শ্রীমঙ্গল পুলিশের ২৪ ঘণ্টার অভিযানে গরুসহ আটক-৪

0
15

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৫ নং কালাপুর ইউনিয়নের লামুয়া গ্রামের হারিস মিয়া পিতা মৃত ছত্তার মিয়া নামের এক কৃষকের গরু চুরির ঘটনায় থানায় মামলা করার পর ২৪ ঘণ্টার অভিযান পরিচালনা করে সন্দেহমূলক ৪ জনসহ মোট ৮ জনকে আটক করে পুলিশ। এ সময় চুরি হওয়া গরুসহ ৮ টি গরুও উদ্ধার করা হয়।
ঘটনার বিবরণে পুলিশের সুত্রে জানা যায়, গত ১৫ মার্চ দিবাগত রাতের কোন এক সময় চুরির ঘটনা ঘটলেও ১৬ মার্চ গোয়াল ঘরের তালা ভাঙ্গা দেখতে পায় এবং গোয়াল ঘর হইতে তাহার ২টি গরু অজ্ঞাত চোরেরা চুরি করে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় মামলা রুজু হওয়ার ২৪ ঘন্টার ভিতরে অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুছ ছালেক’র নির্দেশে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ুন কবির’র নেতৃত্বে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোহাম্মদ আলমগীর ও এএসআই সারোয়ার হোসেনসহ পুলিশের একটি টিম আন্তরিক প্রচেষ্টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে শ্রীমঙ্গল থানাধীন ভূনবীর চৌমুহনা হতে চোরাই কাজে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কার যাহার নং-ঢাকা মেট্রো-গ-০২-২৫২৭ সহ অভিযুক্ত শেখ মোঃ আনোয়ার হোসেন (৩০), পিতা-শেখ হায়দার আলী, স্থায়ী ঠিকানা গ্রাম-ভাগলপুর ভৈরব বাজার, সাদ্দাম মিয়া (২০), পিতা-মৃত মছদ্দর আলী, স্থায়ী ঠিকানা -গ্রাম লামুয়া, দেলোয়ার মিয়া (২২), পিতা- আজিদ মিয়া, স্থায়ী ঠিকানা গ্রাম মাজদিহি পাহাড়, সর্ব থানা- শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজারদের আটক করা হয়।
আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে তাহাদের দেওয়া তথ্য মতে তাদের সঙ্গে করে অভিযান পরিচালনা করে মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর থানার ডেফলউড়া গ্রামের গরু চোর সর্দার দরুদ মিয়ার ভাই রউফ মিয়ার গোয়াল ঘর হইতে চুরি যাওয়া ২টি গরুসহ আরো ৪টি গরু উদ্ধার করা হয় এবং আটককৃতদের যথাযথ পুলিশ স্কর্ট দিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।
উল্লেখ্য, সন্দেহমূলক আটক ব্যাক্তিদের দোষ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয় বলে পুলিশের সুত্রে জানা গেছে।

এ সময় চুরি হওয়া গরুসহ ৮ টি গরুও উদ্ধার করা হয়।