণে রেখে কাজ করতে হচ্ছে। এছাড়া প্রাকৃতিক দুর্যোগের দেশ বাংলাদেশ, সেই দুর্যোগ মাথায় নিয়েও এগোচ্ছি।

সংবর্ধনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মানুষ মানুষের জন্য। মানুষ মানবতার জন্য। তাই মিয়ানমারের রাখাইনে গণহত্যার মুখে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি। তিনি আরও বলেন, অনেক দেশই শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে চায়নি। কিন্তু রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসতে শুরু করেছিলো তখন আমরা কিছু না ভেবেই তাদের আশ্রয় দিয়েছিলাম।

বোন শেখ রেহানার উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, সে বলেছিল ১৬ কোটি লোককে ভাত খাওয়াচ্ছ, আর সাত-আট লাখ মানুষকে খাওয়াতে পারবা না! এই কথাটা আত্মবিশ্বাস দিয়েছিল। এছাড়া নেতাকর্মীরাও মানবিক দিক বিবেচনায় পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছে। সব মিলিয়ে আমরা পেরেছি।

১৯৭১ সালের ভয়াবহতার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালে সাড়ে ৭ কোটি মানুষের মধ্যে সাড়ে তিন কোটি মানুষকে হত্যা করেছিলো পাকহানাদার বাহিনী। ১ কোটি মানুষ ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলো। ফলে আমরাও ভুক্তভূগী। সেই কথা স্মরণ করেই আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় দেশবাসীর সমর্থন পেয়ে সকলকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

‘আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বসভায় তুলে আনা আমার লক্ষ ছিল। এটুকু বলবো, যা কিছু দেশের জন্য করতে পেরেছি, যা কিছু অর্জন, সবই এদেশের মনুষের সমর্থনে, এ দেশের মানুষের দোয়ায়।’ বলেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়া হয়েছে মানবিকতার বৃহত্তর স্বার্থে উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, ‘জাতির পিতা আমাদেরকে মানুষকে সহায়তা করাই শিখিয়েছেন। যখনই কোনো সিদ্ধান্ত নেই, অনেক সময় দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হয়। তার চেয়েও বড় বিষয়, সে সিদ্ধান্ত সঠিক হতে হয়, যেন সফলতা পায়। এসব সিদ্ধান্তে সবার সমর্থন পাই’।

‘দেশের মানুষের আস্থা ছিল, বিশ্বাস ছিল, সমর্থন ছিল বলেই দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে তাদেরকে আশ্রয় দেওয়া হয়। এ কারণে বাংলাদেশ যে আন্তর্জাতিকভাবে সম্মানিত হচ্ছে, ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হচ্ছে, যা কিছু অর্জন হচ্ছে- তার সবই তাই এদেশের মানুষের কল্যাণে, তাদের সমর্থনে ও দোয়ায়।

নোয়াখালীর ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের অস্থায়ী বাসস্থান গড়ে পুনর্বাসন করা হবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‘আশ্রয় যখন দিয়েছি, তখন তাদেরকে ভালোভাবে রেখে সম্মানের সঙ্গে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা নেবো’- বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা গণসংবর্ধনা মঞ্চে বলেন, ‘যারা স্বাধীনতা চায়নি তারা ক্ষমতায় এসে বাংলাদেশকে পিছিয়ে নিতে চায়। তারা বাংলাদেশের জন্য কাজ করেনি, আখের গোছাতেই ব্যস্ত ছিল। তবে এখন বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য ফিরতে শুরু করেছে। বিশ্বমন্দা থাকার পরও দেশকে এগিয়ে নিতে পারছি।’

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘মানুষ মানুষের জন্য। বিপন্ন মানুষকে আশ্রয় দেওয়া যেকোনও মানুষের মানবিক ও নৈতিক দায়িত্ব। মানবেতর জীবনযাপন করছিল তারা (রোহিঙ্গারা), তাদের ওপর অত্যাচার চলছিল। প্রথমে যখন তারা আসছিল তখনও আমরা জানি না আসলে কী অবস্থা। যেভাবে গণহত্যা ঘটছে তা জেনে তখন খুব স্বাভাবিকভাবে তাদের আশ্রয় দিতে হলো।’

