শ্রীমঙ্গলে এক নারীর অস্বাভাবিক মৃত্যু!

    0
    9

    শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ  শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্দুরখান ইউনিয়নের মন্দিরগাও গ্রামের ঝরনা আক্তারের বাড়ীতে  হাতাহাতির ঘটনায় ভিকটিম গুরুতর আহত হওয়ার পর ঝরনা আক্তার এর লোকজন ভিকটিমকে সাবেক চেয়ারম্যান আরজু মিয়ার বাড়ীর পাশে ফেলে রেখে যায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

    স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, গতকাল ৯ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৫ টার দিকে মোছাঃ খালেদা আক্তার  (৫৮) স্বামী মোঃ চুনু মিয়া সাং ১১৫ কোয়ারপাড় আ/এ থানা কোতয়ালী সদর সিলেট থেকে তিনি গত ৭ ফেব্রুয়ারি বোনের বাড়ী শ্রীমঙ্গলের সিন্দুরখান ইউনিয়নের মন্দিরগাও গ্রামের মোছাঃ লায়লা আক্তার (৫০) স্বামী মোঃ আব্দুস শহীদ গ্রাম মন্দিরগাও থানা শ্রীমঙ্গল জেলা মৌলভীবাজার এর বাড়ীতে আসেন।

    পরের দিন মঙ্গলবার বিকালে বোনের বাড়ী থেকে প্রায় কয়েক শত গজ দূরে অবস্হিত মোছাঃ ঝড়না আক্তার (৪৮) স্বামী শাহজাহান মিয়া সাং মন্দিরগাও থানা শ্রীমঙ্গল জেলা মৌলভীবাজার নামে এক মহিলার ছেলে জয় কে বিশ হাজার টাকা (ধানের উপর লগনী দেওয়া) পাওনা টাকা আনার উদ্যাশে ঝড়না আক্তারের বাড়ীতে গেলে যথা সময়ে ভিকটিম বোনের বাড়ীতে ফেরত না আসায় বোনের বাড়ীর লোকজন খোজাখুজি করিয়া রাত প্রায় সাড়ে ৭ টায় খবর পাওয়া যায় যে মন্দিরগাও গ্রামের বাসিন্দা সাবেক চেয়ারম্যান আরজু মিয়ার বাড়ীর পাশে বিবস্ত্র অবস্থায় এক নারী পরে রয়েছেন। ঘটনা স্থলে যেয়ে ভিকটিমের আত্মীয়-স্বজন মহিলাকে উদ্ধার করে শ্রীমঙ্গল সদর হাসপাতালে ঐ দিন রাত ৯ টায় নিয়ে আসেন এবং রাত আনুমানিক ১০ ঘটিকার সময় শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ভিকটিমকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

    উল্লেখ,পাওনা টাঁকা নিয়ে ভিকটিম এবং ঝড়না আক্তারের পরিবারের মধ্যে হাতাহাতি হয়ে ভিকটিম গুরুতর আঘাত প্রাপ্ত হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

    মৃত দেহ বর্তমানে শ্রীমঙ্গল থানায় রয়েছে, ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণ করা হবে।এ ব্যাপারে কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।আইনগত ব্যবস্হা প্রক্রিয়াধীন বলে শ্রীমঙ্গল থানা সুত্রে জানা গেছে।  বিস্তারিত পরের সংবাদে আসছে…।