ইউপি নির্বাচনে ২০দলীয় জোটে সমন্বয়ের অভাব

    0
    11

    আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,ফেব্রুয়ারীঃ দলীয় প্রতীকে প্রথম দফার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের আগে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের সঙ্গে বিএনপির ঐক্যবদ্ধ প্রার্থিতার প্রশ্নে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। জোটের সম্পর্ক অটুট রাখা এবং পরবর্তী ধাপগুলোতে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে তাদের যথাযথ মূল্যায়ন করা হবে- এই প্রত্যাশায় শরিক দলগুলোর নেতারা আপাতত প্রকাশ্যে মুখ খুলছেন না।

    এবার মোট ছয় ধাপে ৪ হাজার ২৭৯ ইউনিয়নে স্থানীয় সরকার পর্যায়ের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম ধাপে ৭৫২ ইউপি’র ভোটগ্রহণ হবে ২২ মার্চ। এরপর ৩১ মার্চ ৭১০টি, ২৩ এপ্রিল ৭১১টি, ৭ মে ৭২৮টি, ২৮ মে ৭১৪টি এবং ৪ জুন ৬৬০টি ইউপিতে ভোটগ্রহণ হবে।

    জোটগতভাবে নির্বাচন প্রসঙ্গে শরিক দল ডেমোক্রাটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি রেডিও তেহরানকে বলেন, ইতিমধ্যে শরিক দলগুলির মহাসচিব পর্যায়ে সভা হয়েছে এবং প্রার্থীতা সমন্বয়ের জন্য একটি কমিটিও করে দেয়া হয়েছে। সেভাবেই জোটের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে নেমেছেন।

    তবে ২০ দলীয় জোটের শরীক জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এস এম এম আলম বলেন, ধানের শীষ মার্কা নিয়ে যেখানেই কেউ নির্বাচন করতে চাচ্ছে সেখানে সরকারের নির্যাতন নেমে আসছে। এতে করে মনে হচ্ছে সরকার এবারও একটি একতরফা নির্বাচন করতে চাচ্ছে ।

    জোট সূত্র জানিয়েছে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে জোটের মহাসচিব পর্যায়ের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

    বৈঠকের শুরুতে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি- জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান ইউপি নির্বাচনের জোটের সমন্বয় করার কথা বলেন। এরপর ন্যাপ ভাসানীর গোলাম মোস্তফা আকন্দ ও লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান শরিকদের জন্য দু’এক জায়গায় ছাড় দেবার প্রস্তাব করেন।

    এর জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আপনারা নাম দেন। এ নিয়ে চেয়ারপারসনের সঙ্গেও কথা বলব।’ যোগ্য এবং উপযুক্ত হলে তা বিবেচনা করার আশ্বাস দেন তিনি।

    তবে, জোটের ওই বৈঠকে অংশগ্রহণকারী শরিক নেতাদের অনেকেই পুরোপুরি সন্তুষ্ট হতে পারেন নি বলে সভা সূত্রে জানা গেছে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি তার শরিক দলগুলোর চাওয়া-পাওয়াকে তেমন গুরুত্ব দেয়নি বলে শরিকদের বক্তব্যে আভাস পাওয়া গেছে।

    প্রথম দফার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে জোটের শরিকদের আশা পূরণ করতে পারেননি স্বীকার করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও ‘প্রার্থী তত্ত্বাবধায়নকারী’ মো. শাহজাহান বলেন, সব সময় সব ক্ষেত্রে প্রত্যাশা পূরণ করা সম্ভবপর হয়ে ওঠে না। কারণ বিএনপির একটি অনেক বড় রাজনৈতিক দল। তবে ভবিষ্যতে যোগ্যতা ও উপযুক্ততার ভিত্তিতে শরিকদের মূল্যায়ন করার বিষয়টি বিএনপি বিবেচনা করবে বলেও জানান তিনি।ইরনা

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here