Friday 26th of April 2019 07:38:54 PM
Saturday 23rd of March 2019 09:54:15 PM

রাফিয়াদের আহার ও হাসি কেড়ে নিয়েছে ভিনদেশি যুবক !

জীবন সংগ্রাম, তথ্য-প্রযুক্তি ডেস্ক
আমার সিলেট ২৪.কম
রাফিয়াদের আহার ও হাসি কেড়ে নিয়েছে ভিনদেশি যুবক !

ক’দিন আগেও যে রাফিয়া নিয়মিত স্কুলে যেতেন, ঝিনুক হাতে সমুদ্র সৈকতে ঘুরে বেড়াতেন, ঝিনুক বিক্রির টাকা দিয়ে সংসারের ভরণপোষণ করতেন, সে দুরন্ত রাফিয়া এখন ঘরবন্দি। ঘরের সীমানায় মনমরা হয়ে বসে থাকেন সারাক্ষণ। তার অভিযোগ, তার পরিবারের আহার ও হাসি কেড়ে নিয়েছে ভিনদেশি এক যুবক। সম্প্রতি ওই যুবক ফেসবুকে রাফিয়ার একটি ছবি আপলোড দেয়।

ফেসবুকের কল্যাণে রাফিয়ার ছবিটি ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। সঙ্গে সঙ্গে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। আর এ ছবিটিই তার চলার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। কক্সবাজার সদরের ঝিলংঝা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড কলাতলীর ঝিরঝিরি পাড়ায় তার বাড়ি। সে ওই এলাকার দরিদ্র আবদুল করিমের কন্যা রাফিয়া। বাবা দিনমজুর, মা রহিমা বেগম গৃহিণী। রাফিয়ার বয়স মাত্র ১০ বছর। পরিবারে চার ভাই-বোনের মধ্যে রাফিয়া মেজ। বাবা আব্দুল মালেক নির্মাণ কাজ করতে গিয়ে পড়ে কোমরে আঘাত পান।

এরপর থেকে তিনি কোনো কাজ করতে পারেন না। বাবার এমন পরিস্থিতিতে পরিবারে অন্য কোনো উপার্জনক্ষম ব্যক্তি না থাকায় অল্প বয়সেই পরিবারের হাল ধরেন ছোট্ট রাফিয়া। নিজ কাঁধে তুলে নেন সংসারের ভার। স্কুল শেষ করেই ঝিনুকের ঝুড়ি হাতে নিয়ে ছুটে যান সৈকতে। সৈকতের এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্তে হেঁটে হেঁটে ঝিনুক বিক্রি করতেন। একদিন ছোট্ট রাফিয়ার মায়াবি চেহারা ও হাসির ঝিলিক নজর কাড়ে সৈকতে ভ্রমণে আসা ভিনদেশি এক যুবকের। সে রাফিয়ার একটি ছবি তোলে ফেসবুকে আপলোড করে দিলে সঙ্গে সঙ্গে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়।

অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী রাফিয়াকে নিয়ে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে। কেউ কেউ হলিউড বলিউডের বিখ্যাত সুন্দরী নায়িকাদের সঙ্গেও তুলনা করছে তাকে। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা বিখ্যাত নায়িকাদের সঙ্গে রাফিয়ার ছবি দিয়ে ফেসবুকে লিখছেন, কে বেশি সুন্দর? কক্সবাজারের ঝিনুক বিক্রেতা রাফিয়া না ইন্ডিয়ার ক্যাটরিনা? অথবা কার হাসি বেশি সুন্দর ইত্যাদি। আর এতেই সামাজিকভাবে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছে রাফিয়া ও তার পরিবার। তাদের মতে, রাফিয়া এখন ঘর থেকে বের হলে সবাই তার দিকে তাকিয়ে থাকে। অনেকেই তাকে নিয়ে সেলফি তুলার বায়না ধরে। এটিই রাফিয়া ও তার পরিবার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কক্সবাজার সদরের ঝিলংঝা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ঝিরঝিরি পাড়ার দরিদ্র আবদুল করিমের কন্যা রাফিয়া। বাবা দিনমজুর, মা রহিমা বেগম গৃহিণী। রাফিয়ারা দুই ভাই, দুই বোন। তাদের মধ্যে রাফিয়া মেজ, বড় ভাই আবদুল্লাহ নবম শ্রেণিতে পড়ে। রাফিয়া কলাতলির সৈকত প্রাইমারি বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। তবে আপাতত তার স্কুলে যাওয়া বন্ধ রয়েছে।কক্সবাজার নিউজ থেকে


সম্পাদনা: News Desk, নিউজরুম এডিটর

আমারসিলেট২৪.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Place for advertisement
Place for advertisement

সর্বশেষ সংবাদ


সর্বাধিক পঠিত

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc