পাকিস্তানের নির্বাচনে জয়ের পথে নওয়াজ শরিফ

    0
    4

    ঢাকা, ১২ মে: পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ নিজের দলকে বিজয় দাবি করেছেন। তবে নির্বাচনের ফলাফলে তার দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ সুস্পষ্টভাবে এগিয়ে আছে। পর্যবেক্ষকেরা বলছেন, তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন নওয়াজ। গতকাল শনিবার পাকিস্তানের প্রতীক্ষিত সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দেশটির ৬৬ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত কোনো সরকার মেয়াদ পূর্ণ করার পর পরবর্তী নির্বাচিত সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে যাচ্ছে।
    পাকিস্তানের স্থানীয় গণমাধ্যমের উদ্ধৃতি দিয়ে আজ রবিবার আন্তর্জাতিক একাধিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, আজ রবিবার সকাল পর্যন্ত ভোট গণনার ফলাফলে দেখা যায়, নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ (পিএমএল-এন) ১২৬টি আসন পেয়েছেন। সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের দল তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পেয়েছে ৩৪ আসন। ক্ষমতা থেকে সদ্য বিদায়ী পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ৩২টি আসনে জিতেছে। কোনো দল বা জোটকে এককভাবে ক্ষমতায় যেতে হলে ৩৪২ আসন বিশিষ্ট ন্যাশনাল এসেম্বলি অব পাকিস্তানের কমপক্ষে ১৭২টি আসন পেতে হবে। আর ১৭২টি আসন পেতে ব্যর্থ হলে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট গঠিত হবে। দেশের ১৪তম সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী মূল দলগুলো হলো পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি), পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন), মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম), পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টি (এএনপি), মুত্তাহিদ মজলিস-ই-আলাম (এমএমএ) ও জামায়াতে ইসলামী।
    জাতীয় পরিষদের ৩৪২ আসনের মধ্যে ২৭২টিতে সরাসরি নির্বাচন হয়েছে। অন্য আসনগুলো সংরক্ষিত। নির্বাচনে ভোটারের সংখ্যা ছিল আট কোটি ৬০ লাখের বেশি। এর মধ্যে নারী ভোটারের সংখ্যা প্রায় তিন কোটি ৭০ লাখ। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, প্রায় ৬০ শতাংশ ভোট পড়েছে। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের পর এটাই সর্বোচ্চ।
    এদিকে গতকাল শনিবার রাতে লাহোরে নির্বাচনী প্রচারণার সদরদপ্তরে সমর্থকদের উদ্দেশে ৬৩ বছর বয়সী নওয়াজ বলেন, আমরা আল্লাহকে ধন্যবাদ জানাই তিনি পিএমএল-এনকে আবারও পাকিস্তানকে ও আপনাদেরকে সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। এসময় তৃতীয় বারের মতো বিজয় পাওয়া নওয়াজ শরীফের সমর্থকদের নানা স্লোগানে আনন্দ উল্লাস করতে দেখা গেছে। অন্য দলগুলোর উদ্দেশে তিনি বলেন, আমি সব দলকে একই টেবিলে বসার জন্য অনুরোধ জানাই। যাতে করে দেশের সমস্যা সমাধান করা যায়।
    এর আগে গতকাল শনিবার করাচির ৭টি আসন বাদে পাকিস্তানের ১৪তম সাধারণ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ হয় সন্ধ্যা ৬টায়। বিকেল ৫টার মধ্যে ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ভোট গ্রহণ কেন্দ্রগুলোতে দীর্ঘ লাইন থাকায় দেশজুড়ে ভোট গ্রহণের সময় এক ঘণ্টা বাড়ায় নির্বাচন কমিশন। করাচির ৭টি আসনে স্থানীয় সময় রাত ৮টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে।
    নির্বাচন চলাকালে বোমা হামলাসহ বিভিন্নস্থানে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল নির্বাচনে জালিয়াতি আর কারচুপির অভিযোগ তুলেছে। বিভিন্ন স্থানে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলো ভোট কারচুপি, জালিয়াতের অভিযোগ তুলেছে।
    প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নওয়াজ শরীফ এর আগে দুইবার দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু দু’বারই মেয়াদ পূর্ণ করতে পারেননি তিনি। প্রথমবারের (১৯৯০-৯৩) মেয়াদকালে দুর্নীতির কারণে তিনি বরখাস্ত হন। দ্বিতীয় মেয়াদকালে (১৯৯৭-৯৯) তিনি জেনারেল পারভেজ মোশাররফের সামরিক অভ্যুথ্থানে ক্ষমতাচ্যূত হন।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here