চরম ব্যাটিং ব্যর্থতায় স্কটল্যান্ডের কাছে বাংলাদেশের পরাজয়

0
58
চরম ব্যাটিং ব্যর্থতায় স্কটল্যান্ডের কাছে বাংলাদেশের পরাজয়

আমার সিলেট ডেস্কঃ  বাংলাদেশ চরম ব্যাটিং ব্যর্থতায় স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হেরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ মিশন শুরু করল । ওমানের আল আমিরাত ক্রিকেট গ্রাউন্ডে আগে টসে হেরে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৪০ রান সংগ্রহ করে স্কটিশরা। জবাবে ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১৩৪ রান করে মাহমুদুল্লাহর দল।

রোববার ১৭ অক্টোবর ওমানের মাস্কাটে স্কটল্যান্ডের দেওয়া ১৪১ রানের তাড়ায় শুরুটা মোটেই ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দুই ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকার সমান ৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন।

দলীয় ১৮ রানে দুই ওপেনারের উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়ে বাংলাদেশ। শুরুর ধকলে রানের চাকা স্লোথ হয়ে যায় টাইগারদের। টি-টোয়েন্টি ম্যাচ টেস্টের আদলে খেলেন দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম।

বল ও রানের ব্যবধান দ্রুত বাড়ছিল। দরকার ছিল বাউন্ডারির। নবম ওভারের এক পর্যায়ে ওভার প্রতি বাংলাদেশের প্রয়োজন দাঁড়িয়েছিল ৯ করে। মাইকেল লিস্ককে পরপর দুই ওভার সুইপ ও স্লগ সুইপ করে ছক্কায় ওড়ান মুশফিক।

মুশফিকের দুই ছক্কায় স্বস্তি পায় বাংলাদেশ। স্বস্তি পান মুশফিকও। টানা ব্যর্থতার পর অবশেষে কাঙ্ক্ষিত ফর্ম ফিরে পান।

মুশফিককে সঙ্গ দিয়ে গেলেও ব্যাটে-বলে টাইমিং হচ্ছিল না সাকিবের শুরু থেকেই। ওভারে ১৮ রান নিয়ে আবার রিকোয়্যার্ড রান রেট আটের আশেপাশে নামিয়ে আনেন মুশফিক।

৯ ওভারে বাংলাদেশের স্কোর তখন ২ উইকেটে ৫২। কিন্তু এর কিছু পরেই সাকিব মেজাজ হারান। ১২তম ওভারের প্রথম বলে গ্রেভসকে ছক্কা হাঁকাতে যান। কিন্তু বেশ ক্লান্তিমাখা শট বাউন্ডারি পেরুতে পারেনি। দড়ির ঠিক আগেই দুর্দান্ত ক্যাচ ধরেন ম্যাকলিওড।

২৭ বলে ২০ রান করে সাজঘরে ফেরেন সাকিব। এর এক ওভার পরেই বাংলাদেশ সমর্থকদের আবার হতাশায় ডোবান গ্রেভস।

এবার তার শিকার সদ্য ফর্মে ফেরা মুশফিক। আগের ওভারে আসে মাত্র ১ রান। সাকিবের মতো মেজাজ হারান মুশফিকও। রানের গতি বাড়াতে তাই ক্রিস গ্রিভসের পরের ওভারে প্রথম বলে স্কুপ করে বাউন্ডারির চেষ্টা করলেন মুশফিক রহিম। ৩৮ রানে উইকেটে থিথু হয়ে থাকা মুশফিক সরাসরি বোল্ড হয়ে যান।

সাকিব ও মুশফিককে দ্রুত হারিয়ে ফের চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে দলকে উদ্ধারে ব্যাট হাতে নামেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ও আফিফ হোসেন।

কিন্তু এই লড়াইয়ে বেশি দূর যেতে পারেননি অলরাউন্ডার আফিফ। ১৬ বলে যখন দরকার ৩৫ রান, উদ্বেগ দেখা দেয় আফিফের মাঝে।