‘যদি প্রয়োজন হয় একবেলা খাবো, আরেকবেলার খাবার ওদের ভাগ করে দেবো। বাংলাদেশ যদি এ অবস্থান না নিত তাহলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এত দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারত না।’বলেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে উত্তেজনা তৈরির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের একেবারে প্রতিবেশী দেশ এমন ভাব দেখালো, যেন আমাদের সঙ্গে যুদ্ধই বেধে যাবে। আমি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), পুলিশকে সতর্ক করলাম। কোনও বিভ্রান্তি যেন না হয়। যতক্ষণ আমি নির্দেশ না দেবো কোনও পদক্ষেপ নেওয়া যাবে না। আমরা সতর্ক ছিলাম। এজন্য ধন্যবাদ জানাই পুলিশ, সেনাবাহিনী, বিজিবিকে।’

পদ্মা সেতুর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুসের বিশ্বাস, আস্থা অর্জনের চেয়ে রাজনীতিকের জীবনে বড় প্রাপ্তি আর কিছু হয় না। অনেকেই সন্দিহান ছিল, এরকম খরস্রোতা নদীতে (পদ্মায়) সুপারস্ট্রাকচার করা বিরাট চ্যালেঞ্জ। আল্লাহর রহমতে আমরা করেছি। ওবায়দুল কাদের স্প্যান বসানোর উদ্বোধনে দেরি করতে চেয়েছিল। আমি বলেছি- না। এটা নিয়ে অনেক কিছু হয়েছে। অনেক মানুষকে অপমানিত হতে হয়েছিল। এক সেকেন্ডও দেরি করবো না। আমেরিকান সময় ৩টার সময় ম্যাসেজ পেলাম সুপারস্ট্রাকচার বসেছে। আমি ছবি চাইলাম। ওই ছবি দেখে আমরা দুইবোন কেঁদেছি। অনেক অপমানের জবাব দিতে পারলাম। বাংলাদেশ বিশ্বদরবারে মর্যাদা নিয়ে থাকুক।’

শরীরে অস্ত্রোপচার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গলব্লাডারে অপারেশন হয়েছে। আমার বয়স ৭১ বছর। চিকিৎসক কয়েক সপ্তাহের জন্য সাবধান থাকতে বলেছেন। চলাফেরার ক্ষেত্রেও ছয় মাস সাবধানে থাকতে বলেছেন।

সুস্থ হয়ে পুরোদমে কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিমানবন্দরের ভিভিআইপি লাউঞ্জে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো এবং ১৪ দলের নেতারাসহ সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা প্রধানমন্ত্রী সংবর্ধনা জানান। নির্যাতিত হয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়া, জাতিসংঘ অধিবেশনে অংশ নিয়ে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধে আন্তর্জাতিক জনমত সৃষ্টি ও রোহিঙ্গা ইস্যুতে মানবিক ভূমিকা রাখায় আন্তর্জাতিক মহলে প্রশংসিত হওয়া এবং বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাওয়‍ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এ গণসংবর্ধনা দেওয়া হয়।

এরপর সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে সরাসরি গণভবনের উদ্দেশে রওনা হয়। এ সময় রাস্তার দু’পাশে ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা হাজার হাজার নেতাকর্মী ফুল ছিটিয়ে ও স্লোগান দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান।

প্রধানমন্ত্রী পৌঁছার কয়েক ঘণ্টা আগেই বিমানবন্দর সড়কে আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের ঢল নামে। সকাল থেকেই বিমানবন্দর সড়কে আনন্দ মিছিল করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। বিজয় স্মরণী পর্যন্ত গোটা রাস্তা জুড়ে নেতাকর্মীরা তাকে অভিনন্দন জানাতে উপস্থিত ছিলেন। বিমানবন্দর থেকে বিজয় স্মরণী পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন পাশ্ব সড়কগুলো এ সময় বন্ধ থাকে।আমাদের সময়।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,নিজস্ব প্রতিনিধিঃ অষ্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের প্রবাসী সালাহউদ্দিন আহমদ ২০১৭ সালের ফরেস্টার্স অ্যাওয়ার্ড লাভ করেছেন। সালাহউদ্দিন বর্তমানে মেলবোর্নএ পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে ( ডিপার্টমেন্ট অফ এনভায়রনমেন্ট, ল্যান্ড, ওয়াটার এন্ড প্ল্যানিং) বন পর্যবেক্ষণ বিভাগে কর্মরত আছেন। দেশে তিনি ভূগোল ও পরিবেশ নিয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষে অস্ট্রেলিয়াতে জি,আই, এস নিয়ে স্নাতকোত্তর করেছেন। তা ছাড়াও তিনি স্যাটেলাইট রিমোট সেন্সিং এর একজন বিশেষজ্ঞ।

১৯৮৮ সালে ফরেস্ট কমিশন ফরেষ্ট্রী ট্রাস্ট ফান্ড প্রতিষ্টা হয়। বন পর্যবেক্ষণ বিষয়ে নানা ধরণের অবদানের কারণে ফরেস্ট কমিশনের পক্ষে ডেপুটি সেক্রেটারি লি মাইজিস তাকে এই পদক প্রদান করেন।
সালাহউদ্দিন ফিল্মস ফর পিস (শান্তি ও মানবাধিকারের জন্য চলচ্চিত্র) ফাউন্ডেশন এর সাধারণ পরিষদ এর সম্মানিত সদস্য এবং ফিল্মস ফর পিস ফাউন্ডেশন এনভায়রনমেন্ট জাস্টিস প্রোগ্রাম এর প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। শান্তি ও মানবাধিকারের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রতিষ্ঠান ‘উইটনেস বাংলাদেশ’ এর পক্ষ থেকে প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান পারভেজ সিদ্দিকী তাকে অভিনন্দন জানান।
সালাহউদ্দিন ২০০৭ থেকে সপরিবারে মেলবোর্নএ বসবাস করছেন । তিনি একাধারে একজন পরিবেশ ও বন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ অন্যদিকে তিনি একজন দুর্দান্ত নেচার এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ফটোগ্রাফার ।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,চান মিয়া,ছাতকঃ  ছাতকে ৩টি উপজেলা প্রশাসনের ইজারার নামে চেলা ও মরাচেলা বালু মহালে প্রতি ঘনফুটে জোরপূর্বক ৩গুণ রয়্যালিটি আদায়ের পরও টোকেনের মাধ্যমে চলছে বেপরোয়া চাদাঁবাজি। এসব চাঁদাবাজির টাকা বিভিন্ন হাত হয়ে জেলা-উপজেলা, বিজিবি ও পুলিশ প্রশাসন, এসিল্যান্ড, তহশীলদার, জনপ্রতিনিধি, দালাল, মাস্তান, স্থানীয় প্রভাবশালী ও পুলিশ-বিজিবির ক্রিমিনাল সোর্সদের পকেটে চলে যাচ্ছে। ছাতক, কোম্পানীগ ও দোয়ারা উপজেলা প্রশাসনের নামে এ চাঁদাবাজি চলছে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, ছাতক বাজার একতা বালু উত্তোলন ও সরবরাহকারি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি সমবায় সমিতি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে ১৪২৩বাংলায় এক লিখিত আবেদনে ১৪২৪বাংলার জন্যে চেলা নদী বালুমহাল ইজারা দেয়ার আগে ৫দফা দাবিনামা পেশ করেন। ৫দফার মধ্যে প্রতি ঘনফুট বালুর রয়্যালিটি ৩০পয়সা নির্ধারণ, একই নদীতে রয়্যালিটি আদায় করা সত্বেও পৃথক ৩টি উপজেলা ট্যাক্স বাতিল, শ্রমিকের নিরাপত্তায় নদীতে সর্বদা পুলিশী টহল জোরদার ও বালু উত্তোলন নীতি তৈরির দাবি করা হয়।

কিন্তু ১৪২৪বাংলার ইজারা ক্ষেত্রে শ্রমিকের এসব দাবির প্রতি কোন তোয়াক্কা করা হয়নি। এরপরও অতিরিক্ত রয়্যালিটি আদায় ও অবৈধ ট্যাক্স আদায় অব্যাহত থাকলে এসব বন্ধের জন্যে পূনরায় জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করা হয়। জেলা প্রশাসন থেকে কোন সূরাহা না হওয়ায় একতা বালু উত্তোলনকারি সমিতির নেতৃবৃন্দ মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে একটি রিট আবেদনের জন্যে আদালতের শরনাপন্ন হয়ে জেলা প্রশাসক বরাবরে উকিল নোটিশ প্রেরণ করেন।

এ উকিল নোটিশের প্রেক্ষিতে ২৪আগষ্ট অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সমিতির নেতৃবৃন্দ সংশ্লিষ্ট সকলকে নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের (এসএ শাখার) স্মারক নং-০৫.৪৬.৯০০০.০৮.০০১.০২৯.১২-২৬৭২ (৪) তাং ৩১.০৮.২০১৭ইং মূলে চেলা নদী ও মরাচেলা নদী বালু মহালে রয়্যালিটির হার নিধারণও অবৈধ ট্যাক্স আদায় বন্ধ করণের জন্যে ছাতক ও দোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অতি জরুরী ভিত্তিতে সভা আহবান করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে জেলা প্রশাসকও পুলিশ সূপারকে অবহিত করার জন্যে নির্দেশ দেয়া হয়।

কিন্তু অতিরক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সাবেরা আক্তার স্বাক্ষরিত নির্দেশ নামার একমাস পরও এব্যাপারে কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এখনো প্রতি ঘনফুট বালুর রয়্যালিটি ৩০পয়সার স্থলে জোরপূর্বক ১টাকাও ৩টি উপজেলার নামে প্রতি ট্রিপে নৌকা থেকে ৮০থেকে ১শ’ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। এদিকে গত আগষ্ট থেকে চেলা নদীর ইজারাদার জাকির হোসেন ইজারা চুক্তি ভঙ্গ করে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। এতে চেলা নদী ভিত্তিক প্রায় ৫সহ¯্রাধিক বারকি শ্রমিক বেকার হওয়ার আশংকায় তাদের মধ্যে চরম অসন্তুাষ বিরাজ করছে। বালু উত্তোলনে অবৈধ ড্রেজার বন্ধের দাবিতে ছাতক এসিল্যান্ডের কাছে একতা বালু সমিতির পক্ষে সভাপতি মো. আব্দুস সাত্তার এক লিখিত আবদেন করলেও রহস্যজনক কারনে এব্যাপারে কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

এ বালু মহালে প্রত্যহ হাজার হাজার দিনমজুর বারকি শ্রমিক বালতি দিয়ে বালু উত্তোলন করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। অবিলম্বে চেলা নদী বালু মহাল থেকে সব দূর্বৃত্তায়ন বন্ধে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামণা করছেন সমিতির শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। ছাতক উপজেলা চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নাসির উল্লাহ খান শীঘ্রই এব্যাপারে পদক্ষেপ নিচ্ছেন বলে জানান।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল জেলা টেলিভিশন জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন এর নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে শহরের ডিজিটাল লাইব্রেরীতে অনুষ্টিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদায়ী কমিটির সভাপতি এ্যাডঃ তারিকুজ্জামান লিটু (বাংলভিশন )।

এসময় বক্তব্য রাখেন বিদায়ী সাধারন সম্পাদক  সাইফুল ইসলাম তুহিন (চ্যানেল২৪), মীর্জা নজরুল ইসলাম (মাছরাঙা ),সুজয় কুমার বকসী (আরটিভি),মাহাবুবুর রশীদ লাবলু (বাংলা টিভি), মুন্সী আসাদুর রহমান (ইন্ডিপিডেন্ট টিভি), আবদুস সাত্তার (এসএ টিভি),ফরহাদ খান (একুশে টিভি), হুমাউন কবীর রিন্টু (এশিয়ান টিভি), মোঃ আজিজুল ইসলাম (৭১ টিভি ) ,মোঃ রুবেল (দীপ্ত টিভি) প্রমূখ।

সভা শেষে এম মুনির চৌধুরীকে আহ্বায়ক (এনটিভির)  এবং মাহাবুবুর রশীদ লাবলুকে যুগ্ম-আহ্বায়ক (বাংলা টিভির)  করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্য হল মোস্তফা কামাল, (আরটিভি)  শরিফুল ইসলাম বাবলু (দেশটিভি) ও  ইমরান হোসেন (চ্যানেল নাইন) ।

এসময় বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আগামী এক মাসের মধ্যে নড়াইল জেলা টেলিভিশন জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন এর নতুন পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। সকলের সহযোগিতা কামনা  করেন নব গঠিত কমিটি।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জের পল্লীতে জন্ম নেওয়া রোহিঙ্গাদের জঙ্গি গোষ্ঠী আল-কায়দার সদস্য বানানোর চেষ্টার অভিযোগে ভারতে গ্রেফতার ব্রিটিশ নাগরিক সামিউন রহমানের বিস্তারিত তথ্য চেয়েছে বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী। তার সম্পর্কিত তথ্য জানতে চেয়ে ভারতের ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সির (এনআইএ) কাছে এ তথ্য চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু।

গত মাসে সামিউনকে নয়া দিল্লি থেকে গ্রেফতার করে সেখানের পুলিশ। অভিযোগ আছে, আল কায়েদার অঙ্গ সংগঠন ইসলামিক স্টেট অ্যানই দ্য আল কায়েদার মতো জঙ্গি সংগঠনের জন্য সদস্য সংগ্রহ করে সামিউন। পেশায় সে মধ্য লন্ডনের একজন মিনি-ক্যাব কন্ট্রোলার। একই অভিযোগে তাকে ঢাকায় বিগত ২০১৪ সালের ২৯শে সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। ওই সময়ে সে পারিবারিক বিরোধ মিটাতে সিলেট সফরে এসেছিল। তখন পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেন, সামিউনকে তুলে নিয়ে গেছে পুলিশ। ভারতের অনলাইন দ্য হিন্দু’তে প্রকাশিত এক সংবাদে বলা হয়েছে, এনআইএ ও বাংলাদেশের র‌্যাবের মধ্যে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী, নিয়মিত ভিত্তিতে সন্ত্রাসী মামলার বিষয়ে তথ্য বিনিময় করে তারা। ওদিকে গত সপ্তাহে সামিউনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার অনুমতি দেয়া হয়েছিল ভারতে নিযুক্ত বৃটিশ হাইকমিশনকে।

কমিশনের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, সামিউনের সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি চেয়েছিল বৃটিশ হাইকমিশন। এরপর ভারত কনস্যুলার সুবিধা দেয় এবং কর্মকর্তারা সামিউনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তবে তাদের মধ্যে কি কথা হয়েছে তা জানা যায়নি। দ্য হিন্দু লিখেছে, ঢাকার জেলখানা থেকে এর আগে সামিউনের মুক্তি দাবিতে বৃটেনের একটি মানবাধিকার বিষয়ক গ্রুপ কেজ (সিএজিই) প্রচারণা চালায়। তারা ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে এক বিবৃতিতে বলে, সামিউনকে গ্রেফারের প্রেক্ষিতে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য দেয়া হয়েছে। বলা হচ্ছে, সে আল নুসরা ফ্রন্ট সদস্য। আবার বলা হচ্ছে এ গ্রুপের ঘোর বিরোধী ইসলামিক স্টেটের সদস্য। এক পর্যায়ে চলতি বছরের এপ্রিল মাসে ঢাকার জেল থেকে মুক্তি দেয়া হয় সামিউনকে। তবে তারপর সে কিভাবে ভারতে প্রবেশ করেছে তা জানা যায় নি। তবে সরকারের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, জুলাই মাসে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করে সে। দিল্লি পুলিশের দেয়া এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০১৩ সালে আল কায়েদার আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয় সামিউন। সিরিয়ায় গিয়ে তিন সপ্তাহের প্রশিক্ষণ নেয়। সেখানে এক বছর যুদ্ধ করে।

