শ্রীমঙ্গল সার্কেল এএসপি শহিদুল হক মুন্সীর বাংলাদেশ পুলিশে সপ্তম বর্ষে পদার্পণ

0
91
শ্রীমঙ্গল সার্কেল এএসপি শহিদুল হক মুন্সীর বাংলাদেশ পুলিশে সপ্তম বর্ষে পদার্পণ
শ্রীমঙ্গল সার্কেল অফিসে এএসপি মোঃ শহিদুল হক মুন্সী।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  সার্কেল অফিসে গিয়ে একজন এএসপির সালাম পেয়ে মহা খুশি এক সাক্ষাত কারি অপরিচিত লোক।ওই সাক্ষাত কারী শহরের কলেজ রোডস্থ বিপণী ভবনের একজন ব্যবসায়ি।নাম তার মিলাদ ,কথা প্রসঙ্গে বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তার আলোচনার এক ফাঁকে খুব প্রশংসা করছিলো সার্কেল শহিদুল হক মুন্সির। আজ তিনির বাংলাদেশ পুলিশে সপ্তম বর্ষে পদার্পণ।

এ ছাড়াও ওই কর্মকর্তার প্রশংসা প্রায়ই শুনা যায়।এরই জের ধরে আজ বুধবার বিকালে কর্মকর্তার সাথে তার অফিসে সাক্ষাত হলে দীর্ঘসময় কথা বার্তায় জানা যায় আজ তিনি বিসিএস সমাপ্তি ও এএসপি পদে যোগদানের সপ্তম বর্ষে প্রবেশ করছেন।তারই আলোকে একজন ভদ্র ও শান্তশিষ্ট কর্মকর্তার প্রসঙ্গে এই অবতারণা।

মৌলভীবাজার জেলা পুলিশের কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল হক মুন্সী। গত ৪জুন ২০২১ সালে শ্রীমঙ্গল সার্কেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।ইতিমধ্যে সাধারণ জনগণের মধ্যে তার আচার আচরণ ও সদ্ব্যবহার বেশ প্রশংসনীয় হয়ে উঠেছে।

আলাপচারিতায় জানা যায়,তিনি ২০১৬ সালে ৩৪ তম বিসিএস সাফল্যের সাথে সমাপ্তের পরপর সরাসরি এএসপি পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হন।সেখান থেকে প্রথমে র‍্যাব ১০ যাত্রা বাড়ি থেকে কাজ শুরু করেন পরে সেখান থেকে শ্রীমঙ্গল সার্কেলে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

শ্রীমঙ্গল কমলগঞ্জ সার্কেল হিসেবে তিনি বলেন,”এই এলাকা পর্যটনের বিশাল সম্ভাবনাময়ী প্রাকৃতিক সুন্দরের অপরূপ লীলাভুমি।পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে এখানকার জনগণকে আরও নিবিড়ভাবে সেবা করার ইচ্ছা পোষণ করেন তিনি”।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা সম্পর্কে তিনি বলেন,”এই উপজেলাকে পর্যটন নির্ভর এলাকা হিসেবে দেশ-বিদেশের পর্যটকদের কাছে আরও উন্নত ও নিরাপদ এলাকা হিসেবে গড়ে তুলতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় চলমান ব্যবস্থাকে আরও জোরদার করে মাদকমুক্ত,চুরি ডাকাতি প্রতিরোধ করে নিরাপদ ও আধুনিক শহর গড়ে তুলতে সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন”।    

প্রসঙ্গক্রমে জানা যায়,সার্কেল কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল হক মুন্সীর পিতা মুহাম্মদ হানিফ একজন সাবেক সরকারি কর্মকর্তা, তার মাতা মোছাম্মদ নুরুন্নাহার গৃহিণী।এক বোন দুইভাই এর মধ্যে তিনি মেঝো।ছোট বোন মাস্টার্স পরিক্ষার্থী।তিনি বিবাহিত এখনো কোন সন্তানের বাবা হননি।তার স্ত্রী একজন ব্যাংকার।

শহিদুল হক মুন্সীর বাবার গ্রামের বাড়ি রায়পুরা উপজেলার পারাতলি ইউনিয়নে হলেও বর্তমানে শ্বপরিবারে নরসিংদী জেলা শহরে বসবাস করছেন।   

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here