সহিংসতার আশঙ্কায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ শুরু

    0
    3

    আমারসিলেট24ডটকম,২৩মার্চঃ সহিংসতার আশঙ্কায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যদিয়ে রোববার ৯১টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে। সকাল আটটায় ভোট নেয়া শুরু হয়েছে। বিকেল চারটা পর্যন্ত টানা চলবে। সকাল ৯টা পর্যন্ত কোথাও কোনো অপ্রীতির ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।দেশের ৪৩টি জেলার ৯১ উপজেলায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে।

    চতুর্থ ধাপে যাতে সহিংসতামুক্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় সেলক্ষ্যে সেনাবাহিনীকে দৃশ্যমান কার্যক্রম জোরদার করার জন্যে বিশেষভাবে সব ধরনের কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
    আজ সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে বিরতিহীনভাবে। চতুর্থ ধাপের ৯৩টি উপজেলায় মোট ১ হাজার ১৮৬ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থী ৩৮৯ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী ৪৮৫ জন এবং মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী ৩১২ জন।
    নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, এবার ৯১ উপজেলায়, মোট ভোটার ১ কোটি ৪৩ লাখ ২৫ হাজার ৬৪৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭১ লাখ ৩৯ হাজার ১০২ জন নারী ভোটার ৭১ লাখ ৮৬ হাজার ৫৪২ জন।
    চতুর্থ ধাপের নির্বাচনকে শান্তিপূর্ণ করতে গত শুক্রবার সকাল থেকে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন শুরু করেছে সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যরা। রয়েছে পর্যাপ্ত সংখ্যক র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য। ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে তারা সবকিছু করবেন। এছাড়া প্রতিটি উপজেলায় ১ জন বিচারিক ও ৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে রয়েছেন। এছাড়া প্রতি কেন্দ্রে একজন পুলিশ (অস্ত্রসহ), আনসার একজন (অস্ত্রসহ), আনসার ১০ জন (নারী-৪, পুরুষ-৬ জন) এবং আনসার একজন (লাঠিসহ) ও গ্রামপুলিশ একজন করে আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকবেন।
    চতুর্থ ধাপে ৯১টি উপজেলায় ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৬ হাজার ১০৮টি, ভোটকক্ষ ৩৮ হাজার ৬৪৪টি। প্রিজাইডিং অফিসার প্রতি ভোটকেন্দ্রে একজন করে ৬ হাজার ১০৮ জন। সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার প্রতি ভোটকক্ষের জন্য এক জন করে মোট ৩৮ হাজার ৬৪৪ জন এবং পোলিং অফিসারের সংখ্যা ৭৭ হাজার ২৮৮ জন।
    যে ৯১ উপজেলায় নির্বাচন
    ঢাকার ধামরাই, ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ, দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ ও ফুলবাড়ী, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি, বগুড়ার গাবতলী, রাজশাহীর তানোর, পুটিয়া ও বাগমারা, নাটোরের বড়াইগ্রাম, সিরাগঞ্জের চৌহালী, পাবনার ঈশ্বরদী ও ফরিদপুর, নড়াইল সদর, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর, চুয়াডাঙ্গার জীবননগর, ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডু, যশোরের সদর ও কেশবপুর, বাগেরহাটের চিতলমারী ও মোল্লাহাট, খুলনার ফুলতলা, তেরখাদা, রূপসা, বটিয়াঘাটা ও দাকোপ, সাতক্ষীরার কলারোয়া, বরগুনার বেতাগী, পটুয়াখালীর সদর, গলাচিপা, মির্জাগঞ্জ, বাউফল ও দুমকী, ভোলার তজুমুদ্দিন, মনপুরা ও দৌলতখান, বরিশালের আগৈলঝারা, উজিরপুর ও বানারীপাড়া, ঝালকাঠির সদর, কাঠালিয়া, রাজাপুর ও নলছিটি, পিরোজপুরের সদর, জিয়ানগর, ভান্ডারিয়া ও মঠবাড়িয়া, টাঙ্গাইলের কালিহাতি, ভুয়াপুর, নাগরপুর ও মধুপুর, শেরপুরের নালিতাবাড়ী, ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট, নেত্রকোনার মদন, কিশোরগঞ্জের ভৈরব, ইটনা, কটিয়াদি, মিঠামইন ও তাড়াইল, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া, গাজীপুরের কালিয়াকৈর, সুনামগঞ্জের শাল্ল¬া ও ধর্মপাশা, সিলেটের সদর ও কানাইঘাট, মৌলভীবাজারের সদর, কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গল, হবিগঞ্জের সদর, আজমেরীগঞ্জ, লাখাই ও নবীগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার আখাউড়া ও নাসিরনগর, কুমিল্লার মেঘনা ও বরুড়া, চাঁদপুরের শাহরাস্তি, ফেনীর সোনাগাজী ও ফুলগাজী, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ, চট্টগ্রামের বাঁশখালী, আনোয়ারা, রাউজান, ফটিকছড়ি, রাঙ্গুনিয়া, বোয়ালখালী ও সাতকানিয়া, কক্সবাজারের রামু ও কুতুবদিয়া, রাঙ্গামাটির জুড়াছড়ি এবং বান্দরবানের নাইক্ষংছড়ি।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here