দলিল লিখক ও সাব-রেজিস্ট্রারের যোগসাজসে জাল দলিলে তোলপাড়

    0
    107

    নূরুজ্জামান ফারুকী নবীগঞ্জঃ  নবীগঞ্জে একটি জাল দলিল নিয়ে এলাকায় শুরু হয়েছে তোলপাড়। রেজিস্ট্রিতে অবৈধ পথ ব্যবহার করায় দলিল লিখক ও সাব রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। জানা যায়, নবীগঞ্জ পৌরসভার শিবপাশা মৌজার ৬৯৪ খতিয়ানের ১৫৫৬,১৫৫৭ দাগের ১২৯১ শতাংশের বাড়ী ও পুকুরের মূল মালিক পৌর এলাকার অনমনু গ্রামের মৃত ইছরান উল্লার পুত্র হিরন মিয়া। কাগজে কলমে এ জায়গার মূল মালিক হিরন মিয়া হলেও জাল-জালিয়াতি করে ৬৯৪ খতিয়ানের ১৫৫৬,১৫৫৭ দাগের ১২৯১ শতাংশের তিন শতক ৬৩ পয়েন্ট জায়গা মধু বিবি নামে এক মহিলা দলিল লিখক আব্দুর রকিবের মাধ্যমে জাল দলিল করে নেন। জুলাই মাসের ১৩ তারিখ সম্পাদিত ২৩০৬ নং জাল দলিলে নবীগঞ্জ উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার নির্মল বমন বিশ্বাসের স্বাক্ষরও পাওয়া যায়। জাল দলিলটির রেজিস্ট্রিতে সাক্ষ্য দেন মধু বিবির পুত্র জিকু আহমেদ ও সোয়া মিয়া চৌধুরীর পুত্র উজ্জ্বল আহমেদ চৌধুরী।

    জাল দলিল কিভাবে রেজিস্ট্রি করা হল, জানতে চাইলে সাব-রেজিস্ট্রার নির্মল বমন বিশ্বাস বলেন, ‘দলিল জাল কি না, এটা আমার দেখার বিষয় নয়। দলিল লিখকরা আমার কাছে রেজিস্ট্রি করতে নিয়ে আসলে স্বাক্ষর করে দেই।’

    সচেতনমহল মনে করছেন, একজন সরকারি কর্মকর্তা রক্ষক হয়ে যদি বক্ষকের কাজ করেন তাহলে সমাজের পরিণতি ভয়াবহ হতে বাধ্য