ওয়াটের বলে বাউন্ডারি মারতে গিয়ে ধরা পড়েন দাভেয়ের হাত। ১০ বলে ১৭ রানের ইনিংসের সমাপ্তি ঘটে। আফিফের চলে যাওয়ার পর নামেন উইকেটকিপার নুরুল হাসান সোহান। ওমানের বিপক্ষে ও প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ খেলেছেন তিনি। কিন্তু মূল পর্বে এসে সুপার ফ্লপ হলেন। ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ২ রানে ফেরেন তিনি।

শেষ দিকে লড়াই চালিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ ও মেহেদী হাসান। কিন্তু তারা কেবল পরাজয়ের ব্যবধানটাই কমাতে পেরেছেন। নুরুল হাসান আউট হওয়ার পরের বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে উত্তেজনা ছড়ান মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু এর এক বল পরে হোয়েলের পঞ্চম ডেলিভারিতে ক্যাচ তুলে দিন তিনি। ২২ বলে ২৩ রানে ফেরেন তিনি।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই আউট হয়ে যান স্কটিশ অধিনায়ক কাইল কোয়েটজার। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের দুর্দান্ত এক ইয়ার্কারে রানের খাতা খোলার আগেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। ইনিংসের অষ্টম ওভারে শেখ মেহেদী হাসানকে আক্রমণে নিয়ে আসেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বোলিংয়ে এসে মেহেদীর জোড়া আঘাত। শিকার বানান জর্জ মুন্সি ও ম্যাথিউ ক্রসকে। উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ক্রস ১১ ও ২৯ রান করে আউট হন জর্জ।

বোলিংয়ে বাংলাদেশও ঘুরে দাঁড়ায়। একে একে ফিরিয়ে দেন স্কটল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের। মেহেদীর সঙ্গে বোলিংয়ে দারুণ খেলেন সাকিব আল হাসান। নিজের  তৃতীয় ওভারে জোড়া সাফল্য পান বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার। প্রথমে রিচি বেরিংটনকে সীমানায় আফিফের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট করার পর মাইকেল লিস্ককেও আউট করেন সাকিব। এই দুই উইকেট তুলে বিশ্বরেকর্ড গড়েন সাকিব। ১০৮ উইকেট নিয়ে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সর্বাধিক উইকেট শিকারি বনে যান টাইগার অলরাউন্ডার। ছাড়িয়ে যান আগের সর্বোচ্চ ১০৭ উইকেট নিয়ে ক্যারিয়ার শেষ করা লাসিথ মালিঙ্গাকে।

সাকিবের জোড়া আঘাতের পর মেহেদী এসে তুলে নেন ক্যালাম ম্যাকলয়েডকে। এই স্কটিশ আউট হন ৫ রান করে। নিজের কোটার ৪ ওভারে ১৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট পান অফ স্পিনার মেহেদী। এই ফরম্যাটে এটি তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। দলীয় ৫৩ রান তুলতেই ৬ উইকেট হারিয়ে ধুকতে থাকে স্কটল্যান্ড। সপ্তম উইকেটে পার্টনারশিপ জমিয়ে তোলেন মার্ক ওয়াট আর ক্রিস গ্রিভস। তাদের জুটি থেকে আসে ৫১ রান। ২২ রানে থাকা ওয়াটকে ফিরিয়ে এই জোট ভাঙেন তাসকিন।

শেষদিকে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন গ্রিভস। ইনিংসের শেষ ওভারে মুস্তাফিজুর রহমানের বলে আউট হওয়ার আগে তার ২৮ বলে খেলা ৪৫ রানের ইনিংসের কল্যাণে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে স্কোর বোর্ডে ১৪০ রানের পুঁজি পায় স্কটল্যান্ড।

বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ তিন উইকেট নিয়েছেন মেহেদী হাসান। চার ওভারে ১৯ রান খরচা করেছেন তিনি। সাকিব ১৭ রান দিয়ে নিয়েছেন দুই উইকেট। মুস্তাফিজ ৩২ রান দিয়ে নিয়েছেন সমান দুই উইকেট। সাইফউদ্দিন এক উইকেট নিয়ে দিয়েছেন ৩০ রান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here