ভোট চলছে ৩৭৬৭০টি কেন্দ্রে স্থগিত করা হয়েছে ৩৭টিতে

    0
    2

    আমারসিলেট24ডটকম,০৫জানুয়ারীঃ  অন্তত সাত জেলার ৩৭ টি ভোট কেন্দ্রের ভোটগ্রহন স্থগিত করা হয়েছে।কারন হিসেবে দেখানো হয়েছে ভোটের আগের রাতে নাশকতা।

    ইসির জ্যেষ্ঠ সচিব ফরহাদ হোসেন এর সুত্র দিয়ে বিডি নিউজ জানিয়েছে, রোববার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত মাঠ পর্যায় থেকে তাদের কাছে এ তথ্য এসেছে।

    ফরহাদ হোসেন এর সুত্র থেকে আরও জানা জায়,তিনি বলেছেন, “স্কুলে আগুন ও ব্যালট পেপার পুড়িয়ে দেয়ার মতো ঘটনায় যেসব কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে তার তথ্য আমরা রিটার্নিং অফিসারদের কাছ থেকে সংগ্রহ করছি। এ পর্যন্ত ৩০টির ওপরে কেন্দ্রের খবর পেয়েছি।”

    এর মধ্যে ঠাকুরগাঁও-১ আসনের তিনটি [৭০, ৭১, ৭৪ নম্বর কেন্দ্র], দিনাজপুর-৪ আসনের ১৪টি কেন্দ্র [৩৩, ১৪, ৩৫, ৩৬, ১৯, ২০, ২১, ৩৮, ৪৪, ৪৫, ৩৭, ৪৯, ৫৬ ও ৫৪], দিনাজপুর-৫ আসনের একটি [৪৯], নীলফামারী-৩ আসনের একটি [১৫], গাইবান্ধা-৩ আসনের ৯টি [১৯, ৩৩, ৪০, ৪২, ৬২, ৬৪, ৬৫ ও ৬৭], হবিগঞ্জ-২ আসনের একটি [৯], লক্ষ্মীপুর-১ আসনের তিনটি [২৪, ৬৬, ৭৫] ও চট্টগ্রাম-১৫ আসনের দুটি [৪৬ ও ৪৮] কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।

    এছাড়া ঠাকুরগাঁও-১ আসনের ৮৪ নম্বর কেন্দ্রের সহাকারী প্রিজাইডিং অফিসার শনিবার নিহত হয়েছেন।

    ১০ম জাতীয় নির্বাচনকে “প্রহসন” আখ্যায়িত করে গত ১ জানুয়ারি থেকে সারা দেশে অবরোধ চালিয়ে আসছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধী দলীয় জোট। ভোট ঠেকাতে অবরোধের সঙ্গে  শনিবার থেকে ৪৮ ঘণ্টার হরতাল শুরু করেছে তারা।

    চলমান অবরোধ-হরতালের মধ্যে গত শুক্রবার থেকে শতাধিক কেন্দ্রে অগ্নিসংযোগ হয়েছে;  পোড়ানো হয়েছে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী সরঞ্জাম। ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনাও ঘটেছে।

    এই পরিস্থিতির কারনে দেখিয়ে,শেষ মুহূর্তে ভোটকেন্দ্রের ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনা হতে পারে বলে শনিবারই জানিয়েছিলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। ভোটের আগের রাতে নাশকতায় স্কুলে আগুন ও ব্যালট পেপার পুড়িয়ে দেয়ার এবং ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের মতো ঘটনার কারণেই সাত জেলার ৩৭ টি ভোট কেন্দ্রের ভোটগ্রহন স্তগিত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

     উল্লেখ্য,সংসদের ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৩টিতে প্রার্থীদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার রেকর্ডে এবার ভোট হচ্ছে কেবল ১৪৭ আসনে। এসব আসনের মোট ৩৭ হাজার ৭০৭টি ভোটকেন্দ্রের ১ লাখ ৮৯ হাজার ৭৮টি ভোটকক্ষে ভোটগ্রহণ করার কথা ছিল।

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here