পুলিশ আরো বলেছেন, একটি যোদ্ধা গোষ্ঠী গড়ে তোলার জন্য তাকে পাঠানো হয় বাংলাদেশে। ২০১৪ সালে সে সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ, ঢাকা ও অন্যান্য স্থান সফর করে। এ সময় সে বেশ কিছু যুবককে উগ্রপন্থায় আকর্ষণ করে। তাকে গ্রেফারের পর তিন বছর রাখা হয় জেলে। এরপর এপ্রিলে জামিনে মুক্তি দেয়া হয়। ওদিকে দিল্লি পুলিশ এক বিবৃতিতে বলেছে, মিজোরাম ও মণিপুরে রোহিঙ্গাদের পক্ষে লড়াই করার লক্ষ্য নিয়ে ঘাঁটি গড়ে তুলতে সে ভারতে প্রবেশ করে ২০১৭ সালের জুলাই মাসে। সুত্রে আরো জানা গেছে, সম্প্রতি সময়ে সামিউনের মামার বাড়ি নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের মিঠাপুর গ্রামে সিলেট ও হবিগঞ্জের সিআইডি তথ্য সংগ্রহ করে।
নেশাখোর থেকে ভয়ঙ্কর জঙ্গি সামিউনঃ ২৭ বছর বয়সী জঙ্গি সামিউন রহমানের বাড়ি বৃহত্তর সিলেটের হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের ফুটারচর গ্রামে। তিনি মৃত হামদু মিয়ার ২য় ছেলে। সামিউনের বড় ভাই সেলিম আহমেদসহ ৪ বোন ও মা লন্ডনে বসবাস করছেন। গ্রামের বাড়িতে গেলে তার সম্পর্কে অনেক তথ্য দেন আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীরা। জানা যায়, ২০১১ সালে সামিউনকে মাতাল অবস্থায় গ্রেফতার করে ইংল্যান্ডের পুলিশ। আদালত তাকে দেড় বছরের সাজাও দেন। সেখানে ৬ মাস কারাবাসের পর জামিনে বেরিয়ে আসেন সামিউন। ২০১২ সালের শেষের দিকে ফের বাংলাদেশে আসেন তিনি। দেশে ফেরার পর মাদকাসক্ত বখাটে সামিউনের মধ্যে অনেক পরিবর্তন লক্ষ্য করেন প্রতিবেশীরা। তারা জানান, মাদকসেবী সামিউনকে মদ, গাঁজা, হেরোইন ছেড়ে ধর্মীয় আচার-আচরণে ব্যস্ত দেখা যায়। মাথায় টুপি, পরনে পাঞ্জাবি ৫ ওয়াক্ত নামাজসহ ধর্মীয় কাজে ব্যস্ত থাকতেন সারাদিন। হঠাৎ এমন পরিবর্তন দেখে হতবাক হয়ে যান প্রতিবেশীরা। তখন প্রায় ১ মাস বাংলাদেশে থাকার পর আবারও তিনি লন্ডন চলে যান। সর্বশেষ তিনি ২০১৪ সালে বাংলাদেশে আসেন। তখন আর আগের মতো চাচা আবদুুল মান্নানের বাড়িতে থাকেননি। অবস্থান করেন এএসএনডেফ মিনি স্টোর নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পেছনে। এ সময় তিনি তাবলিগ জামাতেও অংশ নিতেন।

স্থানীয় লোকজনকে ইসলামের দাওয়াত, নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত করার জন্য আহ্বান জানাতেন। ওই বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সামিউনকে আটক করে নিয়ে যান। তার কক্ষ থেকে উদ্ধার হয় জিহাদি বই, বিভিন্ন দেশের সিম কার্ড ও কয়েকটি মোবাইল সেট। ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট প্রদান করেন। চার্জশিটে দাবি করা হয়- ব্রিটিশ নাগরিক সামিউন রহমান সিরিয়া ফ্রন্টে সশস্ত্র জিহাদি কার্যক্রম পরিচালনা করতে আইএস ও নুসরা ব্রিগেডের জন্য মুজাহিদ সংগ্রহ করতে বাংলাদেশে এসেছিলেন। আল-কায়েদা নেতা আইমান আল জাওয়াহারী ঘোষিত একিউআইএস বা আল-কায়েদা অব ইন্ডিয়ান সাব কন্টিনেন্টের বাংলাদেশ ও মিয়ানমারে জঙ্গি নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যও ছিল তার।

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৭অক্টোবর,ডেস্ক নিউজঃ মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ অব্যাহত রয়েছে। মংডুতে গত ২৪ ঘণ্টায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের বেশ কয়েকটি বাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। মংডু থেকে বিবিসির বর্মী বিভাগের সাংবাদিক জানান, শুক্রবার দুপুরে রোহিঙ্গাদের আটটি কুঁড়েঘরে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এর মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে বৃহস্পতিবার রাতেও আরো ১৫টি বাড়িতে আগুন দেওয়া হয়।

সরকারে জারি করা কারফিউর মধ্যেই এসব বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটল।
মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও বৌদ্ধ মিলিশিয়াদের জাতিগত নিধনযজ্ঞের শিকার দেশটির বহু রোহিঙ্গা ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে পাঁচ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা।
বাংলাদেশের কর্মকর্তারা বলছেন, মাঝখানে রোহিঙ্গাদের আসা কিছুটা কমে গেলেও সম্প্রতি তাদের আসা আবার বেড়ে গেছে। এখন দিনে দুই থেকে তিন হাজারের মতো রোহিঙ্গা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আসছে।
এদিকে নতুন করে বাড়িঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনায় এখনো মংডুতে যেসব মুসলিম রোহিঙ্গা রয়ে গেছে তাদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। পালিয়ে আসতে চাইলে অনেক রোহিঙ্গাকে অভুক্ত অবস্থায় অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে।