Thursday 22nd of October 2020 04:23:32 AM
Saturday 30th of May 2015 02:23:33 PM

তিস্তা নিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলবেন মোদীঃআনন্দবাজার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আমার সিলেট ২৪.কম
তিস্তা নিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলবেন মোদীঃআনন্দবাজার

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,৩০মে: বাংলাদেশ সফরে এসে তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে প্রকাশ্যে কোনো কথা বলবেন না ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে শেখ হাসিনার সঙ্গে এই নিয়ে একান্তে কথা বলবেন তিনি। আজ এমনটাই খবর দিয়েছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা।

আনন্দবাজার যা লিখেছেঃ এ যাত্রা তিস্তা চুক্তি না-করার আশ্বাসে তার আসন্ন ঢাকা সফরে সঙ্গী হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। তবে বাংলাদেশে গিয়ে তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে প্রকাশ্যে কোনো কথা না-বললেও শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনা করে জট ছাড়াতে উদ্যোগী হবেন প্রধানমন্ত্রী। এবং তাতে কোনো আপত্তি নেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর।

মোদির বাংলাদেশ সফর নিয়ে সম্প্রতি তার সঙ্গে বৈঠক করেছেন ভারতে নিযুক্ত সে দেশের হাই কমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলি। সেই বৈঠকেই মোদি জানিয়ে দিয়েছেন, তার সফরের অগ্রাধিকার কী। বাংলাদেশের সঙ্গে স্থলসীমান্ত চুক্তি সংসদের অনুমোদন পাওয়ার পরে সেই চুক্তি স্বাক্ষর করতেই ৬ জুন ঢাকা যাচ্ছেন মোদি। তিনি মনে করেন, স্থলসীমান্ত চুক্তি করাটা মোটেই ছোটখাটো ব্যাপার নয়। এর ফলে দু’দেশের কয়েক লক্ষ মানুষের দীর্ঘ কয়েক দশকের সমস্যার সমাধান হবে। এই চুক্তি নিয়ে নানা রাজ্যে বহু মতপার্থক্য ছিল। সে সবের নিরসন ঘটিয়ে দু’দেশের মধ্যে সীমান্তরেখা চূড়ান্ত করাকে ঐতিহাসিক ঘটনা বলেই মনে করছে ভারত সরকার।

স্থলসীমান্ত চুক্তির পরে যে বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের প্রত্যাশা সব চেয়ে বেশি, সেটা অবশ্যই তিস্তা। এ নিয়ে জটিলতা কী ভাবে কাটবে, তা এখনও স্পষ্ট নয়। মোয়াজ্জেম আলি শুক্রবার বলেন, ‘‘২০১১ সালে তিস্তা চুক্তির একটি খসড়া তৈরি হয়েছিল। তার ভিত্তিতেই দু’দেশের মধ্যে আলোচনা হয়।’’ কিন্তু ওই খসড়া নিয়ে আপত্তি তুলেছিলেন মমতা। তার যুক্তি ছিল, যে সূত্র মেনে পানিবণ্টনের কথা বলা হচ্ছে, তাতে পশ্চিমবঙ্গ, বিশেষ করে উত্তরবঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে গিয়ে তিস্তা চুক্তি স্বাক্ষর করে ফেলতে চেয়েছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ। কিন্তু মমতার আপত্তির জেরে তাকে পিছিয়ে আসতে হয়। কেন্দ্র তাকে না-জানিয়ে চুক্তি নিয়ে অগ্রসর হয়েছে, এই অভিযোগে মনমোহনের সঙ্গে ঢাকা যেতেও অস্বীকার করেন মমতা। কিন্তু তিনি যে তিস্তা চুক্তির বিরোধী নন, সে কথা একাধিক বার বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। গত ২০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা গিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করে এসেছেন তিনি।

মমতার বক্তব্য, তিস্তা জট ছাড়াতে আলোচনার মাধ্যমে কূটনৈতিক পথ নির্দেশিকা খুঁজে বের করার ব্যাপারে তার কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু চুক্তিটা এমন ভাবে করা হোক, যাতে পশ্চিমবঙ্গের কোনো সমস্যা না হয়। কিন্তু ঘটনা হলো, ২০১১ সালের খসড়া চুক্তির পরে নতুন করে আর কোনো খসড়া তৈরি হয়নি। ফলে সমাধানসূত্র এখনও অধরা। তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বৃহস্পতিবার ফোন করে মমতাকে আশ্বাস দিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গের স্বার্থকে আঘাত করে বাংলাদেশের সঙ্গে কোনো চুক্তি দিল্লি করবে না।

অন্য দিকে বাংলাদেশ চাইছে, দু’দেশের মধ্যে দিয়ে বয়ে যাওয়া অন্য নদীগুলির পানিবণ্টন নিয়েও পারস্পরিক সমঝোতা হোক। দু’দেশের উপর দিয়েই গিয়েছে এমন নদীর সংখ্যা ৫৪। মোয়াজ্জেম আলি বলেন, ‘‘গঙ্গা ও তিস্তা ছাড়া বাকি ৫২টি নদী নিয়েও দু’দেশের মধ্যে দ্রুত আলোচনা শুরু হওয়া উচিত। সে জন্য জয়েন্ট বেসিন ম্যানেজমেন্টকে কার্যকর করে তুলতে হবে।’’

এখনও পর্যন্ত ঠিক আছে, মমতা ৬ জুন সন্ধেবেলা ঢাকা যাবেন। পর দিন সন্ধেয় ফিরে আসবেন। রোববার ৭ তারিখ দু’দেশের মধ্যে স্থলসীমান্ত চুক্তি সই হওয়ার কথা। সেই অনুষ্ঠানে মোদির পাশে থাকবেন মমতা। তবে বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রীর সব কর্মসূচিতে তিনি উপস্থিত থাকবেন না। মোয়াজ্জেম আলি বলেন, ‘‘৩৬ ঘণ্টার সফরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠক করবেন নরেন্দ্র মোদি। রাতে তিনি সরকারি নৈশভোজে যোগ দেবেন। এ ছাড়া বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর অবদানকে স্বৃীকতি দেবে শেখ হাসিনা সরকার।

বাজপেয়ীর হয়ে ওই সম্মান গ্রহণ করবেন মোদি।’’ বাংলাদেশ সরকার আয়োজিত এই সব অনুষ্ঠানের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ঢাকার রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমে যাবেন। সেখানে তাকে স্বাগত জানাবেন বেলুড় মঠের সাধারণ সম্পাদক স্বামী সুহিতানন্দ। এ ছাড়া ঢাকেশ্বরী কালীবাড়ি, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল মিউজিয়ামে যাওয়ার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।সূত্রঃ বিবিসি


সম্পাদনা: News Desk, নিউজরুম এডিটর

আমারসিলেট২৪.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Place for advertisement
Place for advertisement

সর্বশেষ সংবাদ


সর্বাধিক পঠিত

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc