১০ বছরের কারাদণ্ড ও ন্যূনতম ৫ লাখ টাকার জরিমানার বিধান চূড়ান্ত

    0
    9

    প্রস্তাবিত আইনে বিদেশগামী শ্রমিকদের অধিকার ও কল্যাণ সুরক্ষা,  দেশিয় রিক্রুটিং এজেন্সির প্রতারণা ও ভিসা ট্রেডিং রোধ, রিক্রুটিং লাইসেন্স প্রদান এবং বিদেশ ফেরত শ্রমিকের মামলা করার অধিকার ও ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে

    ঢাকা, ১২ আগস্ট : বিদেশে শ্রমিক পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রতারণা, জালিয়াতি ও অনিয়মের ঘটনায় ১০ বছর সাজার বিধান রেখে আইন করার প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে  অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন ২০১৩’ চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। এর আগে গত ১৫ এপ্রিল এই আইনে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছিল মন্ত্রিসভা। তবে তখন সর্বোচ্চ সাজা সাত বছর কারাদণ্ড ছিল। চূড়ান্ত অনুমোদনের সময় সাজার মাত্রা বেড়েছে। চূড়ান্ত অনুমোদনে ১০ বছর কারাদণ্ডের সঙ্গে ন্যূনতম ৫ লাখ টাকার জরিমানার বিধানও রয়েছে । আজ মন্ত্রিসভার বৈঠক  শেষে এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা।
    সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা বলেন, প্রস্তাবিত আইনে রিক্রুটিং এজেন্সির বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে এবং তাদের বিরুদ্ধে আদালত ব্যবস্থা নিতে পারবে। বর্তমানে বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসী অধ্যাদেশটি রয়েছে, সেটি ১৯৮২ সালের। এটাকে যুগোপযোগী করার লক্ষ্যেই নতুন করে এ আইনটি করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিদ্যমান অধ্যাদেশে ২৯টি ধারা রয়েছে। আর এখন যে আইনটির প্রস্তাব করা হয়েছে সেখানে মোট ৬১টি ধারা রয়েছে।
    প্রস্তাবিত আইনের উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ধারার উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রস্তাবিত আইনে বিদেশগামী শ্রমিকদের অধিকার ও কল্যাণ সুরক্ষা,  দেশিয় রিক্রুটিং এজেন্সির প্রতারণা ও ভিসা ট্রেডিং রোধ, রিক্রুটিং লাইসেন্স প্রদান এবং বিদেশ ফেরত শ্রমিকের মামলা করার অধিকার ও ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।
    আইনে শাস্তির বিধান প্রসঙ্গে বলেন, প্রস্তাবিত আইনের ৩৭ থেকে ৪৭ ধারা পর্যন্ত অপরাধের ধরণ অনুযায়ী বিভিন্ন শাস্তির বিধান রয়েছে। এর মধ্যে প্রতারণার অভিযোগে অনধিক ১০ বছর কারাদণ্ড এবং অনুর্ধ্ব পাঁচ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে । বিদেশে শ্রমিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও রিক্রিুটিং এজিন্সেগুলোর জবাবদিতিহতাও এ আইনের মাধ্যমে নিশ্চিত করা হবে। প্রতারণা, জবরদস্তি ও মিথ্যা আশ্বাসের জন্য পাঁচ বছর কারাদণ্ড ও  এক লাখ টাকার জরিমানা বিধান ও  প্রস্তাবিত আইনের বিভিন্ন ধারাতে রিক্রটিং এজেন্সিগুলোর অনিয়মের জন্য শাস্তির বিধান রয়েছে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here