কানাইঘাটে ছাত্রলীগ-ছাত্রশিবির ও ছাত্রদলের ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত ৫

    1
    6

    আমার সিলেট ২৪.কম, ১৯ আগস্ট, কানাইঘাট প্রতিনিধি : কানাইঘাটে ছাত্রদলের অভ্যন্তরীন কোন্দলের জের ধরে গত রবিবার ত্রিমুখী সংঘর্ষে পাঁচ ছাত্রলীগ ও দ্ইু ছাত্রদল কর্মী আহতের খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় উপজেলা সদর ও কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাস সংলগ্ন এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছলে বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটেনি। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মনসুরিয়া মাদ্রাসা পয়েন্ট এবং কানাইঘাট বাজারে পুলিশি মোতায়েন করা হয়েছে। জানা যায়, গতকাল রবিবার দুপুর ১২টার দিকে কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাস থেকে ছাত্রলীগের টিলাগড় গ্র“প সমর্থিত ১০/১২  জন নেতাকর্মী ক্লাস শেষে বাড়ী ফেরার পথে কলেজ সংলগ্ন মনসুরিয়া মাদ্রাসা পয়েন্টে জড়ো হয়।

    এ সময় সে পথ দিয়ে ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী যাওয়ার সময় শিবিরের নেতাকর্মীরা ধর ধর বলে ধাওয়া দিলে সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটে। মূহুর্তের মধ্যে সংঘর্ষের বিষয়টি কলেজ ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়লে আতঙ্কিত ছাত্র-ছাত্রীদের দিকবিদিক ছুটোছুটি করতে দেখা গেছে। এসময় শিবিরের নেতাকর্মীদের হামলায় ছাত্রলীগ কর্মী আফজাল (১৭), জাহাঙ্গীর আলম (১৮), মামুন রশিদ (১৯) সহ ৫জন আহত হন।

    তাদের উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে ছাত্রলীগ ও শিবিরের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের সময় কলেজ থেকে ছাত্রদলের নেতাকর্মীর একসাথে বের হয়ে মনসুরিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন নন্দিরাই পশ্চিম জামে মসজিদের পাশে অভ্যন্তরীন কোন্দলের জের ধরে ছাত্রদলের আবুল বাশার এবং পৌর ছাত্রদলের সভাপতি রুহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক রুহুল আম্বিয়া সমর্থিত নেতাকর্মীদের মধ্যে সিনিয়র-জুনিয়র নিয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে কলেজ শাখা ছাত্রদল কর্মী নয়াখলা গ্রামের সোহেল আহমদ (১৯) রক্তাক্ত আহত হয়। এসময় তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে তারই চাচাতো ভাই যুবদল কর্মী রুবেল আহমদ (২০)ও আহত হন।

    ছাত্রদল কর্মী সুহেলের আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালে তাৎক্ষণিক পাঠানো হয়েছে। ছাত্রদলের রুহুল আমিন সমর্থিত নেতাকর্মীরা এ ঘটনার জন্য কলেজ শাখা ছাত্রদল কর্মী আব্দুল কাদির (২২) ও বদরুল ইসলামকে দায়ী করেছেন। ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনায় ছাত্রলীগ ও শিবিরের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি ছাত্রদলের দুই গ্র“পের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনার পর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা কানাইঘাট বাজারে এবং শিবির নেতাকর্মীরা মনসুরিয়া মাদ্রাসা পয়েন্টে অবস্থান নিতে দেখা গেছে।

    পুরো বিষয়টি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে থানার ওসি আব্দুল আউয়াল চৌধুরী জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত যে, মাস খানেক পূর্বে কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাসে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ছাত্রলীগ ও শিবিরের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সে সময় ২টি মোটর সাইকেলসহ বেশ কিছু দোকানপাট ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। রোজার ছুটি শেষে কলেজে পুনরায় ক্লাস শুরু হলে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে মূলত এ দুটি ছাত্র সংগঠনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন।

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here