জামায়াতকে নিষিদ্ধ এবং যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির দাবিতে ওলামাদের সমাবেশ

    0
    4
    জামায়াতকে নিষিদ্ধ এবং যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির দাবি জানিয়ে আসা ওলামাদের সমাবেশ চলছে। Farid Uddin Masood

    ‘বাংলাদেশ ওলামায়ে মাশায়েখ তৌহিদী জনতা সংহতি পরিষদ’র ডাকে মতিঝিলে শনিবার জোহরের নামাজের পর এই সমাবেশ শুরু হয়।

    এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে মতিঝিল এলাকায় গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থাও নেয়া হয়েছে বলে মতিঝিল থানার ওসি হায়াতুজ্জামান জানিয়েছেন।

    যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে গণজাগরণ আন্দোলন থেকে জামায়াত নিষিদ্ধের দাবি ওঠার পর কয়েকটি ইসলামী সংগঠন শাহবাগের আন্দোলন প্রতিহতের ডাক দেয়। তাদের সমাবেশ থেকে যুদ্ধাপরাধী দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মুক্তির দাবিও ওঠে। 

    তারা গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলনকারীদের ‘নাস্তিক’ ও ‘অনৈসলামিক’ আখ্যা দিয়ে আন্দোলনের কর্মসূচি দেয়।

    তবে শাহবাগের আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, কোনো ধর্মকে আঘাত করার কোনো কার্যক্রম তাদের নেই। যুদ্ধাপরাধী দল হিসেবে শুধু জামায়াত নিষিদ্ধের দাবি রয়েছে তাদের। 

    এরপর দেশের বৃহত্তম ঈদ জামাত শোলকিয়ার ইমাম মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের নেতৃত্বে গঠিত ‘বাংলাদেশ ওলামায়ে মাশায়েখ তৌহিদী জনতা সংহতি পরিষদ’ জামায়াত নিষিদ্ধের দাবি তোলে।

    কুরআন তিলওয়াতের মধ্য দিয়ে দুপুর আড়াইটার দিকে সমাবেশ শুরু হয়। তবে তার আগে সকাল ১০টা থেকে শাপলা চত্বরে মঞ্চে পরিষদের নেতারা জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধের দাবির যৌক্তিকতা তুলে ধরেন।

    ‘ওয়ার্ক ফর দ্বীন ইসলাম, নট ফর জামায়াত ইসলাম’ স্লোগানের সঙ্গে সঙ্গে মঞ্চে বক্তব্যের পাশাপাশি হামদ ও নাতে রাসুলের পরিবেশনা চলে।

    পরিষদের সদস্য মাওলানা সাঈদ নিজামী সাংবাদিকদের বলেন, “মওদুদীবাদী জামায়াত পথভ্রষ্ট, কুরআন হাদিসের পরিপন্থী। তাদের দলে শরিক হওয়া, সাথে কাজ করা ও সহযোগিতা করা জায়েজ হবে না। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের ষড়যন্ত্র রুখে দাঁড়াতে হবে।”

    বাংলাদেশ কওমী শিক্ষার্থী পরিষদের সভাপতি মোর্তুজা আল হোসাইন বলেন, জামায়াত ইসলামবিরোধী কাজ করে যাচ্ছে।

    “তাদের নেতা মওদুদী কুরআনের অপব্যাখ্যা করেন ও নবী-রাসূল নিয়ে কটূক্তি করেছেন। তারা পীর ওলামাদের যোগ্য সম্মান দেন না।”

    ধর্মের নামে একাত্তরে বাঙালিদের নির্যাতন এবং নারীদের ধর্ষণের জন্য জামায়াতকে দায়ী করে দলটিকে নিষিদ্ধের দাবি জানান আল হোসাইন।

    সমাবেশে যোগ দিতে সিলেট থেকে আসা মাওলানা আবদুস সাকি বলেন, “বাংলাদেশের মানুষের দাবি এ দেশে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে হবে। ওলামা সমাজের দাবিও এক ও অভিন্ন।”

    সমাবেশের নিরাপত্তার বিষয়ে মতিঝিল থানার ওসি হায়াতুজ্জামান বলেন, “পুলিশ যথেষ্ট নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে। নিরাপত্তার প্রয়োজনেই সমাবেশ সংলগ্ন রাস্তাগুলো আপাতত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।”

    জামায়াতবিরোধী ওলামাদের হত্যার পরিকল্পনা ছাত্রশিবিরের রয়েছে বলে চট্টগ্রাম পুলিশ সম্প্রতি জানিয়েছে। এই অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে।  

     

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here