ফুটবল মৌসুমের প্রথম হার বার্সেলোনার

    0
    13

    আমারসিলেট24ডটকম,২৭নভেম্বরঃ  ফুটবল খেলার চলতি মৌসুমের প্রথমেই হার বরণ করে নিলো ফুটবল জায়ন্ট বার্সেলোনা। দ্বিতীয়ার্ধের প্রায় পুরোটা সময় ১০জনের দল নিয়ে খেলেও ডাচ চ্যাম্পিয়ন আয়াক্স গতকাল টুর্নামেন্টের অন্যতম ফেবারিট বার্সেলোনাকে ২-১ গোলে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শেষ ১৬তে যাবার সম্ভাবনা দারুনভাবে টিকিয়ে রাখলো। প্রথমার্ধেই থিলানি সেরেরো এবং ড্যানি হোয়েসেনের গোলে এগিয়ে যাওয়া স্বাগতিকদের আর দ্বিতীয়ার্ধে ধরতে পারেনি সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। যদিও ৪৮ মিনিটে গোল এরিয়ার মধ্যে নেইমারকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখে জোয়েল ভেলটমান মাঠ ছেড়ে বাইরে চলে গেলে ১০ জনের দলে পরিনত হয়েছিল আয়াক্স। সে পরিস্থিতি থেকে প্রাপ্ত পেনাল্টিতে একটি গোল পরিশোধ করেন জাভি। কিন্তু দলের পরাজয় ঠেকাতে তা যথেষ্ট ছিল না বলে ধারণা করা হচ্ছে।

    এ গোলের পরপরই কাতালানরা ম্যাচে সমতা ফেরাতে মরিয়া হয়ে উঠলেও আয়াক্সের শক্তিশালী রক্ষনবূহ্যকে ভাঙ্গতে পারেনি। তারই ফলস্বরুপ যেকোন প্রতিযোগিতায় চলতি মৌসুমে প্রথম হারের তিক্ত স্বাদ পায় জেরার্ডো মার্টিনোর দল। এ পরাজয়ে মার্টিনোকে আরেকবার তার ইনজুরি আক্রান্ত খেলোয়াড়দের নিয়ে নতুন করে ভাবতে বাধ্য করেছে। মূল খেলোয়াড়দের ইনজুরির সুবাদে তিনি প্যাট্রিক, সার্জিও রবার্তো, আদামা ট্র্যায়োরের মত তরুন খেলোয়াড়দের মাঠে নামাতে বাধ্য হন। কিন্তু কোচের আশা পূরণ করতে তারা ব্যর্থ হয়েছেন।
    দিনের অপর ম্যাচে গ্ল্যাসগোতে স্বাগতিক সেলটিককে ৩-০ গোলে পরাজিত করে গ্রুপ-এইচ এর দ্বিতীয় দল হিসেবে এসি মিলান মূল্যবান তিন পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। আর তাই জিতলেও আয়াক্স মিলানের থেকে এক পয়েন্ট পিছিয়ে তৃতীয় স্থানেই রয়েছে। দুই সপ্তাহ পরে ইতালিতে দুই দলের লড়াইয়ে বিজয়ী দলই শেষ ১৬’র টিকেট নিশ্চিত করবে।
    দলের তারকা খেলোয়াড় লিয়নেল মেসিসহ বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়ের ইনজুরির দু:শ্চিন্তা নিয়েই ডাচ ক্লাবটির মুখোমুখি হয়েছিল মার্টিনো বাহিনী। যদিও ইতোমধ্যেই নক আউটের টিকেট পাওয়ায় বেশ নির্ভার হয়েই নেদারল্যান্ড সফরে এসেছিল কাতালানরা। কিন্তু তরুণ আয়াক্স দলটির তারুন্যদীপ্ত সাহসিকতা ও বল নিয়ন্ত্রনের গুনাবলীর কাছে শেষ পর্যন্ত পেরে উঠেনি সফরকারীরা। ১১ মিনিটেই ভিক্টর ফিশারের একটি শট বার্সা গোলরক্ষক হোসে ম্যানুয়েল পিন্টো বাম দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে রক্ষা করেন। কিন্তু এর আট মিনিট পরে সেরেরোর প্রচেস্টা আর রক্ষা করতে পারেননি নিয়মিত গোলরক্ষক ভিক্টর ভালদেসের ইনজুরির সুবাদে মাঠে নামা তৃতীয় গোলরক্ষক পিন্টো।
    রিকার্ডো ভ্যান রিনজেসর লো ক্রস থেকে সেরেরো ১৯ মিনিটে গোল করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন। ছয় মিনিট পরে বার্সার গোল পরিশোধের সুযোগ এসেছিল। পেড্রোর পাস থেকে নেইমার সে প্রচেষ্টা নষ্ট করলে বার্সার সমতায় আসা হয়নি। লাসে সোনের আরেকটি শট পিন্টো দারুনভাবে রক্ষা করলেও বার্সেলোনার ডিফেন্স ৪২ মিনিটে আরেকবার হোচট খায়। ফিশারের প্রথম প্রচেষ্টা আরো একবার পিন্টো ভালভাবে আটকাতে সক্ষম হলেও ফিরতি বলে হোয়েসেন জেরার্ড পিকে এবং কার্লেস পুয়লকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ালে স্বাগতিক শিবির উল্লাসে ফেটে পড়ে।
    বিরতির দুই মিনিট পরে বার্সা যেন হঠাৎ করে জীবন ফিরে পায়। গোল এরিয়ার মধ্যে ভেলটমান নেইমারকে ফাউল করলে রেফারী পেনাল্টির নির্দেশ দেন। মেসির অনুপস্থিতিতে স্পট কিকের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন জাভি। সেই দায়িত্ব তিনি যথাযথ ভাবেই পালন করেছে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here