Thursday 17th of October 2019 11:57:33 PM
Sunday 16th of August 2015 12:20:05 AM

হবিগঞ্জের খাদেম সফিকের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ

দূর্ণীতি ডেস্ক
আমার সিলেট ২৪.কম
হবিগঞ্জের খাদেম সফিকের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ

আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,১৬আগস্ট,ফারুক মিয়া : হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে এক  খাদেমের তান্ডবে ও দূর্নীতিতে মুড়ারবন্দ গ্রামবাসীরা অতিষ্ট। দরগার পাশে অবস্থিত জামে মসজিদ নিয়ে বিরোধ থেকে আত্মসাত ও দূর্নীতির কারণে মুড়ারবন্দ মাজারের খাদেম সফিকের বিরুদ্ধে  অভিযোগ উঠেছে। মসজিদের আসল প্রকৃত মালিক হলেন আপন দুই ভাই জরিপ মুন্সী ও আঃ ছাত্তার নামে দুই ব্যক্তি। পরে গ্রামের লোকজন বাঁশের চাউনী, ছনের ঘর, মাটির ঘর ও টিনের ঘর নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ধরে মসজিদে নামাজ পড়ে আসছেন। পূনরায় গ্রামবাসীর সহযোগিতায় বিভিন্ন জায়গা থেকে দান খয়রাত তুলে উক্ত মসজিদটি পাকা করে নির্মাণ করে তুলেছেন।

ঐ মসজিদের ইমাম ছিলেন মুড়াবন্দ গ্রামের বাসিন্দা মরহুম আঃ রউফ মাষ্টার সাহেব। তিনি ২০০২ সালে ইন্তেকাল করেন। আঃ রউফ মাষ্টার সাহেব ২০০২ সাল পর্যন্ত মুড়ারবন্দ মসজিদের ইমাম ও মোতাওয়াল্লীর দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

মসজিদ পরিচালনায় স্থানীয় মুড়ারবন্দ গ্রামের মৃত হাজী মনফর উল্লা, মৃত ফুল মিয়া, মৃত নুর মিয়া, মৃত ইমান আলী, মৃত কুরবান আলী, মৃত হাজী আমজাদ আলী, মৃত হাজী আতাব উল্লা, মৃত হাজী আমান উল্লা সহ, মোয়াজ্জিন মৃত নঈমুল্লা ছকিদার সহ আরও অনেকে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। মুড়ারবন্দ গ্রামের মাধ্যমে মসজিদটি পরিচালিত হয়ে আসছে। খাদেম পক্ষের কোন লোকজন মসজিদ পরিচালনায় ছিল না। আঃ রউফ মাষ্টার সাহেব মারা যাওয়ার পর ২০০৩ সাল থেকে আঃ হামিদ ওরফে (জাহেদ মিয়া) ও হাফেজ ফারুক আহমদ এর উপর মসজিদের দায়িত্ব অর্পন করে গ্রামবাসীরা। সভাপতি জাহেদ মিয়া ও ক্যাশিয়ার হাফেজ ফারুক আহমদ এই ভাবে কিছুদিন যাওয়ার পর মুড়ারবন্দ গ্রামের জামে মসজিদ এর নাম পরিবর্তন করে মুড়ারবন্দ দরগা জামে মসজিদ রাখা হয়।

তার কিছুদিন পর এই নামটিও পরিবর্তন করে রাখা হয় দরগা শরীফ জামে মসজিদ। এই পরিবর্তন দেখে গ্রামের লোকজন ঝাপিয়া পড়িলে খাদেম সফিক, তোফায়েল, লিমন তাহারা বলে মসজিদটি আমাদের পূর্ব পুরুষের মসজিদ বলে দাবী করে পায়তারা করে আসছে। পরে দেখা যায় ঐ মসজিদ বিরোধ নিয়ে ৬টি পর্চা জালিয়াতী করে দখলের চেষ্টা করে আসছে। খাদেম সফিকের পরিবারের লোকজনের নামে মসজিদের জায়গাটি সে সেটেলমেন্টকে হাত করে ভূয়া কাগজপত্র দেখিয়ে পর্চা তৈরি করে। গ্রামবাসীর পক্ষে সৈয়দ কবির আহমদ ভূয়া কাগজপত্রের বিরুদ্ধে ৩০ ধারায় সেটেলমেন্ট আপত্তি করেন। তদন্ত করে সেটেলমেন্ট আপত্তি অফিসার জিতেন্দ্র চন্দ্র দাশ মুড়ারবন্দ দরগা জামে মসজিদের নামে দুই দাগে ২৪ শতক পর্চা প্রদান করে এবং পূর্বের ভূয়া ৬টি পর্চা বাতিল ঘোষণা করে।

খাদেম সফিকের অপকর্মের ব্যাপারে সদর ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ লিয়াকত হাসানকে অবহিত করলে তিনি বলেন, গ্রামবাসীরা নতুন করে কমিটির গঠন করা হোব। পরে মুড়ারবন্দ দরগা জামে মসজিদের ১১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। গত ১৪/০৮/২০১৫ ইং তারিখে পূর্বের সভাপতি জাহেদ মিয়া ও ক্যাশিয়ার হাফেজ ফারুক আহমদ মুড়ারবন্দ দরগা জামে মসজিদের নতুন কমিটির নিকট ১ বৎসর ৬ মাসের হিসাব সমজাইয়া দেন। খরচ বাদ দিয়ে ৫৬ হাজার ৪শ ৭৮ টাকা দেন। ২০০৩ সাল থেকে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত হিসাব জানতে চাইলে তারা বলেন খাদেম সফিক, লিমন, তোফায়েল এর নাম উল্লেখ করেন।

গ্রামবাসীরা বলেন- খাদেম সফিকের বাবা চাচা তারা কোন কালে মসজিদের দায়িত্বে ছিল না আপনার যদি তাদের নিকট হিসাব দিয়া থাকেন ৭ দিনের মধ্যে ১১ বৎসরের হিসাব নতুন কমিটির সকলের নিকট বুঝাইয়া দিবেন অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। খাদেম সফিক গ্রামের লোকজনকে বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় জড়াইয়া দিবে। গ্রামের লোকদের শান্তিতে বসবাস করতে দিবে না। সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের হুমকি-ধামকি দেয়। খাদেম সফিকের ঘরে বিভিন্ন সময় দূর দূরান্ত এলাকা থেকে অচেনা লোকজনের আড্ডার ফাড়ি জমায় ও লোকদেরকে দিয়ে গ্রামের লোকজনকে বিভিন্ন ভাবে ভয়-ভীতি দেখিয়ে আসছে। খাদেম সফিক লোকজনদেরকে বলিয়া বেড়ায় মসজিদের জমি নাকি তার পূর্ব পুরুষের ওয়াকফ ষ্টেটে দেওয়া।

২০০৩ সালে ওয়াকফ ষ্টেটে একটি মামলা হয় মামলা নং- ২৮১। ইহার তদন্ত করে তদন্ত রিপোর্টে আসে যে, মসজিদের ভূমি ওয়াকফ ষ্টেটে দেয়া হয়নি। বর্তমানে খাদেম সফিক নতুন করে ভূয়া কাগজপত্র সেটেলমেন্ট অফিস থেকে তৈরি করে ওয়াকফ ষ্টেটে মসজিদের জমিটি নেয়ার জন্য পায়তারা করে আসছে। মসজিদের জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে খাদেম সফিক মিয়া বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় কয়েকজনকে আসামী করে মিথ্যা বানোয়াট মামলা দিয়ে হয়রানী করিতেছে।

এ ব্যাপারে মুড়ারবন্দ মসজিদ কমিটি ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা খাদেম সফিকের নির্যাতন ও দূর্নীতির কারণে তারা সকলেই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন এলাকাবাসীরা।


সম্পাদনা: News Desk, নিউজরুম এডিটর

আমারসিলেট২৪.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Place for advertisement
Place for advertisement

সর্বশেষ সংবাদ


সর্বাধিক পঠিত

এডিটর: আনিছুল ইসলাম আশরাফী, এনিমেটরস্ বাংলা মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
সম্পাদকীয় কার্যালয়: কলেজ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
Email: news.amarsylhet24@gmail.com Mobile: 01772 968 710

Developed By : i-Tech Sreemangal
Email : itech.official@hotmail.com
Facebook : http://facebook.com/itech.ctc